বিশ্বমঞ্চে বঙ্গবন্ধুর উত্তরাধিকার তুলে ধরছেন তার কন্যা
বিশ্বমঞ্চে বঙ্গবন্ধুর উত্তরাধিকার তুলে ধরছেন তার কন্যা
প্যারিসে ইউনেস্কো-বঙ্গবন্ধু পুরষ্কার দেবেন প্রধানমন্ত্রী

বিশ্বমঞ্চে বঙ্গবন্ধুর উত্তরাধিকার তুলে ধরছেন তার কন্যা

অনলাইন ডেস্ক

বাংলাদেশের উন্নয়নের সুবর্ণ দশককে একটি বিস্ময়কর পরিবর্তনের গল্প হিসেবে চিহ্নিত করতে, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে সরকার 'সৃজনশীল অর্থনীতিতে' অবদানের স্বীকৃতি দেয়ার জন্য ইউনেস্কোর সাথে একটি বৈশ্বিক পুরষ্কার চালু করেছে।

বৃহস্পতিবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্যারিসে একটি অনুষ্ঠানে পুরষ্কারটি তুলে দেবেন। বিজয়ীর নাম ঘোষণা ও পুরষ্কার হস্তান্তরের আগে প্রধানমন্ত্রী তার বক্তব্য উপস্থাপন করবেন।

একটি সূত্র জানিয়েছে জাতিসংঘের ১৯৩ টি সদস্য রাষ্ট্রের ব্যাপক সমর্থনে মঙ্গলবার ইউনেস্কোর মহাপরিচালকের পদে পুনঃনির্বাচিত হওয়া অড্রে আজৌলে অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেবেন।

একজন কর্মকর্তা জানিয়েছেন, এমওটিআইভি একটি উগান্ডা-ভিত্তিক সমন্বিত সৃজনশীল স্টুডিওকে 'ইউনেস্কো-বাংলাদেশ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সৃজনশীল অর্থনীতির আন্তর্জাতিক পুরষ্কারের প্রথম সংস্করণের বিজয়ী হিসাবে নামকরণ করা হয়েছে।

পুরষ্কারটি ৫০ হাজার মার্কিন ডলারে দ্বিবার্ষিক ভিত্তিতে দেয়া হবে, প্রাথমিকভাবে পুরষ্কারের তিনটি পুনরাবৃত্তি হবে।

প্রথম পুরষ্কার বিতরণী অনুষ্ঠানটি ইউনেস্কোর ৪১তম সাধারণ সম্মেলন উপলক্ষে অনুষ্ঠিত হবে এবং পরবর্তী পুরষ্কার অনুষ্ঠানগুলি সাংস্কৃতিক অভিব্যক্তির বৈচিত্র্যের সুরক্ষা এবং প্রচারের ২০০৫ কনভেনশনের পক্ষের সম্মেলন উপলক্ষে অনুষ্ঠিত হবে।

১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধের পর থেকে বাংলাদেশের বিভিন্ন বিষয়ে গবেষণা করা সুখরঞ্জন দাশগুপ্ত বলেছেন, বাংলাদেশ সরকারের উদ্যোগে ইউনেস্কোর এই পুরষ্কার প্রদানে সম্মত হওয়া তাৎপর্যপূর্ণ। এটি হাসিনার বিরুদ্ধবাদীদের মতামতকে উড়িয়ে দিয়ে এটাই প্রমাণ করে যে বাংলাদেশের উন্নয়নের বেশিরভাগ দাবিই গুরুত্বের দাবিদার।

দাশগুপ্ত ১৯৭৫ সালের বাংলাদেশ অভ্যুত্থানের উপর তার 'মিডনাইট ম্যাসাকার' বইয়ের জন্য পরিচিত। তিনি বলেন, হাসিনা প্রধানমন্ত্রী হিসেবে তার পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের 'সোনার বাংলা' স্বপ্নকে বাস্তবে পরিণত করেছেন।

তিনি আরও বলেন, বঙ্গবন্ধুর নামে সৃজনশীল অর্থনীতির জন্য ইউনেস্কোর সাথে যৌথভাবে একটি পুরষ্কার প্রতিষ্ঠা সমস্ত বাংলাদেশিকে গর্বিত করবে।

বিবিসি সম্প্রতি গ্লাসগো সম্মেলনে শীর্ষ পাঁচ প্রভাবশালী ডিলমেকারের একজন হিসেবে হাসিনাকে স্বাগত জানিয়েছে এবং তাকে 'শোষিতদের কন্ঠস্বর' বলে অভিহিত করেছে।

তারপর ফ্রান্সের প্যারিসে শেখ হাসিনার আগমনে উষ্ণ অভ্যর্থনা জানানো হয়।

বিবিসি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে 'জলবায়ু পরিবর্তনের চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় মানবিক মুখ তুলে ধরার' কৃতিত্ব দিয়েছে।

কলামিস্ট অজয় দাশগুপ্ত বলেছেন যে অন্তর্ভুক্তিমূলক প্রবৃদ্ধির উপর দৃষ্টি নিবন্ধ করে শাসনের একটি বিকল্প মডেল তৈরিতে হাসিনার সাফল্যও 'বাঙালি সংস্কৃতির শক্তিতে নিহিত' যা ধর্মীয় উগ্রবাদের চেয়ে মানবতাবাদকে অগ্রাধিকার দেয়।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আবদুল মোমেন বলেছেন, ইউনেস্কো-বঙ্গবন্ধু পুরষ্কার বঙ্গবন্ধুর কর্ম, জীবন ও অর্জনকে আরও আন্তর্জাতিকীকরণের মাধ্যমে বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে দিতে সহায়তা করবে।

তিনি বলেন, বাংলাদেশ ও বঙ্গবন্ধু এক এবং অনন্য যা পুরষ্কারের নামের মধ্য দিয়েই প্রতিফলিত হয়েছে। এই পুরষ্কারটি বাংলাদেশের ব্র্যান্ডিং এবং বিশ্বব্যাপী এর ভাবমূর্তি বৃদ্ধিতে ভূমিকা রাখবে।

ডা. মোমেন বলেন, আমরা সবাই খুব গর্বিত যে জাতিসংঘের একটি সংস্থা প্রথমবারের মতো বঙ্গবন্ধুর নামে একটি পুরষ্কার প্রবর্তন করেছে।

আরও পড়ুন:

যে শর্তে নাগরিকত্ব দেবে সৌদি আরব


news24bd.tv/ নকিব

;