লালমনিরহাটে বন্যায় বিধ্বস্ত হয়ে দুই উপজেলা বিদ্যুৎ বিহীন
Breaking News
লালমনিরহাটে বন্যায় বিধ্বস্ত হয়ে দুই উপজেলা বিদ্যুৎ বিহীন

লালমনিরহাটে বন্যায় বিধ্বস্ত হয়ে দুই উপজেলা বিদ্যুৎ বিহীন

Other

লালমনিরহাটের তিস্তা ব্যারাজের ডালিয়া পয়েন্টে তিস্তা নদীর পানি আজ বৃহস্পতিবার (২১ অক্টোবর) ৩০ সেন্টিমিটার নিচ দিয়ে প্রবাহিত হলেও জেলার বন্যা পরিস্থিতি অপরিবর্তিত রয়েছে। উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢল ও অতি বৃষ্টির কারণে বন্যা পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছে।

ব্যারাজের ভাটিতে থাকা হাতীবান্ধা, কালীগঞ্জ, আদিতমারী ও সদর উপজেলার ১৪ ইউনিয়নের নদীতীরবর্তী নিম্নাঞ্চলগুলোতে পানিবন্দি রয়েছে অন্তত ১৫ হাজার পরিবার।

তিস্তা নদীর পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় হাতীবান্ধা উপজেলার দোয়ানীতে অবস্থিত দেশের সর্ববৃহত্তম সেচ প্রকল্প তিস্তা ব্যারাজের ৪৪টি জলকপাট খুলে দিয়ে পানি নিয়ন্ত্রণ করছে ডালিয়া পানি উন্নয়ন বোর্ড। পানি বাড়ার ফলে ব্যারাজের ফ্লাড বাইপাস সড়কটির ১৫০ মিটার অংশ ভেগে যাওয়ায় লালমনিরহাটের বড়খাতা হয়ে তিস্তা ব্যারাজের ওপর দিয়ে নীলফামারীর সরাসরি সড়ক যোগাবন্ধ বন্ধ রয়েছে।  

আরও পড়ুন:

সারারাত যৌনকর্মে সময় না দেয়ায় হত্যা!

অপহরণ ও ধর্ষণের অভিযোগে গ্রেপ্তার ১

পূজামণ্ডপে কোরআন রাখা কে এই ইকবাল?

পূজামণ্ডপে কোরআন শরিফ রেখে গদা নিয়ে যায় ইকবাল

পানি বৃদ্ধির ফলে ব্যারাজের ভাটিতে থাকা হাতীবান্ধার সানিয়াজান, গড্ডিমারী, সির্ন্দুনা, ডাউয়াবাড়ি, পাটিকাপাড়া, সিঙ্গিমারী, কালীগঞ্জ উপজেলার ভোটমারী, তুষভাণ্ডার, কাকিনা, আদিতমারী উপজেলার মহিষখোচা ও সদর উপজেলার রাজপুর, খুনিয়াগাছ ও গোকুণ্ডা ইউনিয়নের নদীতীরবর্তী নিম্নাঞ্চলগুলোর বাসিন্দারা রয়েছে চরম দুর্ভোগে।  

তাদের অনেকেই বিশুদ্ধ পানি ও খাবার সংকটে। তিস্তা ব্যারাজের উজানে থাকা পাটগ্রামের দহগ্রাম ইউনিয়নেরও বেশ কয়েকটি গ্রাম বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

news24bd.tv/ কামরুল