দোকানে গেলেই শিশুদেরকে যৌন নিপীড়ন করতো এই দোকানি
দোকানে গেলেই শিশুদেরকে যৌন নিপীড়ন করতো এই দোকানি

দোকানে গেলেই শিশুদেরকে যৌন নিপীড়ন করতো এই দোকানি

Other

সকালে নয়তো দুপুরে যখন মানুষের যাতায়াত কম থাকে তখন পণ্য কিনতে দোকানে গেলেই দোকানী কৌশলে শিশুদেরকে কাছে টেনে নিয়ে যৌন নিপীড়ন চালাতো। অসভ্য ওই আচরণের কথা কাউকে যাতে না বলা হয় সেজন্য তিনি দোকানে রাখা ছুরি দিয়ে হত্যার হুমকিও দিতেন।

কোরবাণীর ঈদের পর থেকে ওই মুদি দোকানী শিশুদের ওপর যৌন নিপীড়ন চালিয়ে আসছে বলে জানা গেছে।

অবশেষে শিশুদের যৌনহয়রানীকারী ওই মুদি দোকানীকে পুলিশ গ্রেফতার করেছে।

বগুড়ায় পাঁচ শিশুকে ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগে গ্রেফতার হওয়া মুদি দোকানী আলমগীর হোসেন রাজা (৫২)।

মঙ্গলবার সন্ধ্যায় সদর থানা পুলিশ তাকে শহরের নিশিন্দারা ধমকপাড়া এলাকায় বাড়ি থেকে গ্রেফতার করে। ওই ঘটনায় যৌন নিপীড়নের শিকার এক শিশুর মা বাদী হয়ে অভিযুক্ত আলমগীর হোসেন রাজার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছেন।  

নির্যাতনের শিকার শিশুদের বয়স ৯ থেকে ১১ বছরের মধ্যে।

তারা গ্রেফতার রাজার বিরুদ্ধে পুলিশের কাছে জবানবন্দী দিয়েছে।

তাতে তারা বলেছে যে, দোকানে কেনা—কাটা করতে গেলেই রাজা বিভিন্ন সময় তাদের ওপর যৌন নিপীড়ন চালায়। বগুড়া সদর থানার নারী ও শিশু হেল্প ডেস্কের কর্মকর্তা সাব ইন্সপেক্টর জেবুন নেছা জানান, সর্বশেষ যৌন নিপীড়নের ঘটনা ঘটে ৪ দিন আগে দুপুর বেলা। সেদিন এক শিশু মুদি দোকানী আলমগীর হোসেন রাজার দোকানে শ্যাম্পু কিনতে যায়। তখন ওই দোকানি শিশুটিকে দোকানের ভেতরে গিয়ে শ্যাম্পু নিতে বলে। সরল বিশ্বাসে শিশুটি দোকানের ভেতরে যেতেই দোকানি আলমগীর হোসেন রাজা দরজা বন্ধ করে তার পরনের কাপড় খুলতে শুরু করে। এতে শিশুটি বাধা দিলে দোকানি তাকে চাকু দিয়ে হত্যার হুমকি দেয়। অনেক পীড়াপীড়ির পর শিশুটি ছাড়া পেয়ে বিষয়টি তার মাকে গিয়ে বলে। এরপর ওই শিশুর মা মঙ্গলবার বিকেলে থানায় গিয়ে তার মেয়েকে ধর্ষণের চেষ্টা ও যৌন নিপীড়নের অভিযোগে মুদি দোকানি আলমগীর হোসেন রাজার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন।

পুলিশের সাব ইন্সপেক্টর জেবুন নেছা জানান, মামলার পর পরই অভিযুক্ত মুদি দোকানীকে গ্রেফতারের জন্য অভিযান চালানো হয়। পরে মঙ্গলবার সন্ধ্যা ৬টার দিকে শহরের নিশিন্দারা ধমকপাড়া এলাকায় বাড়ি থেকে মুদি দোকানী আলমগীর হোসেন রাজাকে গ্রেফতার করা হয়।

পুলিশ কর্মকর্তা জেবুন নেছা বলেন, মুদি দোকানীকে গ্রেফতারের পর পরই আরও ৪ শিশুর মা তাদের শিশুদের নিয়ে থানায় আসেন। এরপর সেই ৪ শিশুও মুদি দোকানী আলমগীর হোসেন রাজার বিরুদ্ধে ধর্ষণ চেষ্টা ও যৌন নিপীড়নের অভিযোগ করে। পরে ২২ ধারায় দেওয়া জবানবন্দীতে তারা জানায়, কোরবাণীর ঈদের পর থেকে ওই মুদি দোকানী শিশুদের ওপর যৌন নিপীড়ন চালিয়ে আসছে। শিশুরা জানায়, সকালে নয়তো দুপুরে যখন মানুষের যাতায়াত কম থাকে তখন পণ্য কিনতে দোকানে গেলেই দোকানী আলমগীর হোসেন রাজা কৌশলে তাদেরকে কাছে টেনে নিয়ে যৌন নিপীড়ন চালাতো। অসভ্য ওই আচরণের কথা কাউকে যাতে না বলা হয় সেজন্য তিনি দোকানে রাখা ছুরি দিয়ে হত্যার হুমকিও দিতেন।

আরও পড়ুন:


পাগলীর জন্ম নেওয়া সন্তানের পিতা এমপি বদি

টস জিতে ফিল্ডিংয়ে পাকিস্তান

শোয়েব মালিককে ‘দুলাভাই’ ‘দুলাভাই’ বলে ডাকল ভারতীয় দর্শকরা (ভিডিও)

সূর্য ডোবার আগেই আটক নেতাকর্মীদের মুক্তি দাবি রিজভীর

সাব ইন্সপেক্টর জেবুন নেছা বলেন, ভুক্তভোগী শিশুদের মায়েরা জানিয়েছেন তাদের মেয়েদের ওপর বিভিন্ন সময় মুদি দোকানী আলমগীর হোসেন রাজার যৌন নিপীড়নের খবর তারা জানতো। কিন্তু ভয় আর লোক লজ্জার কারণে তারা বিষয়টি গোপনেই রেখেছিলেন।

বগুড়া সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সেলিম রেজা জানান, পাঁচ শিশুকে ধর্ষণ চেষ্টা এবং যৌন নিপীড়নের অভিযোগে আলমগীর হোসেন রাজাকে গ্রেফতার করা হয়েছে। বুধবার তাকে আদালতে প্রেরণ করা হবে।

news24bd.tv/তৌহিদ

সম্পর্কিত খবর