ভাড়া পুননির্ধারনের দাবিতে আজও যাত্রীবাহী নৌযান বন্ধ, চরম দুর্ভোগ

রাহাত খান, বরিশাল:

ভাড়া পুননির্ধারনের দাবিতে আজও যাত্রীবাহী নৌযান বন্ধ, চরম দুর্ভোগ

ভাড়া পুননির্ধারণ অথবা জ্বলানী তেলের মূল্য কমানোর দাবিতে বরিশাল-ঢাকা সহ সারা দেশে দ্বিতীয় দিনের মতো যাত্রীবাহি নৌযান চলাচল বন্ধ রয়েছে। অপরদিকে ৩ দিন ধরে বন্ধ রয়েছে সড়ক পরিবহন। এতে চরম দুর্ভোগে পড়েছেন লঞ্চ ও বাসের যাত্রীরা। 

জ্বালানী তেলের দাম বৃদ্ধির প্রেক্ষিতে যাত্রী ভাড়া পুননির্ধারণ না করায় লোকসানের আশঙ্কায় গতকাল শনিবার দুপুর থেকে লঞ্চ চলাচল বন্ধের সিদ্ধান্ত নিয়েছে বাংলাদেশ অভ্যন্তরীন নৌ চলাচল যাত্রী পরিবহন সংস্থা। 

এর আগে শুক্রবার থেকেই বন্ধ রয়েছে অভ্যন্তরীন এবং দূরপাল্লা রুটের বাস চালাচল। বাসের পর আকস্মিক লঞ্চ বন্ধের ঘোষণায় বিপাকে পড়েছেন দক্ষিণের ৬ জেলার লাখ লাখ মানুষ।  

লঞ্চ মালিক সমিতির পক্ষ থেকে জানানো হয়, জ্বালানী তেলের মূল্য বৃদ্ধির প্রেক্ষিতে বরিশাল থেকে ঢাকা যেতে প্রতি ট্রিপে ১ থেকে দেড় লাখ টাকার জ্বালানী খরচ বেশি হচ্ছে। কিন্তু সরকার ভাড়া পুননির্ধারন করেনি। 

লঞ্চ মালিক সমিতি গত শুক্রবার এক জরুরি সভা করে রেজুলেশন আকারে ভাড়া পুননির্ধারনের দাবি জানিয়ে বিআইডব্লিউটিএ চেয়ারম্যানের কাছে আবেদন করে। শনিবার দুপুরের মধ্যে ভাড়া পুননির্ধারনের আল্টিমেটাম দিয়েছিলেন তারা। কিন্তু এই সময়ের মধ্যে বিআইডব্লিউটিএ চেয়ারম্যান কোন সিদ্ধান্ত দেয়নি। এমনকি মালিক নেতৃবৃন্দকে ডেকে কোন আশ্বাসও দেয়নি। 

এ অবস্থায় মালিক সমিতি নেতৃবৃন্দ লোকসানের আশঙ্কায় শনিবার থেকে লঞ্চ চলাচল বন্ধ রেখেছে। সরকার ভাড়া সমন্বয় না করা পর্যন্ত নৌযান চলাচল বন্ধ থাকবে বলে জানান লঞ্চের কর্মচারীরা। 

বাসের পর লঞ্চ বন্ধ হয়ে যাওয়ায় চরম দুর্ভোগ সহ্য করে গন্তব্যে যেতে হচ্ছে তাদের। অতিরিক্ত ভাড়া দিয়ে থ্রি হুইলার সহ হালকাযানে ঝূঁকি নিয়ে গন্তব্যে যেতে বাধ্য হচ্ছেন তারা। অপরদিকে লঞ্চ বন্ধ থাকায় ঝূঁকি নিয়ে ট্রলার ও স্পীডবোটে গন্তব্যে যেতে হচ্ছে তাদের। তারা অবিলম্বে সরকারের হস্তুক্ষেপ কামনা করেছেন। 

news24bd.tv/ কামরুল 

পরবর্তী খবর

বরিশালে একই পরিবারের ৫ সদস্যের ইসলাম গ্রহণ

অনলাইন ডেস্ক

বরিশালে একই পরিবারের ৫ সদস্যের ইসলাম গ্রহণ

সেন্টু ইসলাম খলিফা ও তার পরিবার

বরিশালের গৌরনদী উপজেলার একই পরিবারের ৫ সদস্য খ্রিস্টান ধর্ম ত্যাগ করে ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেছেন। বৃহস্পতিবার (২৫ নভেম্বর) বিকালে বরিশাল সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট এনায়েত উল্লাহ্’র আদালতে উপস্থিত হয়ে এফিডেভিটের মাধ্যমে ইসলাম গ্রহণ করে নামও পরিবর্তন করেন তারা। 

তারা হলেন- কলাবাড়িয়া খ্রিস্টানপাড়ার প্রয়াত জুনাষ রায়ের কনিষ্ঠ ছেলে কাঠমিস্ত্রি ছিন্টু রায় (৪৫), তার স্ত্রী লিন্ডা রায় (৩৫), ২ ছেলে ভিক্টর রায় (১৫) ও এডমন্ড রায় (১১) এবং মেয়ে উর্মী রায় (৬)। 

ছিন্টু রায়ের নাম পরিবর্তন করে সেন্টু ইসলাম খলিফা, লিন্ডা রায়ের নাম আয়েশা খলিফা, ছেলে ভিক্টর রায়ের নাম তামিম ইসলাম খলিফা, এডমন্ড রায়ের নাম রিয়াজুল ইসলাম খলিফা এবং উর্মী রায়ের নাম উর্মী ইসলাম খলিফা রাখা হয়েছে। 

সেন্টু ইসলাম খলিফা বলেন, দীর্ঘদিন যাবত বিভিন্ন ওয়াজ নছিহত শুনে এবং ইসলামী বই পড়ে স্ত্রী-সন্তানদের নিয়ে ইসলাম ধর্ম গ্রহণের সিদ্ধান্ত নেন তারা।
 
গত বৃহস্পতিবার প্রথমে স্থানীয় মসজিদের ইমামের কাছে স্ত্রী-সন্তানদের নিয়ে স্বেচ্ছায় কালেমা পড়ে ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেন। একইদিন বরিশাল সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মো. এনায়েত উল্লাহ্’র আদালতে উপস্থিত হয়ে ইসলাম গ্রহণের বিষয়ে এফিডেভিট করেন এবং ইসলামী আদর্শ নিয়ে বাকী জীবন কাটিয়ে দিতে তারা সকলের কাছে দোয়া কামনা করেন।

ওই পরিবারের কোনো সাহায্য সহযোগিতা প্রয়োজন হলে ইউনিয়ন পরিষদ থেকে যাবতীয় ব্যবস্থা করা হবে বলে জানান নলচিড়া ইউপি চেয়ারম্যান গোলাম হাফিজ মৃধা।

পরবর্তী খবর

মেহেরপুরে পরীক্ষামূলক চাষ শুরু ‘সাউ পেরিলা’

মেহেরপুর প্রতিনিধি

সাউ পেরিলা

উচ্চ ফলনশীল ও পুষ্টি-সমৃদ্ধ দক্ষিণ কোরিয়ার এক তৈলজাত ফসলের নাম ‘সাউ পেরিলা’। এ ফসল থেকে লিনোলিনিক অ্যাসিড সমৃদ্ধ তেল আহরণ ছাড়াও প্রাপ্ত খইল গবাদিপশুর জন্য পুষ্টিকর খাবার ও জৈব সার হিসেবেও ব্যবহার করা যায়। এ ফসল প্রসারের  লক্ষ্যে মেহেরপুরের গাংনীতে পরীক্ষামূলক চাষ শুরু হয়েছে।

 সংশ্লিস্টরা বলছেন, বাণিজ্যিকভাবে এ ফসলের চাষ বাড়াতে পারলে অনেক কম মূল্যে পেরিলা তেল বাজারজাত করা সম্ভব বলে। 

সাউ পেরিলা। এটা দক্ষিণ কোরিয়ার সবচেয়ে পুষ্টিকর ও লাভজনক তৈলজাত ফসল। এ দেশে কোরিয়ান জাতের এই পেরিলা চাষ সম্প্রসারণের লক্ষ্যে মেহেরপুরের গাংনীতে পরীক্ষামূলক শুরু হয়েছে। 

কৃষি অফিসের সহযোগীতায় নজরুল ইসলাম নামে এক কৃষক এরই মধ্যে তার এক বিঘা জমিতে চাষ করেছে এ ফসল। ফলনও বেশ ভাল হয়েছে। 

আরও পড়ুন


ভাইরাল ছবি হাছান মাহমুদের নয়!


কৃষি কর্মকর্তারা বলছেন, স্বল্প খরচে লাভ বেশি হবে। এ কারণে এ অঞ্চলে এ বিদেশী এ ফসল প্রসারের লক্ষ্যে কৃষকদের হাতে কলমে প্রশিক্ষণ ও বীজ সহ সব ধরণের সহায়তা করা হচ্ছে।

 পেরিলা ফসলের চাষাবাদ সারা দেশে ছড়িয়ে দিতে পারলে, অনেক কম মূল্যে পেরিলা তেল বাজারজাত করা সম্ভব বলে মনে করেন তারা। 

news24bd.tv/ কামরুল 

পরবর্তী খবর

ভাল স্বপ্ন দেখতে হবে, ভাল মানুষ হতে হবে: বিভাগীয় কমিশনার

নাটোর প্রতিনিধি:

ভাল স্বপ্ন দেখতে হবে, ভাল মানুষ হতে হবে: বিভাগীয় কমিশনার

রাজশাহী বিভাগীয় কমিশনার ড.মো.হুমায়ুন কবির বলেছেন, শিক্ষার্থীদের ভাল স্বপ্ন দেখতে হবে, ভাল মানুষ হতে হবে। বাবা-মায়ের কথা শুনতে হবে, শিক্ষকদের কথা শুনতে হবে। শুধু ভাল শিক্ষার্থী হলে চলবে না। হতে হবে একজন ভাল মানুষ। যে মানুষ দেশ ও জাতীর কল্যাণে কাজ করবে। নিজেকে গড়ে তুলবে এক অনন্য উচ্চতায়। 

আজ শুক্রবার সকালে উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে বাল্যবিবাহ ও মাদক বিরোধী শীর্ষক মতবিনিময় সভায় তিনি এসব কথা বলেন। 

শুক্রবার সকালে গুরুদাসপুর উপজেলার খুবজীপুর ইউনিয়নের শ্রীপুর আদর্শ বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় মাঠ প্রাঙ্গনে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. তমাল হোসেনের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত থেকে উপস্থিত শিক্ষার্থী ও সুশীল সমাজের ব্যক্তিবর্গের উদ্দেশ্যে বক্তব্য রাখেন রাজশাহী বিভাগীয় কমিশনার ড.মো.হুমায়ুন কবির। 

আরও পড়ুন


পুলিশে চাকরির ঘোষণা শুনেই কেঁদে ওঠেন সজল


এ সময় বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন, স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের অতিরিক্ত সচিব মো.সাইদুর রহমান, নাটোরের জেলা প্রশাসক শামীম আহমেদ, উপজেলা চেয়ারম্যান মো.আনোয়ার হোসেন, পৌর মেয়র মো. শাহনেওয়াজ আলী, গুরুদাসপুর থানার অফিসার ইনচার্জ মো.আব্দুল মতিন ও খুবজীপুর ইউপি চেয়ারম্যান মনিরুল ইসলাম দোলন। এছাড়াও অংশগ্রহণ করেন বীরমুক্তিযোদ্ধা, রাজনৈতিক নেতাকর্মী, গণমাধ্যমকর্মী, স্কুল কলেজের প্রধান ও শিক্ষার্থীরা। 

news24bd.tv/ কামরুল 

পরবর্তী খবর

সেনাবাহিনীতে চাকরি দেয়ার নাম করে প্রতারণার অভিযোগ

নাটোর প্রতিনিধি:

সেনাবাহিনীতে চাকরি দেয়ার নাম করে প্রতারণার অভিযোগ

প্রতারণার অভিযোগে আটক মনিরুল ইসলাম

নাটোরে সেনাবাহিনীতে চাকরি দেয়ার নাম করে প্রতারণার অভিযোগে মনিরুল ইসলাম নামের একজনকে আটক করেছে র‌্যাব। আজ  শুক্রবার সকাল সাড়ে দশটার দিকে র‌্যাব সিপিসি-২ এর কার্যালয়ে এক প্রেস ব্রিফিংয়ে এই তথ্য জানান ক্যাম্প কমাণ্ডার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ফরহাদ হোসেন। 

প্রেস ব্রিফিংয়ে তিনি জানান, বৃহস্পতিবার শাহিন আলম ও নাসিম নামের দুই অভিযোগকারীর অভিযোগের ভিত্তিতে মনিরুল কে তার বাড়ি বাগাতিপাড়া উপজেলার নন্দিকুজা দয়রামপুর এলাকার নিজ বাড়ি থেকে মনিরুলকে আটক করা হয়। আটক মনিরুল বাগাতিপাড়া উপজেলার নন্দিকুজা এলাকার কফির উদ্দিনের ছেলে।

আরও পড়ুন


পুলিশে চাকরির ঘোষণা শুনেই কেঁদে ওঠেন সজল


ক্যাম্প কমাণ্ডার ফরহাদ হোসেন আরও জানান, কাদিরাবাদ ক্যান্টনমেন্ট এলাকায় বাড়ি হওয়ায় মনিরুল বিভিন্ন সময়ে সেনাবাহিনীতে চাকরি দেওয়ার নাম করে প্রতারণা করে লক্ষ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নেয়।

এরই এক পর্যায়ে প্রতারণার শিকার সাতক্ষীরা জেলার শ্যামনগর উপজেলার শাহিন আলম এবং ঠাকুরগাঁও জেলার নাসিমের অভিযোগের ভিত্তিতে র‌্যাবের একটি অপারেশনাল দল গতকাল রাত সাড়ে আটটার দিকে মনিরুল ইসলামের নন্দিকুজার বাড়িতে অভিযান পরিচালনা করে।

এ সময় ভুয়া নিয়োগপত্র, দুটি পেইনড্রাইভ (যার মধ্যে বিভিন্ন ভুয়া নিয়োগপত্রের সফট্পি রক্ষিত), বিভিন্ন ব্যাংকের ১৬টি চেকবই, বিভিন্ন ব্যাংকের ৭টি এটিএম কার্ড, ৩টি ভুয়া এনআইডি কার্ড (যার ভিতরে একটি ভুয়া),চাকুরী দানের ৩টি চুক্তিনামা ষ্ট্যাস্প, ১২টি জুডিশিয়াল ষ্ট্যাস্প, ৮টি অর্থ লেনদেনের রেজিষ্টার, ২টি ভুয়া নিয়োগপত্র, ১টি ভুয়া আইডি কার্ডের ফটোকপি, করণিক প্রতারণালব্দ নগদ ৫৮ হাজার ১শ ৪০ টাকা,  ৮০০ ভারতীয় রুপি জব্দ করা হয়।

অভিযুক্ত মো. মনিরুল ইসলাম  এইচএসসি পর্যন্ত পড়ালেখা করেছেন। তিনি পেশায় একজন ঔষধ বিক্রেতা হলেও নিজেকে সেনাবাহিনীর সিএমএইচ, ঢাকায় করণিক পদে কর্মরত আছেন বলে পরিচয় দিতেন এবং ওই পরিচয় ব্যবহার করে বিভিন্ন পদ যেমন সৈনিক, অফিস সহায়ক, মেসওয়েটার, স্টোরম্যান পদে চাকুরী দেওয়া প্রলোভন দেখিয়ে দেশের বিভিন্ন জেলা হতে ৩য় পক্ষের মাধ্যমে চাকুরী প্রত্যাশী যুবকদের কাছ থেকে লক্ষ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নিতেন। 

এ ক্ষেত্রে প্রতারক মনিরুল রাজু জাল জালীয়াতির মাধ্যমে ভুয়া নিয়োগপত্র তৈরি করে চাকুরি প্রার্থীদের সরলতার সুযোগ নিতেন। চাকুরি প্রার্থীগণ নিয়োগপত্রে উলে­খিত যোগদানের তারিখে সংশ্লিষ্ট অফিসে যোগদানের নিমিত্তে যাওয়ার পর বুঝতে পারতেন যে উক্ত নিয়োগপত্র সঠিক নয় বা ভুয়া।

এভাবে প্রতারক মনিরুল রাজু ভুয়া নিয়োগপত্র তৈরি করে চাকুরি প্রত্যাশীগণের নিকট হতে লক্ষ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নিয়েছে। এছাড়াও মনিরুল প্রতারণার কাজে জাতীয় পরিচয়পত্রে নিজ নাম পরিবর্তন করে চাঁন মণ্ডল পরিচয় ধারণ করেন।

news24bd.tv/ কামরুল 

পরবর্তী খবর

পুলিশে চাকরির ঘোষণা শুনেই কেঁদে ওঠেন সজল

অনলাইন ডেস্ক

পুলিশে চাকরির ঘোষণা শুনেই কেঁদে ওঠেন সজল

সজল খালকো

জয়পুরহাট পুলিশলাইন মাঠে নিয়োগ পরীক্ষার ফলাফল ঘোষণা করেন পুলিশ সুপার মাছুম আহাম্মদ ভুঞা। নিয়োগের ঘোষণা শুনেই কেঁদে ওঠেন সজল খালকো। তিনি  ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠী পরিবারের সন্তান। বাবা মারা গেছেন অনেক আগেই। মা দিনমজুরের কাজ করেন। টিউশনি করে পড়ালেখার খরচ জোগাতেন। 

সজল বলেন, ‘চাকরির জন্য টাকা দেওয়ার কোনো সামর্থ্য নেই। মাত্র ১০৩ টাকা খরচ করে চাকরি হবে—কখনো কল্পনা করিনি। তাইতো চাকরি পাওয়ার ঘোষণায় আবেগ ধরে রাখতে পারিনি। দারিদ্র্যের সঙ্গে যুদ্ধ করে বেঁচে আছি। চেষ্টা করব সততা ও নিষ্ঠার সঙ্গে কাজ করে পুলিশের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল করার।’

আরও পড়ুন


সিলেট থেকে বিদেশে পণ্য রপ্তানির ব্যবস্থা করা হবে: পররাষ্ট্রমন্ত্রী


জয়পুরহাটে পুলিশের কনস্টেবল পদে চাকরি হয়েছে ১৯ তরুণ-তরুণীর। ঘুষ-তদবির ছাড়াই মূল্যায়ন হয়েছে মেধা ও যোগ্যতার। পূরণ হয়েছে হতদরিদ্র পরিবারের দীর্ঘদিনের লালিত স্বপ্ন। চাকরি পাওয়ার ঘোষণা শুনে কেঁদে ফেলেন আরও অনেকে।

জয়পুরহাট সরকারি শিশু পরিবারে আশ্রিত এতিম মাহমুদুল হাসানের নেই কোনো বাড়িঘর। মা অন্যের বাড়িতে কাজ করেন। ছোটবেলা থেকে বাবাকে হারিয়ে মাহমুদুলের আশ্রয় হয় শিশু পরিবারে। নিয়োগ পরীক্ষায় ভালো করলেও চাকরি নিয়ে শঙ্কা ছিল তাঁর। কিন্তু ফলাফল ঘোষণার পর আবেগে আনন্দাশ্রু ঝরে তাঁর চোখেও।

জয়পুরহাটে এবার পুলিশের চাকরি পাওয়া ১৯ জনই অত্যন্ত দরিদ্র পরিবারের সন্তান। তাঁদের কেউ দিনমজুরের, কেউ ট্রাকচালকের সন্তান, আবার কেউবা এতিম।

news24bd.tv/ কামরুল 

পরবর্তী খবর