সৌদি আরবে প্রাচীন প্রস্তরখণ্ড, রহস্য ঘনীভূত
সৌদি আরবে প্রাচীন প্রস্তরখণ্ড, রহস্য ঘনীভূত

সৌদি আরবে প্রাচীন প্রস্তরখণ্ড, রহস্য ঘনীভূত

অনলাইন ডেস্ক

মদিনার পূর্বে হাইল অঞ্চলে আরব উপদ্বীপের প্রাচীন মরুভূমিতে খুঁজে পাওয়া যায় প্রাচীন সভ্যতার নিদর্শনস্বরূপ রহস্যময় 'মরুভূমির ঘুড়ি' দেখতে পাওয়া যায়। পাথরের বৃত্ত এবং কাঠামোগুলো কাইট নামে পরিচিত। প্রধানত রাজ্যের পশ্চিম অঞ্চলে এই কাঠামোগুলো পাওয়া যায়।  

বহুভুজ, ফানেল এবং ত্রিভুজ চেহারার কাঠামোগুলি প্রধানত পশ্চিমে হাররাত খায়বার লাভা ক্ষেত্রগুলির কাছে কেন্দ্রীভূত।

খ্রিস্টপূর্ব চতুর্থ এবং সপ্তম শতাব্দীর এই পাথরগুলো নিওলিথিক যুগের বলে বিশ্বাস করা হয়।  

হাইলের এই কাঠামোগুলো অঞ্চলটির উত্তর-পশ্চিমে শুয়াইমিস শহরের কাছে কাআ আল-সিবাকে পাওয়া যায়। আর্মেনিয়া, সৌদি আরব, জর্ডান এবং কাজাখস্তান জুড়ে ৫ হাজার ৮০০ টিরও বেশি মরুভূমির ঘুড়ি আবিষ্কৃত হয়েছে, যেখানে সিরিয়ায় এক জায়গায় সবচেয়ে বেশি ২৫০০টি ঘুড়ির দেখা পাওয়া যায়।

আরবের মরুভূমির লুকানো বিস্তীর্ণ ধন সম্পদ এখনও আবিষ্কারের অপেক্ষায় রয়েছে। মরুভূমির এইঘুড়িগুলি হল অত্যাধুনিক প্রযুক্তিতে তৈরি প্রাচীন কাঠামো যার উদ্দেশ্য আজও অজানা।

কিং সৌদ ইউনিভার্সিটির প্রাচীন ইতিহাসের অধ্যাপক ড. সালমা হাওসাউই আরব নিউজকে বলেন, সৌদি আরবে প্রচুর পরিমাণে পাথরের বৃত্ত, ঘুড়ি এবং কাঠামো ছড়িয়ে আছে। মদিনার উত্তরে (খায়বার, ফাদাক, আলউলা) এলাকায় অনেক মরুভূমির ঘুড়ি পাওয়া গেছে। বড় স্ল্যাবগুলি বিভিন্ন আকারে রয়েছে: বৃত্ত, ত্রিভুজ, ডিম্বাকৃতি, উত্থিত পাথর, পাথরের স্তূপ, বর্গাকার এবং আর্কস।

হাওসাউই আরও বলেন, ঘুড়িগুলো জ্যামিতিক আকারের যা একে অপরের সাথে সংযুক্ত বা সংযোগহীন হতে পারে। এগুলি একটি বিল্ডিংয়ের অংশ বা পৃথক, বা অসামঞ্জস্যপূর্ণ পাথরের স্তূপ হতে পারে।

তিনি বলেন, “এই আকারগুলি যেভাবে তৈরি করা হয়েছে তা এটি যে জায়গায় পাওয়া গেছে তার উপর নির্ভর করে। সেগুলি হতে পারে বাণিজ্য পথ, কাফেলাকে গাইড করার জন্য ল্যান্ডমার্ক, বা উপাসনার স্থান হিসাবে নির্দিষ্ট এলাকায় স্থাপন করা, বা আবাসিক এলাকা চিহ্নিত করা, বা সমাধিস্থল, অথবা এটি শিকারের জন্য ব্যবহার করা হতো। ”

১৯৭৬ সালের এক প্রত্নতাত্ত্বিক সমীক্ষায় দেখা যায়, এই 'কাইটগুলো' ওয়াদি সারহানের উত্তর থেকে হাইল অঞ্চল পর্যন্ত বিস্তৃত। পরিবেশের প্রভাব এবং এক এলাকা থেকে অন্য অঞ্চলের পার্থক্যের জন্য ঘুড়ির বিস্তার কাঠামোর আকৃতিতে পার্থক্য দেখা দেয়।

একটি মার্কিন গবেষণায় দেখা গেছে, আওউলা অঞ্চলে যে মরুভূমির ঘুড়ি রয়েছে তা প্রায় ৭ হাজার বছরের পুরনো। অর্থাৎ গিজার পিরামিড এবং যুক্তরাজ্যের স্টোনহেঞ্জের পাথরের বৃত্তের চেয়েও মরুভূমির এই ঘুড়িগুলো প্রাচীন।

ড. হাওসাউই বলেন, "এই ঘুড়িগুলি আরব উপদ্বীপে বসবাসকারী প্রাচীন সভ্যতাগুলির বিকাশের পরিধিকে প্রতিফলিত করে। এটা প্রমাণ করে সৌদি আরবের এই ভূমিগুলোর ইতিহাসের কতটা প্রাচীন। "

আরও পড়ুন:

আজ সেমিতে ওঠার লড়াইয়ে মাঠে নামছে তিন দল


news24bd.tv/ নকিব

;