প্রতিমা ভাঙচুর ও বাড়িতে আগুন: গ্রেপ্তারের ভয়ে পুরুষ শূন্য কুড়িগ্রামের ১০ গ্রাম
প্রতিমা ভাঙচুর ও বাড়িতে আগুন: গ্রেপ্তারের ভয়ে পুরুষ শূন্য কুড়িগ্রামের ১০ গ্রাম

প্রতিমা ভাঙচুর ও বাড়িতে আগুন: গ্রেপ্তারের ভয়ে পুরুষ শূন্য কুড়িগ্রামের ১০ গ্রাম

Other

কুড়িগ্রামে মন্দিরে প্রতিমা ভাঙচুরসহ বাড়িঘরে হামলা, অগ্নিসংযোগ ও লুটপাটের ঘটনায় গণগ্রেপ্তারের ভয়ে পুরুষ শূন্য ৩ ইউনিয়নের ১০ গ্রামের মানুষ। আতঙ্কে রয়েছে ওই এলাকার নারী ও শিশুরাও। গ্রামগুলোতে ভাটা পরেছে ব্যবসা ও আয়মূলক কর্মকান্ডে। মজুরের অভাবে জমিতে নষ্ট হচ্ছে সবজি ও অন্যান্য ফসল।

আর এই সুযোগকে কাজে লাগিয়ে এক শ্রেণির দালালরা মানুষের দুর্বলতাকে কাজে লাগিয়ে মামলা থেকে নাম প্রত্যাহারের কথা বলে হাতিয়ে নিচ্ছে মোটা অংকের টাকা।

এ ব্যাপারে উলিপুর থানা পুলিশ জনিয়েছে, গ্রামের মানুষকে আতঙ্কিত না হওয়ার জন্য পরামর্শ দেয়া হয়েছে। শুধুমাত্র ঘটনার সাথে যারা জড়িত তাদেরকে যাচাই-বাছাই করে আটক করা হচ্ছে। দালাল চক্রের বিষয়টিও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীসহ প্রশাসনের নজরেও এসেছে। সেটি কঠোরভাবে নজরদারী করা হচ্ছে।

গত ১৩ অক্টোবর কুমিল্লায় একটি মন্দিরে কোরান শরীফ অবমাননার ঘটনায় কুড়িগ্রামের উলিপুর উপজেলার ৩টি ইউনিয়নের ৫টি মন্দিরে ভাঙচুর চালানো হয়। এসময় দুর্বৃত্তরা প্রতিমা ভাঙচুরসহ বাড়িঘরে হামলা, অগ্নিসংযোগ ও লুটপাটের ঘটনা ঘটায়। পরে উলিপুর থানা পুলিশ বাদী হয়ে মন্দির ভাঙচুর ও ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত হানার অভিযোগে পৃথক ৫টি মামলায় ৭৯জনের নাম উল্লেখসহ প্রায় ৭ শতাধিক অজ্ঞাত ব্যক্তিকে আসামি করা হয়। আর এ ঘটনায় এখন পর্যন্ত আটক করা হয়েছে ৬৬ জনকে।

সরজমিন এলাকা ঘুরে দেখা যায়, গ্রেপ্তার আতঙ্কে ওইসব গ্রামে দিনের বেলা কিছু মানুষ চোখে পরলেও বিকেল হওয়ার সাথে সাথে পুরুষ শূন্য হয়ে পরে গ্রামগুলি। এর ফলে হাটবাজারগুলোতে আগের মত থাকে না কোলাহল। নতুন মানুষ দেখলেই এড়িয়ে চলছে সবাই। বেচাকেনা না হওয়ায় বিপাকে পরেছে ক্ষুদ্র ব্যবসার সাথে জড়িত লোকজন।  

উপজেলার থেতরাই ইউনিয়নের রামপ্রসাদ পাড়ার বাসিন্দা কৃষক বাবলু মিয়া (৬০) জানান, ‘মামলার ভয়োত কামলারা পলাইছে। এ্যালা শাক তোলার কামলা পাবার নাগছি না। হামার এটে এবার ভালই শাকসবজি হইছে। কিন্তুক বর্তমানে এলাকাত পুরুষ মানুষ নাই। ফকির মিস্কিনও এই গ্রামোত আসপের চায় না’।

একই ইউনিয়নের সাতদরগা গ্রামের মুদি দোকানদার জাহাঙ্গীর (৫৫) জানান, ‘হামার এটে বেশিরভাগ পুরুষ মানুষ আর মাদ্রাসা ছাত্ররা বাড়ি ছাড়ি পালাইছে। মুই পঙ্গু মানুষ সাহস করি দোকানদারী করবের নাগছং। গন্ডগোলের পর থাকি বেচাকেনা নাই। চা বেচেয়া কোনদিন দশ টেকা কোনদিন বা ২০ টেকা লাভ হয়। এই দিয়া কি সংসার চলে। ’

থেতরাই বাজারের পাশে ফকিরপাড়ার বাসিন্দা সাথী আক্তার জানান, ‘গ্রেফতারের ভয়ে বাড়ির পুরুষ মানুষগুলো পালিয়ে রয়েছে। সন্তানদের খাবার মুখে তুলে দিতে এলাকার নারীরাই এখন বাজার করছে। যে কোন গাড়ির হর্ণ শুনলেই বাাচ্চারা ভয়ে কেঁদে ওঠে। রাতে স্বাভাবিকভাবে কেউ ঘুমাতে পারি না। ’

বাজারের অটোচালাক খোরশেদ আলম জানান, ‘আগে দিনে আটশ থেকে হাজার পর্যন্ত আয় হতো। কিন্তু মামলার পর থেকে এলাকায় পুরুষ শূণ্য হওয়ায় প্যাসেঞ্জার পাওয়া যাচ্ছে না। এখন দিনে দু’-আড়াইশ টাকার বেশি কামাই হচ্ছে না’।  

গত ১৩ অক্টোবরের ঘটনায় কুড়িগ্রামের উলিপুর উপজেলায় ৩টি ইউনিয়নের ৫টি মন্দিরের মধ্যে গুনাইগাছ ইউনিয়নে ৩টি মন্দিরে হামলা করা হয়। এগুলো হচ্ছে পশ্চিম কালুডাঙ্গা ব্রাহ্মণ পাড়া দুর্গা মন্দির, পশ্চিম কালুডাঙ্গা সার্বজনীন দুর্গা মন্দির ও নেফড়া সার্বজনীন দুর্গা মন্দির ভাঙচুর করা হয়। এছাড়াও থেতরাই ইউনিয়নে হামলা করা হয় হোকডাঙ্গা ভারতপাড়া সার্বজনীন দুর্গা মন্দির এবং বেগমগঞ্জ ইউনিয়নে বেগমগঞ্জ সার্বজনীন দুর্গা মন্দির। এসময় দুর্বৃত্তরা মন্দিরসহ প্রতিমা ভাংচুর, মন্দিরে অগ্নিসংযোগ এবং বাড়িঘর ভাংচুর ও লুটপাট চালায়।  

মামলার পর থেকে গুনাইগাছ ইউনিয়নের নেফড়া, কালুডাঙ্গা গ্রামের কাঠালীপাড়া, হাজীপাড়া, খারিজাপাড়া, মৌলভীপাড়া, পূর্বপাড়া, কালুডাঙ্গাপাড়া এবং থেতরাই ইউনিয়নের রামপ্রসাদ, হোকডাঙ্গা, কিশোরপুর, বকশিপাড়া, তেলিপাড়া, থেতরাই বাজার এলাকার ফকিরপাড়া, সাতদরগাহ্, বকশিরবাজার, দালালীপাড়া, মতুল্ল্যাটারী, বকশিপাড়া, নাপিতপাড়া, হাজীপাড়া, কানিপাড়া, তেলিপাড়া পুরুষ শূন্য হয়ে পড়েছে। দিনের বেলা নারী এবং বৃদ্ধরা বাজার ঘাট করলেও রাতের বেলা যেন এলাকা ফাঁকা হয়ে পড়ে। একদিকে পেটের জ¦ালা অপরদিকে পুলিশী গ্রেফতার আতংকে এখানকার বাসিন্দাদের মধ্যে কোন স্বস্থি নেই। পুরুষ শূন্য হয়ে পড়ায় বিরুপ প্রভাব পড়েছে আশেপাশের গ্রামসহ হাট বাজারগুলোতে। বিঘিœত হচ্ছে স্বাভাবিক জীবনযাত্রা।  

এ ব্যাপারে উলিপুর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান গোলাম হোসেন মন্টু জানান, প্রকৃত অপরাধীদের অবশ্যই আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দিতে হবে। বাংলাদেশে সম্প্রীতির বন্ধন নষ্ট করতে দেয়া যাবে না। তবে দালাল চক্র যাতে ফায়দা লুটতে না পারে সে ব্যাপারে পুলিশকে সতর্ক থাকতে হবে। তবে তিনি আরো বলেন পরিস্থিতির উন্নতি না হলে আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে সেটি প্রভাব ফেলতে পারে।

বিষয়টি নিয়ে উলিপুর থানার অফিসার ইনচার্জ মো. ইমতিয়াজ কবীর জানান, এখন পর্যন্ত ৬৬জনকে আটক করা হয়েছে। বিভিন্ন তথ্যাবলি এবং ভিডিও’র মাধ্যমে দুর্বৃত্তদের সনাক্ত করে গ্রেপ্তার করা হচ্ছে। নিরিহ কেউ যাতে ভোগান্তিতে না পরে সে ব্যাপারে পুলিশ সজাগ রয়েছে। আর গ্রামের সাধারণ মানুষকে আতংকিত না হওয়ার জন্য পরামর্শ দেয়া হচ্ছে।

আরও পড়ুন


বিয়ের প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় ঘরে ঢুকে কিশোরীকে ধর্ষণ করে হিমু

news24bd.tv এসএম