ডিজেল ও সিএনজিচালিত বাসে স্টিকার লাগানো হবে
ডিজেল ও সিএনজিচালিত বাসে স্টিকার লাগানো হবে

ডিজেল ও সিএনজিচালিত বাসে স্টিকার লাগানো হবে

অনলাইন ডেস্ক

আগামী তিনদিনের মধ্যে ডিজেল ও সিএনজিচালিত বাসে স্টিকার লাগানো হবে। কেউ যাতে অতিরিক্ত ভাড়া নিতে না পারে সেজন্য মালিক-শ্রমিকদের সমন্বয়ে ১১টি ভিজিল্যান্স টিম (পাহারা দল) মাঠে থাকবে। এমন কথা বলেছেন বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন মালিক সমিতির মহাসচিব খন্দকার এনায়েত উল্যাহ।

আগামী রোববার (১৪ নভেম্বর) থেকে রাজধানীতে কোনো ধরনের সিটিং সার্ভিস অথবা গেট লক সার্ভিস বাস থাকবে না বলেও জানিয়েছেন তিনি।

বুধবার (১০ নভেম্বর) দুপুরে রাজধানীর কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউয়ে সংগঠনটির কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এ কথা বলেন তিনি।

বাসভাড়া পুনর্নির্ধারণ ও বর্তমান পরিস্থিতি নিয়ে এই সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন মালিক সমিতি ও বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশন।

আরও পড়ুন:


দেশে করোনার সর্বশেষ তথ্য

দেশ নষ্ট সময় পার করছে: ফখরুল

এনায়েত উল্যাহ বলেন, সিটিং সার্ভিসে কোনো নিয়মনীতি নেই। বাসগুলো নিজের মতো করে যাত্রী পরিবহন করে। এতে ভোগান্তি হয় যাত্রীদের। তাই আগামী তিনদিন পর থেকে ঢাকা মেট্রোপলিটন এলাকায় সিটিং সার্ভিস এবং গেট লক সার্ভিস থাকবে না।

‌‘গত কয়েকদিন ধরে বিভিন্ন গণমাধ্যমে বাস-মিনিবাসের ভাড়া পুনর্নির্ধারণ নিয়ে আলোচনা-সমালোচনা চলছে। গণমাধ্যমে বলা হচ্ছে, ঢাকা ও দূরপাল্লার বাস-মিনিবাসের ৮০-৯০ শতাংশ সিএনজিচালিত। সিএনজিচালিত বাসে বেশি ভাড়া নেওয়া হচ্ছে বলেও অভিযোগ করা হয়। কিন্তু ঢাকা মেট্রোপলিটন এলাকায় ১২০টি পরিবহন কোম্পানির মধ্যে মাত্র ১৩ কোম্পানির বাস সিএনজিচালিত। যা সংখ্যায় মাত্র ১৯৬টি। এটি মোট গণপরিবহনের মাত্র ৩ দশমিক ২৬ শতাংশ। ’

১০-১২ বছর আগে রাজধানীর বেশিরভাগ গাড়িই গ্যাসচালিত ছিল উল্লেখ করে তিনি বলেন, এখন এসব বাসের মেয়াদ উত্তীর্ণ হয়ে গেছে। আগামী তিনদিনের মধ্যে ডিজেল ও সিএনজিচালিত বাসে স্টিকার লাগানো হবে। তখন বিআরটিএ নির্ধারিত ভাড়া নিতে হবে। কেউ যাতে অতিরিক্ত ভাড়া নিতে না পারে সেজন্য মালিক-শ্রমিকদের সমন্বয়ে ১১টি ভিজিল্যান্স টিম (পাহারা দল) মাঠে থাকবে।

news24bd.tv/তৌহিদ

সম্পর্কিত খবর

;