বসুন্ধরার এমডিকে হত্যাচেষ্টা, বিনিয়োগ ও কর্মংস্থানের জন্য হুমকি

অনলাইন ডেস্ক

বসুন্ধরার এমডিকে হত্যাচেষ্টা, বিনিয়োগ ও কর্মংস্থানের জন্য হুমকি

দেশের শীর্ষ শিল্পগোষ্ঠী বসুন্ধরা গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) সায়েম সোবহান আনভীরকে হত্যার পরিকল্পনার মতো ঘটনা দেশের বিনিয়োগ ও কর্মসংস্থানের জন্য হুমকি বলে মনে করেন সংশ্লিষ্টরা।  

ব্যবসায়ী সমাজ মনে করে ব্যবসা বাণিজ্যের গতি স্বাভাবিক রাখতে ব্যবসায়ীদের জানমালের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে।

অন্যথায় বিনিয়োগ ও কর্মসংস্থান বাধাগ্রস্ত হবে। এ ঘটনায় ইতোমধ্যেই ব্যবসায়ীদের মধ্যে এক ধরনের চাপা ক্ষোভ বিরাজ করছে।  
এছাড়া ব্যবসায়ীদের কপালে পড়েছে চিন্তার ভাঁজ। এ বিষয়ে বিস্ময় ও উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন বিকেএমইএর নির্বাহী সভাপতি মোহাম্মদ হাতেম।  

তিনি এ ঘটনার পেছনে কেউ জড়িত থাকতে পারে বলে শঙ্কা প্রকাশ করেছেন। শুধু তাই নয় এর পেছনে যে ব্যক্তিরা জড়িত থাকতে পারে তাদের খুঁজে বের করে আইনের আওতায় আনার দাবি জানান তিনি।

এছাড়া চট্টগ্রাম চেম্বারের সভাপতি মাহবুবুল আলম বলেন, ‘দেশের শিল্পোদ্যোক্তা ও ব্যবসায়ীদের ওপর এ ধরনের হত্যাচেষ্টা কখনো সমর্থনযোগ্য নয়। আমি এর তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাই।

এর আগে ঢাকা বোট ক্লাবে নায়িকা পরিমনি কাণ্ডকে কেন্দ্র করে আরেক শীর্ষ ব্যবসায়ী নাসির ইউ মাহমুদকে হয়রানি করা হয়। হয়রানিমূলক মামলায় জেলও খেটেছেন তিনি। এ ঘটনার রেশ কাটতে না কাটতে বসুন্ধরা গ্রুপের এমডিকে হত্যার পরিকল্পনা ফাঁস হয়েছে। এ ঘটনায় একজন অস্ত্রসহ গ্রেফতারও হয়েছে। তিনি স্বীকারোক্তিতে ঘটনার পেছনের ক্রীড়নকদের নামও বলেছেন। কিন্তু এখনও আর কেউ গ্রেফতার হয়নি। এর ফলে অনেকেই বিস্ময় প্রকাশ করেছেন। সারাদেশে ব্যবসায়ীদের মধ্যে বিরাজ করছে চাপা ক্ষোভ। একই সঙ্গে নিজেদের করা বিনিয়োগ নিয়েও অনেকেই শঙ্কিত। এজন্য সরকারের কাছে নিজেদের জানমালের নিরাপত্তা দাবি করেছেন। তারা বলেছেন, এ ঘটনার দ্রুত সুষ্ঠু সমাধান হওয়া জরুরি।

তবে এ দেশে ব্যবসায়ীদের নানাভাবে হয়রানি নতুন কোনো বিষয় নয়। স্বাধীনতার পর থেকে এমন কি ২০০৭ সালে ১/১১ এর সময়ও ব্যবসায়ীদের নানাভাবে হয়রানি করা হয়েছিল। সেসময় তাদের কাছ থেকে জোর পূর্বক বিপুল পরিমাণ টাকাও আদায় করা হয়েছিল। যা আজ পর্যন্ত ফেরত পাননি ব্যবসায়ীরা। যদিও তার পরবর্তী সময়ের সরকাররা টাকা ফেরতের প্রতিশ্রুতি দিয়ে এসেছে একাধিকবার।

সেসময় অন্যায়ভাবে জেলে নেওয়া হয়েছিল অসংখ্য শীর্ষ ব্যবসায়ীকে। ফলে তখন স্থবির হয়ে পড়েছিল দেশের ব্যবসা-বাণিজ্য ও দেশের সামগ্রিক অর্থনীতি। তবে এখন তারা আর শুধু হয়রানিতেই থেমে নেই। একটি কুচক্রী মহল সরকারের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন করতে রাষ্ট্রেরই বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধার আড়ালে ভাড়াটে খুনি নিয়োগ করে ব্যবসায়ীদের হত্যার পরিকল্পনা করে আসছে। এমন পরিস্থিতিতে দেশের শিল্প, ব্যবসা-বাণিজ্য, বিনিয়োগ ও কর্মসংস্থান আবারও হুমকির সম্মুখীন হয়েছে বলে মনে করেন সংশ্লিষ্টরা। মহামারি করোনা ভাইরাসের আঘাতে এমনিতেই সারা বিশ্বের অর্থনীতি বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে। করোনা অচলবস্থার পর বাংলাদেশের অর্থনীতি ঘুরে দাঁড়াতে শুরু করেছে আর এই মুহুর্তে শুরু হয়েছে দেশবিরোধী কুচক্রী মহলের গভীর ষড়যন্ত্র। তারা ব্যবসায়ীদের হত্যার নীলনকশা এঁকেছে। যার মাধ্যমে মূলত দেশের উন্নয়ন ও অগ্রগতিকেই বাধাগ্রস্ত করতে চায় এই কুচক্রী মহল।

জানা গেছে, গত শুক্রবার (৫ নভেম্বর)  জুমার নামাজের সময় বসুন্ধরার এমডি সায়েম সোবহান আনভীরকে গুলি করে হত্যার পরিকল্পনা করা হয়। এদিনই বেলা সাড়ে ১১টার দিকে বসুন্ধরা আবাসিক এলাকার সাউতুল কোরআন মাদ্রাসা ও এতিমখানা থেকে সন্দেহভাজন হিসেবে সাইফুল ইসলাম সাদ (২৩) নামে চট্টগ্রামের পটিয়ার এক যুবককে আটক করে রাজধানীর ভাটারা থানা পুলিশ। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে সাদ জানান, শুক্রবার (৫ নভেম্বর) পবিত্র জুমার নামাজ চলাকালে সায়েম সোবহান আনভীরকে গুলি করে হত্যার প্রস্তুতি ছিল তার। পটিয়ার সংসদ সদস্য (এমপি) হুইপ সামশুল হক চৌধুরী এবং তার ছেলে নাজমুল করিম ওরফে শারুন চৌধুরীর নির্দেশে হত্যার এ পরিকল্পনার কথা স্বীকার করেন তিনি। তার আগে দুধের মধ্যে বিষ মিশিয়ে এবং ছুরিকাঘাতে হত্যার ষড়যন্ত্র করে ব্যর্থ হয়েছে চক্রটি। এ ঘটনায় দেশের অন্য শীর্ষ ব্যবসায়ীরাও নানাভাবে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন। পাশাপাশি সারাদেশেও চলছে ক্ষোভ-বিক্ষোভ, সভা-সমাবেশ ও মানববন্ধনসহ নানা কর্মসূচি।

এর পেছনে কারা জড়িত খুঁজে বের করতে হবে:বিকেএমইএর নির্বাহী সভাপতি মোহাম্মদ হাতেম

এ প্রসঙ্গে বাংলাদেশ নীটওয়ার ম্যানুফেকচারা অ্যান্ড এক্সপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশনের (বিকেএমইএ) নির্বাহী সভাপতি মোহাম্মদ হাতেম বলেন, বসুন্ধরা গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালককে হত্যার পরিকল্পনা ঘটনা ব্যবসায়ী সমাজের জন্য খুবই উদ্বেগজনক। আমি এর তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাই। আমার মনে হয় এর পেছনে অন্য কোনো চক্র জড়িত থাকতে পারে। যারাই জড়িত থাকুক তাদের খুঁজে বের করে আইনের আওতায় আনা সরকারের দায়িত্ব। ব্যবসায়ীদের জানমালের নিরাপত্তা না থাকলে বিনিয়োগ ও কর্মসংস্থান হুমকির মুখে পড়বে। এজন্য ব্যবসা-বাণিজ্য, বিনিয়োগ ও কর্মসংস্থানের স্বার্থে হলেও ব্যবসায়ীদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে।

তিনি বলেন, দেশ জুড়ে বিপুল সংখ্যক কর্মসংস্থান গড়ে তুলেছেন। দেশের অর্থনীতির বিকাশে অসামান্য অবদান রাখছে। আর সেই বসুন্ধরা গ্রুপের এমডিকে হত্যার হুমকি দেওয়া বা হত্যার পরিকল্পনা করা তো ছোট খাটো কোনো মাস্তানের কাজ নয়। নিশ্চই এর পেছনে বড় চক্র জড়িত থাকতে পারে। আমি মনে করি জড়িতদের খুঁজে বের করে কঠোর শাস্তির বিধান করতে হবে।

জড়িতদের কঠোর শাস্তি দিতে হবে:বিটিএমইএ সভাপতি মোহাম্মদ আলী খোকন

এ ঘটনার প্রতিক্রিয়া জানতে চাইলে বাংলাদেশ টেক্সটাইল মিলস অ্যাসোসিয়েশনের (বিটিএমএ) সভাপতি মোহাম্মদ আলী খোকন বলেন, এ ঘটনায় যারা জড়িত তাদের যে কোনো উপায়ে খুঁজে বের করতে হবে। কঠোর শাস্তির আওতায় আনতে হবে। বসুন্ধরা গ্রুপ সারাদেশে ৫০-৭০ হাজারেরও বেশি মানুষের কর্মসংস্থান করেছে। গ্রুপটির অঙ্গপ্রতিষ্ঠান রয়েছে ৪০টিও বেশি। এ ধরনের বড় একটি শিল্পগোষ্ঠীর কর্নধারকে হত্যার হুমকি দেওয়া কিংবা হত্যার পরিকল্পনা করা নিশ্চই ছোট খাট কোনো মাস্তানের কাজ নয়। এর পেছনে হয়তো প্রভাবশালী কোনো গোষ্ঠীই জড়িত থাকতে পারে। সরকারের উচিত হবে তাদের চিহ্নিত করে আইনের আওতায় আনা। সর্বোপরি ব্যবসায়ী সমাজকে নিরাপত্তা দেওয়াও সরকারেরই দায়িত্ব বলে তিনি মনে করেন।

চট্টগ্রামের ব্যবসায়ীদের তীব্র নিন্দা:

বসুন্ধরা গ্রুপের এমডি সায়েম সোবহান আনভীরকে একাধিকবার হত্যাচেষ্টার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন চট্টগ্রামের ব্যবসায়ী নেতারা।  

দ্য চিটাগাং চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির সভাপতি মাহবুবুল আলম বলেন, ‘দেশের শিল্পোদ্যোক্তা ও ব্যবসায়ীদের ওপর এ ধরনের হত্যা প্রচেষ্টা কখনো সমর্থনযোগ্য নয়। চেম্বার সভাপতি হিসেবে আমি এটা সমর্থন করি না। আমি এর তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাই। আমি আরও বলবো এর সঙ্গে জড়িতদের কঠোর শাস্তির আওতায় আনতে হবে। অন্যথায় ব্যবসায়ী সমাজের ক্ষোভ, হতাশা আরও গভীর হবে। যার নেতিবাচক প্রভাব পড়বে দেশের ব্যবসা-বাণিজ্য, বিনিয়োগ ও কর্মসংস্থানে।

# বসুন্ধরার এমডিকে হত্যাচেষ্টা: রাজধানীসহ সারাদেশে প্রতিবাদ অব্যাহত

news24bd.tv নাজিম

পরবর্তী খবর

খতিয়ে দেখা হচ্ছে খালেদা জিয়ার বিদেশে চিকিৎসার সুযোগ : আইনমন্ত্রী

অনলাইন ডেস্ক

এখনো ঝুঁকি কাটেনি বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার।তাঁর চিকিৎসকের জানিয়েছেন, লিভার সিরোসিসে আক্রান্ত সাবেক এই প্রধানমন্ত্রীর দেহে ইতোমধ্যে একাধিকবার অভ্যন্তরিন রক্তক্ষরণের ঘটনা ঘটেছে। দেশে বিদ্যমান সর্বোচ্চ চিকিৎসা কৌশল প্রয়োগে খালেদা জিয়ার এই রক্তক্ষরণ সাময়িক নিয়ন্ত্রণ করা গেলেও যে কোন সময় তা আবার শুরু হতে পারে।

এর ফলে তার মৃত্যু ঝুঁকি বেড়ে যাবে, যেটি বাংলাদেশের চিকিৎসকদের আওতার বাইরে চলে যেতে পারে- এমন আশঙ্কাও প্রকাশ করেছে বিএনপি নেত্রীর চিকিৎসায় গঠিত মেডিকেল বোর্ড। এই পরিস্থিতিতে আইন বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রী আনিসুল হক জানিয়েছেন সরকারের কাছে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার বিদেশে উন্নত চিকিৎসার বিষয়ে একাধিক আবেদন এসেছে।

আরও পড়ুন:

সিএনএনের সংবাদ উপস্থাপক বরখাস্ত

চট্টগ্রামেও হাফ ভাড়া নেওয়ার ঘোষণা 

আইনে কোনো সুযোগ আছে কি না তা খতিয়ে দেখছেন তারা। রোববার রাজধানীর বিচার প্রশাসন ও প্রশিক্ষণ ইন্সটিটিউটে আইনজীবীদের এক প্রশিক্ষণ কর্মশালার উদ্বোধন শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা জানান।

 news24bd.tv/এমি-জান্নাত   

পরবর্তী খবর

খেলাধুলার মূল কথা প্রতিযোগিতামূলক মনোভাব সৃষ্টি: মেয়র আতিক

অনলাইন ডেস্ক

খেলাধুলার মূল কথা প্রতিযোগিতামূলক মনোভাব সৃষ্টি: মেয়র আতিক

ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের মেয়র মো. আতিকুল ইসলাম।

‌‘যুবসমাজকে মাদকসহ সকল প্রকার অন্যায় থেকে দূরে রাখতে খেলাধুলা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। ডিএনসিসি মেয়র'স কাপ-২০২১ ও গুরুত্বপূর্ণ সমাজ পরিবর্তনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে।’

আজ রোববার দুপুরে গুলশানের নগর ভবনের হলরুমে আয়োজিত ডিএনসিসি মেয়র'স কাপ-২০২১ এর ফিক্সচার অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় একথা বলেন ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের মেয়র মো. আতিকুল ইসলাম।

ডিএনসিসি মেয়র বলেন, বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী ও স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী উপলক্ষ্যে প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনার অনুপ্রেরণায় প্রথমবারের মতো এই টুর্ণামেন্টের আয়োজন করায় ডিএনসিসি পরিবার অত্যন্ত আনন্দিত।

এবার ফুটবল, ভলিবল ও ক্রিকেট এই তিনটি ইভেন্ট নিয়ে আয়োজিত টুর্নামেন্টটির মূল প্রতিপাদ্য নির্ধারণ করা হয়েছে ‘খেলাধুলায় ব্যাস্ত থাকি, মাদককে দূরে রাখি’ যা সময়োপযোগী ও অত্যন্ত তাৎপর্যপূর্ণ।

তিনি বলেন, খেলাধুলার মূল কথা হলো প্রতিযোগিতামূলক মনোভাব সৃষ্টি করা। প্রতিযোগিতামূলক মনোভাব খেলোয়াড়দের মধ্যে শৃঙ্খলাবোধ, অধ্যবসায়, দায়িত্ববোধ, কর্তব্যপরায়ণতা ও পেশাদারিত্বের সৃষ্টি করে। 

ডিএনসিসি সূত্র জানায়, চলতি মাসের ২৪ তারিখ শুক্রবার বাংলাদেশ আর্মি স্টেডিয়ামে  ফুটবল দিয়ে এই টুর্নামেন্টের উদ্বোধন। আজ মেয়রের উপস্থিতিতেই লটারী ড্রয়ের মাধ্যমে ফুটবল ও ক্রিকেট এই দুটি ইভেন্টের জন্য ডিএনসিসির ৫৪টি ওয়ার্ডের ৫৪ জন সাধারণ কাউন্সিলরের তত্ত্বাবধানে গঠিত ৫৪টি পৃথক দলকে ১৮টি গ্রুপে এবং ভলিবলের জন্য সরক্ষিত ১৮ জন নারী কাউন্সিলরের তত্ত্বাবধানে গঠিত ১৮টি দলকে ৩টি গ্রুপে বিভক্ত করা হয়।

news24bd.tv তৌহিদ

পরবর্তী খবর

দরজায় কড়া নাড়ছে ওমিক্রন: স্বাস্থ্য অধিদপ্তর

অনলাইন ডেস্ক

দরজায় কড়া নাড়ছে ওমিক্রন: স্বাস্থ্য অধিদপ্তর

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের নিয়মিত অনলাইন বুলেটিন

করোনা সংক্রমণের হার বাংলাদেশে এখনো দুই শতাংশের নিচে, এতে আমাদের আত্মতুষ্টিতে ভোগার কোনো কারণ নেই। কারণ ঘরের দরজাতেই কড়া নাড়ছে করোনার দক্ষিণ আফ্রিকান ভ্যারিয়েন্ট ‘ওমিক্রন’।

আজ দুপুরে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের নিয়মিত অনলাইন বুলেটিনে অধিদপ্তরের মুখপাত্র অধ্যাপক ডা. নাজমুল ইসলাম এই সতর্কতার কথা জানান।

অধ্যাপক ডা. নাজমুল ইসলাম বলেন,  করোনা সংক্রমণ কমায় আত্মতুষ্টির কোনো সুযোগ নেই। ঘরের দরজাতেই ওমিক্রন যেহেতু কড়া নাড়ছে। কাজেই আমরা যদি এই মুহূর্তে সর্বোচ্চ সতর্কতা নিশ্চিত করতে পারি, পরস্পর পরস্পরকে সহযোগিতা, যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলি, সঠিক উপায়ে নাক-মুখ ঢেকে আমরা যদি মাস্ক পরি, একইসঙ্গে টিকা কার্যক্রমকে যদি আমরা আরো বেগবান করতে সহায়তা করি, তাহলে সেটি ওমিক্রন হোক বা অন্য কোনো ভ্যারিয়েন্ট হোক সেটিকে আমরা যথাযথভাবে মোকাবিলা করতে সক্ষম হব।

তিনি বলেন, ওমিক্রন মোকাবিলায় আমরা প্রস্তুত আছি। তবে এক্ষেত্রে কমিউনিটিতে আমাদের সবার প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ অংশগ্রহণ জরুরি। একইসঙ্গে অন্যকে অনুপ্রাণিত ও উদ্বুদ্ধ করা ও সহায়তার মধ্য দিয়েই আমরা এই ভাইরাসটিকে শতভাগ নিয়ন্ত্রণে রাখতে পারব বলে মনে করি।

আরও পড়ুন:


চট্টগ্রামেও হাফ ভাড়া নেওয়ার ঘোষণা

লকডাউন দেয়ার বিষয়ে যা জানালেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী


অধ্যাপক ডা. নাজমুল বলেন, আমরা মনে করি ওমিক্রন নিয়ে আতঙ্কিত হওয়ার চেয়ে, সতর্ক ও সচেতন হওয়া জরুরি। আমরা যদি নিজেরা সচেতন হই, নিজেদেরকে মুক্ত রাখি, তাহলে আমাদের পরিবারও সুরক্ষিত থাকবে। এমনকি এটি প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে পুরো দেশকে সুরক্ষিত রাখবে। আমরা মনে করি রাজনীতিবিদ, সামাজিক ও ধর্মীয় নেতা, উন্নয়ন সহযোগীসহ প্রত্যেকের প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ অংশগ্রহণের মাধ্যমে করোনা সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণ এবং প্রতিরোধের কাজটি আমরা করতে পারব।

news24bd.tv নাজিম

পরবর্তী খবর

করোনায় দেশে ২৪ ঘণ্টায় ছয়জনের মৃত্যু

অনলাইন ডেস্ক

করোনায় দেশে ২৪ ঘণ্টায় ছয়জনের মৃত্যু

করোনাভাইরাসে গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে আরও ছয়জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে মৃত্যুর সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২৮ হাজার ১ জনে।

একই সময়ে নতুন করে করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছেন ১৯৭ জন। এ পর্যন্ত মোট শনাক্ত রোগীর সংখ্যা হয়েছে ১৫ লাখ ৭৭ হাজার ৪৪৩ জন।

আজ বিকেলে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানিয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, একদিনে করোনা থেকে সুস্থ হয়েছেন ২২৬ জন। এ পর্যন্ত মোট সুস্থ হয়েছেন ১৫ লাখ ৪২ হাজার ২৭৪ জন।

গত ২৪ ঘণ্টায় ১৯ হাজার ৪৩ জনের নমুনা সংগ্রহ করা হয়। পরীক্ষা করা হয় ১৯ হাজার ১৩২টি নমুনা। পরীক্ষার বিপরীতে শনাক্তের হার ১ দশমিক ০৩ শতাংশ।

আরও পড়ুন:


চট্টগ্রামেও হাফ ভাড়া নেওয়ার ঘোষণা

লকডাউন দেয়ার বিষয়ে যা জানালেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী


সবশেষ ২৪ ঘণ্টায় মারা যাওয়াদের ২ জন পুরুষ ও ৪ জন নারী। এ সময়ে ঢাকায় ৫ ও ময়মনসিংহে ১ জন মারা গেছেন। বাকি বিভাগগুলোতে কারো মৃত্যু হয়নি।  

news24bd.tv নাজিম

পরবর্তী খবর

রংপুরে এখন আর মঙ্গা নেই: বাণিজ্যমন্ত্রী

অনলাইন ডেস্ক

রংপুরে এখন আর মঙ্গা নেই: বাণিজ্যমন্ত্রী

বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি

বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি বলেছেন, একসময় রংপুর অঞ্চলের মানুষকে ছোট করে দেখা হতো, এখন আর সেই দিন নেই। অবস্থার আমূল পরিবর্তন হয়েছে। মানুষ এখন রংপুর অঞ্চলের প্রশংসা করে। 

তিনি বলেন, পুরো রংপুর অঞ্চলে এখন কোথাও আর মঙ্গা নেই। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিরোধী দলে থাকাবস্থায় রংপুর সফরকালে বলেছিলেন, আমরা ক্ষমতায় গেলে রংপুর অঞ্চলের মঙ্গা শেষ করবো। প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ উদ্যোগে আজ তা-ই হয়েছে।

রোববার (৫ ডিসেম্বর) ঢাকায় ইকোনমিক রিপোর্টার্স ফোরাম মিলনায়তনে রংপুর বিভাগীয় সাংবাদিক সমিতি (আরডিজেএ) আয়োজিত “আরডিজেএ-এর প্রয়াত সদস্যের সন্তানদের বৃত্তি প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, মঙ্গা কাটিয়ে দেশের উন্নয়নের সঙ্গে তাল মিলিয়ে রংপুরও এগিয়ে যাচ্ছে। রংপুরের উন্নয়ন এখন দৃশ্যমান।

তিনি বলেন, রংপুরে পাইপে গ্যাস সররাহের কাজ দ্রুত এগিয়ে চলছে, অল্প সময়ের মধ্যে তা শেষ হবে। এ অঞ্চলে বেশ কয়েকটি স্পেশাল ইকোনমিক জোন গড়ে তোলার কাজ চলছে। প্রায় সাড়ে আট হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে তিস্তা নদীর দু’ধারে উন্নয়নমূলক কাজ বাস্তবায়ন হচ্ছে।

বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, রংপুরে শিল্প কলকারখানা গড়ে তোলা হচ্ছে। উত্তর-পূর্ব ভারত থেকে নদীপথে মালামাল আনা-নেওয়ার জন্য বন্দর গড়ে তোলা হয়েছে। জলযান চলাচলের সুবিধার্থে নদীর নাব্য বাড়ানো হচ্ছে।

আরও পড়ুন:


চট্টগ্রামেও হাফ ভাড়া নেওয়ার ঘোষণা

লকডাউন দেয়ার বিষয়ে যা জানালেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী


তিনি বলেন, কুড়িগ্রামে একটি কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় গড়ে তোলার কাজ চলছে, সংসদে এ সংক্রান্ত বিল পাস হয়েছে। সৈয়দপুরকে আমরা আঞ্চলিক বিমানবন্দর হিসেবে গড়ার কাজ করছি। ভুটান ও নেপাল এ বিমানবন্দর ব্যবহার করবে। প্রতিদিন সৈয়দপুরে ১৫-১৬টি ফ্লাইট পরিচালিত হচ্ছে। এতে বোঝা যাচ্ছে, এ অঞ্চলের মানুষের অর্থনৈতিক অবস্থার উন্নতি হয়েছে। 

আরডিজেএ সভাপতি মোকছুদার রহমান মাকসুদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন, সংগঠনের সাবেক সভাপতি শফিকুল করিম সাবু, নাজমুল হক সরকার, ইকোনমিক রিপোর্টার্স ফোরামের সাধারণ সম্পাদক এসএম রাশিদুল ইসলাম। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন আরডিজেএ’র সাধারণ সম্পাদক মো. মিজানুর রহমান।

news24bd.tv নাজিম

পরবর্তী খবর