কার্টন ভর্তি নারীর মরদেহ রহস্য উদঘাটন

সারারাত যৌনকর্মে সময় না দেয়ায় হত্যা!

অনলাইন ডেস্ক

সারারাত যৌনকর্মে সময় না দেয়ায় হত্যা!

সম্প্রতি রাজধানীর ভাটারা এলাকায় সড়কের ফুটপাথে কার্টন ভর্তি এক নারীর মরদেহ পাওয়া যায়। সেই ঘটনার রহস্য উদঘাটন করেছে গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)। এবং এমন নির্মম ঘটনা যে ঘটিয়েছে তাকেও গ্রেপ্তার করেছে ডিবি পুলিশ।

খুন হওয়া নারী একটি গার্মেন্টসে চাকরি করতেন। ইচ্ছে হলে মাঝেমধ্যে পরিচিতদের সঙ্গে অর্থের বিনিময়ে একান্তে লিপ্ত হতেন। এমন কর্মই তার কাল হয়ে দাঁড়ায়। খুন হন নির্মমভাবে।

এই ঘটনা যে যুবক ঘটিয়েছে তার নাম আব্দুল জব্বার (২৫)। পেশায় গাড়ির গ্যারেজের কর্মী। ঘটনার রহস্য উদঘাটনে প্রযুক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে তাকে শনাক্ত করার পরেই গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জ থেকে তাকে গ্রেপ্তার করে ঢাকায় আনা হয়েছে।

আরও পড়ুন:


অপহরণ ও ধর্ষণের অভিযোগে গ্রেপ্তার ১

পূজামণ্ডপে কোরআন রাখা কে এই ইকবাল?

পূজামণ্ডপে কোরআন শরিফ রেখে গদা নিয়ে যায় ইকবাল

এস কে সিনহাসহ ১১ জনের মামলার রায় আজ


ডিবি পুলিশ জানিয়েছে, ওই নারী গার্মেন্টসে চাকরি করলেও তিনি অনিয়মিত যৌনকর্মী। তবে যে কারও সঙ্গে সময় কাটান না তিনি, কেবল পূর্ব পরিচিত হলেই টাকার বিনিময়ে একান্তে লিপ্ত হন। গ্রেপ্তার করা আব্দুল জব্বার তার পূর্ব পরিচিত হওয়ায় অনৈতিক কাজে লিপ্ত হতে ঘটনার দিন বিকেলে যমুনা ফিউচার পার্ক এবং ফুটপাতের ফুচকার দোকানে ঘোরাঘুরি করে। পরে সন্ধ্যায় আব্দুল জব্বারের সঙ্গে তার ভাড়া বাসায় যায়। এদিকে ওই নারীকে বাসায় আনার পরিকল্পনায় আগেই নিজের স্ত্রী-সন্তানকে শ্বশুরবাড়িতে পাঠিয়ে দিয়েছিল আব্দুল জব্বার।

আরও জানান যায়, ওই নারীকে এক হাজার টাকা চুক্তিতে সারারাতের জন্য বাসায় নিয়ে যাওয়া হয়েছিল। সেই মোতাবেক সন্ধ্যায় বাসায় গিয়েই অনৈতিক কাজে লিপ্ত হয় তারা। এক পর্যায়ে ওই নারী চুক্তির টাকা চান এবং তিনি নিজ বাসায় চলে যেতে যান। এদিকে জব্বারে দাবি করেন তার সঙ্গে সারারাত সময় দিতে হবে। সেই চাহিদা অনুযায়ী ওই নারী অস্বীকৃতি জানালে ক্ষিপ্ত হয়ে তার গলা টিপে হত্যা করে। হত্যার পর ওই নারীর মুখ ঝলসে দেওয়া হয়। এর পর তার মরদেহ কার্টনভর্তি করে সড়কের ফুটপাতে ফেলে দেওয়া হয়। গত ০৮ অক্টোবর দিনগত রাতে গা শিউরে উঠার মতো এমন নির্মম ঘটনা ঘটে।

হত্যার পরে ১০ অক্টোবর মরদেহ উদ্ধারের পর তার পরিচয় শনাক্ত করা হয়। এরপরই অভিযুক্তকে গ্রেপ্তারে নামে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। 

গতকাল বুধবার (২০ অক্টোবর) বিকেলে ডিবি গুলশান বিভাগের উপ-কমিশনার (ডিসি) মশিউর রহমান এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, গত ১০ অক্টোবর বিকেলে ভাটারা থানার ছোলমাইদ ঢালীবাড়ি এলাকায় নারীর মরদেহ পাওয়া যায়। তাৎক্ষণিক মরদেহের পরিচয় শনাক্ত না হওয়ায় প্রযুক্তির সহায়তায় পরিচয় নিশ্চিত হওয়া যায়। এই ঘটনার পর ডিবি পুলিশ তথ্যপ্রযুক্তির সহায়তায় ও অপরাধ সংশ্লিষ্ট এলাকার সিসিটিভির ফুটেজ পর্যালোচনা শুরু করে। পরবর্তীতে অপরাধীদের পরিচয় শনাক্ত করা হয়। এরপরই গত ১৯ অক্টোবর অভিযুক্তকে গ্রেপ্তার করা হয়।

গ্রেপ্তার জব্বারকে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে ডিবি জানতে পেরেছে, গত ০৮ অক্টোবর দুপুরে মোবাইলে কথা বলে জব্বারের সঙ্গে সময় কাটানোর জন্য সে বের হয়। তাকে নিয়ে ফুটপাতের ফুচকার দোকানে ঘোরাঘুরি করে জব্বার। সন্ধ্যার পরে সে তাকে তার ভাড়া বাসায় নিয়ে যায়। 

পরবর্তীতে ওই নারীর সঙ্গে যৌনকর্ম শেষ করলে তিনি টাকা দাবি করেন এবং চলে যেতে চান। কিন্তু জব্বার ভিক্টিমকে সারারাতের জন্য রাখতে চায়। এটা শুনে ক্ষিপ্ত হন ওই নারী। হুমকি দেন তার (জব্বারের) সব কর্মকাণ্ড ফাঁস করে দেবেন এবং চিৎকার চেঁচামেচি করে। জব্বারের দাবি, সে নিজের আত্মসম্মান রক্ষার ভয়ে ওই নারীকে (শিপন আক্তার) ঘটনার দিন রাত ১০টার দিকে গলাটিপে হত্যা করে।

ডিবি কর্মকর্তা মশিউর রহমান জানান, জব্বার ইয়াবা আসক্ত ছিল। খুনের পর ভিক্টিমের মোবাইল ১ হাজার টাকায় বিক্রি করে সে ৩ পিস ইয়াবা কেনে। এসময় তার বন্ধু হীরাকে বাসায় আনে। তারা দুজন একসঙ্গে ইয়াবা সেবন করে এবং মরদেহ গুমের পরিকল্পনা করে। এ সময় মরদেহটি প্রথমে একটি কার্টনের মধ্যে রেখে পরবর্তীতে ভাঙারির দোকান থেকে আনা বড় বস্তায় ভরে। পরে রাত তিনটার দিকে জব্বার ও হীরা মরদেহ মাথায় নিয়ে তিনতলা থেকে নামায়। পরবর্তীতে ১০০ টাকায় রিকশাভাড়া করে মরদেহটি রাস্তায় ফেলে দেয়।

গোয়েন্দা পুলিশ বলছে, অভিযুক্তের স্বীকারোক্তিতে ওই নারীর চুরি হওয়া মোবাইল, তার ফেলে দেওয়া বোরকা এবং স্যান্ডেলসহ অন্যান্য আলামত জব্দ করা হয়েছে। এই হত্যাকাণ্ডের বিষয়ে গ্রেপ্তারকৃত আব্দুল জব্বার আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন।

news24bd.tv/ কামরুল 

পরবর্তী খবর

কাউন্সিলরের বিরুদ্ধে ধর্ষণচেষ্টার অভিযোগ

অনলাইন ডেস্ক

কাউন্সিলরের বিরুদ্ধে ধর্ষণচেষ্টার অভিযোগ

ময়মনসিংহের ফুলপুর পৌরসভার ১ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মো. এহছানুল হকের বিরুদ্ধে তার ওয়ার্ডের এক ছাত্রীকে জন্ম নিবন্ধনের কাগজ দেওয়ার কথা বলে বাসায় নিয়ে ধষণচেষ্টার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

এ ব্যাপারে আজ বুধবার জানতে চাইলে মামলার আইও ফুলপুর থানার এসআই জাহিদ হাসান বলেন, একটি অভিযোগ পাওয়া গেছে। 

আরও পড়ুন:

গণপরিবহনে শিক্ষার্থীদের হাফ ভাড়া কার্যকর

হাফ পাস শুধুমাত্র ঢাকায় কার্যকর হবে বললেন এনায়েত উল্লাহ

কুমিল্লায় কাউন্সিলর হত্যা: ৬ হামলাকারী শনাক্ত


ওসি আব্দুল্লাহ আল মামুন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, এ ব্যাপারে একটি মামলা হয়েছে। 

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর

তরুণীকে ধর্ষণের ভিডিও ইন্টারনেটে, মাসুদ গ্রেফতার

অনলাইন ডেস্ক

তরুণীকে ধর্ষণের ভিডিও ইন্টারনেটে, মাসুদ গ্রেফতার

রিসোর্টে নিয়ে তরুণীকে ধর্ষণ ও ভিডিও ধারণ করেছিলো মাসুদ গণি মান্না ওরফে টিকটক মাসুদ। ধর্ষণ করেই ক্রান্ত হননি টিকটক মাসুদ। ধর্ষণের ভিডিও ইন্টারনেটে ছেড়ে দেয় সে। সেই মামলায়  তাকে গ্রেফতার করেছে শ্রীমঙ্গল থানা পুলিশ।

মঙ্গলবার রাতে শ্রীমঙ্গল থানার পুলিশ সিলেট নগরী থেকে মাসুদকে গ্রেফতার করে। শ্রীমঙ্গল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা শামীম অর রশীদ তালুকদার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।গ্রেফতার মাসুদ হবিগঞ্জ জেলার সদর থানার অনন্তপুর গ্রামের মৃত মলাই মিয়ার ছেলে। তিনি সিলেট নগরীর একটি শোরুমের কর্মচারী।

বুধবার আদালতের মাধ্যমে তাকে জেলহাজতে প্রেরণ করা হয়। মাসুদকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আদালতে রিমান্ডের আবেদন জানিয়েছে পুলিশ।

আরও পড়ুন:

গণপরিবহনে শিক্ষার্থীদের হাফ ভাড়া কার্যকর

হাফ পাস শুধুমাত্র ঢাকায় কার্যকর হবে বললেন এনায়েত উল্লাহ

কুমিল্লায় কাউন্সিলর হত্যা: ৬ হামলাকারী শনাক্ত


 

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই আনোয়ারুল ইসলাম জানান, অভিযুক্ত মাসুদ গণি মান্নার সঙ্গে ফেসবুকে প্রেম ছিল কমলগঞ্জ উপজেলার কালেঙ্গা এলাকার এক ছাত্রীর। ওই ছাত্রী মৌলভীবাজার ম্যাটসে পড়াশোনা করত। ফেসবুকে প্রেম হওয়ার পর মাসুদ ওই তরুণীকে শ্রীমঙ্গলের একটি রিসোর্টে নিয়ে ধর্ষণ করে। তারপর ওই ভিডিও ছেড়ে দেয় ইন্টারনেটে। এছাড়াও বিভিন্ন সময় আপত্তিকর টিকটক তৈরি করে নেটে ছাড়ত মাসুদ।

এ ঘটনায় ভুক্তভোগী শ্রীমঙ্গল থানায় মামলা দায়ের করে। মামলার পরিপ্রেক্ষিতে সিলেট নগরীর কুমারপাড়া এলাকা থেকে মাসুদ গণিকে গ্রেফতার করে পুলিশ। 
news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর

জগন্নাথপুরে ‘বন্দুকযুদ্ধ’, গুলিবিদ্ধ ২৫, আহত ৫০

মো.বুরহান উদ্দিন, সুনামগঞ্জ

জগন্নাথপুরে ‘বন্দুকযুদ্ধ’, গুলিবিদ্ধ ২৫, আহত ৫০

বন্দুকযুদ্ধে গুলিবিদ্ধরা চিকিৎসা নিচ্ছেন।

সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর পৌর শহরের ইসহাকপুর গ্রামে আধিপত্য বিস্তার নিয়ে দুপক্ষের বন্দুকযুদ্ধে গুলিবিদ্ধ নারীসহ অর্ধশতাধিক আহত হয়েছেন।

এ ঘটনায় গুলিবিদ্ধ ২৫ জনকে সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। পুলিশ তিনজনকে আটক করেছে।

বুধবার (১ ডিসেম্বর) রাতে সংঘর্ষের এ ঘটনা ঘটে।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্র জানায়, ইসহাকপুর গ্রামের যুক্তরাজ্য প্রবাসী উস্তার গণি ও একই এলাকার নিজামুল করিমের লোকজনের মধ্যে এলাকায় আধিপত্য বিস্তার নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলছিল। এর জের ধরে একাধিকবার সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে।

বুধবার সন্ধ্যায় দুপক্ষের লোকজন বন্দুকযুদ্ধে জড়িয়ে পড়েন। এতে গুলিবিদ্ধ ২৫ জনকে কে সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

অপর আহতরা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা নিচ্ছেন। জগন্নাথপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি ইখতিয়ার উদ্দিন চৌধুরী জানান, সংঘর্ষের ঘটনায় জড়িত তিনজনকে আটক করা হয়েছে। পুলিশ ঘটনাস্থলে রয়েছে।

আরও পড়ুন: 


পায়ের রগকাটা মরদেহ পড়ে আছে নদীর পাড়ে


news24bd.tv /তৌহিদ

পরবর্তী খবর

রাজধানীতে শাপলা ফুলের প্রলোভনে শিশু ধর্ষণ

অনলাইন ডেস্ক

রাজধানীতে শাপলা ফুলের প্রলোভনে শিশু ধর্ষণ

প্রতীকী ছবি

রাজধানীর ডেমরায়  শাপলা ফুল ও চকলেটের প্রলোভন দেখিয়ে ৫ বছরের এক শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় ভুক্তভোগীর মা মঙ্গলবার দিবাগত রাত সাড়ে ১২টার দিকে অভিযুক্ত রিফাতের (১৯) বিরুদ্ধে ডেমরা থানায় মামলা করেন। 

এদিকে এ ঘটনার খবর পেয়ে এলাকাবাসী রিফাতকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করেন। পুলিশ ওই রাতেই লম্পট রিফাতকে ধর্ষণ মামলায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে বুধবার আদালতে পাঠায়।

আরও পড়ুন


বাসে আগুন দেয়ার ঘটনায় মামলা, আসামি ৮ শতাধিক

টেস্ট ছাড়া কেউ দেশে এলে ১৪ দিনের কোয়ারেন্টিন: স্বাস্থ্যমন্ত্রী


অন্যদিকে ভুক্তভোগী মেয়েটিকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে (ওসিসিসি) চিকিৎসার পাঠিয়েছে পুলিশ। ডেমরার পূর্ব বক্সনগর এলাকায় গত সোমবার এ ঘটনা ঘটে। 

ডেমরা থানার ওসি খন্দকার নাসির উদ্দিন জানান, ভুক্তভোগী শিশুটির প্রতিবেশী ও পাশের বাড়ির ভাড়াটিয়া লম্পট রিফাত। মেয়েটি তার ৮ বছরের চাচাতো ভাইকে নিয়ে বাড়ির সামনে খেলা করে প্রতিদিন। বিষয়টি খেয়াল করে রিফাত। 

গত সোমবার সকাল ১০টার দিকে খেলা করার সময় রিফাত ওই দুই শিশুকে চকলেট ও শাপলা ফুলের প্রলোভন দেখিয়ে তার ঘরে নিয়ে ছেলেটিকে মোবাইল দিয়ে অপর একটি ঘরে বসিয়ে দেয়। মেয়েটিকে অন্য ঘরে নিয়ে ধর্ষণ করে রিফাত। 

পরবর্তীতে এ ঘটনা ছেলেটি ভুক্তভোগীর মাকে পরের দিন জানায়।মেয়েটিও ভয়ে তার মাকে প্রথমে বিষয়টি জানায়নি। 

news24bd.tv/ কামরুল 

পরবর্তী খবর

‌‘যুবলীগের সভা’ নিয়ে দ্বন্দ্ব, ১০ জনকে ছুরিকাঘাত

অনলাইন ডেস্ক

‌‘যুবলীগের সভা’ নিয়ে দ্বন্দ্ব, ১০ জনকে ছুরিকাঘাত

ছুরিকাঘাত, প্রতীকী ছবি।

যশোরে জেলা যুবলীগের বর্ধিত সভা নিয়ে দলীয় প্রতিপক্ষের ছুরিকাঘাতে ১০জন আহত হয়েছে। তাদের মধ্যে পাঁচজনকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

বুধবার (১ ডিসেম্বর) দুপুরে যশোর শহরের মাইকপট্টি, তসবীর সিনেমা হল ও জজ কোর্ট এলাকায় ছুরিকাঘাতের এ ঘটনা ঘটে।

হাসপাতালে ভর্তিরা হলেন- ইসমাঈল হোসেন হ্যাপী (১৯), টিটু হোসেন (২১), খায়রুল ইসলাম (১৮), রাসেল (২০) ও আকিবুল (১৭)।

অন্যরা হলেন- শামীম হোসেন (১৮), রাব্বি (১৮), জয় আহমেদ (১৭), গোষ্ট গোপাল (২০) ও সোহাগ (২১)। তবে এ ব্যাপারে দায়িত্বশীল কোনো নেতৃবৃন্দের বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

আহতদের সূত্রে জানা গেছে, বর্ধিত সভা উপলক্ষে আসা নেতৃবৃন্দকে যশোর সার্কিট হাউস থেকে শহরের চিত্রা মোড়ে একটি অভিজাত আবাসিক হোটেলে নিয়ে যাওয়ার সময় তারা পেছনে ছিলো। এ সময় অজ্ঞাত একদল দুর্বৃত্ত তাদের ছুরিকাঘাত করে।

ডিবি পুলিশের ওসি রুপণ কুমার সরকার বলেন, ছিনতাইকারী হ্যাপি তার ব্যক্তিগত আক্রোশে দুপুরে শহরের আর এন রোডে শামিমকে ছুরিকাঘাত করে। এরই জের ধরে শামীমের লোকজন জজ কোর্ট মোড়ে টিটু, হ্যাপী, খাইরুলদের ছুরিকাঘাত করে জখম করে। এ ঘটনার সঙ্গে যুবলীগের বর্ধিত সভার কোনো সম্পর্ক নেই। তারা কোনো রাজনৈতিক দলের মতাদর্শের কিনা বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

আরও পড়ুন: 


পায়ের রগকাটা মরদেহ পড়ে আছে নদীর পাড়ে


যশোর জেনারেল হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক আব্দুর রশিদ ছুরিকাঘাতে আহত পাঁচজন হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে বলে জানিয়েছেন। খায়রুল ইসলাম নামে একজনার অবস্থা আশঙ্কাজনক।

news24bd.tv /তৌহিদ

পরবর্তী খবর