শারীরিক সম্পর্কের পর প্রেমিকাকে খুন করে নদীতে ভাসিয়ে দেয় প্রেমিক
শারীরিক সম্পর্কের পর প্রেমিকাকে খুন করে নদীতে ভাসিয়ে দেয় প্রেমিক

পলাতক মূল আসামি আমিরুল

শারীরিক সম্পর্কের পর প্রেমিকাকে খুন করে নদীতে ভাসিয়ে দেয় প্রেমিক

Other

স্বামীকে নানারকম কথা শুনিয়ে প্রথমে সংসার ভাঙ্গন, পরে পুরান সম্পর্কে ফিরে গিয়ে দৈহিক সম্পর্ক এবং সর্বশেষ পরিকল্পিত খুন। নরসিংদীতে কামরুল নামক এক প্রেমিকের এমন নৃশংসতা উঠে এসেছে পিবিআইয়ের তদন্তে। ২০২০ সালে বিয়ের কথা বলে মেঘনা নদীতে নিয়ে গলায় গামছা পেছিয়ে ও মাথায় আঘাত করে হত্যা করা হয় নিপা নামের এক তরুণীকে।

বিয়ের কথা বলে নরসিংদীর মেঘনা নদীতে নিয়ে ২০২০ সালের প্রথম তারাবি রাতে প্রেমিকাকে এভাবেই নিংশসভাবে হত্যা করে আমিরুল নামক এক যুবক।

হত্যার পর তাকে ভাসিয়ে দেওয়া হয় মেঘনা নদীতে।

দুইদিন পরই অজ্ঞাত হিসেবে লাশ পাওয়া যায় ভিকটিমের, দাফনও হয় বেওয়ারিস হিসেবে। তবে ফেসবুকে মরদেহের ছবি দেখে এটি নিপার লাশ হিসেবে সনাক্ত করে পরিবার। নিপা বিবাহিত হলেও সন্দেহের তীর যায় প্রেমিক আমিরুরের দিকে। চারমাস পর মামলা করে পরিবার।

ভিকটিমের পরিবারের আবেদনের ভিত্তিতে মামলার তদন্ত শুরু করে পিবিআই। দীর্ঘ এক মাসের তদন্তে উঠে আসে চাঞ্চল্যকর সব তথ্য। ধানমন্ডির পিবিআইয়ের হেড অফিসে সংবাদ সম্মেলনে তার বিস্তারিত তুলে ধরেন নরসিংদির পুলিশ সুপার মোঃ এনায়েত হোসেন।

কিলিং মিশনে অংশ নেওয়া সাতজনের দুইজন গ্রেপ্তারে থাকলেও বেশিরভাগই রয়েছেন জামিনে। আর মূল আসামী আমিরুল দেশ ছেড়েছেন বলে সন্দেহ করছে পিবিআইয়ের।

আরও পড়ুন


১৯ বছর বয়সী গৃহবধূর গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা

news24bd.tv এসএম