কথা রাখছে না এ্যাংকর সিমেন্ট
কথা রাখছে না এ্যাংকর সিমেন্ট

হাবিব খান অনিক

কথা রাখছে না এ্যাংকর সিমেন্ট

অনলাইন ডেস্ক

বসুন্ধরা ফুড অ্যান্ড বেভারেজ ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেডের বরিশাল অঞ্চলের বিভাগীয় বিক্রয় ব্যবস্থাপক (ডিএসএম) হাবিব খান অনিকের সড়ক দুর্ঘটনায় মৃত্যুতে তার পরিবারকে দেওয়া আশ্বাস রাখতে গড়িমসি করছে এ্যাংকর সিমেন্ট কর্তৃপক্ষ।  

এ্যাংকর সিমেন্টের ট্রাকের ধাক্কায় নিহতের ঘটনার পর তারা ক্ষতিপূরণ দিয়ে অনিকের পরিবারের পাশে দাঁড়াবে এমন আশ্বাসে কোন আইনি পদক্ষেপ না নিয়ে বিনা ময়নাতদন্তে লাশ দাফন করা হয়। কিন্তু লাশ দাফনের পর পাঁচদিন পেরিয়ে গেলেও গতকাল শনিবার পর্যন্ত এ্যাংকর সিমেন্ট কর্তৃপক্ষ তাদের ক্ষতিপূরণ দেওয়ার বিষয়টি অস্বীকার করছেন।

নিহত হাবিব খান অনিক ফরিদপুরের বোয়ালমারী উপজেলার দ. শিবপুর গ্রামের মুদি দোকানি ফারুক খানের ছেলে।

১১ মাস আগে অনিক বিয়ে করেন। তাঁর স্ত্রী বর্তমানে তিন মাসের অন্তঃসত্ত্বা।

এর আগে গত সোমবার দুপুরে পেশাগত কাজে বরিশাল থেকে ঝালকাঠি যাওয়ার পথে রাজাপুর থানার নলবুনিয়া বাজার এলাকায় এ্যাংকর সিমেন্টের নীল রঙের ট্রাকের (বরিশাল মেট্রো-ট-১১-০০৪৭) ধাক্কায় বসুন্ধরা ফুড অ্যান্ড বেভারেজের একটি প্রাইভেটকার মারাত্মক ক্ষতিগ্রস্ত হয়।

প্রাইভেটকারে থাকা অনিক মাথায় গুরুতর আঘাত পান। পরে ওইদিন রাত সাড়ে ৯টার দিকে ঢাকা ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব নিউরোসায়েন্স হাসপাতলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় অনিক মারা যান।   

এ ঘটনায় প্রাইভেটকার চালক হানিফ হাওলাদার ও শাহিনূর রহমান নামে দুইজন আহত হন। পরে পুলিশ দুর্ঘটনাস্থল থেকে দু’টি গাড়িই থানায় নিয়ে যায়। ঘটনার পর থেকেই এ্যাংকর সিমেন্টের ট্রাকচালক সুজন হাওলাদার পলাতক রয়েছেন।

এ বিষয়ে এ্যাংকর সিমেন্টের পরিবহন খাতের প্রধান আলী আহসান বলেন, দুর্ঘটনার পর নিহতের পরিবার ও বসুন্ধরা ফুড অ্যান্ড বেভারেজ ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেডের কয়েকজন আমাদের কাছে এসেছিল। তাদের প্রস্তাবনা গ্রহণ করে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে অবগত করেছি। তারা এ বিষয়টি বলতে পারবেন।

এ সময় কি প্রস্তাবনা দেওয়া হয়েছিল এবং তিনি কী আশ্বাস দিয়েছেন জানতে চাইলে তিনি কোন সুদুত্তর দিতে পারেননি। সব কিছু উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ বলতে পারবে বলে দায় চাপিয়ে দেন।

এ বিষয়ে এ্যাংকর সিমেন্টের সিইও শাহেদ উদ্দিন (অবঃ মেজর) বলেন,  ‘এ বিষয়ে একটি মামলা হয়েছে। এ মুহূর্তে কোনো সিদ্ধান্ত নিলে ভুল হবে। এ জন্য আমরা একটু অপেক্ষা করছি থানা থেকে কি সিদ্ধান্ত আসে। আমাদের ট্রাকটি নিয়ে আসতে পারলে এবং কোন মামলা না  হলো আমরা ক্ষতি পূরণের কথা চিন্তা করতে পারতাম। ’ 

মামলা তো ঘটনার তিনদিন পর হয়েছে আপনারা ক্ষতিপূরণ দিতে অস্বীকার করছেন তাই, ‘এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, ঘটনার দিন রাতেই একটি সরকারবাদী অপমৃত্যুর মামলা হয়েছে। ’ 

কিন্তু রাজাপুর থানা পুলিশ জানায় সেদিন কোন মামলা হয়নি। মামলা হয়েছে তিনদিন পর।  

 

আরও পড়ুন: নিজ দেশে ভারত-পাকিস্তান ম্যাচ না হওয়ার ব্যাখ্যা দিলেন সৌরভ

বসুন্ধরা ফুড অ্যান্ড বেভারেজ ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেডের এজিএম মো. শাহীন বলেন, আমাদের প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে নিহতের পরিবারকে সহায়তা করা হচ্ছে। যেহেতু পরিবারের একজন উপার্জনকারী ব্যক্তি নিহত হয়েছেন। তাই এ্যাংকর গ্রুপ প্রথমে সহায়তা করে মীমাংসার কথা বললেও এখন তারা মিথ্যাচার করছে। এটা মোটেও ঠিক হচ্ছে না। ’ 

এদিকে এ্যাংকর সিমেন্ট কর্তৃপক্ষের গড়িমসি করায় ঘটনার তিন দিন পর গত শুক্রবার নিহতের চাচা সামাদ খান ঝালকাঠির রাজাপুর থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন জানিয়ে বলেন, দুর্ঘটনার পরই এ্যাংকর সিমেন্ট কর্তৃপক্ষ ক্ষতিপূরণের আশ্বাসে দিয়ে মীমাংসা করার কথা বললে কোন আইন পদক্ষেপ ছাড়াই আমরা লাশ দাফন করি। কিন্তু ঘটনার তিন দিন পর এ্যাংকর সিমেন্ট বলছে ক্ষতিপূরণ দিবে না। আমাদের পক্ষ থেকে যা করার করতে। তাই শুক্রবার একটি মামলা দায়ের করেছি। ’

এ্যাংকর সিমেন্টের ক্ষতিপূরণ দেওয়ার আশ্বাসের বিষয়টি নিশ্চিত করে রাজাপুর থানার ওসি মো. শহীদুল ইসলাম বলেন, ‘দুর্ঘটনার পর এ্যাংকর সিমেন্ট কর্তৃপক্ষ ক্ষতিপূরণের আশ্বাস দিয়েছিল। তবে নিহতের প্রতিষ্ঠানের চাহিদা মাফিক ক্ষতিপূরণ দিতে না চাওয়ায় বিষয়টি মীমাংসা হয়নি। তাই ঘটনার তিন দিন পর এ্যাংকর সিমেন্টের ট্রাক চালককে আসামি করে একটি মামলা হয়েছে। আমরা আসামিকে গ্রেপ্তার করার চেষ্টা করছি। ’

news24bd.tv নাজিম

;