বিএনপির জেলা কমিটিতে মৃত ব্যক্তি ও আওয়ামী লীগ কর্মীর নাম!
বিএনপির জেলা কমিটিতে মৃত ব্যক্তি ও আওয়ামী লীগ কর্মীর নাম!

বিএনপির জেলা কমিটিতে মৃত ব্যক্তি ও আওয়ামী লীগ কর্মীর নাম!

অনলাইন ডেস্ক

সারাদেশে বিএনপির জেলা কমিটিতে মৃত, প্রবাসী ও আওয়ামী লীগ কর্মী ব্যক্তিদের নাম পাওয়ার অভিযোগ উঠেছে। চলতি বছরের গত ২৭ সেপ্টেম্বর মানিকগঞ্জ জেলা বিএনপির পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা করা হয়েছে। অভিযোগ উঠেছে, ওই কমিটিতে মৃত ব্যক্তিকে পদ দেওয়া হয়েছে। এছাড়াও প্রবাসী এবং আওয়ামী লীগের কর্মসূচিতে অংশগ্রহণকারী এমন ব্যক্তিদের নামও পাওয়া গেছে বলে জানা যায়।

এ নিয়ে নেতাকর্মীদের অনেকের প্রশ্ন, দলের নেতাকর্মীরা আগামী দিনে আন্দোলন-সংগ্রামের কথা বলছেন কিন্তু যাদের দিয়ে দলের পুনর্গঠন করা হচ্ছে, তাদের দিয়ে তো আন্দোলন হবে না।

গতকাল বুধবার এ ব্যাপারে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেন, ‘বিএনপি একটি বড় দল। জেলা কমিটি গঠনে কিছু ভুলত্রুটি হতে পারে। আমরা অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নেব। কিছু কমিটি নিয়ে অভিযোগ ওঠার পর দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান ইতিমধ্যে ব্যবস্থা নিয়েছেন। ’ 

মানিকগঞ্জ জেলা বিএনপির পূর্ণাঙ্গ কমিটিতে ১৫ জন সহসভাপতি, ছয়জন যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক, কোষাধ্যক্ষ, দপ্তর সম্পাদক, প্রচার সম্পাদক, মুক্তিযোদ্ধাবিষয়ক সম্পাদক, ৭৭ জন নির্বাহী সদস্যসহ বিভিন্ন পদে ১৫৯ জনের নাম ঘোষণা করা হয়।

এ বিষয়ে ক্ষুব্ধ মানিকগঞ্জ জেলা বিএনপির একাধিক নেতা বলেন, ‘ঢাকার পাশ্ববর্তী এই জেলা একসময় ছিল বিএনপির ঘাঁটি। কিন্তু জেলা কমিটি সঠিকভাবে না করার কারণে সেই ঘাঁটি এখন ভেঙে গেছে। কাউন্সিলের মাধ্যমে গঠিত জেলা কমিটির সভাপতি হন আফরোজা খান রিতা ও সাধারণ সম্পাদক হন এস এ জিন্নাহ কবীর।  

কমিটিতে সাংগঠনিক সম্পাদক করা হয়েছে ফ্রান্সপ্রবাসী ছাত্রদলের সাবেক নেতা গোলাম আবেদিন কায়সারকে। যিনি দীর্ঘ ১৫ বছর যাবৎ ফ্রান্সে থাকেন।  

এ ছাড়া আইনবিষয়ক সম্পাদক করা হয়েছে অ্যাডভোকেট আবদুল আউয়ালকে। আউয়ালকে স্থানীয় আওয়ামী লীগের এমপির কর্মসূচিতে দেখা যায়। যুগ্ম সম্পাদক করা হয়েছে হামিদুর রহমান দুলালকে। ১৯৯৬ সালে দলত্যাগ করে বিকল্প ধারা বাংলাদেশের মানিকগঞ্জ জেলার সভাপতি হন। তিনি টাঙ্গাইলের নাগরপুরে বসবাস করেন। দলে না থেকেও দীর্ঘ ২৫ বছর পর অন্য দল করে এসে এখন জেলার যুগ্ম সম্পাদক পদ বাগিয়ে নিয়েছেন।

অ্যাডভোকেট আ ফ ম নুরতাজ আলম বাহারকে সাংগঠনিক সম্পাদক করা হয়েছে। দীর্ঘদিন তিনি বিএনপির সঙ্গে জড়িত নন। কোনো আন্দোলনে ছিলেন না। আরেক সাংগঠনিক সম্পাদক রফিক উদ্দিন ভূঁইয়া হাবু সদ্য বিদায়ী জেলা বিএনপির আহ্বায়ক অ্যাডভোকেট জামিলুর রশিদ খানের বাসায় দিনে-দুপুরে ডাকাতি মামলার আসামি। তিনি আবার মানিকগঞ্জ সদর উপজেলা বিএনপির কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক। ১৫১ নম্বর সদস্য লুৎফর রহমান লাল মিয়া মৃত। ’

আরও পড়ুন:


গ্লাসগোয় ড্রাম বাজালেন মোদী, ভিডিও ভাইরাল

এখন নামাজ আর কোরআন এগুলোই আমার সাথি: আহমেদ শরীফ

যে ৫ কারণে আফগানদের হারালেন কোহলীরা!


নাটোরের বাগাতীপাড়া উপজেলা ও পৌর বিএনপির আহ্বায়ক কমিটিতে মৃত ব্যক্তিদের পদ দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে।  

অন্যদিকে রাজবাড়ী জেলার কমিটি নিয়ে অভিযোগে উঠেছে। এ বিষয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করে জেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি ও সাবেক সাংসদ আলী নেওয়াজ মাহমুদ খৈয়াম বলেন, ‘রাজবাড়ী জেলার গোয়ালন্দ উপজেলার  কমিটি নিয়ে ক্ষোভ রয়েছে স্থানীয় নেতাকর্মীদের মধ্যে। রাজবাড়ী জেলার গোয়ালন্দ উপজেলা বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক সুলতান নুর ইসলামের নেতৃত্বে নেতাকর্মীরা গোয়ালন্দ প্রেস ক্লাবের অস্থায়ী কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলন করেছেন। এ সময় তারা রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ উপজেলা বিএনপির সদ্য ঘোষিত আহ্বায়ক কমিটি বাতিলের দাবি জানিয়েছেন। ’

news24bd.tv রিমু