যশোরের দুঃখ ভবদহে আবার জলাবদ্ধতা, তলিয়ে গেছে অনেক গ্রাম

রিপন হোসেন, যশোর

যশোরের দুঃখ ভবদহে আবার জলাবদ্ধতা, তলিয়ে গেছে অনেক গ্রাম

যশোরের দুঃখগাঁথা ভবদহ আবারও গ্রামের পর গ্রামকে প্লাবিত করে মানুষের জীবনকে বিষিয়ে তুলেছে। যশোর-খুলনা-সাতক্ষীরা জেলার ৭টি উপজেলার ৫৯টি ইউনিয়নের প্রায় ৪শ’ গ্রামের ১৫ লক্ষ মানুষের জীবন ভবদহের অভিশাপে বিপন্ন হয়ে উঠেছে। 

সাধারণ মানুষ যশোরের অভয়নগরের আমডাঙ্গা খাল সংস্কার আর টাইডাল রিভার ম্যানেজমেন্ট (টিআরএম) বা জোয়ারাধার বাস্তবায়নের মধ্য দিয়ে অভিশাপের এ গ্লানি থেকে মুক্ত হতে পারবে বলে জানিয়েছে।

ভুক্তভোগিদের অভিযোগ, প্রকল্পের নামে লুটপাট, দুর্নীতি, স্বজনপ্রতি আর স্থানীয় রাজনৈতিক নেতা ও পানি উন্নয় বোর্ডের খামখেয়ালির কারণে জলাবদ্ধতার স্থায়ী সমাধান হয়নি।

আবারও জলাবদ্ধতার শিকার যশোরের ভবদহ এলাকা। গ্রামের পর গ্রাম পানিতে তলিয়ে গেছে। বাড়িঘরের কোথাও হাটুপানি। কোথাও কোমর পানি। রাস্তা সংলগ্ন প্রতিটি বাসাবাড়িতে যাতায়াতের একমাত্র মাধ্যমে বাঁশের সাঁকো। আর দূর গ্রামের বাড়িতে যাবার বাহন নৌকা। পাকাবাড়িতে কোনোরকম থাকার ব্যবস্থা থাকলেও কাঁচাবাড়িতে মানুষের বসবাস রুপকথার গল্পকেও হার মানায়।

পলি জমে এ অঞ্চলের চারটি নদীর তলদেশ উচু হওয়ায় পজায়ারের পানি উপচে ভাসিয়ে দিচ্ছে আশপাশের গ্রামগুলোর জনবসতি, চাষের জমি, খাল, বিল আর মাছের ঘের। ইতিমধ্যে ভবদহ এলাকার ৪০ গ্রামে ঢুকেছে পানি। প্রতিদিনই তা বাড়ছে। ঘরবাড়িতে পানি ঢুকে পড়ায় এ অঞ্চলের প্রায় দুই লাখ মানুষ অবর্ননীয় কষ্টের মধ্যে পড়েছেন। করোনার কারণে কর্ম নেই। রান্নার জায়গা নেই। ফলে মানবেতর জীবন যাবন করছেন স্থানীয়রা।

আরও পড়ুন


কানাডায় কনসাল জেনারেল নাইম উদ্দিনকে বিদায় সংবর্ধনা

বাংলাদেশ টিমের সংবাদ সম্মেলন বয়কটের কারণ জানাল সাংবাদিকরা

শীর্ষে উঠার লড়াই, পিএনজির বিপক্ষে বাংলাদেশের সম্ভাব্য একাদশ

পূজামণ্ডপে কোরআন রাখা কে এই ইকবাল?


ভুক্তভোগীদের অভিযোগ, প্রকল্পের নামে লুটপাট, দুর্নীতি, স্বজনপ্রতি আর স্থানীয় রাজনৈতিক নেতা ও পানি উন্নয়ন বোর্ডের খামখেয়ালির কারণে জলাবদ্ধতার স্থায়ী সমাধান হয়নি। এমন পরিস্থিতিতে জলাবদ্ধতার স্থায়ী সমাধানে বিল কপালিয়ায় টাইডাল রিভার ম্যানেজমেন্ট (টিআরএম) বাস্তবায়নের দাবি তাদের।

তবে পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মো: তাওহীদুল ইসলাম বরাবরের মতো বলছেন, প্রকল্প হাতে নেয়া হয়েছে। দ্রুত সময়ের মধ্যে তা বাস্তবায়ন করা হবে।

আর জেলা প্রশাসক তমিজুল ইসলাম খান বলছেন, তাদের দিক থেকেও উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। দ্রুত যেন জলাবদ্ধতা সমস্যার সমাধান হয় সে জন্য সব ধরণের চেষ্টা করা হচ্ছে।

প্রতিবছর জেলার মনিরামপুর, কেশবপুর, অভয়নগর, ডুমুরিয়া, ফুলতলা ও যশোর সদর উপজেলার ৪ শতাধিক গ্রামের ১০ লক্ষাধিক মানুষ জলাবদ্ধার শিকার হয়ে মানবেতর জীবন যাপন করছে। তাই ত্রাণ বা আশ্বাস নয়, অবিলম্বে জলাবদ্ধতার স্থায়ী সমাধান চান ভবদহ অঞ্চলের মানুষ।

news24bd.tv এসএম

পরবর্তী খবর

কমিউনিটি সেন্টার থেকে দুই বাবুর্চির লাশ উদ্ধার

অনলাইন ডেস্ক

কমিউনিটি সেন্টার থেকে দুই বাবুর্চির লাশ উদ্ধার

একটি বিয়ের সেন্টার থেকে দুই জন বাবুর্চির লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। সিলেটের কানাইঘাটে আজ বুধবার সকাল ৭টার দিকে উপজেলার দক্ষিণ বাণীগ্রাম ইউনিয়নের গাছবাড়ী বাজারস্থ ‘আনন্দ কমিউনিটি সেন্টার’ থেকে ওই দুই বাবুর্চির লাশ উদ্ধার করা হয়। গুরুতর অসুস্থ অবস্থায় উদ্ধার করা হয়েছে আরেকজন বাবুর্চিকে। এদিকে জোড়া লাশ উদ্ধারের ঘটনায় রহস্য দেখা দিয়েছে।

নিহতরা হলো- কানাইঘাট উপজেলার নয়াগ্রামের মৃত রহমত উল্লাহ’র ছেলে সুহেল আহমদ (২৮) ও ওসমানীনগর উপজেলার তাহিরপুর গ্রামের মৃত আক্কাছ আলীর মেয়ে সালমা বেগম (৪০)। অসুস্থ অবস্থায় উদ্ধার হওয়া বাবুর্চি হলেন কানাইঘাট উপজেলার ব্রাহ্মণগ্রামের নাজিম উদ্দিন। তাকে ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। 

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, গতকাল মঙ্গলবার রাতে একটি বিয়ের অনুষ্ঠানের রান্না করার জন্য আনন্দ কমিউনিটি সেন্টারে যান সুহেল আহমদ, সালমা বেগম ও নাজিম উদ্দিন। রাতে কাজ শেষ করে তারা কমিউনিটি সেন্টারের ২য় তলার একটি ঘরে শুয়ে পড়ে। আজ বুধবার সকালে ঘুম থেকে উঠতে দেরি দেখে বিয়ের আয়োজনকারী জসিম উদ্দিন তাদের ডাকতে যান।

আরও পড়ুন

দক্ষিণ কোরিয়ায় ৬৯ ছাত্রের বিরুদ্ধে কিশোরীকে দলবদ্ধভাবে ধর্ষণের অভিযোগ

কুয়েট শিক্ষকের রহস্যজনক মৃত্যু, তদন্ত চেয়ে শিক্ষার্থীদের অবস্থান

পরে ভেতর থেকে সাড়া না পেয়ে দরজা ভেঙ্গে ঘরে ঢুকে তিনজনকে অচেতন অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখেন। এসময় পুরো রুম ধোঁয়ায় আচ্ছন্ন ছিল। আশঙ্কাজনক অবস্থায় তাদের উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যাওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক সুহেল ও সালমাকে মৃত ঘোষণা করেন। আর উন্নত চিকিৎসার জন্য ওসমানী হাসপাতালে প্রেরণ করা হয় নাজিমকে। 

পুলিশের ধারণা মশার কয়েল জ্বালিয়ে ছোট একটি রুমে তিনজন ঘুমিয়ে ছিলো। ধোঁয়া ও কয়েলের বিষাক্ততার কারণে তারা মারা যেতে পারেন।
 
কানাইঘাট থানার পরিদর্শক (তদন্ত) জাহিদুল হক জানান, ‘কী কারণে তাদের মৃত্যু হয়েছে তা ময়নাতদন্ত রিপোর্ট আসার পর নিশ্চিত হওয়া যাবে। তবে প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হচ্ছে- ধোঁয়া ও কয়েলের বিষাক্ততা থেকে তাদের মৃত্যু হতে পারে।

 news24bd.tv/এমি-জান্নাত   

পরবর্তী খবর

বেকারত্ব ঘোচাতে ড্রাইভিং প্রশিক্ষণ নিচ্ছেন শিক্ষিত তরুণ-তরুণীরা

হৃদয় খান, নরসিংদী:

নরসিংদীতে বেকারত্ব ঘোচাতে ড্রাইভিং প্রশিক্ষণ নিচ্ছেন শিক্ষিত তরুণ-তরুণীরা। হতদরিদ্ররা পাচ্ছেন বিনামূল্যে এই সেবা। দক্ষ ও পেশাদার চালক তৈরি করাই মূল লক্ষ্য বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষ। 

নরসিংদীতে সেইপ, ওকাপ, আনসার ও বেসিক প্রশিক্ষণ এই চারটি প্রকল্পের অধীনে ড্রাইভিং প্রশিক্ষণ দিচ্ছে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্পোরেশন (বিআরটিসি)। হতদরিদ্র শিক্ষার্থীরাও বিনামূল্যে পাচ্ছেন এই সেবা।  এরই মধ্যে এ সেবার আওতায় ১ হাজার শিক্ষার্থী প্রশিক্ষণ নিয়ে হয়ে উঠেছেন দক্ষ চালক।

চাকরী না হওয়ায় বেকারত্ব ঘোচাতে বিকল্প পেশা হিসেবে ড্রাইভিং প্রশিক্ষণ নিচ্ছেন শিক্ষিত এসব তরুণীরা।

দূর্ঘটনা রোধে সঠিক ট্রাফিক আইন ও দক্ষ চালক হিসেবে দেশে ও প্রবাসে এই পেশায় কাজ করার জন্যই এই প্রশিক্ষণ নিচ্ছেন বলে জানিয়েছেন শিক্ষার্থীরা।

সংশ্লিস্টরা জানান, হতদরিদ্রদের  জন্য বিনামূল্যে প্রশিক্ষণ দেওয়ার পাশাপাশি  ফ্রি ড্রাইভিং লাইসেন্স প্রদান করা হচ্ছে ।

শিক্ষিত তরুণ-তরুণীরা যদি এটাকে পেশা হিসেবে বেছে নেয় তাহলে সড়কে  দূর্ঘটনা অনেকটা কমবে বলে মনে করেন  ট্রাফিকের এই কর্মকর্তা।

সড়ক দূর্ঘটনা রোধে সারাদেশে ১ লাখ দক্ষ চালক গড়ে তোলার উদ্যোগ নিয়েছে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্পোরেশেন (বিআরটিসি)।

আরও পড়ুন


বাসে আগুন দেয়ার ঘটনায় মামলা, আসামি ৮ শতাধিক

টেস্ট ছাড়া কেউ দেশে এলে ১৪ দিনের কোয়ারেন্টিন: স্বাস্থ্যমন্ত্রী


news24bd.tv/ কামরুল 

পরবর্তী খবর

বেগমগঞ্জে দেশীয় অস্ত্র নিয়ে ২ কিশোরসহ গ্রেপ্তার ৪

নোয়াখালী প্রতিনিধি

বেগমগঞ্জে দেশীয় অস্ত্র নিয়ে ২ কিশোরসহ গ্রেপ্তার ৪

প্রতীকী ছবি

নোয়াখালী বেগমগঞ্জ উপজেলা থেকে দেশীয় অস্ত্রসহ ৪জনকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করেছে এলাকাবাসী। এদের মধ্যে দুই জন কিশোর রয়েছে।

আটককৃতরা হলো- সেনবাগ উপজেলার মো. সোহেল (১৮) বেগমগঞ্জ মো.জহিরুল ইসলাম (১৮) ফিরোজ আহম্মদ (১৫) ও মো.নেয়ামত উল্যাহ (১৬)।

বুধবার বেলা ১টার দিকে ৪ আসামিকে গ্রেপ্তার দেখিয়ে নোয়াখালী আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে।

আরও পড়ুন


বাসে আগুন দেয়ার ঘটনায় মামলা, আসামি ৮ শতাধিক

টেস্ট ছাড়া কেউ দেশে এলে ১৪ দিনের কোয়ারেন্টিন: স্বাস্থ্যমন্ত্রী


বেগমগঞ্জ থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মো.সফিকুল ইসলাম এসব তথ্য নিশ্চিত করেন। তিনি বলেন, স্থানীয়দের অভিযোগ গ্রেফতারকৃত ৪ আসামি ওই স্থানে সন্ত্রাসী কার্যক্রম করতে অবস্থান নেয়। বিষয়টি টের তারা তাদের  আটক করে। এসময় আটককৃতদের কাছ থেকে কিরিচ, ছোরা,বেøড জব্দ করে পুলিশ। 

news24bd.tv/ কামরুল 

পরবর্তী খবর

খাবারের সঙ্গে নেশা দ্রব্য খাইয়ে টাকা ও স্বর্ণালঙ্কার লুট

নোয়াখালী প্রতিনিধি

খাবারের সঙ্গে নেশা দ্রব্য খাইয়ে টাকা ও স্বর্ণালঙ্কার লুট

নোয়াখালী

নোয়াখালীর সেনবাগ উপজেলার ছাতারপাইয়া গ্রামে রাতের খাবারের সঙ্গে নেশা জাতিয় দ্রব্য মিশিয়ে একই বাড়ির ৪টি পরিবারের নগদ টাকা, স্বর্ণালঙ্কার মূল্যবান মালামাল লুট করে নিয়ে গেছে অজ্ঞাত দৃবৃত্তরা। 

ঘটনাটি মঙ্গলবার  রাতে সেনবাগ উপজেলার পশ্চিম ছাতারপাইয়া গ্রামে। 

বাড়ির লোকজন জানায়, ওই বাড়ির ৪টি পরিবারের সদস্য রাতের খারাব খেয়ে ঘুমিয়ে পড়ে। বুধবার সকালে তারা ঘুম থেকে না ওঠায় বাড়ির অপর সদস্যরা ডাকাডাকি করে কোণ সাড়াশব্দ না দেখে ঘরের দরজা ভেঙ্গে তাদেরকে উদ্ধার করে সোনাইমুড়ী দি ল্যাব হাসপাতালে ভর্তি করান।

আরও পড়ুন


বাসে আগুন দেয়ার ঘটনায় মামলা, আসামি ৮ শতাধিক

টেস্ট ছাড়া কেউ দেশে এলে ১৪ দিনের কোয়ারেন্টিন: স্বাস্থ্যমন্ত্রী


বুধবার দুপুরে সেনবাগ থানার এস আই আরিপ হোসেন, স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আবদুর রহমান ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। 

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেন স্থানিয় ইউনিয়ন পরিষদে চেয়ারম্যান আবদুর রহমান। 

news24bd.tv/ কামরুল 

পরবর্তী খবর

স্বামীর সঙ্গে গাঁজা বিক্রি করতো স্ত্রীও, র‌্যাবের হাতে ধরা

বেলাল রিজভী, মাদারীপুর

স্বামীর সঙ্গে গাঁজা বিক্রি করতো স্ত্রীও, র‌্যাবের হাতে ধরা

মাদারীপুরে ১২ কেজি গাঁজাসহ মাদক ব্যবসায়ী স্বামী-স্ত্রীকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-৮, সিপিসি-৩ মাদারীপুর ক্যাম্পের একটি বিশেষ দল।

বুধবার (১ ডিসেম্বর) সকালে কোম্পানী অধিনায়ক স্কোয়াড্রন লীডার মোহাম্মদ সাদেকুল ইসলামের নেতৃত্বে অভিযান চালিয়ে সদর উপজেলার আছমত আলী খান সেতুর টোল প্লাজার সামনে থেকে স্বামী-স্ত্রীকে গ্রেফতার করা হয়। এসময় তাদের কাছ থেকে গাঁজাও উদ্ধার করে র‌্যাব।

প্রেস বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে র‌্যাব জানায়, গোয়েন্দা সংবাদের ভিত্তিতে বুধবার সকাল ৬টার দিকে শরীয়তপুর-মাদারীপুর মহাসড়কের আছমত আলী খান সেতুর টোল প্লাজার সামনে অভিযান পরিচালনা করা হয়। এসময় জিএস ট্রাভেলস নামের একটি বাস তল্লাশী করে মো. নুর নবী (৬৫) এবং তার স্ত্রী খালেদা বেগমকে (৪৫) গাঁজাসহ হাতে নাতে গ্রেফতার করে র‌্যাব সদস্যরা।

গ্রেফতারকৃতরা চট্টগ্রাম জেলার সীতাকুন্ড থানার হাসনাবাদ গ্রামের বাসিন্দা। এসময় আটককৃত স্বামী-স্ত্রীর কাছ থেকে ১২কেজি গাঁজা, ১টি মোবাইল, ১টি সীমকার্ডসহ মাদক ক্রয়-বিক্রয়কৃত ২ হাজার ৮‘শ টাকা উদ্ধার করা হয়।

আসামিদেরকে জিজ্ঞাসাবাদে র‌্যাব জানতে পারে, তারা স্বামী-স্ত্রী উভয় যোগসাজসে দীর্ঘদিন ধরে চাঁদপুর ঘাট ব্যবহার করে গোপালগঞ্জ জেলাসহ অন্যান্য স্থানে গাঁজাসহ বিভিন্ন প্রকার মাদকদ্রব্য পরিবহন করে আসছিল। আসামিদেরকে উদ্ধারকৃত গাঁজা ও অন্যান্য আলামতসহ মাদারীপুর সদর মডেল থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে। এ ব্যাপারে মাদারীপুর সদর মডেল থানায় একটি মাদক মামলা দায়ের করা হয়েছে।

আরও পড়ুন


১৫ মামলাসহ ধর্ষণ ও হত্যা মামলায় চেয়ারম্যানের ফাঁসির দাবি

news24bd.tv এসএম

পরবর্তী খবর