মাদরাসা শিক্ষকের হাতুড়িপেটায় আহত ১০ ছাত্র
মাদরাসা শিক্ষকের হাতুড়িপেটায় আহত ১০ ছাত্র

মাদরাসা শিক্ষকের হাতুড়িপেটায় আহত ১০ ছাত্র

অনলাইন ডেস্ক

১০ ছাত্রকে হাতুড়িপেটা করার অভিযোগ উঠেছে হাফেজ মানিক বেপারী নামে এক মাদরাসা শিক্ষকের বিরুদ্ধে। ঘটনাটি ঘটে বরিশালের গৌরনদীর বার্থী উলুমে দীনিয়া কওমি মাদরাসায়। এ ঘটনায় মাদরাসাছাত্র হাফেজ মো. সোয়াইব বাদী হয়ে গত সোমবার (১ নভেম্বর) রাতে এ ঘটনায় থানায় লিখিত অভিযোগ করেছে। এদিকে ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করতে সাত সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করেছে মাদরাসা কর্তৃপক্ষ।

  

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ওই মাদরাসার এক ছাত্র জানিয়েছেন, মাদরাসার নুরানি বিভাগের শিক্ষক হাফেজ মানিক বেপারী প্রায়ই ব্যঙ্গ করে কিতাব বিভাগের ছাত্রদের ডাকেন। ছাত্ররা এ ঘটনার প্রতিবাদ করায় ওই শিক্ষক ক্ষুব্ধ হয়ে সম্প্রতি কিতাব বিভাগের ছাত্র মো. শাহ্জালাল ও মো. মাহামুদকে পিটিয়ে আহত করেন। এ ঘটনার বিচারের দাবিতে শিক্ষার্থীরা গত সোমবার সকালে মাদরাসার মুহতামিম মুফতি হাফেজ আমিনুল ইসলামের কাছে যায়। বিচার দেওয়ার কারণে শিক্ষক মানিক বেপারী ক্ষুব্ধ হয়ে ওই দিন দুপুরে শ্রেণিকক্ষে ঢুকে কিতাব বিভাগের ছাত্র রফিকুল ও মাহামুদকে পেটান। এ সময় অন্য ছাত্ররা ক্ষিপ্ত হয়ে শিক্ষক মানিককে ধাওয়া করে। এ সময় শিক্ষক মানিক দৌড়ে মাদরাসার মুহতামিমের কক্ষে আশ্রয় নিলে বিক্ষুব্ধ ছাত্ররা তাঁকে প্রায় আধাঘণ্টা অবরুদ্ধ করে রাখে।

পরে ছাত্ররা বিচারের দাবিতে বার্থী ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান ও মাদরাসা পরিচালনা কমিটির সভাপতি শাহজাহান প্যাদার বাড়িতে যায়। এ সময় শিক্ষক হাফেজ মানিক ও তাঁর মামা জাফর প্যাদার নেতৃত্বে বহিরাগত ১৫-২০ জন যুবক হাতুড়ি ও লাঠিসোঁটা নিয়ে ছাত্রদের ওপর অতর্কিত হামলা চালান। এ সময় হাতুড়িপেটায় কিতাব বিভাগের ছাত্র জাহিদুল ইসলাম, হাফিজুর রহমান, আবু ইউসুফ, সোয়াইব, হোসেন, মো. হাসানউদ্দিন, হাবিবুল্লাহসহ কমপক্ষে ১০ জন আহত হয়।  

অন্যদিকে, অভিযোগ অস্বীকার করে শিক্ষক হাফেজ মানিক বেপারী বলেন, কিতাব বিভাগের দুই ছাত্র বেয়াদবি করার কারণে তাদের বকা দেওয়া হয়েছে। মাদরাসার ভাবমূর্তি নষ্ট করার জন্য স্থানীয় একটি মহল ছাত্রদের দিয়ে অপবাদ রটিয়েছে।

আরও পড়ুন:


মিজানুর রহমান আজহারীকে ব্রিটেনে নিষিদ্ধ করতে সংসদে প্রস্তাব


এ ঘটনায় গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে কিতাব বিভাগের ক্লাস অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে।

এ ব্যাপারে গৌরনদী মডেল থানার ওসি মো. আফজাল হোসেন জানান, তদন্ত করে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।  

news24bd.tv রিমু  

 

;