ইউপি নির্বাচন নিয়ে সরকারের লোকজন নিজেরাই মারামারি করছে:রিজভী

অনলাইন ডেস্ক


ইউপি নির্বাচন নিয়ে সরকারের লোকজন নিজেরাই মারামারি করছে:রিজভী

বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব অ্যাডভোকেট রুহুল কবির রিজভী আহমেদ বলেছেন, নিশিরাতে ভোট ডাকাত সরকারের লোকজন এখন ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচন নিয়ে নিজেরাই মারামারি করে মরছে আর গ্রামীণ জনপদে সাধারণ মানুষের শান্তি বিনষ্ট করছে।

তিনি বলেন, সরকার জনগণের মধ্যে আতঙ্ক-অস্থিরতা ছড়িয়ে দিচ্ছে। তারা প্রতিদিন বিভিন্ন স্থানে রক্তাক্ত সহিংসতা করছে।

বুধবার (৩ নভেম্বর) সকালে নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।

রিজভী বলেন, আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতারা ঢাকায় বসে টাকার বিনিময়ে প্রকাশ্যে মনোনয়ন বাণিজ্য করছে আর প্রার্থীরা গ্রাম-গঞ্জে গিয়ে মারামারিতে লিপ্ত হচ্ছে। এর অন্তর্নিহিত লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য হচ্ছে ‘লুটপাটের লোভ’। কোনো মতে দলীয় টিকিট পেলেই সিলেকশনের চেয়ারম্যান হয়ে যাবে, তখন হাতিশালে হাতি আর ঘোড়াশালে ঘোড়ার অভাব হবে না। সব ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থীর ছড়াছড়ি। মেরে-কেটে যেভাবে হোক চেয়ারম্যান-মেম্বার হওয়ার জন্য উন্মাদ হয়ে উঠেছে তারা।

বিএনপির এ মুখপাত্র বলেন, প্রধান নির্বাচন কমিশনার কে এম নুরুল হুদা তার আপন বড় ভাই আওয়ামী লীগ নেতা আবু তাহের খান পটুয়াখালীর বাউফলের নওমালা ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে নৌকা প্রতীক না পাওয়ায় বেজায় মনক্ষুণ্ন হয়েছেন। তাই সেখানে নৌকার বিরুদ্ধে বিদ্রোহ করা আওয়ামী লীগের স্বতন্ত্র প্রার্থী শাহজাদা হাওলাদারের পক্ষে প্রচারণায় তিনি মাঠে নেমেছেন। এছাড়াও সেখানে মাঠে নেমেছেন রাতে ভোট ডাকাতি করে দশমিনা-গলাচিপা আসনে নৌকার অটো এমপি বনে যাওয়া সিইসির আপন ভাগ্নে এস এম শাহজাদা, সহোদর আবু তাহের খানসহ তাদের পুরো পরিবার।

আরও পড়ুন:


আজ জেল হত্যা দিবস

‘নৌকায় ভোট না দিলে মসজিদে নামাজ পড়তে দিবো না’

মিজানুর রহমান আজহারীকে ব্রিটেনে নিষিদ্ধ করতে সংসদে প্রস্তাব

দর্শকদের হুমকিতে দিশেহারা ভারতীয় ক্রিকেটাররা


রিজভী বলেন, নির্বাচনে সহিংসতার দায় স্থানীয় প্রশাসনের ওপর চাপাচ্ছে মেরুদণ্ডহীন পাপেট নির্বাচন কমিশন। অথচ তফসিল ঘোষণার পর প্রশাসন কমিশনের অধীনে চলে আসে, সেক্ষেত্রে সহিংসতা ও অনিয়মের দায়ও পড়ে নির্বাচন কমিশনের ওপর। ভোট ডাকাতিকে সহায়তা দিতে গিয়ে নির্বাচনী হিংসা, সন্ত্রাসবাদকে লালন-পালন করেছে কমিশন। ক্ষমতাসীনদের হরেক কিসিমের নির্বাচনী প্রতারণার নির্লজ্জ পৃষ্ঠপোষক কে এম নুরুল হুদা।

তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ কখনোই নিজেদের স্বার্থ-সর্বস্বতার ঊর্ধ্বে উঠতে পারে না। এরা অবৈধ ক্ষমতা আঁকড়ে ধরতে রক্তগঙ্গা বইয়ে দিতেও দ্বিধা করে না। বর্তমান সময় সংকটময় ও সমস্যাদীর্ণ। গণতন্ত্র হরণ আওয়ামী লীগের ডিএনএতে মিশে আছে। এদের কর্তৃত্ববাদী হিংস্র শাসনব্যবস্থার বিরুদ্ধে দেশের সব মানুষ ঐক্যবদ্ধ হলেও বর্তমান সিইসির নেতৃত্বাধীন নির্বাচন কমিশন দেশের ভোটারদের সঙ্গে প্রতারণা করেই চলেছে।

news24bd.tv নাজিম

পরবর্তী খবর

চড় মেরে এরপর জোর করে কলা খাইয়ে দিল আ.লীগ নেতা

অনলাইন ডেস্ক

চড় মেরে এরপর জোর করে কলা খাইয়ে দিল আ.লীগ নেতা

এবার ভাইরাল হলো এক চেয়ারম্যান প্রার্থীর কর্মীকে চড় মারার ভিডিও। আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী সেই প্রার্থীর কর্মীকে চড় মারেন স্থানীয় উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি আবুল হোসেন। ভিডিওতে চড় মারার পর ওই কর্মীকে জোর করে কলা খাইয়ে দেওয়ায় দৃশ্যও ধরা পড়ে। এই ভিডিও ভাইরাল হবার পর  নির্বাচনী মাঠে একদিকে যেমন ভীতির সৃষ্টি হয়েছে, অন্যদিকে সাধারণ মানুষের মাঝে হাস্যরসেরও সৃষ্টি হয়েছে। 

বৃহস্পতিবার বিকালে নাটোরের বাগাতিপাড়ায় জামনগর ইউপি নির্বাচনে স্বতন্ত্র (আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী) চেয়ারম্যান প্রার্থীর কর্মীকে চড় মারেন উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি আবুল হোসেন।

শনিবার সকালে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে সিসিটিভির একটি ফুটেজ ছড়িয়ে পড়ে।

স্থানীয়রা জানান, বৃহস্পতিবার সকালে জামনগর ইউনিয়নে নৌকার প্রার্থী আব্দুল কুদ্দুসের নির্বাচনী প্রচারে যান বাগাতিপাড়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আবুল হোসেনসহ কয়েকজন। এ সময় জামনগর বাজারে আনারস প্রতীক নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করা স্বতন্ত্র প্রার্থী কলেজ শিক্ষক শাহ আলমের প্রচার শেষে বাড়ি ফেরার সময় তার কর্মীকে চড়-থাপ্পড় মারেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আবুল হোসেন। এ ঘটনাটি ধরা পড়ে ওই বাজারের একটি দোকানে বসানো সিসিটিভি ক্যামেরায়।

আরও পড়ুন:


দ. আফ্রিকার করোনার নতুন ধরন খুবই ভয়ঙ্কর : স্বাস্থ্যমন্ত্রী

একই ইউপিতে বাবা-ছেলে ও আপন দুই ভাই চেয়ারম্যান প্রার্থী!

বেগম জিয়ার জন্য আলাদা আইন করার সুযোগ নেই: হানিফ


 

এদিকে অভিযোগ অস্বীকার করে বাগাতিপাড়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অধ্যাপক আবুল হোসেন বলেন, নিজের দলের কর্মী হওয়ায় তাকে একটি কলা খাওয়ানো হয়েছে মাত্র। এর বেশি কিছু না। 

প্রসঙ্গত, রোববার তৃতীয় ধাপের ইউপি নির্বাচনে নাটোরের বাগাতিপাড়ার ৫টি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে।

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর

এখনও পাসপোর্ট হাতে পাননি খালেদা জিয়া

মারুফা রহমান

এখনও হাতে পাসপোর্ট পাননি খালেদা জিয়া। এজন্য বিদেশ যাওয়ার অনুমতির পাশাপশি তার পাসপোর্ট সংক্রান্ত জটিলতা নিরসনে সরকারকে মানবিক সহযোগিতার আহ্বান জানিয়েছেন, বিএনপি নেতারা। দলের নেতারা বলছেন, লন্ডন অথবা আমেরিকায় তাঁর পরবর্তী চিকিৎসা সম্ভব। তবে এত দীর্ঘ পথের ধকল না সইতে পারলে খালেদা জিয়াকে আগে ব্যাংকক অথবা সিঙ্গাপুরে নিয়ে ডায়াগনসিস শুরু করা হবে।

সম্প্রতি বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার অবস্থা সংকটাপন্ন জানিয়ে তাঁর চিকিৎসার জন্য বিদেশে যাওয়ার অনুমতি চেয়ে ধারাবাহিক কর্মসূচী পালন করছে তাঁর দল। খালেদা জিয়ার পরিবার, ব্যক্তিগত চিকিৎসক, এবং রাজনৈতিক নানা অঙ্গন থেকেও বলা হচ্ছে যত দ্রুত সম্ভব তাঁকে দেশের বাইরে নিতে হবে। তবে অনুমতি পেলেও এখনও পার্সপোট হাতে পাননি বিএনপি নেত্রী।

অনুমতি পেলে বিএনপি চেয়ারপারসনের শারীরিক অবস্থার ওপর নির্ভর করবে তিনি কোন দেশে যাবেন। লন্ডন আমেরিকার পাশাপাশি তালিকায় থাকছে ব্যাংকক কিংবা সিঙ্গাপুরের হাসপাতাল।

বিদেশে যাওয়ার জন্য রাষ্ট্রপতির কাছে ক্ষমা চাওয়ার বিষয়ে, বিএনপি নেতারা জানান, এমন কিছুর সম্ভাবনা নেই।

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর

জনগণ এখন আমাদের আ.লীগের দালাল বলে: সংসদে চুন্নু

অনলাইন ডেস্ক

জনগণ এখন আমাদের আ.লীগের দালাল বলে: সংসদে চুন্নু

‌‘সরকারের কথা বলতে গিয়ে এমন অবস্থা হয়েছে মাননীয় স্পিকার, পাবলিক এখন আমাদের আওয়ামী লীগের দালাল বলে’ জানিয়েছেন জাতীয় পার্টির মহাসচিব মুজিবুল হক চুন্নু।

শনিবার জাতীয় সংসদে ‘মহাসড়ক বিল-২০২১’ পাসের আলোচনায় আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের এক বক্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে তিনি এ কথা বলেন।

জনমত যাচাইয়ের প্রস্তাব দিয়ে মুজিবুল হক চুন্নু বলেন, এই সরকার অনেক কাজ করেছে। কিন্তু ৭-৮ বছর ধরে টঙ্গী-গাজীপুর সড়কে ভয়াবহ অবস্থা। এখানে যাওয়া যায় না। ঘণ্টার পর ঘণ্টা আটকে থাকতে হয়। ইহজগতে এই রাস্তা দিয়ে আর যাওয়া যাবে কিনা, তা তিনি সড়ক পরিবহণ ও সেতুমন্ত্রীর কাছে জানতে চান।

আরও পড়ুন:


দ. আফ্রিকার করোনার নতুন ধরন খুবই ভয়ঙ্কর : স্বাস্থ্যমন্ত্রী

একই ইউপিতে বাবা-ছেলে ও আপন দুই ভাই চেয়ারম্যান প্রার্থী!

বেগম জিয়ার জন্য আলাদা আইন করার সুযোগ নেই: হানিফ


 

সংসদ সদস্যদের বক্তব্যের জবাব দিতে গিয়ে সড়ক পরিবহণমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের শুধু বিরোধিতা না করে সরকারের ভালো কাজের প্রশংসা করারও আহ্বান জানান বিরোধী দলের প্রতি।

জবাবে মুজিবুল হক হক চুন্নু বলেন, আমরা সরকারের ভালো কাজের প্রশংসা করি না, এটা ঠিক নয়। তিনি বলেন, সরকারের কথা বলতে গিয়ে এমন অবস্থা হয়েছে মাননীয় স্পিকার, পাবলিক এখন আমাদের আওয়ামী লীগের দালাল বলে। আর কত বলব, বলেন। আমরা এখন দালালি নামটা মুছতে চাই। তারপরও যদি আপনাদের মন না ভরে, তাহলে তো কিছু করার নেই।

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর

কাউকে ক্ষমতায় বসানো হেফাজতের এজেন্ডা নয়: আল্লামা মুহিবুল্লাহ

অনলাইন ডেস্ক

কাউকে ক্ষমতায় বসানো হেফাজতের এজেন্ডা নয়: আল্লামা মুহিবুল্লাহ

জাতীয় প্রেসক্লাবে ওলামা-মাশায়েখ সম্মেলন

হেফাজতে ইসলেমের নায়েবে আমীর আল্লমা মুহিবুল্লাহ বাবুনগরী বলেছেন, কোনো রাজনৈতিক দলের সঙ্গে হেফাজতের সংশ্লিষ্টতা নেই। কাউকে ক্ষমতায় বসানো বা ক্ষমতা থেকে নামানো হেফাজতের এজেন্ডা নয়।

শনিবার রাজধানীর জাতীয় প্রেস ক্লাবে ওলামা-মাশায়েখ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন। মুহিবুল্লাহ বাবুনগরীর সভাপতিত্বে সম্মেলনে প্রধান অতিথি ছিলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান।

নায়েবে আমীর মুহিবুল্লাহ বাবুনগরী শারীরিক অসুস্থতার কারণে তার পক্ষে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন মাওলানা হারুন আজীজী নদভী। 

লিখিত বক্তব্যে মুহিবুল্লাহ বাবুনগরী বলেন, হেফাজতে ইসলাম কোনো রাজনৈতিক দল নয়। জাতীয় ও আঞ্চলিক নির্বাচনে হেফাজতের কোনো প্রার্থিতা নেই, প্রোপাগান্ডাও নেই। কোনো রাজনৈতিক দলের সঙ্গে হেফাজতের সংশ্লিষ্টতা নেই। কাউকে ক্ষমতায় বসানো বা ক্ষমতা থেকে নামানো হেফাজতের এজেন্ডা নয়। 

তিনি বলেন, হেফাজতের ব্যানারে কোনো রাজনৈতিক কর্মকাণ্ড করারও কোনো সুযোগ নেই। হেফাজতে ইসলাম শুধু ইসলামি শিক্ষা, সংস্কৃতি ও তাহজিবের বিকাশ এবং নাস্তিকতাবাদের প্রতিরোধে কাজ করবে। 

মহাসচিব মাওলানা নূরুল ইসলাম জিহাদী বলেন, ইসলামকে হেফাজতের লক্ষ্যে ২০১০ সালে মাওলানা আহমদ শফীর হাত ধরে হেফাজতে ইসলামের জন্ম। প্রতিষ্ঠার পর নানা ঘাত-প্রতিঘাত সহ্য করেও ১৩ দফায় অটল রয়েছে হেফাজত। এর বাইরে হেফাজতের কোনো কর্মকাণ্ড নেই। কাউকে ক্ষমতায় বসানো বা নামানো হেফাজতে ইসলামের কাজ নয়। জাতীয় নির্বাচন তো দূরের কথা, ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনেও হেফাজতের কোনো প্রার্থী নেই। 

তিনি বলেন, কিছুদিন আগে যে কারণেই হোক দেশে হেফাজতের ডাকে হারতাল পালিত হয়েছে। এ হরতালকে কেন্দ্র করে কিছু দুর্ঘটনা ও অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেছে। সাধারণ ছাত্রদের মাঝে কিছু বিশৃঙ্খলাকারী অনুপ্রবেশ করে জ্বালাও-পোড়াও এবং ভাঙচুর করেছে। মাদ্রাসার ছাত্ররা কখনোই এর সঙ্গে যুক্ত ছিল না। মাদ্রাসায় কারো জানমালের ক্ষতির শিক্ষা দেওয়া হয় না। কিন্তু সেই ঘটনাকে কেন্দ্র করে সাধারণ আলেম-ওলামাদের কারাগারে পাঠানো হয়েছে। হেফাজত তাদের মুক্তি চায়।

আরও পড়ুন:


দ. আফ্রিকার করোনার নতুন ধরন খুবই ভয়ঙ্কর : স্বাস্থ্যমন্ত্রী

একই ইউপিতে বাবা-ছেলে ও আপন দুই ভাই চেয়ারম্যান প্রার্থী!

বেগম জিয়ার জন্য আলাদা আইন করার সুযোগ নেই: হানিফ


প্রধান অতিথির বক্তব্যে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান বলেন, হেফাজত অরাজনৈতিক প্রতিষ্ঠান হলে অনুপ্রবেশকারীদের কাছ থেকে সাবধান থাকা উচিত। হাটহাজারী ও ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সহিংসতার ঘটনায় জড়িতদের চিহ্নিত করা হয়েছে। এ ঘটনায় জড়িত নয়- এমন সাধারণ আলেমদের মুক্তির ব্যাপারে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ব্যবস্থা নিয়েছে। কিন্তু জামিনের বিষয়টি সম্পূর্ণ আদালতের এখতিয়ার। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় প্রক্রিয়াটা ত্বরান্বিত করবে। 

তিনি বলেন, কুরআন-সুন্নাহ বাইরে কেউ প্রোপাগান্ডা ছড়াতে চাইলে সরকার ব্যবস্থা নিচ্ছে। শুধু মুসলাম নয়, কারো বিশ্বাসের প্রতি অমর্যাদা করতে দেব না। 

news24bd.tv নাজিম

পরবর্তী খবর

উন্নত মানবিক রাষ্ট্র গঠনে ভূমিকা রাখবেন অভিনয়শিল্পীরা: তথ্যমন্ত্রী

অনলাইন ডেস্ক

উন্নত মানবিক রাষ্ট্র গঠনে ভূমিকা রাখবেন অভিনয়শিল্পীরা: তথ্যমন্ত্রী

বাংলাদেশকে বিশ্বের সামনে অনুসরণীয় একটি উন্নত ও মানবিক রাষ্ট্র হিসেবে গড়ে তুলতে অভিনয়শিল্পীরা সক্রিয় ভূমিকা রাখবেন বলে আশাপ্রকাশ করেছেন তথ্যমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ।

শনিবার সন্ধ্যায় রাজধানী শিল্পকলা একাডেমীতে জাতীয় নাট্যশালা মিলনায়তনে অভিনয় শিল্পী সংঘের বার্ষিক সাধারণ সভা ২০২১ এ প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি এ আশা ব্যক্ত করেন। 

ড. হাছান মাহমুদ বলেন, আমাদের লক্ষ্য বঙ্গবন্ধুকন্যার নেতৃত্বে সম্মিলিতভাবে ২০৪১ সালের মধ্যে জাতির পিতার স্বপ্নের উন্নত সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়া। ভৌত অবকাঠামোগতভাবে উন্নত এবং মানবিক ও সমাজকল্যাণ রাষ্ট্র গড়তে মানুষের মনন তৈরিতে অভিনয়শিল্পীদের ভূমিকা অপরিহার্য। 

বক্তৃতায় মন্ত্রী অভিনয়শিল্পীদেরকে তাদের পেশার প্রতি মমতার জন্য অভিনন্দন জানান। তিনি বলেন, শিল্পীরা শিল্পকে ভালোবেসেই অন্য পেশায় যাননি। অনেকে বহু সংগ্রাম ও ত্যাগ করেও অভিনয় জগতে রয়ে গেছেন, যারা চাইলেই অন্য পেশায় যেতে পারতেন। তারা আছেন বলেই আমাদের অভিনয়শিল্প সমৃদ্ধ হয়েছে।

দেশের টেলিভিশন খাতের সুরক্ষা ও উন্নয়নে সরকারের পদক্ষেপগুলোর সাথে একাত্মতার জন্য সকলকে ধন্যবাদ জানিয়ে তথ্যমন্ত্রী বলেন, কেউ কেউ মনে করেছিলেন আইনানুযায়ী  বিদেশি চ্যানেলের বিজ্ঞাপনমুক্ত বা ক্লিনফিড সম্প্রচার সম্ভব হবে না, তারা এনিয়ে শোরগোল করারও চেষ্টা করেছিল। কিন্তু সবার সহযোগিতায় দেশের স্বার্থে আমরা সেটি বাস্তবায়ন করতে পেরেছি। 

জানায়।

আরও পড়ুন:


দ. আফ্রিকার করোনার নতুন ধরন খুবই ভয়ঙ্কর : স্বাস্থ্যমন্ত্রী

একই ইউপিতে বাবা-ছেলে ও আপন দুই ভাই চেয়ারম্যান প্রার্থী!

বেগম জিয়ার জন্য আলাদা আইন করার সুযোগ নেই: হানিফ


হাছান মাহমুদ বলেন, ক্যাবল নেটওয়ার্কে দেশি টিভিগুলোর কোনো ক্রম ছিলো না, এখন হয়েছে। দেশি শিল্পী ও বিজ্ঞাপন শিল্পের সুরক্ষায় আমরা বিদেশি শিল্পী দিয়ে বিজ্ঞাপন নির্মাণে শিল্পীপ্রতি ২ লাখ টাকা ও যে টিভিতে প্রচার হবে, তাকে বিজ্ঞাপনপ্রতি ২০ হাজার টাকা সরকারি কোষাগারে দেওয়ার নিয়ম করেছি।  

তথ্য ও সম্প্রচার  প্রতিমন্ত্রী মুরাদ হাসান তার বক্তৃতায় সকলকে বঙ্গবন্ধু ও মুক্তিযুদ্ধের আদর্শে অনুপ্রাণিত হয়ে অভিনয় শিল্পকে এগিয়ে নিতে আহবান জানান। 

অভিনয় শিল্পী সংঘের সভাপতি শহীদুজ্জামান সেলিমের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক আহসান হাবিব নাসিমের পরিচালনায় তথ্য প্রতিমন্ত্রী ডাঃ মুরাদ হাসান, আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া, চিত্রনায়ক আলমগীর, প্রথিতযশা অভিনয়শিল্পী মামুনুর রশীদ, তারিক আনাম খান, সালাহউদ্দীন লাভলু অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন। 

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর