‘বিনাধান-১৭’ আমন মৌসুমে চাষ করে সফলতা সুনামগঞ্জে

‘বিনাধান-১৭’ আমন মৌসুমে চাষ করে সফলতা সুনামগঞ্জে

Other

বাংলাদেশ পরমাণু কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউট উদ্ভাবিত নতুন জাতের স্বল্প জীবনকাল সম্পন্ন বিনাধান-১৭ আমন মৌসুমে চাষ করে সফলতা পেয়েছে সুনামগঞ্জের আমন চাষিরা। প্রতি হেক্টরে এ জাতের ধান আবাদ করে ফলেছে ৭.২২ মেট্রিক টন ধান। যা অন্য ধানের চেয়ে বেশি। সময়, শ্রম কম লাগায় খুশি এজাতের ধান চাষিরা।

বাংলাদেশ পরমাণু কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউটের উদ্ভাবিত নতুন জাতের স্বল্প জীবনকাল সম্পন্ন বিনাধান-১৭। সুনামগঞ্জ সদর উপজেলায় ৮০ ভাগ আমন জমিতে নতুন এই জাতের ধান চাষ করেছেন কৃষকরা। ১১২ থেকে ১১৮ দিনেই ফসল ঘরে তুলা যায়।  

এতে আমন জমিতে রবিশস্য সরিষা, ভুট্টা, আলু চাষ করতে পারছেন তারা। এছাড়াও এই ধানের রোগ বালাই ও পোকামাকড়ের আক্রমণ কম হয়। ফলে বিনাধান ১৭ চাষ করে স্বস্তি প্রকাশ করেছেন কৃষকরা।

বিনা সুনামগঞ্জ উপকেন্দ্র বলছে, বিনাধান-১৭ খরা সহিষ্ণুতার ফলে অন্য জাতের চেয়ে এতে ৩০ ভাগ কম পানি, সারের ব্যবহার তুলনামূলক কম, আলোক অসংবেদনশীল ও উন্নত গুনাগুন রয়েছে। এছাড়াও স্বল্পমেয়াদী ও অধিক ফলনশীল হবার কারণে কৃষকদের বিনাধান ১৭ এর প্রতি আগ্রহ বৃদ্ধি পাচ্ছে।

সুনামগঞ্জ কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মো.ফরিদুল হাসান বলেন, বিনাধান ১৭ আগাম জাত হিসেবে পরিচিত। এ জাতের ধান কৃষকদের কাছে পৌঁছে দিতে পারলে কৃষক যেমন উপকৃত হবে দেশের কৃষিতেও বৈপ্লবিক পরিবর্তন হবে।


আরও পড়ুন:

২৩ শতাংশ হারে গণপরিবহনের ভাড়া বাড়ানোর প্রস্তাব

শীর্ষ ব্যবসায়ীদের হত্যার পরিকল্পনা দেশের অর্থনীতি ধ্বংসের নীলনকশা

এ মাসেই দেওয়া হবে ৩ কোটি ডোজ টিকা: স্বাস্থ্যমন্ত্রী


হাওর বাওরের জেলা সুনামগঞ্জে প্রায়ই অকাল বন্যায় ফসল হানির ঘটনা ঘটে। এতে ক্ষতিগ্রস্থ হয়ে দারিদ্রতার কষাঘাতে কৃষি কাজ ফেলে গ্রাম ছেড়ে শহরে কাজের জন্য পাড়ি দিতে হয় ফসল হারা কৃষকদের। এজন্য কম সময়ে বিনাধান ১৭ জাতের ধান ফলন ভালো হওয়ায় সবার কাছে এই ধান পৌচ্ছে দেয়ার আহবান সংশ্লিষ্টদের।

news24bd.tv নাজিম