ফেসবুক লাইভে স্ত্রীকে কুপিয়ে হত্যা; রায় আগামীকাল

অনলাইন ডেস্ক

ফেসবুক লাইভে স্ত্রীকে কুপিয়ে হত্যা; রায় আগামীকাল

ফেনীতে ফেসবুক লাইভে এসে এক গৃহবধূকে কুপিয়ে হত্যার ঘটনায় মামলার রায় হবে আগামীকাল বৃহস্পতিবার। তাহমিনা আক্তার নামে ওই গৃহবধূকে হত্যার রায় জেলা ও দায়রা জজ ড. বেগম জেবুন্নেছা ঘোষণা করবেন।

পারিবারিক কলহের জেরে ফেসবুক লাইফে এসে স্ত্রী তাহমিনা আক্তারকে কুপিয়ে হত্যা করেন স্বামী ওবায়দুল হক টুটুল। ২০২০ সালের ১৫ এপ্রিল ফেনী শহরের বারাহিপুর এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় তাহমিনার বাবা সাহাব উদ্দিন বাদী হয়ে ফেনী মডেল থানায় মামলা দায়ের করেন।


আরও পড়ুন

স্ত্রীকে নিয়ে অশালীন মন্তব্য, নেটিজেনদের আচরণে লজ্জিত সিয়াম

অত্যাধুনিক প্রযুক্তিসম্পন্ন ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা চালিয়েছে উত্তর কোরিয়া

মারাত্মক ঝুঁকিতে আফ্রিকার ১০ কোটিরও বেশি দরিদ্র মানুষ

কলেজছাত্রকে তুলে নিয়ে বিয়ে করা সেই তরুণী এখন নিজের বাড়ি


পরিবার সূত্র জানায়, প্রায় পাঁচ বছর আগে ফেনী পৌরসভার বারাহিপুর এলাকার গোলাম মাওলা ভূঁঞার ছেলে ওবায়দুল হক ভূঁঞা টুটুল কুমিল্লার চৌদ্দগ্রাম উপজেলার আকদিয়া গ্রামের সাহাব উদ্দিনের মেয়ে তাহমিনা আক্তারকে বিয়ে করেন। তাদের দেড় বছর বয়সী একটি মেয়ে রয়েছে। স্ত্রীকে হত্যার আগে ফেসবুক লাইভে এসে টুটুল সবার কাছে ক্ষমা চান এবং ঘটনার জন্য নিজেই দায়ী বলে স্বীকার করেন।

তবে পারিবারিক অশান্তির জন্য স্ত্রীকে দায়ী করেন তিনি।

news24bd.tv/এমি-জান্নাত 

পরবর্তী খবর

শিশুকে ‌‘ধর্ষণ করে’ বাঁশে ঝুলিয়ে রাখা শিশু আইসিইউতে

ফখরুল হাসান পলাশ, দিনাজপুর

শিশুকে ‌‘ধর্ষণ করে’ বাঁশে ঝুলিয়ে রাখা শিশু আইসিইউতে

আইসিইউতে শিশু।

দিনাজপুরের বিরল উপজেলায় ৮ বছরের শিশু ধর্ষণের শিকার হয়েছে। তাকে দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে আইসিইউতে লাইফ সাপোর্টে রাখা হয়েছে।

এ ঘটনায় জড়িত রাসেল হোসেন (২৫) নামে এক যুবককে আটক করেছে পুলিশ।

পরিবারের সদস্যদের তথ্য মতে, দ্বিতীয় শ্রেণির ওই ছাত্রীকে বৃহস্পতিবার বিকেলে তার বাবা-মা বাড়িতে রেখে বের হয়ে যান। দুই ঘণ্টা পর বাড়িতে ফিরে তারা তাদের মেয়েকে বাঁশে ঝুলন্ত অবস্থায় পায়। উদ্ধার করে প্রথমে তাকে বিরল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়। কিন্তু সেখানকার চিকিৎসক তাকেদিনাজপুরের এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হসপাতালে পাঠায়। মেয়েটি বর্তমানে আইসিইউতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রয়েছে। এখন পর্যন্ত শিশুটির জ্ঞান ফেরেনি।

বিরল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ফখরুল ইসলাম জানান, শিশুটিকে ধর্ষণের পর মেরে ফেলার চেষ্টা করা হয়েছে। পুলিশ আসামিদের শনাক্ত করার চেষ্টা করছে। রাসেল নামে এক প্রতিবেশীকে আটক করে থানায় জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। এ বিষয়ে মামলা দায়েরের প্রক্রিয়া চলছে।

আরও পড়ুন: 


৪ অভিজ্ঞ ছাড়াই ওয়েস্ট ইন্ডিজের সঙ্গে লড়বে পাকিস্তান


news24bd.tv/ তৌহিদ

পরবর্তী খবর

সম্রাটের সহযোগী শীর্ষ সন্ত্রাসী অস্ত্রসহ গ্রেফতার

অনলাইন ডেস্ক

সম্রাটের সহযোগী শীর্ষ সন্ত্রাসী অস্ত্রসহ গ্রেফতার

যুবলীগের বহিষ্কৃত নেতা শীর্ষ সন্ত্রাসী মেহেদী আলম (৪২) ও তার এক সহযোগীকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব। শুক্রবার ভোরে রাজধানীর পল্টন এলাকার একটি বাসা থেকে বিদেশি পিস্তল, গুলি ও ইয়াবাসহ তাদের গ্রেফতার করা হয়। মেহেদী আলমের সহযোগীর নাম যুবরাজ খান (৩২)। পল্টন, মতিঝিল, শাহজাহানপুর ও তার আশপাশের এলাকায় আধিপত্য বিস্তার, মাদক ব্যবসা নিয়ন্ত্রণ, চাঁদাবাজি ও সন্ত্রাসী কর্মকান্ড পরিচালনা করতেন মেহেদী ।তার নামে ঢাকার বিভিন্ন থানায় অস্ত্রসহ ৫টি মামলা রয়েছে। 

অভিযানের সময় একটি বিদেশী পিস্তল, একটি ম্যাগজিন, দুই রাউন্ড গুলি ও ৩০০ পিস ইয়াবা ট্যাবলেট উদ্ধার করা হয়। এ ছাড়াও সেখান থেকে বিপুল পরিমান দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র উদ্ধার করা হয়।

র‌্যাব জানায়, মতিঝিল এলাকার শীর্ষ সন্ত্রাসী মেহেদী ও তার সহযোগী যুবরাজ। তাদের বিরুদ্ধে একাধিক মামলা রয়েছে। মেদেহী ক্যাসিনো সম্রাট খ্যাত এবং যুবলীগের ঢাকা মহানগর দক্ষিণের বহিষ্কৃত সভাপতি ইসমাইল চৌধুরী ওরফে সম্রাটের অন্যতম সহযোগী। সহযোগীদের নিয়ে মেহেদী গড়ে তুলেছিলেন চাঁদাবাজি, ফুটপাথ দখল করে চাঁদা আদায়সহ নানা অপরাধের আস্তানা। নিজের ক্ষমতার প্রমাণ দিতে পল্টনে একটি বাড়ি ভাড়া নিয়ে দখল করেন। সেখান থেকে সহযোগীদের মাধ্যমে নানা অপরাধ করতেন। সম্রাট গ্রেফতারের পর গাঁ ঢাকা দেন তিনি। দীর্ঘদিন আত্মগোপনে থাকার পর আবারও সক্রিয় হন মেহেদী।

শুক্রবার এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে র‌্যাব-৩ জানায়, মেহেদী ও তার সহযোগীরা পল্টনের হোটেলে খাবার খেয়ে বিল না দিয়ে চলে যেতে চান। এতে তাদের বাধা দেওয়ায় হোটেল কর্মীদের মারধর করেন। এমন অভিযোগে পল্টনের একটি বাড়িতে অভিযান চালিয়ে মেহেদী ও তার সহযোগী যুবরাজকে গ্রেফতার করা হয়। এ সময় তাদের সঙ্গে থাকা আরও তিন সহযোগী পালিয়েছে। তাদেরকে গ্রেফতারে অভিযান চালাচ্ছে র‌্যাব।

আরও পড়ুন:

গণপরিবহনে শিক্ষার্থীদের হাফ ভাড়া কার্যকর

হাফ পাস শুধুমাত্র ঢাকায় কার্যকর হবে বললেন এনা


 

র‌্যাব জানায়, মিথিলা এন্টারপ্রাইজের নামে পল্টন এলাকায় মেহেদী মোটরসাইকেল পার্কিংয়ে চাঁদা আদায় করতেন। তার কাছে ২টি প্রেস আইডি কার্ড পাওয়া যায়, যা সাধারণ জনগণকে হয়রানি ও ভয়ভীতি প্রদর্শন করার জন্য ব্যবহার করতেন। সাধারণ মানুষকে ফাঁসাতে বিভিন্ন ধরনের সিল ব্যবহার করতেন তিনি। ভয়ভীতি দেখাতে কখনো কখনো নিজেদেরকে সাংবাদিক পরিচয় দিতেন মেহেদী ও তার সহযোগীরা। 

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে পাওয়া তথ্যের বরাত দিয়ে র‌্যাব জানায়, মেহেদী চাঁদাবাজি ও সন্ত্রাসী কর্মকান্ড পরিচালনা করার কাজে এসব অবৈধ অস্ত্রসমূহ ব্যবহার করে আসছিল। মেহেদীর নেতৃত্বে তার সহযোগীরা অস্ত্র প্রদর্শন করে ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে চাঁদা আদায় করত এবং সাধারণ জনগণকে নির্যাতন ও হয়রানি করত।

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর

‘আপত্তিকর অবস্থায়’ ধরা পুলিশ পরিদর্শক প্রত্যাহার

অনলাইন ডেস্ক

‘আপত্তিকর অবস্থায়’ ধরা পুলিশ পরিদর্শক প্রত্যাহার

আপত্তিকর অবস্থায় ধরা, প্রতীকী ছবি।

সিলেট আদালতে নিজ কক্ষে নারী কনস্টেবলের সঙ্গে ঘনিষ্ঠ হওয়া পুলিশ পরিদর্শক (ইন্সপেক্টর) প্রদীপ কুমার দাসকে প্রত্যাহার করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (২ ডিসেম্বর) তাকে পুলিশ লাইনে সংযুক্ত করা হয়। এছাড়াও তার অভিযোগের তদন্ত করে পরবর্তী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

সিলেট মহানগর পুলিশ কমিশনার নিশারুল আরিফ এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

অভিযুক্ত প্রদীপ কুমার দাস মহানগর পুলিশের আদালত পরিদর্শকের দায়িত্বে ছিলেন।

প্রদীপকে নিজ কক্ষে এক নারী কনস্টেবলের সঙ্গে আপত্তিকর অবস্থায় পাওয়া গেছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

এ ঘটনায় অভিযুক্ত নারী পুলিশ সদস্যের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে বলে জানিয়েছেন সিলেট মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত উপ কমিশনার (গণমাধ্যম) বিএম আশরাফউল্লাহ তাহের।

মহানগর পুলিশ সূত্রে জানা যায়, বুধবার রাতে ছুটিতে থাকা এক নারী কনস্টেবলকে রাতের অন্ধকারে কোর্ট বিল্ডিং এ নিজ কক্ষে ডেকে আনেন প্রদীপ কুমার দাস। রাত ৯টার দিকে আদালত পরিদর্শকের কক্ষের দরজা খোলা এবং ভেতরে আলো নেভানো দেখে অন্য পুলিশ সদস্যরা সেই কক্ষে ঢুকে আলো জ্বালালে দুজনকে আপত্তিকর অবস্থায় দেখতে পান।

আরও পড়ুন:


ফেসবুকে মন্ত্রীর পোস্ট, ‘মন চাইছে আত্মহত্যা ক‌রি’


news24bd.tv/ তৌহিদ

পরবর্তী খবর

মাতলামির দায়ে ১০ দিনের কারাদণ্ড

অনলাইন ডেস্ক

মাতলামির দায়ে ১০ দিনের কারাদণ্ড

মদ খেয়ে মাতলামির দায়ে জাহাঙ্গীর আলম খান (৩৫) নামের কথিত এক সাংবাদিককে ১০ দিনের বিনাশ্রম কারাদণ্ডাদেশ দিয়েছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত।তিনি ডিএইচএন নামের একটি ইউটিউব চ্যানেল খুলে নিজেকে সাংবাদিক পরিচয় দিয়ে আসছিলেন।দণ্ডপ্রাপ্ত জাহাঙ্গীর আলম খান হিলির উত্তর বাসুদেবপুর গ্রামের আব্দুল খালেকের ছেলে।

বৃহস্পতিবার (২ ডিসেম্বর) সকালে হাকিমপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ নূর-এ আলম এ আদেশ দেন। হাকিমপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) খায়রুল বাশার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

ইউএনও নূরে আলম বলেন, বুধবার (১ ডিসেম্বর) রাতে হিলি স্থলবন্দরের চারমাথা মোড়ে মদ খেয়ে এলাকাবাসীদের সঙ্গে মাতলামি ও বিশৃঙ্খল পরিস্থিতি সৃষ্টি করছিলেন জাহাঙ্গীর আলম খান। এলাকাবাসী পরে বিষয়টি হাকিমপুর থানা পুলিশকে জানায়। পরে পুলিশ ঘটনাস্থল এসে তাকে মাতলামি অবস্থায় আটক করে থানায় নিয়ে যায়। বৃহস্পতিবার সকালে ভ্রাম্যমাণ আদালত বসিয়ে তাকে ১০ দিনের বিনাশ্রম কারাদণ্ডাদেশ দেওয়া হয়।

আরও পড়ুন:

গণপরিবহনে শিক্ষার্থীদের হাফ ভাড়া কার্যকর

হাফ পাস শুধুমাত্র ঢাকায় কার্যকর হবে বললেন এনা


 

ওসি খায়রুল বাশার জানান, আটক ব্যক্তির বিরুদ্ধে মাতলামিসহ ডিএইচএন নামের একটি ইউটিউব চ্যানেল খুলে নিজেকে সাংবাদিক পরিচয় দিয়ে বিভিন্ন জনপ্রতিনিধি ও সরকারি দপ্তরে অর্থ আদায়ের অভিযোগ রয়েছে। দুপুরে আদালতের মাধ্যমে তাকে দিনাজপুর কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর

বাসের ‘ওয়ে-বিল’ বাতিল চেয়ে আইনি নোটিশ

অনলাইন ডেস্ক

বাসের  ‘ওয়ে-বিল’ বাতিল চেয়ে আইনি নোটিশ

ছবি সংগৃহীত

বাসের ‘ওয়ে-বিল’ বন্ধ ও বাতিল চেয়ে আইনি নোটিশ পাঠানো হয়েছে। আজ বৃহস্পতিবার (০২ ডিসেম্বর) এ তথ্য জানিয়েছেন নোটিশ দাতা সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী আবু তালেব।

এর আগে বুধবার (০১ ডিসেম্বর) সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ের (সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগ) সচিব, বাংলাদেশ রোড ট্রান্সপোর্ট অথরিটির (বিআরটিএ) চেয়ারম্যান, বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন অধিদপ্তরের (বিআইডব্লিউটিএ) চেয়ারম্যান বরাবরে এ নোটিশ পাঠানো হয়।

নোটিশে বলা হয়-

এক. ঢাকাসহ সারাদেশে যেসব গণপরিবহন পেট্রোল, ডিজেল ও গ্যাসে চলে তা নির্ধারণ করে প্রতিটি গণপরিবহনে বিআরটিএর লোগোসহ পরিবহনের সামনে ও পিছনে নেমপ্লেট আকারে সাঁটাতে হবে, যাতে যাত্রীরা বুঝতে পারে।

দুই. ঢাকা শহরসহ দেশের সব রুটের স্টপেজ টু স্টপেজের কোথাকার ভাড়া কত তা নির্ধারণ করে প্রচলিত আইন অনুযায়ী সব পরিবহনের মালিক শ্রমিকদের ভাড়া চার্ট টানানো বাধ্যতামূলক করতে হবে। একইসঙ্গে সুনির্দিষ্ট স্টপেজে সাইনবোর্ড কিংবা ইলেকট্রনিকস বিলবোর্ডে সেগুলো লিখে ডিসপ্লে করতে হবে।

আরও পড়ুন


এইচএসসি ও সমমান পরীক্ষা শুরু আজ

প্রকাশ্যে কাউন্সিলর হত্যা: এবার ‘বন্দুকযুদ্ধে’ প্রধান আসামি নিহত


তিন. ভাড়া নির্ধারণের আইনগত ভিত্তি কি? মালিকদের দাবির মুখেই ভাড়া বাড়ানোর অনুমোদন দেওয়া হয়। কিলোমিটার প্রতি বাস ও লঞ্চের ভাড়া নির্ধারণে সংসদ প্রণীত আইনের অধীনে কখন ও কত বছর পরে ভাড়া বৃদ্ধি করা হবে এ মর্মে কোন বিধি রয়েছে তার স্পষ্ট ব্যাখ্যা দিতে হবে।

চার. ছাত্র-ছাত্রীদের বাস ও লঞ্চ ভাড়া অর্ধেক নেওয়ার সিদ্বান্ত অনতিবিলম্বে বিজ্ঞাপন আকারে প্রকাশ করতে হবে।

পাঁচ. সারাদেশে কতগুলো বাস ও লঞ্চ তথা গণপরিবহনের ফিটনেস সার্টিফিকেট আছে ও কতগুলোর নেই তা জানাতে হবে এবং কত সংখ্যক ড্রাইভারের লাইসেন্স আছে সেটিও জানাতে হবে।

ছয়. ‘ওয়ে-বিল’ মানুষ ঠকানোর একটি হাতিয়ার মাত্র। এটার কথিত প্রয়োগ শিগগিরই বন্ধ ও বাতিল করতে হবে।

সাত. আনুসঙ্গিক অন্যান্য সব কাজ যা যাত্রীকল্যাণে করা দরকার তা দ্রুত বাস্তবায়ন করতে হবে।

নোটিশ পাওয়ার সাত দিনের মধ্যে এ বিষয়ে ব্যবস্থা গ্রহণ করতে বলা হয়েছে । অন্যথায় রিট দায়ের করা হবে বলে জানিয়েছেন আইনজীবী আবু তালেব।  

news24bd.tv/ কামরুল 

পরবর্তী খবর