শেরপুরে ইজিবাইকের চাপায় শিশুর মৃত্যু

জুবাইদুল ইসলাম, শেরপুর:

শেরপুরে ইজিবাইকের চাপায় শিশুর মৃত্যু

শেরপুরের শ্রীবরদীতে ইজিবাইকের চাপায় অনিকা নামে তিন বছর বয়সী এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে। আজ রোববার (২৪ অক্টোবর) দুপুরে উপজেলার ভায়াডাঙ্গা মোল্লাপাড়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। নিহত শিশু অনিকা স্থানীয় উকিল মিয়ার মেয়ে।

জানা যায়, শিশু অনিকার বাবা উকিল মিয়া শ্রীবরদী উপজেলার ভায়াডাঙ্গা বাজার থেকে ইজিবাইকযোগে বাড়ি ফিরছিল। ওইসময় বাড়ির সামনে ইজিবাইকটি গেলে বাবাকে দেখে ঘর থেকে দৌঁড়ে বাবার কাছে আসতে থাকে শিশু অনিকা। একইসময় ভায়াডাঙ্গা বাজার থেকে যাত্রী নিয়ে আরেকটি দ্রুতগতির ইজিবাইক অনিকাকে চাপা দিলে সে গুরুতর আহত হয়। 

আরও পড়ুন:


স্বামীকে হত্যার পর হাত-পা কেটে পাতিলে রাখেন দ্বিতীয় স্ত্রী!

যে ক্লাবের সদস্য হতেই লাগে দেড়শ' কোটি টাকা

ভারত-পাকিস্তান ম্যাচের বিতর্কিত কিছু ঘটনা

লাখ টাকায় স্ত্রীকে বৃদ্ধের কাছে বিক্রি করে দিলো স্বামী!


পরে স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে শ্রীবরদী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়ার পথে মারা যায় অনিকা। এ ঘটনায় স্থানীয়রা ইজিবাইকটি আটক করলেও এর চালক পালিয়ে গেছে।

শ্রীবরদী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) বিপ্লব কুমার বিশ্বাস ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, শিশুটি বাড়ির সামনের সড়কে ইজিবাইকের চাপায় মারা গেছে। ওই ঘটনায় পরবর্তী আইনি প্রক্রিয়া চলছে। 

news24bd.tv/ কামরুল 

পরবর্তী খবর

নেত্রকোনায় দুই বাসের মাঝখানে চাপা পড়ে শ্রমিক নিহত

অনলাইন ডেস্ক

নেত্রকোনায় দুই বাসের মাঝখানে চাপা পড়ে শ্রমিক নিহত

ফাইল ছবি

নেত্রকোনা শহরের পারলা বাসস্ট্যান্ড এলাকায় দুই বাসের মাঝখানে চাপা পড়ে খুরশেদ আলম (৪০) নামের এক পরিবহন শ্রমিকের মৃত্যু হয়েছে। আজ দুপুরে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

খুরশেদ আলম শাহজালাল পরিবহনের সুপারভাইজার ছিলেন। তিনি ময়মনসিংহের মুক্তাগাছা উপজেলার মুগলতলা গ্রামের ইমাম আলীর ছেলে।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, দুপুরে একটি বাস স্ট্যান্ডে প্রবেশের সময় দুই বাসের মাঝখানে চাপা পড়ে খুরশেদ আলম গুরুতর আহত হন। পরে তাকে উদ্ধার করে নেত্রকোনা আধুনিক সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

আরও পড়ুন:


চট্টগ্রামেও হাফ ভাড়া নেওয়ার ঘোষণা

লকডাউন দেয়ার বিষয়ে যা জানালেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী


নেত্রকোনা মডেল থানার ওসি খন্দকার শাকের আহমেদ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, মরদেহ হাসপাতালের মর্গে রাখা হয়েছে। স্বজনরা এলে পরবর্তীতে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

news24bd.tv নাজিম

পরবর্তী খবর

ট্রাকচাপায় নিহত হলেন সংবাদকর্মী

অনলাইন ডেস্ক

ট্রাকচাপায় নিহত হলেন সংবাদকর্মী

প্রতীকী ছবি

ট্রাকচাপায় এক গণমাধ্যমকর্মী নিহত হয়েছেন বলে জানা গেছে। রাজধানীর কলেজগেট এলাকায় রাত আড়াইটার দিকে মুক্তিযোদ্ধা টাওয়ারের সামনে এ দুর্ঘটনা ঘটে। নিহত গণমাধ্যমকর্মীর নাম এমদাদ হোসেন (৬০)। তিনি দৈনিক সংবাদে কর্মরত ছিলেন।

প্রত্যক্ষদর্শীদের সূত্রে জানা যায়, শনিবার রাত আড়াইটার দিকে একটি মোটরসাইকেলে দ্রুতগতির একটি ট্রাক চাপা দিয়ে পালিয়ে যায়। এ সময় স্থানীয়রা মোহাম্মদপুর থানার পুলিশকে খবর দিলে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে তাকে উদ্ধার করে শহীদ সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

নিহত সংবাদকর্মীর ছোট ভাই সেলিমের বরাতে জানা যায় আমার বড় ভাই দৈনিক সংবাদের সংবাদকর্মী ছিলেন। রাতে অফিস শেষ করে মোটরসাইকেলে করে বাসায় ফিরছিলেন। মুক্তিযোদ্ধা টাওয়ারের সামনে আসার পর পেছন থেকে একটি ট্রাক তাকে চাপা দিয়ে পালিয়ে যায়।

আরও পড়ুন:

ছাত্রদলের বিক্ষোভ মিছিলে পুলিশের বাধা

আজ আঘাত হানতে পারে ঘূর্ণিঝড় 'জাওয়াদ'

পরিবারের পক্ষ থেকে মামলার বিষয়ে চাইলে তিনি বলেন, এমন নৃশংস দুর্ঘটনার পরও কাউকে শনাক্ত বা ট্রাকটি আটক করা যায়নি। কার বিরুদ্ধে আমরা মামলা করব? এর জন্য আমরা কোনো মামলা করছি না। ময়নাতদন্ত শেষ হলে আমরা মরদেহ টাঙ্গাইলের নাগরপুরে গ্রামের বাড়িতে নিয়ে যাব।

এ বিষয়ে মোহাম্মদপুর থানার ওসি আব্দুল লতিফ জানান, রাতে স্থানীয়দের ফোন পেয়ে ঘটনাস্থলে আমাদের টহল টিম পৌঁছে তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠায়। সেখানে নেওয়ার পর কর্তব্যরত চিকিৎসক তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন। ট্রাকটি শনাক্ত করতে আমরা ইতোমধ্যে আইনানুগ ব্যবস্থা নিচ্ছি। ময়নাতদন্তের জন্য আমরা মরদেহটি মর্গে পাঠানো হয়েছে।

 news24bd.tv/এমি-জান্নাত   

পরবর্তী খবর

শেরপুরে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে নির্মাণ শ্রমিকের মৃত্যু

জুবাইদুল ইসলাম, শেরপুর :

শেরপুরে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে নির্মাণ শ্রমিকের মৃত্যু

প্রতীকী ছবি

শেরপুরের নকলায় বিদ্যুৎস্পৃষ্টে নবী হোসেন (৫৫) নামে এক নির্মাণ শ্রমিকের মৃত্যু হয়েছে। 

আজ শনিবার (৪ ডিসেম্বর) দুপুরে উপজেলার পাঠাকাটা এলাকায় ওই ঘটনা ঘটে। নবী হোসেন উপজেলার চরঅষ্টধর ইউনিয়নের চরবসন্তী গ্রামের মৃত ফসির উদ্দিনের ছেলে।

আরও পড়ুন:


ইউপি নির্বাচনের পঞ্চম ধাপে নৌকা পেলেন যারা


জানা যায়, নকলা উপজেলার পাঠাকাটা এলাকার ইমরান হোসেনের নতুন ভবনের ছাদ নির্মাণের জন্য রডের কাজ করছিল নির্মাণ শ্রমিক নবী হোসেন। শনিবার দুপুর দেড়টার দিকে রড ঝালাইয়ের সময় হঠাৎ ছাদের রড বিদ্যুতায়িত হয়ে গেলে নবী হোসেন বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে ঘটনাস্থলেই মারা যান। 

নকলা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. মুশফিকুর রহমান বলেন, নির্মাণ শ্রমিক নবী হোসেনের লাশ থানা হেফাজতে নেওয়া হয়েছে। ওই ঘটনায় পরবর্তী আইনী ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

news24bd.tv/ কামরুল

পরবর্তী খবর

নভেম্বরে দুর্ঘটনায় মারা গেল ৪১৩ জন

অনলাইন ডেস্ক

নভেম্বরে দুর্ঘটনায় মারা গেল ৪১৩ জন

প্রতীকী ছবি

এই বছরের নভেম্বর মাসে সারাদেশে ৩৭৯টি সড়ক দুর্ঘটনা ঘটেছে। আর ওইসব সড়ক দুর্ঘটনায় মারা গেল ৪১৩ জন, আহত হয়েছেন আরও ৫৩২ জন। নিহতদের মধ্যে ৬৭ জন নারী এবং ৫৮ জন শিশু রয়েছে।

আজ শনিবার (৪ ডিসেম্বর) গণমাধ্যমে পাঠানো এক প্রেসবিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানিয়েছে রোড সেফটি ফাউন্ডেশন। 

সংস্থাটির মাসিক দুর্ঘটনা প্রতিবেদনে এ তথ্য উঠে আসে। ৭টি জাতীয় দৈনিক, ৫টি অনলাইন নিউজ পোর্টাল এবং ইলেক্ট্রনিক গণমাধ্যমের তথ্যের ভিত্তিতে প্রতিবেদনটি তৈরি করা হয়েছে বলে জানা গেছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, এসব দুর্ঘটনার মধ্যে ১৫৮টি মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় নিহত ১৮৪ জন। যা মোট নিহতের ৪৪ দশমিক ৫৫ শতাংশ। মোটরসাইকেল দুর্ঘটনার হার ৪১ দশমিক ৬৮ শতাংশ। 

দুর্ঘটনায় ৯৬ জন পথচারী নিহত হয়েছেন, যা মোট নিহতের ২৩ দশমকি ২৪ শতাংশ। যানবাহনের চালক ও সহকারী নিহত হয়েছেন ৫৩ জন, অর্থাৎ ১২ দশমিক ৮৩ শতাংশ।

একই সময়ে ৭টি নৌ-দুর্ঘটনায় ৯ জন নিহত এবং ৫ জন নিখোঁজ রয়েছেন। ১১টি রেলপথ দুর্ঘটনায় ১৩ জন নিহত এবং দুই জন আহত হয়েছেন।

আরও পড়ুন:


ইউপি নির্বাচনের পঞ্চম ধাপে নৌকা পেলেন যারা


যানবাহনভিত্তিক নিহতের চিত্র

দুর্ঘটনায় যানবাহনভিত্তিক নিহতের পরিসংখ্যানে দেখা যায়, মোটরসাইকেল চালক ও আরোহী ১৮৪ জন (৪৪ দশমিক ৫৫ শত্যাংশ), বাস যাত্রী ২৩ জন (৫ দশমিক ৫৬ শত্যাংশ, ট্রাক-পিকআপ-কাভার্ডভ্যান-ট্রাক্টর-ট্রলি যাত্রী ১২ জন (২ দশমিক ৯০ শত্যাংশ), ইক্রোবাস- প্রাইভেটকার- অ্যাম্বুলেন্স- জিপ যাত্রী ৯ জন (২ দশমিক ১৭ শত্যাংশ), থ্রি-হুইলার যাত্রী (ইজিবাইক-সিএনজি-অটোরিকশা-অটোভ্যান-মিশুক-টেম্পু-লেগুনা) ৬৬ জন (১৫ দশমিক ৯৮ শত্যাংশ), স্থানীয়ভাবে তৈরি যানবাহনের যাত্রী (নসিমন-ভটভটি-আলমসাধু-বোরাক-মাহিন্দ্র-টমটম) ১৭ জন (৪ দশমিক ১১ শত্যাংশ) এবং প্যাডেল রিকশা-রিকশাভ্যান-বাইসাইকেল আরোহী ৬ জন (১ দশমিক ৪৫ শত্যাংশ) নিহত হয়েছে।

দুর্ঘটনা সংঘটিত সড়কের ধরণ

রোড সেফটি ফাউন্ডেশনের পর্যবেক্ষণ ও বিশ্লেষণ বলছে, দুর্ঘটনাগুলোর মধ্যে ১৫৬টি (৪১ দশমিক ১৬ শত্যাংশ) জাতীয় মহাসড়কে, ১৩১টি (৩৪ দশমিক ৫৬ শত্যাংশ) আঞ্চলিক সড়কে, ৫৩টি (১৩ দশমিক ৯৮ শত্যাংশ) গ্রামীণ সড়কে, ৩৫টি (৯ দশমিক ২৩ শত্যাংশ) শহরের সড়কে এবং অন্যান্য স্থানে চারটি (১ দশমিক ০৫ শত্যাংশ) সংঘটিত হয়েছে।

দুর্ঘটনার ধরণ

দুর্ঘটনাসমূহের ৮৯টি (২৩ দশমিক ৪৮ শত্যাংশ) মুখোমুখি সংঘর্ষ, ১৩৩টি (৩৫ দশমিক ০৯ শত্যাংশ) নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে, ৯১টি (২৪ শত্যাংশ) পথচারীকে চাপা বা ধাক্কা দেওয়া, ৫৯টি (১৫ দশমিক ৫৬ শত্যাংশ) যানবাহনের পেছনে আঘাত করা এবং সাতটি (১ দশমিক ৮৪ শত্যাংশ) অন্যান্য কারণে ঘটেছে।

দুর্ঘটনায় সম্পৃক্ত যানবাহন

দুর্ঘটনায় সম্পৃক্ত যানবাহনের সংখ্যা ৫৪৬টি। (ট্রাক ৭৮, বাস ৬৩, কাভার্ডভ্যান ১২, পিকআপ ২৭, ট্রলি ৮, লরি তিনটি, ট্রাক্টর ছয়টি, মাইক্রোবাস ১৩, প্রাইভেটকার ১১, অ্যাম্বুলেন্স তিনটি, জিপ দুটি, পুলিশ পিকআপ দুটি, ড্রাম ট্রাক চারটি, মোটরসাইকেল ১৬৭, থ্রি-হুইলার ১০৯ (ইজিবাইক- সিএনজি- অটোরিকশা-অটোভ্যান- মিশুক- টেম্পু- লেগুনা), স্থানীয়ভাবে তৈরি যানবাহন ২২ (নসিমন- ভটভটি- আলমসাধু- পাখিভ্যান-বোরাক- মাহিন্দ্র- টমটম) এবং প্যাডেল রিকশা- রিকশাভ্যান-বাইসাইকেল ১৬টি।

শতাংশ হিসাবে এসব দুর্ঘটনায় ট্রাক-কাভার্ডভ্যান-পিকআপ রয়েছে ২১ দশমিক ৪২ শতাংশ, ট্রাক্টর-ট্রলি-লরি-ড্রাম ট্রাক ৩ দশমিক ৮৪ শতাংশ, মাইক্রোবাস-প্রাইভেটকার-অ্যাম্বুলেন্স-জিপ ৫ দশমিক ৩১ শতাংশ, যাত্রীবাহী বাস ১১ দশমিক ৫৩ শতাংশ, মোটরসাইকেল ৩০ দশমিক ৫৮ শতাংশ, থ্রি-হুইলার (ইজিবাইক-সিএনজি-অটোরিকশা-অটোভ্যান- মিশুক- লেগুনা- টেম্পু) ১৯ দশমিক ৯৬ শতাংশ, স্থানীয়ভাবে তৈরি যানবাহন (নসিমন- ভটভটি-আলমসাধু- পাখিভ্যান- বোরাক- মাহিন্দ্র- টমটম) ৪ দশমিক ৩৯ শতাংশ এবং প্যাডেল রিকশা- রিকশাভ্যান- বাইসাইকেল ১ দশমিক ৯৩ শতাংশ।

দুর্ঘটনার সময়

সময় বিশ্লেষণে দেখা যায়, দুর্ঘটনাগুলো ঘটেছে ভোরে ৫ শতাং, সকালে ২৭ দশমিক ১৭ শতাংশ, দুপুরে ১৭ দশমিক ৪১ শতাংশ, বিকালে ২২ দশমিক ১৬ শতাংশ, সন্ধ্যায় ৬ দশমিক ৮৬ শতাংশ এবং রাতে ২১ দশমিক ৩৭ শতাংশ।

বিভাগওয়ারি দুর্ঘটনার পরিসংখ্যান

দুর্ঘটনার বিভাগওয়ারি পরিসংখ্যান বলছে, ঢাকা বিভাগে দুর্ঘটনা ঘটেছে ২৬ দশমিক ৫৭ শত্যাংশ, আর এতে প্রাণহানি ২৬ দশমিক ৫১ শত্যাংশ, রাজশাহী বিভাগে দুর্ঘটনা ১৫ দশমিক ৯৪ শতাংশ, প্রাণহানি ঘটেছে ১৩ দশমিক ৪২ শতাংশ, চট্টগ্রাম বিভাগে দুর্ঘটনা ঘটেছে ১৯ দশমিক ৩২ শতাংশ, প্রাণহানি ঘটেছে ২১ দশমিক ৮১ শতাংশ, খুলনা বিভাগে দুর্ঘটনা ৯ দশমিক ১৭ শতাংশ, প্রাণহানি ৭ দশমিক ৭১ শতাংশ, বরিশাল বিভাগে দুর্ঘটনা ৮ দশমিক ২১ শতাংশ, প্রাণহানি ৬ দশমিক ০৪ শতাংশ, সিলেট বিভাগে দুর্ঘটনা ৭ দশমিক ২৪ শতাংশ, প্রাণহানি ৭ দশমিক ০৪ শতাংশ, রংপুর বিভাগে দুর্ঘটনা ৬ দশমিক ৭৬ শতাংশ, প্রাণহানি ৯ দশমিক ৭৩ শতাংশ এবং ময়মনসিংহ বিভাগে দুর্ঘটনা ৭ দশমিক ১৬ শতাংশ, প্রাণহানি ঘটেছে ৭ দশমিক ৭১ শতাংশ।

ঢাকা বিভাগে সবচেয়ে বেশি দুর্ঘটনা ও প্রাণহানি ঘটেছে। ৮৩টি দুর্ঘটনায় নিহত ১০৪ জন। সবচেয়ে কম বরিশাল বিভাগে। ২২টি দুর্ঘটনায় নিহত ২৪ জন। একক জেলা হিসেবে চট্টগ্রাম জেলায় সবচেয়ে বেশি দুর্ঘটনা ও প্রাণহানি ঘটেছে। ২১টি দুর্ঘটনায় ২৯ জন নিহত। সবচেয়ে কম লালমনিরহাট জেলায়, এই জেলায় দুটি দুর্ঘটনা ঘটলেও কেউ হতাহত হয়নি।

আর রাজধানী ঢাকায় ১৪টি দুর্ঘটনায় ১৬ জন নিহত হয়েছে।

আহত ও নিহতদের পেশাগত পরিচয়

গণমাধ্যমে প্রকাশিত তথ্যের ভিত্তিতে জানা যায়, নিহতদের মধ্যে পুলিশ সদস্য ২ জন, সেনা সদস্য ১ জন, জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-পরীক্ষা নিয়ন্ত্রকসহ বিভিন্ন স্কুল-কলেজ-মাদরাসার শিক্ষক ১১ জন, চিকিৎসক ৩ জন, রূপপুর পরমাণু বিদ্যুৎ কেন্দ্রের ইঞ্জিনিয়ার ১ জন, সাংবাদিক ৪ জন, ইমাম দুই জন, এনজিও কর্মকর্তা-কর্মচারী ৯ জন, ঔষধ ও বিভিন্ন পণ্যসামগ্রী বিক্রয় প্রতিনিধি ১৭ জন, স্থানীয় পর্যায়ের বিভিন্ন ব্যবসায়ী ২৩ জন, পোশাক শ্রমিক সাত জন, নির্মাণ শ্রমিক চার জন, ইটভাটা শ্রমিক দুই জন, ধানকাটা শ্রমিক তিন জন, জুতা কারখানার শ্রমিক পাঁচ জন, রাজমিস্ত্রি এক জন, কাঠমিস্ত্রি একজন, ইলেক্ট্রিশিয়ান একজন, মানসিক ও শারীরিক প্রতিবন্ধী তিন জন, স্থানীয় রাজনৈতিক নেতা সাত জন এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ও নটরডেম কলেজের দু’জনসহ দেশের বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ৫৪ জন শিক্ষার্থী নিহত হয়েছে।

দেশে সড়ক দুর্ঘটনার প্রধান কারণ

এসব দুর্ঘটনার কারণ হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে, ত্রুটিপূর্ণ যানবাহন; বেপরোয়া গতি; চালকদের বেপরোয়া মানসিকতা, অদক্ষতা ও শারীরিক-মানসিক অসুস্থতা; বেতন ও কর্মঘণ্টা নির্দিষ্ট না থাকা; মহাসড়কে স্বল্পগতির যানবাহন চলাচল; তরুণ ও যুবদের বেপরোয়া মোটরসাইকেল চালানো; জনসাধারণের মধ্যে ট্রাফিক আইন না জানা ও না মানার প্রবণতা; দুর্বল ট্রাফিক ব্যবস্থাপনা; বিআরটিএ’র সক্ষমতার ঘাটতি ও গণপরিবহন খাতে চাঁদাবাজি

সুপারিশ

দুর্ঘটনা রোধে বেশ কিছু সুপারিশও জানিয়েছে রোড সেফটি ফাউন্ডেশন। তারা বলছে, দক্ষ চালক তৈরির উদ্যোগ বৃদ্ধি করতে হবে; চালকের বেতন ও কর্মঘন্টা নির্দিষ্ট করতে হবে; বিআরটিএ’র সক্ষমতা বৃদ্ধি করতে হবে; পরিবহনের মালিক-শ্রমিক, যাত্রী ও পথচারীদের প্রতি ট্রাফিক আইনের বাধাহীন প্রয়োগ নিশ্চিত করতে হবে; মহাসড়কে স্বল্পগতির যানবাহন চলাচল বন্ধ করে এগুলোর জন্য আলাদা পার্শ্বরাস্তা (সার্ভিস লেন) তৈরি করতে হবে; পর্যায়ক্রমে সকল মহাসড়কে রোড ডিভাইডার নির্মাণ করতে হবে; গণপরিবহনে চাঁদাবাজি বন্ধ করতে হবে; রেল ও নৌ-পথ সংস্কার ও সম্প্রসারণ করে সড়ক পথের উপর চাপ কমাতে হবে; টেকসই পরিবহন কৌশল প্রণয়ন ও বাস্তবায়ন করতে হবে; ‘সড়ক পরিবহন আইন-২০১৮’ বাধাহীনভাবে বাস্তবায়ন করতে হবে।

news24bd.tv/ কামরুল 

পরবর্তী খবর

এবার রাজধানীতে লরি চাপায় প্রাণ গেল বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীর

অনলাইন ডেস্ক

এবার রাজধানীতে লরি চাপায় প্রাণ গেল বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীর

নিহত লিমন

রাজধানীর বিমানবন্দর এলাকায় লরির চাপায় লিমন নামে এক মোটরসাইকেল আরোহী বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীর মৃত্যু হয়েছে। ময়নাতদন্তের জন্য নিহত লিমনের মরদেহ ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

শুক্রবার (৩ ডিসেম্বর) দিবাগত রাত সোয়া ১২টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। শনিবার (৪ ডিসেম্বর) সকালে বিমানবন্দর থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মো. আসাদুজ্জামান শেখ এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

এসআই আসাদুজ্জামান বলেন, শুক্রবার দিবাগত রাতে বিমানবন্দর সড়কের লা মেরিডিয়ান হোটেল পার হয়ে পদ্মা গেটের সামনে একটি লরি মোটরসাইকেলটিকে ধাক্কা দেয়। ঘটনাস্থলেই মোটরসাইকেল চালক লিমনের মৃত্যু হয়।

খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে নিহতের মরদেহ উদ্ধার করে সুরতহাল সম্পন্ন করে। ময়নাতদন্তের জন্য মরদেহটি ঢামেক হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। দুর্ঘটনার পর লরি চালক পালিয়ে যায়। তবে লরিটি আটক করা হয়েছে। চালককে আটকের চেষ্টা চলছে বলেও জানান তিনি।

স্বজনরা জানান, রাতে ধানমন্ডির জিগাতলার আত্মীয়র বাসা থেকে নিজের বাসা কাউলায় ফেরার সময় একটি লরি লিমনকে চাপা দেয়। উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেলে নিয়ে আসলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

নিহত লিমন গ্রিন ইউনিভার্সিটিতে টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের চতুর্থ বর্ষের ছাত্র ছিলেন। তার বাড়ি জয়পুরহাট জেলার পাঁচবিবি থানার দমদমা গ্রামে। তার বাবার নাম মোজাম্মেল হক।

আরও পড়ুন


তাইজুলের জোড়া আঘাতে সাজঘরে পাকিস্তানের দুই ওপেনার

news24bd.tv এসএম

পরবর্তী খবর