চাঁদা না পেয়ে বাবা-ছেলেকে মারধর
Breaking News
চাঁদা না পেয়ে বাবা-ছেলেকে মারধর

চাঁদা না পেয়ে বাবা-ছেলেকে মারধর

Other

গাজীপুরের শ্রীপুর পৌর এলাকার মাওনা চৌরাস্তায় চাঁদার টাকা না পেয়ে আওয়ামী লীগ নেতা ও তার ছেলেকে পিটিয়ে গুরুতর জখম করার অভিযোগ উঠেছে স্থানীয় শ্রমিক লীগ নেতার লোকজনের বিরুদ্ধে।

শনিবার (১৩ নভেম্বর) সন্ধ্যার দিকে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের মাওনা উড়াল সেতুর নিচে এ ঘটনা ঘটে। ইতোমধ্যে ঘটনার ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ভাইরাল হলে ব্যপক সমালোচনার সৃষ্টি হয়।

হামলার শিকার কামাল মিয়া (৪৫) বরমী ইউনিয়নের গাড়ারন গ্রামের হাসেন আলীর ছেলে। তিনি বরমী ইউনিয়নের ৬নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন তার ছেলে ফরহাদ হোসেন (২৫)।

অভিযুক্ত মজিবুর রহমান উপজেলা শ্রমিকলীগের যুগ্ম আহবায়ক। তিনি পৌর এলাকার কেওয়া পশ্চিম খন্ড গ্রামের আব্দুস সালাম মিয়ার ছেলে।

আহত কামাল মিয়া জানান, ঢাকা থেকে তাঁর নিজস্ব প্রভাতী পরিবহনের একটি গাড়ি মাওনা চৌরাস্তা পৌঁছা মাত্র লাইনম্যান বাবু চাঁদা দাবি করে। চাঁদা দিতে অস্বীকৃতি জানালে দুজনের মধ্যে বাগবিতণ্ডা শুরু হয়। একপর্যায়ে সে তাঁর বাবাকে খবর দেয়।  

পরবর্তীতে আ.লীগ নেতা মো. কামাল হোসেন ঘটনাস্থলে উপস্থিত হওয়া মাত্রই শ্রমিকলীগ নেতা মুজিবরের নেতৃত্বে লাঠি দিয়ে বাবা ছেলেকে পিটিয়ে রক্তাক্ত জখম করে। তাঁর পর স্থানীয় উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে আসে।

তিনি আরও বলেন, মজিবুরের লোকজন ২০ টাকা চাঁদা না পেয়ে বাস চলতে দিচ্ছে না এমন খবরে মাওনা চৌরাস্তায় যাওয়ার সাথে সাথেই হামলার শিকার হন তিনি। এসময় তাঁকে রক্ষা করতে এগিয়ে আসলে তার ছেলে ফরহাদ হোসেনকেও বেধড়ক পিটিয়ে আহত করে।

আরও পড়ুন


আজ শুরু হচ্ছে এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষা

বিশ্বকাপে ক্যাচ মিস, টাইগারদের ফিল্ডিং কোচকে ‘বিদায়’


শ্রীপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরী বিভাগের চিকিৎসক ডাঃ লোবনা বলেন, আঘাতের ধরণ দেখে মারাত্মক মনে হচ্ছে। তবে, পরিক্ষা নিরিক্ষার পর বিস্তারিত বলা যাবে।

ঘটনা অস্বীকার করে শ্রমিকলীগ নেতা মুজিবুর রহমান মুঠোফোনে বলেন, ঘটনার পরে আমি সেখানে উপস্থিত হয়েছি। বিষয়টি ভুল বুঝাবুঝির কারনে হয়েছে। আমি হাসপাতালে গিয়ে উনার সাথে মিমাংসা করে নিচ্ছি।
 
ঘটনা অবগত হয়ে তাৎক্ষনিক ভাবে হাসপাতালে আহতদের দেখতে যান পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নুরে আলম মোল্লা। তিনি বলেন, তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে এমন মারধরের বিষয়টি দুঃখজনক। এ ঘটনার সুষ্ঠু তদন্তের মাধ্যমে অপরাধীদের আইনের আওতায় আনার জন্য প্রশাসনকে অনুরোধ করেন তিনি।

উপজেলা শ্রমিকলীগের আহবায়ক আরজু সরকার বলেন, পরিবহনে চাঁদা আদায় সম্পূর্ণ রূপে বন্ধ রয়েছে। তবে, আজকে কি নিয়ে এমন মারধরের ঘটনা তা আমি অবগত নই। খোঁজ নিয়ে পরে জানাতে পারব।

শ্রীপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) খোন্দকার ইমাম হোসেন জানান, বিষয়টি লোক মারফত জানতে পেরেছি। এখনও কেউ অভিযোগ দায়ের করেনি। অভিযোগের ভিত্তিতে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

news24bd.tv/ কামরুল