পাক-ভারত সেই ম্যাচে টিভি দর্শকের রেকর্ড

অনলাইন ডেস্ক

পাক-ভারত সেই ম্যাচে টিভি দর্শকের রেকর্ড

চলমান টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে ভারত পাকিস্তান ম্যাচ টিভিতে দেখেছেন ১৬ কোটি ৭০ লাখ দর্শক। এটাই টি-টোয়েন্টি ক্রিকেট ইতিহাসের সর্বোচ্চ  সংখ্যাক দর্শক দেখা ম্যাচ। আইসিসি টুর্নামেন্টে দুই বছর পর গত ২৪ অক্টোবর মুখোমুখি হয় চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী ভারত-পাকিস্তান।

স্টার ইন্ডিয়া এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, ১৬ কোটি ৭০ লাখ দর্শক এই ম্যাচ দেখেছেন। ২০১৬ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ সেমিফাইনালে ভারত-ওয়েস্ট ইন্ডিজ ম্যাচ ছাপিয়ে টি-টোয়েন্টি এ ম্যাচই সবচেয়ে বেশিসংখ্যক দর্শক দেখেছেন।

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে এবার নিজেদের প্রথম ম্যাচে মুখোমুখি হয় ভারত-পাকিস্তান। ১০ উইকেটের দারুণ জয়ে শুভসূচনা করে বাবর আজমের দল। পাকিস্তান সেমিফাইনালে উঠলেও সুপার টুয়েলভ থেকে বিদায় নিয়েছে ভারত। 

ভারতের সংবাদমাধ্যমকে স্টার ইন্ডিয়ার এক মুখপাত্র বলেছেন, ১৬ কোটি ৭০ লাখ দর্শক দেখায় ইতিহাস তৈরি করেছে ভারত-পাকিস্তান ম্যাচ। 

আরও পড়ুন: 


তেলের দাম বৃদ্ধি, চট্টগ্রামে গণপরিবহন বন্ধ

৭৩-এ শেষ বাংলাদেশ

এবারের পাকিস্তানকে দেখে শোয়েবের ‌‘ভয়’


 

স্টার ইন্ডিয়া জানিয়েছে, ভারত-পাকিস্তান ম্যাচ ঘিরে সবচেয়ে বেশি আগ্রহ থাকলেও সব মিলিয়ে এবারের টুর্নামেন্ট মনোযোগ দিয়ে দেখছেন ক্রিকেটপ্রেমীরা। সুপার টুয়েলভের প্রথম ১২ ম্যাচ পর্যন্ত টিভিতে দর্শক চোখ রেখেছেন ৪৭ বিলিয়ন মিনিট।

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর

দিনের শুরুতেই তাইজুলের জোড়া আঘাত

অনলাইন ডেস্ক

দিনের শুরুতেই তাইজুলের জোড়া আঘাত

তাইজুল ইসলাম

চট্টগ্রামে বাংলাদেশ-পাকিস্তান সিরিজের প্রথম টেস্টের তৃতীয় দিনের শুরুতেই পাকিস্তানের দুই ব্যাটারকে ফিরিয়ে দিয়ে দারুণ শুরু করেছে বাংলাদেশ। 

অভিষিক্ত ওপেনার আব্দুল্লাহ শফিককে লেগ বিফোর উইকেটের ফাঁদে ফেলেন তাইজুল। শফিক আউট হন ১৬৬ বলে ৫২ রান করে। 

পরের বলেই তাইজুল ফেরান আজহার আলীকে। নতুন ব্যাটার আজহারের পায়ে লাগলেই জোরালো আবেদন করেন তাইজুলরা। কিন্তু আম্পায়ার সাড়া দেননি। বাংলাদেশ অধিনায়ক মুমিনুল হক রিভিউ নিতে দেরি করেননি। পরে দেখা যায় আজহার পরিস্কার আউট। ০ রানে ফেরেন এই ব্যাটার।

স্কোর-

বাংলাদেশ: প্রথম ইনিংসে ৩৩০/১০ (লিটন ১১৪, মুশফিক ৯১, মেহেদি ৩৮*)

পাকিস্তান: প্রথম ইনিংসে ১৪৬/২ (আবিদ ৯৪*, বাবর ০*)

আরও পড়ুন:

ইউরোপে ছড়িয়ে পড়ছে ভয়ঙ্কর হয়ে ওঠা 'ওমিক্রন'


news24bd.tv/ নকিব

পরবর্তী খবর

দ্বিতীয় দিনে ব্যাটিংয়েও দাপট দেখাচ্ছে পাকিস্তান

অনলাইন ডেস্ক

দ্বিতীয় দিনে ব্যাটিংয়েও দাপট দেখাচ্ছে পাকিস্তান

পাকিস্তানের নিখুঁত শুরু

চট্টগ্রাম টেস্টে আজ চলছে দ্বিতীয় দিনের খেলা। শুক্রবার (২৬ নভেম্বর) প্রথম সেশনটা বাদ দিলে প্রথম দিনটা স্বপ্নের মতো কাটায় বাংলাদেশ দল। কিন্তু শনিবার টাইগারদের টেনে মাটিতে নামায় 
পাকিস্তানী পেসার হাসান আলী।

তার বোলিং তোপে পড়ে ৩৩০ রানেই গুটিয়ে যায় বাংলাদেশ। পাঁচ উইকেট নেন তিনি। দিনের শুরু থেকে পাকিস্তান খেলে চলেছে বেশ দাপটের সঙ্গেই।

আরও পড়ুন:


দ. আফ্রিকার করোনার নতুন ধরন খুবই ভয়ঙ্কর : স্বাস্থ্যমন্ত্রী

একই ইউপিতে বাবা-ছেলে ও আপন দুই ভাই চেয়ারম্যান প্রার্থী!

বেগম জিয়ার জন্য আলাদা আইন করার সুযোগ নেই: হানিফ


বোলিংয়ের পর এবার ব্যাটিংয়েও দাপট দেখাচ্ছে সফরকারীরা। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত কোনো উইকেট না হারিয়ে ১১২ রান তুলেছে তারা।  আবিদ আলি  ৭৩ ও  আবদুল্লাহ শফিক৩৯ রানে ব্যাট করছেন।

news24bd.tv নাজিম

পরবর্তী খবর

মুশফিকের আউট নিয়ে সমালোচনা (ভিডিও)

অনলাইন ডেস্ক

মুশফিকের আউট নিয়ে সমালোচনা (ভিডিও)

মুশফিকের আউট নিয়ে সমালোচনা

টেস্ট ক্যারিয়ারে এখন পর্যন্ত চারবার নব্বইয়ের ঘরে আউট হয়েছেন মুশফিকুর রহিম। এর মধ্যে তিনবারই চট্টগ্রামের এই স্টেডিয়ামে। ৪র্থবারেরটি হলো আজ। ফাহিম আশরাফের রাইজিং ইনসুইঙ্গার ডিফেন্ড করতে গিয়ে পরাস্ত হন মুশফিক। 

ব্যাট অতিক্রম করে বল রিজওয়ানের গ্লাভসে পৌঁছলে কট বিহাইন্ডের আপিল করেন ফিল্ডাররা। 

মুশফিকের ব্যাটিংয়ে সময়, একটা শব্দও শোনা যায়। আম্পায়ার আউট দিয়ে দেন। কিন্তু আউটের সিদ্ধান্ত প্রথমে মুশফিক মেনে নেননি। রিভিউ নেন। আর রিভিউয়ে হেরে বিদায় নেন ৯১ রানে।

মুশফিকের এই আউট নিয়ে ইতোমধ্যে সমালোচনা শুরু হয়েছে ক্রিকেট মহলে। অনেকে দাবি, আউট হননি মিস্টর ডিপেন্ডেবল।

যদিও রিভিউয়ে আলট্রাএজে টাচের স্পাইক স্পষ্ট। প্রশ্ন উঠেছে, এই স্পাইক কি ব্যাট-বল নাকি ব্যাট-প্যাডের টাচের কারণে হয়েছে?

আলট্রাএজে দেখা গেছে মুশফিকের ব্যাট প্রথমে প্যাডে লাগে। বলটি ব্যাট অতিক্রমের মুহূর্ত আগেই আল্ট্রাএজে দেখা যাচ্ছিল টাচের স্পাইক। এরপর ব্যাটের সঙ্গে বলের দূরত্ব যখন আরও বেড়ে যায় তখন  আল্ট্রাএজে স্পাইক আরো বেশি দেখায়।

আরও পড়ুন:


আবারও আইসিইউতে রওশন এরশাদ

ছেলেকে হত্যা করে সেফটিক ট্যাঙ্কে লুকিয়ে রাখা বাবা-মা আটক


এতে অনেকেই সন্দেহ করছেন, আল্ট্রাএজে এসব স্পাইক ব্যাটে-বলে সংযোগের নয়, ব্যাট-প্যাডের।

অর্থাৎ ব্যাটে বল লাগেনি এমনটাই দাবি তাদের। মাঠে মুশফিকের চেহারার অভিব্যক্তিও তাই বলছিল। তিনিও মনে করেছিলেন প্যাডে ব্যাট লাগার কারণে শব্দটা হয়েছে। যে কারণে রিভিউ নিয়েছিলেন তিনি।

ভিডিওতে দেখা যায়, ওই আউটের বিরুদ্ধে সঙ্গে সঙ্গে রিভিউ নেন মুশফিক। এরপর অপরপ্রান্তে থাকা মিরাজের সঙ্গে হাতও মেলান। কারণ, মুশফিক শতভাগ নিশ্চিত যে, তিনি আউট হননি। কিন্তু অবাক করা বিষয় রিভিউ আবেদনের পর আলট্রাসাইউন্ডে দেখা যায়, মুশফিকের ব্যাটে বল আসার আগেই আলট্রাসাউন্ডে স্পাইক সংকেত দেখায়!
কিন্তু আম্পায়ার এসব বিষয় এড়িয়ে গিয়ে মুশফিকের আউটই বহাল রাখেন আম্পায়ার। দুর্ভাগ্যজনকভাবে সেঞ্চুরির কাছাকাছি গিয়েও সাজঘরে ফেরেন দেশসেরা ব্যাটসম্যান মুশফিকুর রহমান। 

ভিডিওতে আউটটি দেখুন -

news24bd.tv/ কামরুল 

পরবর্তী খবর

স্বপ্ন দেখিয়ে অল্পতেই গুটিয়ে গেল টাইগাররা

অনলাইন ডেস্ক

স্বপ্ন দেখিয়ে অল্পতেই গুটিয়ে গেল টাইগাররা

দিনের শুরুতেই আউট হন লিটন দাস

প্রথম দিন স্বপ্ন দেখিয়ে পরদিন সকালেই স্বপ্নভঙ্গ হলো বাংলাদেশ দলের। চট্টগ্রাম টেস্টের প্রথম দিন সকালে ব্যর্থ শুরুর পর হাল ধরেন মুশফিক-লিটন। তাদের দৃঢ়তায় আর কোন উইকেট না হারিয়েই স্কোরবোর্ডে ২৫৩ রান তুলে দিন শেষ করে বাংলাদেশ।

স্বাভাবিকভাবেই দলের আশা ছিল ৪৫০-৫০০ রান করার। কিন্তু পরদিন সকালেই বাংলাদেশ দলের সকল পরিকল্পনা ভেস্তে দিয়ে মাত্র ৩৩০ রানে গুটিয়ে দিল পাকিস্তান।

চট্টগ্রামে প্রথম দিনে শুরুর ঘণ্টায় ৪ উইকেট হারিয়ে বসে টাইগাররা। দ্বিতীয় দিনে  মেহেদী হাসান মিরাজকে বাদ দিলে সেট দুই ব্যাটসম্যানের সঙ্গে সুবিধা করতে পারেননি বাকিরা। বাকি ৬ উইকেট হারিয়ে আগের রানের সঙ্গে মাত্র ৭৭ রান যোগ করতে পারে টাইগাররা।

আজ ৪ উইকেট নিয়ে বাংলাদেশ দলকে একাই ধসিয়ে দিয়েছেন হাসান আলী। আগেরদিন একটি উইকেট পেয়েছিলেন তিনি। 

অভিষেক সেঞ্চুরি পাওয়া লিটন দাস ১১৩ ও সেঞ্চুরির পথে হাঁটা মুশফিকুর রহিম ৮২ রান নিয়ে দ্বিতীয় দিনের খেলা শুরু করেন। দিনের দ্বিতীয় ওভারেই সাজঘরে লিটন। হাসান আলীর বলে লেগবিফোরের ফাঁদে পড়ে ফেরেন তিনি। এদিন খেলেন আর মাত্র ৮ বল। ১ রান যোগ করে ১১৪ রানে আউট হন।

দীর্ঘ প্রতিপক্ষার পর অভিষেক ক্যাপ পাওয়া ইয়াসির আলী রাব্বিও আউট হলেন মাত্র ৪ রান করেই। অভিষেক হওয়া রাব্বি ৪ রানে আউট হওয়ার পর দৃষ্টি ছিল মুশফিকের দিকে। তবে আগের দিনের দাপট দেখাতে পারেননি মুশফিক। অভিজ্ঞ এই ব্যাটসম্যান থামলেন নড়বড়ে নব্বইয়ে। 

৮২ রান নিয়ে দিন শুরু করা মুশফিক ৯১ রানে আউট হলে দলের হাল ধরেন মেহেদী হাসান মিরাজ ও তাইজুল ইসলাম। ২৭৬ রানে ৭ উইকেট হারানো বাংলাদেশ দলের সংগ্রহ ৩০০ ছোঁয় তাদের ২৮ রানের জুটির কল্যাণে। তাইজুল ১১ রান করে শাহিন শাহ আফ্রিদির বলে থামে এই জুটি।

একটু সাবলীলভাবে খেলতে দেখা যায় মিরাজকেই। ৬৮ বল খেলে ৬টি বাউন্ডারি মারেন তিনি। মিরাজ ৩৮ রান করে আউট হলে বাংলাদেশ দল গুটিয়ে যায় মাত্র ৩৩০ রানেই।

আরও পড়ুন:

খোলামেলা দৃশ্যে জোর করে অভিনয় করানো হয়েছিল উরফিকে


news24bd.tv/ নকিব

পরবর্তী খবর

বাদ পড়া সেই মুশফিক-লিটনের ব্যাটেই স্বপ্ন

অনলাইন ডেস্ক

বাদ পড়া সেই মুশফিক-লিটনের ব্যাটেই স্বপ্ন

চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে পাকিস্তানের বিপক্ষে সিরিজের প্রথম টেস্টের প্রথম দিন শেষে বেশ ভালো অবস্থানে আছে বাংলাদেশ। ৪ উইকেট হারিয়ে স্কোরকার্ডে ২৫৩ রান তুলে প্রথম দিন শেষ করেছে তারা।

মুশফিকুর রহিম ও লিটন দাসের সামর্থ্য এবং যোগ্যতা নিয়ে কোনো প্রশ্ন নেই। টেকনিক্যালি দুজনেই দুর্দান্ত ব্যাটসম্যান। বিপর্যয়ে হাল ধরার অনেক নজির আছে দুজনের। টেস্ট সিরিজে আস্থা রাখেন দুজনের ওপর। তার প্রতিদানও দেন লিটন ও মুশফিক। খাঁদের কিনারায় থাকা দলকে দুজনে রেকর্ড জুটি গড়ে নিয়ে যান শক্ত অবস্থানে। পঞ্চম উইকেট জুটিতে দুজনের অবিচ্ছিন্ন ২০৪ রানের জুটিতে চট্টগ্রাম টেস্টের প্রথম দিন ৪ উইকেটে ২৫৩ রান করেছে বাংলাদেশ। জুটি গড়ার পথে নান্দনিক ব্যাটিংয়ে ১১৩ রানের হার না মানা ইনিংস খেলেন লিটন। যা তার ২৬ টেস্ট ক্যারিয়ারে প্রথম সেঞ্চুরি। দেশের সবচেয়ে সিনিয়র ও অভিজ্ঞ ক্রিকেটার মুশফিক অপরাজিত রয়েছেন ৮২ রানে।

জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামের উইকেট ব্যাটিংয়ের জন্য সহায়ক ছিল। সেটি দেখেই টস জিতে ব্যাটিং নিতে ভুল করেননি বাংলাদেশ অধিনায়ক মুমিনুল হক। কিন্তু অধিনায়কের সিদ্ধান্তকে আরও একবার সঠিক প্রমাণ করতে ব্যর্থ বাংলাদেশের টপ অর্ডার। স্কোরবোর্ডে ৪৯ রান উঠতেই সাজঘরে ফিরে যান সাইফ হাসান, সাদমান ইসলাম, মুমিনুল হক ও নাজমুল হোসেন শান্ত। 

সকালেই দ্রুত উইকেট হারিয়ে বাংলাদেশ দল যখন সর্ষে ফুল দেখছিল, তখনেই দৃশ্যপটে মুশফিক আর লিটন। দুজনে প্রথমে দেখেশুনে খেলতে থাকেন পাকিস্তানের বোলারদের। তবে একই সঙ্গে বাজে বল হলেই চুকিয়ে দিয়েছেন মূল্য। ঠান্ডা মাথায় এর মধ্যে দুজনে শেষ করেছেন প্রথম দিন।

আরও পড়ুন: 


ফখরুল বললেন, আন্দোলন-আন্দোলন-আন্দোলন

ধর্ষণ মামলায় জামিন: ক্ষমা চাইলেন বিচারক


 

২০১৯ সালে হ্যামিল্টনে সৌম্য সরকার-মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ করেছিলেন ২৩৫ রান। লিটন ১১৩ রানের অপরাজিত ইনিংসটি খেলেন ২২৫ বলে ১১ চার ও ১ ছক্কায়। ২৬ টেস্টে এটা তার প্রথম সেঞ্চুরি। দৃষ্টিনন্দন সেঞ্চুরির ইনিংসটি কিন্তু নিশ্চিদ্র ছিল না। ব্যক্তি ৬৭ রানের মাথায় সহজ জীবন পান লিটন। শাহীন আফ্রিদিকে পুল খেলেন লিটন। ডিপ মিড উইকেটে সাজিদ ফেলে দেন সহজ ক্যাচ। দলের স্কোর তখন ৬৫ ওভারে ৪ উইকেটে ১৮৯ রান। ২৬ নম্বর টেস্টে লিটন প্রথম সেঞ্চুরি পান।

এর আগে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ৯৪ ও জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ৯৫ রানে আউটের রেকর্ড রয়েছে তার। মুশফিক অপরাজিত রয়েছেন ৮২ রানে। ১৯০ বলের ইনিংসটিতে রয়েছে ১০টি চার। ৭৬ টেস্ট ক্যারিয়ারে সাবেক অধিনায়কের এটা ২৪ নম্বর হাফসেঞ্চুরি। তার রান ৪৭৭৮। টেস্টে তামিম ইকবালকে টপকে বাংলাদেশের সর্বাধিক রানের মালিক হতে মুশফিকের চাই আর মাত্র ১১ রান। বাঁ-হাতি ওপেনার তামিমের রান ৪৭৮৮। তবে জহুর আহমেদ স্টেডিয়ামে তিনি এখন সর্বধিক রানের মালিক। ৮২ রানের ইনিংস খেলার পথে তিনি পেছনে ফেলেন টাইগার টেস্ট অধিনায়ক মুমিনুলকে। ১৮ টেস্টে মুশফিকের রান ১২৭৬ এবং মুমিনুলের রান ১১ টেস্টে ১২০৩ রান।

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর