বদরুন্নেসার শিক্ষিকা রুমা সরকারের মুক্তির দাবি আবৃত্তি সমন্বয় পরিষদের

নিজস্ব প্রতিবেদক

বদরুন্নেসার শিক্ষিকা রুমা সরকারের মুক্তির দাবি আবৃত্তি সমন্বয় পরিষদের

বদরুন্নেসা মহিলা কলেজের শিক্ষিকা রুমা সরকারের দ্রুত মুক্তির দাবি জানিয়েছে বাংলাদেশ আবৃত্তি সমন্বয় পরিষদ। সংগঠনটির পক্ষ থেকে মানবিক বিবেচনায় তার দ্রুত মুক্তির দাবি করে বিবৃতি দেয়া হয়েছে। 

বৃহস্পতিবার (২১ অক্টোবর) গণমাধ্যমকে পাঠানো এক বিবৃতিতে তার মুক্তির দাবি করে সংগঠনটি। ওই বিবৃতিতে সাক্ষর করেছেন সংগঠনের সভাপতি আসাদুজ্জামান নূর এমপি ও সাধারণ সম্পাদক মো. আহকাম উল্লাহ্।

বিবৃতিতে বলা হয়, আবৃত্তিশিল্পী, শিক্ষক, মুক্তিযুদ্ধের চেতনার পক্ষের সক্রিয় সংস্কৃতিকর্মী ও মুক্তিযোদ্ধার সন্তান শিক্ষিকা রুমা সরকারকে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী গ্রেপ্তার করেছে। তাঁর ৬ বছরের দুটি শিশু সন্তান রয়েছে এবং তিনি বিভিন্ন অসুস্থতায় আক্রান্ত। এ অবস্থার, বাংলাদেশ আবৃত্তি সমন্বয় পরিষদের পক্ষ থেকে আমরা মানবিক বিবেচনায় তাঁর দ্রুত মুক্তি দাবি করছি।

আরও পড়ুন


ইকবালকে খুঁজে বের করার সর্বোচ্চ চেষ্টা চলছে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

ভুবন চিল নামেই বেশি পরিচিত, পৃথিবী জুড়েই এদের বসবাস

রাজধানীর মুগদা হাসপাতালের আগুন নিয়ন্ত্রণে

একটি অশুভ মহল জনগণকে বিভ্রান্ত করতে গুজব ছড়াচ্ছে: ওবায়দুল কাদের


আমরা মনে করি, বঙ্গবন্ধুর আদর্শে বিশ্বাাসী দেশপ্রেমিক এই সংস্কৃতিকর্মী, সংগঠক ও শিক্ষকের দুটি শিশু সন্তানের কথা বিবেচনা করে এবং তাঁর সুস্থতার জন্য দ্রুত মুক্তির ব্যবস্থা করলে তা একটি মানবিক দৃষ্টান্ত হয়ে থাকবে। সেই সাথে জানিয়ে রাখতে চাই, রুমা সরকারের দ্রুত মুক্তি না হলে আবৃত্তিশিল্পীরা দেশজুড়ে আন্দোলনে যেতে বাধ্য হবে।

উল্লেখ্য, পুরাতন একটি ভিডিওর ভিত্তিতে সাম্প্রতিক সাম্প্রদায়িক সহিংসতার বিষয়ে ফেসবুক লাইভে বক্তব্য দেওয়ার অভিযোগে বদরুন্নেসা মহিলা কলেজের শিক্ষিকা রুমা সরকারকে আটক করে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।

news24bd.tv এসএম

পরবর্তী খবর

নুহাশপল্লীতে হুমায়ুন আহমেদের ৭৩তম জন্মদিন পালন

মোহাম্মদ আল-আমীন, গাজীপুর:

নুহাশপল্লীতে হুমায়ুন আহমেদের ৭৩তম জন্মদিন পালন

প্রতিবারের ন্যায় এবারও গাজীপুরের পিরুজালী এলাকায় নুহাশপল্লীতে নানা আয়োজনে পালিত হয়েছে নন্দিত কথাসাহিত্যিক হুমায়ূন আহমেদের ৭৩তম জন্মদিন।

মোমবাতি প্রজ্বালন, কবর জিয়ারত, পুষ্পস্তবক অর্পণ ও কেক কাটার মধ্য দিয়ে লেখককে স্মরণ করছেন তার পরিবার, স্বজন, নুহাশপল্লীর কর্মী ও ভক্তরা।

প্রিয় লেখকের জন্মদিনে গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টি উপেক্ষা করে নুহাশ পল্লীতে ভিড় করেছিলেন ভক্তরা। এখানে জন্মদিনে হুমায়ূন আহমেদকে স্মরণ করে মেহের আফরোজ শাওন বলেন, যারা হুমায়ূন আহমেদকে ভালোবাসেন তারা তাকে আজীবন ভালোবেসে গেছেন, যাবেন। তারাই তাদের পরবর্তী প্রজন্মের হাতে হুমায়ূন আহমেদের লেখা, সৃষ্টিকর্ম তুলে দেবেন। এটাই আমার আজীবনের প্রাপ্তি। শুধু আমার না, হুমায়ূন আহমেদের পরিবারের প্রাপ্তি।

আরও পড়ুন


ডিভোর্স দেয়ায় সাবেক স্ত্রীর বুকে ও মাথায় প্রকাশ্যে ছুরিকাঘাত


জনপ্রিয় এ লেখকের স্মৃতি ধরে রাখতে বিভিন্ন প্রত্যাশার কথা আগে বলেছিলেন শাওন। কিন্তু এবার তার মুখে নেই প্রত্যাশার কথা। শাওন বলেন, হুমায়ূনহীন হুমায়ূন আহমেদের জন্মদিন, এটি দশমবার। প্রতিবারই প্রত্যাশার কথা বলি। আশা এবং স্বপ্নের মাধ্যমে আমরা বেঁচে থাকি। কিন্তু এবার কোনো প্রত্যাশার কথা বলব না। আসলে কোনো প্রত্যাশা নেই।

শাওন বলেন, হুমায়ূন আহমেদকে নিয়ে অনেকে কাজ করতে চান। তাদের বলব, যা ইচ্ছা তাই করবেন না, এটা অনুরোধ। গত দশ বছর ধরে আমার কাছে সবচেয়ে বেশি খারাপ লেগেছে। হুমায়ূন আহমেদকে নিয়ে বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে চর্চা হচ্ছে, পিএইচডি হচ্ছে। সেই চর্চা বাড়ুক, সবাই হুমায়ূন আহমেদ সম্পর্কে জানুক। ভুল কোনো চর্চা না হোক কারণ হুমায়ূন আহমেদ বাংলাদেশের সম্পদ।

১৯৪৮ সালের ১৩ নভেম্বর নেত্রকোনায় জন্মগ্রহণ করেন হুমায়ূন আহমেদ। তার বাবা শহীদ ফয়জুর রহমান আহমেদ, মা আয়েশা ফয়েজ। তিন শতাধিক গ্রন্থ লিখেছেন হুমায়ূন আহমেদ। তার প্রথম উপন্যাস ‘নন্দিত নরকে’। প্রকাশ হয় ১৯৭২ সালে। হুমায়ূন তার লেখায় জোছনা, বৃষ্টি, প্রকৃতি তুলে ধরেছেন। প্রকৃতিকে ভিন্নভাবে উপস্থাপন করেছেন তার লেখার মাধ্যমে।

২০১১ সালে হুমায়ূন আহমেদের শরীরে ক্যানসার ধরা পড়ে। লম্বা সময় সিঙ্গাপুরে চলে তার চিকিৎসা। কিন্তু পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যায়। একাধিক কেমোথেরাপি দিয়েও অবস্থাও উন্নতি করা যাচ্ছিল না। কৃত্রিম লাইফ সাপোর্টে রাখা হয়েছিল গুণী এ লেখককে।

পরে ২০১২ সালের ১৯ জুলাই ৬৩ বছর বয়সে না ফেরার দেশে চলে যান হুমায়ূন আহমেদ। নিউইয়র্কের একটি হাসপাতালে তিনি মারা যান। দেশে ফিরিয়ে এনে তারই হাতে গড়া নুহাশ পল্লীতে দাফন করা হয় তাকে।

news24bd.tv/ কামরুল 

পরবর্তী খবর

কবি হেলাল হাফিজের ৭৪তম জন্মদিন আজ

সুকন্যা আমীর

‘এখন যৌবন যার মিছিলে যাবার তার শ্রেষ্ঠ সময়, এখন যৌবন যার যুদ্ধে যাবার তার শ্রেষ্ঠ সময়’-বাংলাদেশের কবিতামোদী ও সাধারণ পাঠকের মুখে মুখে উচ্চারিত হয়ে থাকে এ লাইন দুটি। যার রচয়িতা কবি হেলাল হাফিজ।

আজ তাঁর ৭৪তম জন্মদিন। সমকালীন বাংলা সাহিত্যের জনপ্রিয় এই কবির জন্মতিথিকে জানাই শুভেচ্ছা।

১৯৪৮ সালের ৭ অক্টোবর। নেত্রকোণায় জন্ম নেন কবি হেলাল হাফিজ। শৈশবে বাবা-মাকে হারিয়ে এক প্রকার নিঃসঙ্গ জীবন-যাপন তাঁর।

আরও পড়ুন


৭৫টি বিয়ে করে মনির, স্ত্রীদের বিক্রি করে পতিতালয়ে

আশ্রয়ন প্রকল্পের ঘরের দেওয়ালে পানি দিতে গিয়ে স্বামী-স্ত্রী-সন্তানের মৃত্যু

২১ জনের মৃত্যুর দিনে বাড়ল শনাক্ত

৫ দিনের রিমান্ডে কনক সারোয়ারের বোন


হতে চেয়েছিলেন চিকিৎসক। কিন্তু প্রচুর পড়তে হবে বলে অচিরেই সেই ইচ্ছাকে বিসর্জন দেন। ভর্তি হন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগে। মনোনিবেশ করেন কবিতা লেখায়। গণ-আন্দোলনের সময় তাঁর লেখা কবিতার দুটি লাইন রাতারাতি তাঁকে এনে দেয় জনপ্রিয়তা।

কবির প্রথম কবিতা সংকলন ‘যে জলে আগুন জ্বলে’ প্রকাশিত হয় ১৯৮৬ সালে। ৩৪ বছর পর ২০১৯ সালে ৩৪টি কবিতা নিয়ে প্রকাশিত হয় তাঁর দ্বিতীয় কবিতার বই বেদোনা কে বলেছি কেঁদোনা। দেশপ্রেম, নারীপ্রেম ও সমকাল ভাবনার ক্ষেত্রে তাঁর কবিতার বিষয় বৈচিত্র্য অনন্য।

নিঃসঙ্গতা, একাকীত্বকে বেঁচে থাকার রসদ বানিয়েছেন কবি হেলাল হাফিজ। আত্মজীবনী এবং তৃতীয় কাব্যগ্রন্থ প্রকাশের প্রত্যয়ে এখন তাঁর পথ চলা।

নিরবিচ্ছিন্নভাবে সাহিত্যে মগ্ন থাকা এ কবির পালকে যুক্ত হয় বাংলা একাডেমি পুরস্কার।

news24bd.tv তৌহিদ

পরবর্তী খবর

কবি গোলাম মোস্তফার নাতনি কবি ফরিদা মজিদ আর নেই

অনলাইন ডেস্ক

কবি গোলাম মোস্তফার নাতনি কবি ফরিদা মজিদ আর নেই

কবি ও কথাসাহিত্যিক ফরিদা মজিদ আর নেই। আজ মঙ্গলবার (২৮ সেপ্টেম্বর) ভোরে রাজধানীর একটি বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।

কবি ফরিদা মজিদের সতীর্থ সঞ্জীব পুরোহিত গণমাধ্যমকে মৃত্যুর সত্যতা নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, ফরিদা মজিদ দীর্ঘদিন যাবৎ অসুস্থ ছিলেন। তার খাদ্যনালীতে ক্যান্সার ধরা পড়ে এবং এর চিকিৎসা চলছিলো। গত সপ্তাহে হাসপাতালে ভর্তি হন তিনি। চিকিৎসাধীন অবস্থায় আজ ভোর সাড়ে ৫টায় মারা যান।

ফরিদা মজিদের জন্ম ১৯৪২ সালের ২৭ জুলাই কলকাতায়। তিনি কবি গোলাম মোস্তফার বড় মেয়ে জোছনার কন্যা। কবি গোলাম মোস্তফার সান্নিধ্যেই তার কবি সত্ত্বা গড়ে উঠে।

দীর্ঘকাল প্রবাস জীবন কাটিয়েছেন ফরিদা মজিদ। প্রথমে লন্ডন, পরে যুক্তরাষ্ট্রে। স্বাধীনতা পরবর্তী সময়ে তিনি লন্ডনে বসে দেশের বড় বড় কবি সাহিত্যিকদের লেখা অনুবাদ, সম্পাদনা ও প্রকাশনার কাজ করেছেন।

আরও পড়ুন


প্রিন্ট ও টেলিভিশন সাংবাদিকতায় ‘ট্রাব’ আজীবন সম্মাননায় ভূষিত হবেন নঈম নিজাম

কাল কি ছিলাম আজ নিয়তির পরিণতিতে কোথায়?

বিএফইউজের নির্বাচন স্থগিত করেছেন হাইকোর্ট

গোপনে যুবকের ৬ বিয়ে, শ্বশুর বাড়ি যাওয়ার পথে জামাই নিয়ে টানাটানি


১৯৮৪ থেকে ১৯৮৯ সাল পর্যন্ত নিউইয়র্কের কলম্বিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে বাংলা ভাষা ও সাহিত্য বিষয়ে অধ্যাপনা করেছেন। 

১৯৯১ থেকে ২০০৬ পর্যন্ত ইংরেজির লেকচারার হিসেবে ছিলেন নিউইয়র্কের বিভিন্ন কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ে। ২০০৬ সালে তিনি দেশে ফিরে আসেন।

news24bd.tv এসএম

পরবর্তী খবর

শুরু হয়েছে জাতীয় চারুকলা প্রদর্শনীর ২৪তম আসর

সুকন্যা আমীর

শিল্পের বৈভবে শুরু হয়েছে জাতীয় চারুকলা প্রদর্শনী। বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় চিত্রশালার বিভিন্ন গ্যালারি জুড়ে চলছে প্রদর্শনীর ২৪তম আসর। যেখানে প্রায় তিন শতাধিক শিল্পী রং-তুলির আঁচড়ে মেলে ধরেছেন তাদের শিল্পকর্ম। 

স্মৃতি, আবেগ, কল্পনা অথবা ভাবনা। এসব কিছুর রঙ হয়তো ধূসর। তাইতো শিল্পীর রং-তুলির আঁচড়ে এই অনুভূতিগুলো উদ্ভাসিত হয় রঙিন প্রজাপতি রূপে। শিল্পীত মননে যেই ক্যানভাস নাড়া দেয় মনুষত্ব্যকে, জাগ্রত করে বিবেক।

ক্যানভাস রাঙিয়ে তোলা এমন ৩২৩ জন শিল্পীর ৩৫০টি শিল্পকর্ম নিয়ে প্রদর্শীত হচ্ছে জাতীয় চারুকলা প্রদর্শনী। বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় চিত্রশালা বিভিন্ন গ্যালারি জুড়ে  চলছে যার ২৪তম আসর।

রও পড়ুন:

শিরোপা জয়ের আনন্দ উদযাপন বসুন্ধরা কিংসের

নারী ক্ষমতায়নে আন্তর্জাতিক সম্মেলন আয়োজনের আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

ফ্রান্সের পাশে ইউরোপীয় ইউনিয়ন

৭ বছরের শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগ, আটক ৩


প্রদর্শনীর মধ্যে রয়েছে চিত্রকলা, ছাপচিত্র, আলোকচিত্র, ভাস্কর্য, প্রাচ্যকলা , মৃৎশিল্প, কারুশিল্প, গ্রাফিক ডিজাইন, স্থাপনাশিল্প, নিউ মিডিয়া আর্ট ও পারফরমেন্স আর্ট।

২৪ সেপ্টেম্বর সমাপনী আয়োজনের মধ্য দিয়ে শেষ হবে এবারের প্রদর্শনী। 

news24bd.tv রিমু 

পরবর্তী খবর

সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের ডিজিটাইজড সেবার উদ্বোধন

অনলাইন ডেস্ক

সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের  ডিজিটাইজড সেবার উদ্বোধন

তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের  কারিগরি সহায়তায়  "মাইগভ র‌্যাপিড ডিজিটাইজেশন" পদ্ধতি এর আওতায় সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের ৩০৩ টি ডিজিটাইজেশন সেবার উদ্বোধন করা হয়েছে।

তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক আজ শাহবাগস্থ জাতীয় জাদুঘরের কবি সুফিয়া কামাল মিলনায়তনে প্রধান অতিথি হিসেবে আনুষ্ঠানিকভাবে এ সেবা সমূহের উদ্বোধন করেন। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন সংস্কৃতি বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ।

এ উপলক্ষে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় আইসিটি প্রতিমন্ত্রী পলক বাংলাদেশের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি বিশ্বের সবচেয়ে দ্রুততর অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির মধ্যে অন্যতম একটি উল্লেখ করে বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে ও আইসিটি উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয় এর তত্ত্বাবধানে বিগত ১২ বছরে ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণে প্রয়োজনীয় অবকাঠামো গড়ে তোলার কারণে করোনা মহামারীর সময়ও অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি ৫ দশমিক ২৪ শতাংশ ধরে রাখা সম্ভব হয়েছে। এছাড়াও করোনাকালীন ১৯ মাসে দেশের শিক্ষা, স্বাস্থ্য, কৃষি, ব্যবসা -বাণিজ্য, প্রশাসনিক কার্যক্রম, বিচারক ব্যবস্থা সহ সবকিছু সচল ছিল।

তিনি বলেন, ২০১৬ সালে সজীব ওয়াজেদ জয়ের নির্দেশনায়  ই-নথি ব্যবস্থা প্রবর্তন করায় ২ কোটির অধিক ফাইল ই-নথি সিস্টেম ব্যবহার করে সম্পন্ন করা হয়েছে। করোনাকালীন বিভিন্ন  অফিসসমূহের লক্ষাধিক কর্মকর্তা ইলেকট্রনিক ফাইল ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম ব্যবহার করেছে। এর মাধ্যমে শত শত কোটি টাকা সাশ্রয়ের পাশাপাশি সময় ও যাতায়াতের হয়রানি থেকে রক্ষা পেয়েছে এবং লকডাউনে কোনো প্রশাসনিক কাজ বন্ধ ছিল না বলে তিনি জানান।

‌প্রতিমন্ত্রী আরো বলেন, সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ের অধীন দেশের ৭৩ টি লাইব্রেরী, ৩০০ কোটির অধিক টাকা ব্যয়ে কেন্দ্রীয় আর্কাইভ ডিজিটাইজ এবং আমাদের সংস্কৃতি ও ঐতিহ্যের বাতিঘর বাংলা একাডেমিকে ডিজিটাইজ করার বিষয়ে আইসিটি বিভাগ প্রযুক্তিগত সহায়তাসহ সর্বাত্মক সহযোগিতা করবে।

সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ বলেন, মাইগভ র‌্যাপিড ডিজিটাইজেশন প্ল্যাটফর্মের আওতায় ইতোমধ্যে যে সকল মন্ত্রণালয়/বিভাগের ডিজিটাইজেশন সম্পন্ন হয়েছে, তার মধ্যে মন্ত্রণালয় ভিত্তিক সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের  সর্বোচ্চ সংখ্যক সেবার (৩০৩টি) ডিজিটাইজেশন সম্পন্ন হয়েছে। এ থেকে বোঝা যায়, সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের ক্ষেত্র ও কর্মপরিধি কত ব্যাপক। 

তিনি বলেন, মন্ত্রণালয়ের আওতাভুক্ত ১৭টি দপ্তর-সংস্থার মধ্যে ১০টি দপ্তর-সংস্থার ডিজিটাইজেশন সম্পন্ন হয়েছে। বাকি ৭টি সংস্থার  র‌্যাপিড ডিজিটাইজেশন সম্পন্ন হলে সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের ডিজিটাইজেশনকৃত সেবার সংখ্যা আরো অনেক বৃদ্ধি পাবে। 


বিয়ে ছাড়াই আবারও মা হচ্ছেন কাইলি জেনার

বলিউড পরিচালক বিশাল ভরদ্বাজের প্রস্তাবে মিমের না!

দেশমাতা, আমাকে কি একটু নিরাপত্তা দিতে পারেন


অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে  বক্তব্য রাখেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের সিনিয়র সচিব এন এম জিয়াউল আলম, সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মনিরুল আলম, চিফ ইনোভেশন অফিসার (অতিরিক্ত সচিব) অসীম কুমার দে ও এটুআই এর প্রকল্প পরিচালক দেওয়ান মো: হুমায়ুন কবির।

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর