পাত্রের বীর্য পরীক্ষার রিপোর্ট চাইলেন মেয়ের বাবা

অনলাইন ডেস্ক

পাত্রের বীর্য পরীক্ষার রিপোর্ট চাইলেন মেয়ের বাবা

বিয়ে একটি নতুন সম্পর্কের নাম।এটি একটি সামাজিক বন্ধন বা বৈধ চুক্তি যার মাধ্যমে দু’জন মানুষের মধ্যে দাম্পত্য সম্পর্ক স্থাপিত হয়। বিয়ের আগে একে অপরের দুর্বলতা, সক্ষমতা খুঁজে বের করা খুবই স্বাভাবিক ঘটনা।

কিন্তু যদি বলি পাত্রের বীর্য পরীক্ষার রিপোর্ট দেখতে চাইলেন মেয়ের বাবা। নিশ্চয় অবাক হচ্ছেন। অবিশ্বাস্য মনে হলেও ঘটনাটি সত্যি।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম আনন্দ বাজার পত্রিকা বলছে, ঘটনাটি কলকাতার। 

খবরে বলা হয়, ইন্দ্রনীল সাহা নামে কলকাতার এক চিকিৎসকের দাবি, তাঁর মেয়ের সঙ্গে বিয়েতে রাজি হওয়ার আগে হবু জামাইয়ের বীর্য পরীক্ষার রিপোর্ট দেখতে চেয়েছেন পাত্রীর বাবা। এ আবদার নিয়ে ওই চিকিৎসকের দ্বারস্থ হয়েছিলেন সেই ব্যক্তি। 

ভাইরাল ওই পোস্টে ইন্দ্রনীলের আরও দাবি, প্রথমে হতবাক হয়ে গেলেও শনিবার ওই পাত্রের বীর্য পরীক্ষা করানো হয়েছে। স্বাভাবিক ভাবেই ওই পাত্র-পাত্রীর বা তাঁদের পরিবারের নাম-পরিচয় গোপন রেখেছেন তিনি। তবে ফেসবুকের পাতায় তা নিয়ে দু’চার কথা লিখতে ছাড়েননি। এমন অভিজ্ঞতা যে তাঁর কর্মজীবনে এই প্রথম, তা-ও জানিয়েছেন ইন্দ্রনীল।

ইন্দ্রনীল লিখেছেন, ‘এত দিন জানতাম, দেখেশুনে বিয়ে হলে ঠিকুজি-কোষ্ঠি মেলানো হয়। শুনেছি, কখনও মাধ্যমিকের অ্যাডমিট কার্ড দেখে মেয়ের বয়স মেলানো হয়। কিংবা দেখতে চাওয়া হয় ছেলের স্যালারি স্লিপ। (তবে) মেয়ের বাবা ছেলের বীর্য পরীক্ষার রিপোর্ট দেখতে চেয়েছেন। এমনও অভিজ্ঞতা হল এবার। সেটা নয় সহজে পাওয়া যাবে। কিন্ত, এ বার যদি জানতে চান হবু জামাই সহবাসে সক্ষম কি না!’ 

সঙ্গে তাঁর মন্তব্য, ‘আরও কী যে দেখতে শুনতে হবে, কে জানে!’

আরও পড়ুন: পাকিস্তানের কাছে খেলায় হেরে কাশ্মীরী শিক্ষার্থীদের ওপর হামলা

এ নিয়ে ফেসবুকে সরস মন্তব্য করতে ছাড়েননি অনেকেই। পাত্রীরও স্বাস্থ্য পরীক্ষা করিয়ে নেওয়া প্রয়োজন বলে দাবি করেছেন অনেকে। 

বিষয়টি খুবই গুরুত্বপূর্ণ বলে সমর্থন দিয়েছেন বেশ কয়েকজন ফেসবুক ব্যবহারকারী। তাঁদের মতে, ‘মন্দ কী! এতে তো লিঙ্গসাম্যই বজায় থাকল।’ 

স্বয়ং ইন্দ্রনীল কী মনে করেন? ফেসবুকে তাঁর সাফ জবাব, ‘এ ভাবে দরদাম করে সম্পর্ক তৈরি হয় না!’

news24bd.tv নাজিম

পরবর্তী খবর

আন্তর্জাতিক ফ্লাইট চালুর সিদ্ধান্ত পেছাল ভারত

অনলাইন ডেস্ক

আন্তর্জাতিক ফ্লাইট চালুর সিদ্ধান্ত পেছাল ভারত

ভারতের আন্তর্জাতিক ফ্লাইট স্বাভাবিক করার সিদ্ধান্ত পেছানো হয়েছে। দ্য ইকোনোমিক টাইমস এর সূত্রে জানা যায়, করোনাভাইরাসের বিস্তার রোধে দীর্ঘসময় বন্ধ থাকার পর আগামী ১৫ই ডিসেম্বর আবার ভারতের আন্তর্জাতিক ফ্লাইট শুরু হওয়ার কথা ছিল। তবে ওমিক্রন আতঙ্কে আপাতত সেটা স্থগিত করা হয়েছে। এ বিষয়ে পরে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে বলে জানানো হয়েছে।

দক্ষিণ আফ্রিকান এ ধরনটির কারণে বাড়তি সতর্কতা নিচ্ছে ভারত। এ ধরনটি কত দ্রুত বিস্তার করতে পারে সেদিকে নজর রাখা হচ্ছে। দেশজুড়ে সবগুলো বিমানবন্দরে বিভিন্ন ধরনের নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে। বিশেষ করে ঝুঁকিতে থাকা দেশ থেকে আগতদের জন্য টেস্ট ও কোয়ারেন্টাইনের কড়া নিয়ম চালু করেছে দেশটি। এদিকে দেশটির সিভিল এভিয়েশনের ডিরেক্টর জেনারেল এক বিবৃতিতে এয়ার বাবল চলমান থাকবে বলে ইঙ্গিত দিয়েছেন।

আরও পড়ুন

দক্ষিণ কোরিয়ায় ৬৯ ছাত্রের বিরুদ্ধে কিশোরীকে দলবদ্ধভাবে ধর্ষণের অভিযোগ

কুয়েট শিক্ষকের রহস্যজনক মৃত্যু, তদন্ত চেয়ে শিক্ষার্থীদের অবস্থান

২০ মাসেরও বেশি সময় ধরে আন্তর্জাতিক ফ্লাইট বন্ধ থাকার পর গত ২৬ নভেম্বর ভারত ১৫ই ডিসেম্বর থেকে আবার ফ্লাইট শুরু করার ঘোষণা দেয়। তবে ওমিক্রন আতঙ্কে আবারও নিষেধাজ্ঞা জারি করল দেশটি।

 news24bd.tv/এমি-জান্নাত   

পরবর্তী খবর

তুরস্কে ভয়াবহ ঝড়ে ৬ জন নিহত

অনলাইন ডেস্ক

তুরস্কে ভয়াবহ ঝড়ে ৬ জন নিহত

তুরস্কের ইস্তাম্বুল শহরসহ বিভিন্ন শহরে ভয়াবহ ঝড়ে এক বিদেশিসহ ছয়জন নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন অর্ধশতাধিক। গত সোমবার ও মঙ্গলবার ভয়াবহ এ ঝড় হয়েছে।

তুরস্কভিত্তিক সংবাদমাধ্যম ডেইলি সাবাহ বলেছে, প্রচণ্ড ঝড়ের কারণে তুরস্কের ক্ষতিগ্রস্ত শহরের স্কুল ও বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষা কার্যক্রম এক দিনের জন্য বন্ধ রাখা হয়েছে। বসফরাস সেতুতে সাময়িকভাবে পরিবহন চলাচল বন্ধ রাখা হয়। এ ছাড়া ফেরি চলাচল বন্ধ রাখায় তৈরি হয় তীব্র যানজট।

আরও পড়ুন

দক্ষিণ কোরিয়ায় ৬৯ ছাত্রের বিরুদ্ধে কিশোরীকে দলবদ্ধভাবে ধর্ষণের অভিযোগ

কুয়েট শিক্ষকের রহস্যজনক মৃত্যু, তদন্ত চেয়ে শিক্ষার্থীদের অবস্থান

প্রবল ঝড়ের কবলে শহরের অনেক গাছপালা উপড়ে পড়েছে। উড়ে গেছে অনেক বাড়ির ছাদ। ঐতিহ্যবাহী ‘ক্লক টাওয়ার’ ভেঙে পড়েছে। প্রবল ঝড়ের কারণে স্থানীয় সময় সোমবার ৩০টির বেশি ফ্লাইটের যাত্রাপথ পরিবর্তন করা হয়। এসব ফ্লাইটের বেশির ভাগ গতকাল মঙ্গলবার ইস্তাম্বুলে ফেরত আসে।

তুরস্কের আবহাওয়া বিভাগ জানিয়েছে, ঝড়ের সর্বোচ্চ গতিবেগ ঘণ্টায় ১৩০ কিলোমিটার পর্যন্ত উঠে। 

 news24bd.tv/এমি-জান্নাত   

পরবর্তী খবর

প্রথমবারের মতো স্মার্ট ব্যান্ডেজ তৈরী করেছে সিঙ্গাপুর

অনলাইন ডেস্ক

প্রথমবারের মতো স্মার্ট ব্যান্ডেজ তৈরী করেছে সিঙ্গাপুর

এই প্রথমবারের মতো বিশেষ ধরণের একটি স্মার্ট ব্যান্ডেজ তৈরী করেছে সিঙ্গাপুর। যা দিয়ে একটি অ্যাপের সাহায্যে কোনো দীর্ঘস্থায়ী ক্ষত সম্পর্কে পাওয়া যাবে বিস্তারিত তথ্য। কতদিন লাগতে পারে ক্ষত সারাতে, কিভাবে তাড়াতাড়ি সুস্থ হওয়া যাবে, সকল তথ্য দিয়ে দেবে এই নতুন আবিষ্কার।

রয়টার্স জানায়, সেন্সর যুক্ত করা স্বচ্ছ এই ব্যান্ডেজটি তৈরী করেছে সিঙ্গাপুরের জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি গবেষকদের দল। যার রয়েছে কোনো ক্ষত সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য দেয়ার বিশেষ কার্যক্ষমতা।

ভি কেয়ার নামের ব্যান্ডেজটি কেউ কোনো দীর্ঘস্থায়ী ক্ষতের ওপর লাগালে ১৫ মিনিটের মধ্যেই ক্ষতস্থানের তাপমাত্রা, ব্যাকটেরিয়ার ধরণ, পিএইচ ডাটা, এবং ক্ষতের প্রদাহজনক কারণগুলোর বিস্তারিত তথ্য পাওয়া যাবে।

যা কোনো চিকিৎসকের কাছে গেলে বিভিন্ন পরীক্ষা নিরীক্ষা ও ল্যাব টেস্টের জন্য সময় লাগে কয়েক ঘন্টা বা কয়েক দিন।
এটা তৈরির প্রকৃত উদ্দেশ্যই হচ্ছে, কয়েক ঘণ্টার কাজকে কয়েক মিনিটে সম্পন্ন করার ব্যবস্থা করে দেয়া।

আরও পড়ুন

দক্ষিণ কোরিয়ায় ৬৯ ছাত্রের বিরুদ্ধে কিশোরীকে দলবদ্ধভাবে ধর্ষণের অভিযোগ

কুয়েট শিক্ষকের রহস্যজনক মৃত্যু, তদন্ত চেয়ে শিক্ষার্থীদের অবস্থান

বর্তমানে ব্যান্ডেজটি দীর্ঘস্থায়ী ভেনাস আলসার বা পায়ের আলসারের রোগীদের ওপর পরীক্ষা করা হচ্ছে। ক্ষত নিরীক্ষণের জন্য প্রয়োজনীয় তথ্য সংগ্রহে সক্ষমও হচ্ছেন গবেষকরা। ডায়াবেটিক ফুট আলসারের মতো অন্যান্য ক্ষতের জন্যও ব্যবহার করা যেতে পারে এই ব্যান্ডেজ।

 news24bd.tv/এমি-জান্নাত   

পরবর্তী খবর

নিয়ন্ত্রণে আনা যাচ্ছেনা দিল্লির বায়ু দুষণ

অনলাইন ডেস্ক

নিয়ন্ত্রণে আনা যাচ্ছেনা দিল্লির বায়ু দুষণ

কোনভাবে নিয়ন্ত্রণে আনা যাচ্ছেনা দিল্লির বায়ু দুষণ। শীতের শুরুতে ভারতের রাজধানী দিল্লিতে ঘন ধোয়াশা এবং শুষ্ক আবহাওয়া বিরাজ করছে। 

এখনও তীব্র ধোঁয়াশার কবলে দিল্লির বাতাস । শীতের শুরুতে সেই ধোঁয়াশা যেন আরও বেড়েছে  সিস্টেম অব এয়ার কোয়ালিটি অ্যান্ড ওয়েদার ফোরকাস্টিং অ্যান্ড রিসার্চ জানিয়েছে  মঙ্গলবার সকালেও দিল্লির বাতাসে সার্বিক দূষণসূচক ছিল ৩০৫। আর এই মাত্রা মানব স্বাস্থ্যের জন্য খুবই খারাপ।

সরকারী তথ্য বলছে, বিগত ৬ বছরের মধ্যে নভেম্বরের সবচেয়ে খারাপ বাতাস রেকর্ড ছুঁয়েছে ভারতের রাজধানী।
এতে ক্রমেই বাড়ছে  দিল্লী বাসীর শ্বাসনালি ও ফুসফুসে সংক্রমণজনিত সমস্যা। এ ঘটনায় দিল্লী কতৃপক্ষ  সুপ্রিম কোর্টের তোপের মুখে আছে। স্বস্তিতে নেই কেন্দ্রীয় সরকারও।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, বাতাসের এই গুণমান নেমে যাওয়ায় চোখে জ্বালাপোড়া, ত্বকে জ্বালা এবং শ্বাসকষ্টের গুরুতর সমস্যা হতে পারে। মৃত্যুও হতে পারে। তাই শুধু দিল্লী নয়। প্রতিবেশী রাজ্যগুলিতে যানবাহন দূষণ এবং খড় পোড়ানোও বন্ধে ব্যবস্থা নেয়ার তাগিদ দেন তারা।

সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচারপতি এন ভি রামান্নার বেঞ্চে দিল্লি বায়ুদূষণ মামলার শুনানি হয়। মামলাকারী আইনজীবী বিকাশ সিং দাবি করেন, নির্মাণ কাজ বন্ধ রাখার কথা বলা হলেও কেন্দ্রীয় সরকারের সেন্ট্রাল ভিস্তার কাজ এখনও চলছে।

আমাদের কাছে ভিডিও আছে, কীভাবে এই নির্মাণ কাজে ধুলো উড়ছে এবং তার ফলে বায়ু দূষিত হচ্ছে। বিকাশবাবু এই বিষয়ে আদালতের হস্তক্ষেপ চান। শীর্ষ আদালত এরপরেই ক্ষোভ প্রকাশ করে জানিয়ে দেয়, কেন্দ্র ও রাজ্যগুলিকে দ্রুত বক্তব্য জানাতে হবে।

আরও পড়ুন

দক্ষিণ কোরিয়ায় ৬৯ ছাত্রের বিরুদ্ধে কিশোরীকে দলবদ্ধভাবে ধর্ষণের অভিযোগ

কুয়েট শিক্ষকের রহস্যজনক মৃত্যু, তদন্ত চেয়ে শিক্ষার্থীদের অবস্থান

দিল্লিতে এই দূষণের মাত্রা না কমায় ফলে চিন্তায় পরিবেশবিদেরা। রাজধানী ক্ষেত্রের নয়ডাতেও বাতাসে দূষণ-সূচক এদিন ছিল খুব খারাপ।

শহরে বাতাসের গতি কমেছে , কমেছে তাপমাত্রা। আগামী কয়েকদিনে শহরের বাতাসের মানের উন্নতির কোনো লক্ষণ নেই। 

ভারতীয় আর্থ সায়েন্সেস মন্ত্রণালয় বা সিস্টেম অফ এয়ার কোয়ালিটি অ্যান্ড ওয়েদার ফোরকাস্টিং অ্যান্ড রিসার্চ  দিল্লির ধোয়াশার  ৩০৫ ডিগ্রি রেকর্ড করা হয়েছে। দূষণের কারণে শ্বাসকষ্ট এবং চোখ জ্বালাপোড়া করছে স্থানীয়দের। 

 news24bd.tv/এমি-জান্নাত   

পরবর্তী খবর

বিশ্বের সবচেয়ে ব্যয়বহুল শহর তেল আবিব

অনলাইন ডেস্ক

বিশ্বের সবচেয়ে ব্যয়বহুল শহর তেল আবিব

বিশ্বের সবচেয়ে ব্যয়বহুল শহর এখন ইসরায়েলের তেল আবিব। দ্বিতীয় স্থানে যৌথভাবে রয়েছে সিঙ্গাপুর সিটি ও ফ্রান্সের প্যারিস। আর জীবনযাপনের ব্যয় সবচেয়ে কম সিরিয়ার দামেস্কে। জীবনযাত্রার ব্যয় নিয়ে যুক্তরাজ্যের লন্ডনভিত্তিক ইকোনমিস্ট ইন্টেলিজেন্স ইউনিটের প্রতিবেদনে এসব তথ্য উঠে এসেছে। 

বার্তা সংস্থা এএফপির খবরে বলা হয়েছে, প্রথমবারের ইকোনমিস্ট ইন্টেলিজেন্স ইউনিট ইআইইউর প্রতিবেদনে  ব্যয়বহুল শহরের তালিকায় শীর্ষে উঠে এল তেল আবিব। মার্কিন ডলারে বিশ্বের ১৭৩টি শহরে পণ্য ও সেবার মূল্যমান বিবেচনায় নিয়ে বিশ্বজুড়ে জীবনযাপনের ব্যয়ের এই সূচক তৈরি করেছে ইআইইউ। ডলারের বিপরীতে ইসরায়েলের মুদ্রা শেকেলের মূল্য কমে যাওয়ার সঙ্গে পরিবহনের খরচ বৃদ্ধি ও মুদিদোকানে পাওয়া যায়—এমন দ্রব্যের দাম বেড়ে যাওয়ায় শীর্ষ ওঠে তেল আবিব।

আরও পড়ুন

দক্ষিণ কোরিয়ায় ৬৯ ছাত্রের বিরুদ্ধে কিশোরীকে দলবদ্ধভাবে ধর্ষণের অভিযোগ

কুয়েট শিক্ষকের রহস্যজনক মৃত্যু, তদন্ত চেয়ে শিক্ষার্থীদের অবস্থান

তালিকায় যৌথভাবে দ্বিতীয় স্থানে আছে প্যারিস ও সিঙ্গাপুর। এরপর রয়েছে চীনের আধা স্বায়ত্তশাসিত অঞ্চল হংকং ও সুইজারল্যান্ডের জুরিখ। ইআইইউর তালিকায় নিউইয়র্কের অবস্থান ষষ্ঠ। সুইজারল্যান্ডের আরেক শহর জেনেভা সপ্তম স্থানে রয়েছে। এরপর শীর্ষ দশে থাকা অন্য শহরগুলো হলো যথাক্রমে ডেনমার্কের কোপেনহেগেন, যুক্তরাষ্ট্রের লস অ্যাঞ্জেলেস ও জাপানের ওসাকা।

গত বছর ইআইইউর তালিকায় যৌথভাবে বিশ্বের সবচেয়ে ব্যয়বহুল তিন শহর ছিল প্যারিস, জুরিখ ও হংকং।

চলতি বছর আগস্ট ও সেপ্টেম্বরে সংগ্রহ করা তথ্য দিয়ে তালিকা তৈরি করা হয়েছে। এ সময়ে জলপথে মালামাল পরিবহনের খরচ ও পণ্যের দাম বেড়েছে। দেখা গেছে, দেশে দেশে স্থানীয় মুদ্রার ক্ষেত্রে গড় দাম ৩ দশমিক ৫ শতাংশ বেড়েছে। এর মধ্য দিয়ে গত পাঁচ বছরের মধ্যে বিশ্বে দ্রুততম মুদ্রাস্ফীতির রেকর্ড হয়েছে এবার।

 news24bd.tv/এমি-জান্নাত   

পরবর্তী খবর