ঠাকুরগাঁওয়ে স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণচেষ্টার অভিযোগ

ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি:

ঠাকুরগাঁওয়ে স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণচেষ্টার অভিযোগ

ঠাকুরগাঁওয়ের বালিয়াডাঙ্গীতে ষষ্ঠ শ্রেণিতে পড়ুয়া এক স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণচেষ্টার অভিযোগ উঠেছে রফিকুল ইসলাম (৩৫) নামে এক দুই সন্তানের  জনকের বিরুদ্ধে। গত শুক্রবার উপজেলার বড়বাড়ী ইউনিয়নের উত্তর বালিয়াডাঙ্গী গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। রফিকুল ইসলাম ওই গ্রামের মৃত আবুল হোসেনের ছেলে।

স্থানীয়রা জানান, ভ্যানচালক বাবা বাড়িতে ছিলেন না। মা মাঠে ছিলেন সাংসারিক কাজে। শুক্রবার দুপুরে বাড়িতে একা পেয়ে স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণের চেষ্টা করে রফিকুল। স্কুলছাত্রী চিৎকার দিলে প্রতিবেশীরা এগিয়ে আসলে পালিয়ে যায় রফিকুল।

এ ঘটনার পর স্কুলছাত্রীর বাবা আইনী সহায়তা পেতে ৯৯৯ ফোন করলে থানায় আসতে বলে স্কুলছাত্রীর বাবাকে। এরপর ওইদিন সন্ধ্যায় প্রভাবশালীদের চাপে মীমাংসায় বসেন স্কুলছাত্রীর বাবা।

আরও পড়ুন:


গোসলখানার দরজা বন্ধ করে কিশোরীকে জোরপূর্বক ধর্ষণ!

হাসপাতালে খালেদা জিয়াকে দেখতে কোকোর স্ত্রী

প্রেমিকাকে জিহ্বা কাটার ঘটনায় প্রেমিকাসহ গ্রেপ্তার ৪

জোর করে তুলে নিয়ে বিয়ে, দুই বছর পর পিটিয়ে হত্যা করল স্বামী


স্কুলছাত্রীর মা ও বাবা জানান, আমাদের ৩ মেয়ে। রফিকুল ও তার লোকজন খুবই দুধর্ষ। ভয়ে কোথাও বিচার চাইতে ভয় পাচ্ছি। তাছাড়া মামলা চালানোর মত সামর্থ নেই।

স্থানীয় ইউপি সদস্য রজব আলী জানান, স্কুলছাত্রীকে ও বাবার মুখে ঘটনাটি শোনার পর এলাকায় গিয়েছিলাম। অনেকের সামনেই রফিকুল অপরাধ স্বীকার করেছে। তবে স্থানীয় ভাবে প্রভাবশালী হওয়ায় স্কুলছাত্রীর বাবা ভয়ভীতির মধ্যে রয়েছে।

অভিযোগ উঠা রফিকুল ইসলামের বাড়িতে গেলে তাকে পাওয়া যায়নি। মুঠোফোনে একাধিকবার চেষ্টা করেও ফোন রিসিভ না করায় বক্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি।

বালিয়াডাঙ্গী থানার তদন্ত কর্মকর্তা আব্দুস সবুর জানান, স্কুলছাত্রী ও তার বাবার সাথে পুলিশ কথা বলেছে। ঘটনাটি তদন্ত করা হচ্ছে।

news24bd.tv/ কামরুল 

পরবর্তী খবর

রাজধানীতে ৩ হাজার পিস ইয়াবাসহ গ্রেপ্তার ২

অনলাইন ডেস্ক

রাজধানীতে ৩ হাজার পিস ইয়াবাসহ গ্রেপ্তার ২

প্রতীকী ছবি

রাজধানীর গুলিস্তান এলাকা থেকে তিন হাজার পিস ইয়াবাসহ মো. এনাম উদ্দিন ও মো. হোসাইন আহমদ নামের দুই ব্যবসায়ীকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

পল্টন থানার ওসি মো. সালাহউদ্দীন মিয়া বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, কতিপয় মাদক কারবারি পল্টন মডেল থানার বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামের ৩নং গেইটের সামনে ইয়াবা বিক্রয়ের জন্য অবস্থান করছে, এমন তথ্যে একটি টিম অভিযানে যায়।

আরও পড়ুন:


চট্টগ্রামেও হাফ ভাড়া নেওয়ার ঘোষণা

লকডাউন দেয়ার বিষয়ে যা জানালেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী


রোববার (৫ ডিসেম্বর) সকাল সাড়ে ৮টার দিকে পল্টন মডেল থানার বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামের ৩নং গেটের সামনে অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়। অভিযানের সময় গ্রেপ্তার এনাম ও হোসাইন কাছ থেকে তিন হাজার পিস ইয়াবা উদ্ধার করা হয়। তাদের বিরুদ্ধে পল্টন থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে।

news24bd.tv নাজিম

পরবর্তী খবর

ঢামেকে ময়লার স্তূপে পড়ে ছিল নবজাতকের লাশ

অনলাইন ডেস্ক

ঢামেকে ময়লার স্তূপে পড়ে ছিল নবজাতকের লাশ

প্রতীকী ছবি

ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ময়লার স্তূপে পড়ে ছিল এক কন্যা নবজাতকের লাশ। পুলিশকে বিষয়টি জানানো হলে তারা ওই নবজাতকের লাশটি উদ্ধার করে।

গতকাল শনিবার বেলা ১১টার দিকে জরুরি বিভাগের সামনে থেকে লাশটি উদ্ধার করা হয়। 

চিকিৎসকরা বলছেন, মাতৃগর্ভে আট মাস ছিল নবজাতকটি। এক থেকে দুদিন আগে জন্ম হয় তার। 

শাহবাগ থানার এসআই রয়েল জানান, শনিবার সকাল ৯টায় ৯৯৯-এ খবর পেয়ে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের জরুরি বিভাগের প্রবেশ গেটের কাছে যাই। সেখানে মসজিদের পাশে ময়লার স্তূপে পলিথিন ব্যাগে মোড়ানো অবস্থায় মৃত কন্যা নবজাতককে উদ্ধার করা হয়। কেউ তাকে এখানে ফেলে যায়। 

বেলা পৌনে ১১টায় ঢামেকের জরুরি বিভাগে নিলে কর্তব্যরত চিকিৎসক নবজাতককে মৃত ঘোষণা করেন। ময়নাতদন্তের জন্য নবজাতকটিকে হাসপাতাল মর্গে রাখা হয়েছে।

আরও পড়ুন


মিরপুরে গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টি, খেলা শুরু হতে দেরি

news24bd.tv এসএম

পরবর্তী খবর

অস্ত্রসহ চার রোহিঙ্গা সন্ত্রাসী গ্রেফতার

অনলাইন ডেস্ক

অস্ত্রসহ চার রোহিঙ্গা সন্ত্রাসী গ্রেফতার

দেশীয় তৈরি ৪টি রামদাসহ চার রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীকে গ্রেফতার করেছে এপিবিএন’র পুলিশ সদস্যরা। শনিবার ভোরে কক্সবাজারের টেকনাফের জাদিমুড়া ২৭ নম্বর ক্যাম্প এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেফতার করা হয়।এদের মধ্যে তিনজন পুলিশের তালিকাভুক্ত সন্ত্রাসী।

গ্রেফতার ব্যক্তিরা হলেন-উপজেলার হ্নীলা ইউনিয়নের ২৭ নম্বর জাদিমুড়া ক্যাম্পের মো. সিদ্দিকের ছেলে নুর আজিম (৩২), সহোদর ভাই আবু (৫০), মো. আইয়ুবের ছেলে ইসলাম (৩৫) ও মৃত মুসলিমের ছেলে নুরুল হক (৩৫)। 

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ১৬ আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়নের (এপিবিএন) অধিনায়ক এসপি মোহাম্মদ তারিকুল ইসলাম তারিক।

আরও পড়ুন:

গণপরিবহনে শিক্ষার্থীদের হাফ ভাড়া কার্যকর

হাফ পাস শুধুমাত্র ঢাকায় কার্যকর হবে বললেন এনা


 

উদ্ধারকৃত রামদাসহ গ্রেফতার রোহিঙ্গাদের পরবর্তী আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য টেকনাফ মডেল থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে বলেও জানান এপিবিএন’র এই কর্মকর্তা।

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর

রাতে ইন্সপেক্টরের ঘরে যাওয়া সেই নারী কনস্টেবলও প্রত্যাহার

অনলাইন ডেস্ক

রাতে ইন্সপেক্টরের ঘরে যাওয়া সেই নারী কনস্টেবলও প্রত্যাহার

এক নারী কনস্টেবলের সঙ্গে ‘আপত্তিকর’ অবস্থায় ধরা পড়েন সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের কোর্ট পরিদর্শক (ইন্সপেক্টর) প্রদীপ কুমার দাস।  বুধবার (১ ডিসেম্বর) রাতে সিলেটের আদালত পাড়ায় নিজ কক্ষে প্রদীপ কুমার দাসকে আটক করেন অন্য পুলিশ সদস্যরা। এই ঘটনার পর (ইন্সপেক্টর) প্রদীপ কুমার দাসকে প্রত্যাহার করা হয়। এবার একই ঘটনায় ‘আপত্তিকর অবস্থায়’ আটক সেই নারী কনস্টেবলকেও প্রত্যাহার করে পুলিশ লাইনসে সংযুক্ত করা হয়েছে।

শনিবার (৪ ডিসেম্বর) এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার (মিডিয়া) বি এম আশরাফ উল্লাহ তাহের।

তিনি জানান, সিলেট মহানগর পুলিশের উপ-কমিশনার (প্রসিকিউশন) মোহাম্মদ জাবেদুর রহমান স্বাক্ষরিত এক অফিস আদেশে ওই নারী কনস্টেবলকে প্রত্যাহারের করে পুলিশ লাইনে যুক্ত করা হয়।  

আরও পড়ুন:

গণপরিবহনে শিক্ষার্থীদের হাফ ভাড়া কার্যকর

হাফ পাস শুধুমাত্র ঢাকায় কার্যকর হবে বললেন এনা


 

অফিস আদেশে উল্লেখ করা হয়, ওই নারী কনস্টেবলের (নং-১৭৭৩) ৬ দিনের নৈমিত্তিক ছুটি বাতিল করে পুলিশ লাইনসে সংযুক্ত করা হয়েছে।

এর আগে ঘটনায় জড়িত কোর্ট ইন্সপেক্টর প্রদীপ কুমার দাসকে প্রত্যাহার করা হয় বলে নিশ্চিত করে সিলেটের পুলিশ কমিশনার নিশারুল আরিফ বলেছিলেন, অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে বিভাগীয় মামলা হবে।

পুলিশের একাধিক সূত্র জানায়, ছুটিতে থাকা ওই নারী কনস্টেবলকে রাতে কোর্ট বিল্ডিংয়ে নিজ কক্ষে ডেকে নেন পরিদর্শক প্রদীপ কুমার দাস। রাত ৯টার দিকে কক্ষের দরজা খোলা এবং ভেতরে আলো নেভানো দেখে অন্য পুলিশ সদস্যরা কক্ষে গিয়ে আলো জ্বালাতেই কোর্ট ইন্সপেক্টর ও নারী কনস্টেবলকে ‘আপত্তিকর অবস্থায়’ দেখতে পান।

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর

বিয়ের চাপ দেয়ায় প্রেমিকের হাতেই জীবন গেল খুশির

মাসুদা লাবনী

স্বামী প্রবাসে, নতুন করে সম্পর্ক আরেক জনের সাথে। বিয়ের চাপ দেয়ায় সেই প্রেমিকের হাতেই জীবন গেল খুশি বেগমের।সিলেটের ছাতকে একটি ক্লুলেস হত্যাকাণ্ডের রহস্য এভাবেই উম্মোচন করলো অপরাধ তদন্ত বিভাগ সিআইডি।গ্রেপ্তার করা হয়েছে একমাত্র আসামি মহিউদ্দিনকেও।  

বিয়ের চাপ, অতঃপর প্রেমিকাকে খুন। এমন ঘটনা ঘটে সিলেটের ছাতক এলাকায় গত ১৭ নভেম্বর। খুশি নামের এক তরুণীর সাথে প্রেম হয় তার শিক্ষক মহিউদ্দিনের।

কিন্তু লন্ডনপ্রবাসী এক ব্যক্তির সাথে স্ত্রী হওয়ায় খুশিকে বিয়ে করতে অস্বীকৃতি জানায় সে।  এই বিয়ের চাপের কারনে খুশিকে খুন করে মহিউদ্দিন। শুক্রবার সীতাকুণ্ড থেকে মোহাম্মদ মহিউদ্দিনকে গ্রেপ্তারের পর প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদ এসব তথ্য জানায় সে।

ঢাকায় সদর দফতরে শনিবার সংবাদ সম্মেলনে সিআইডি বলছে, পূর্ব পরিকল্পনা অনুযায়ী পার্শ্ববর্তী ধানক্ষেতে নিয়ে গলায় ওড়না পেঁচিয়ে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে পালিয়ে যায় মহিউদ্দিন।

সিআইডি জানায়, রিমান্ডে এনে জিজ্ঞাসাবাদ করলে এ বিষয়ে আরও বিস্তারিত জানা যাবে।

আরও পড়ুন:


আফ্রিকার ৭ দেশ থেকে এলেই ১৪ দিনের কোয়ারেন্টিন

দুই হাত হারানো ফাল্গুনীকে বিয়ে করলো এনজিও কর্মী সুব্রত

স্বাধীনতার ৫০ বছরে স্বাস্থ্যখাতে অভাবনীয় সাফল্য

ঢাকার যানজটেই শেষ জিডিপির প্রায় ৮৭ হাজার কোটি টাকা

১৭ নভেম্বর বাসা থেকে বের হয়ে যাবার পর ২১ নভেম্বর সকালে ধানক্ষেতে গলায় ওড়না পেঁচানো অবস্থায় খুশির মরদেহ উদ্ধার করা হয়। খুশি কে না পেয়ে ১৯ নভেম্বর পরিবহন শ্রমিক বাবা কবির মিয়া ছাতক থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেন।

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর