হাসপাতালে অজ্ঞান করার ইনজেকশন দিতেই মারা গেলেন অন্তঃসত্ত্বা
Breaking News
হাসপাতালে অজ্ঞান করার ইনজেকশন দিতেই মারা গেলেন অন্তঃসত্ত্বা

হাসপাতালে অজ্ঞান করার ইনজেকশন দিতেই মারা গেলেন অন্তঃসত্ত্বা

অনলাইন ডেস্ক

নিলুফা ইয়াসমিন (২৫) নামে এক অন্তঃসত্ত্বা নারীর মৃত্যুর ঘটনায় হাসপাতাল ভাঙচুর ও ম্যানেজারকে মারধরের অভিযোগ উঠেছে।   

তথ্যসূত্রে জানা গেছে, গতকাল মঙ্গলবার রাতে সিরাজগঞ্জের পৌর এলাকার এম এ মতিন সড়কের মঈনুদ্দিন মেমোরিয়াল হাসপাতালে অপারেশনের আগে অজ্ঞান করার ইনজেকশন দিতেই ওই অন্তঃসত্ত্বার নারীর মৃত্যু হয়।   এ ঘটনায় তার স্বজনরা হাসপাতাল ভাঙচুর ও ম্যানেজারকে মারধর করেছে। ঘটনার পর থেকে হাসপাতালের চিকিৎসক, নার্স ও কর্মচারীরা পলাতক রয়েছেন।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন সিরাজগঞ্জ সদর থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) সাইফুল ইসলাম।  

মৃত নিলুফা ইয়াসমিন রংপুর জেলার গঙ্গাচড়া থানার চরখালি শেরপুর গ্রামের রুবেল হোসাইনের স্ত্রী ও তাড়াশ উপজেলার মাধাইনগর ইউনিয়নের উত্তর মথুরাপুর গ্রামের শামছুল আলমের মেয়ে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, মঈনুদ্দিন মেমোরিয়াল হাসপাতালে ওই রোগীর মৃত্যু হওয়ার পর পরই স্বজনেরা হাসপাতাল ভাঙচুর করে। এসময় হাসপাতালের পরিচালক ডা. আব্দুল আজিজ সরকারের ছোট ভাই আব্দুর রাজ্জাককে মারধর করা হয়।

আরও পড়ুন:

যশোরে ৫ শিশুকে বলাৎকার! যুবক গ্রেফতার

বাড়িতে ঢুকে যুবলীগকর্মীকে কুপিয়ে হত্যা

মৃতের ভাই আল-আমিন হোসেনসহ পরিবারের লোকজন অভিযোগ করে বলেন, নিলুফাকে দুপুর ১টার দিকে হাসপাতালে আনা হয়। সন্ধ্যার দিকে তাকে সিজার করার জন্য অপারেশন টেবিলে নিয়ে যায়। এ সময় ডা. সজীব অজ্ঞান করার ইনজেকশন দেন। এর কিছুক্ষণ পরে অপারেশন করার আগেই মারা যান নিলুফা।

সদর থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) সাইফুল ইসলাম জানান, সন্ধ্যা ৬টার দিকে নিলুফাকে অপারেশনের জন্য ওটিতে নেওয়া হয়। অপারেশন শুরুর আগেই তার মৃত্যু হয়। এ ঘটনায় রোগীর স্বজনার হাসপাতালে ভাঙচুর শুরু করে। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করা হয়েছে।

news24bd.tv রিমু