দল থেকে বহিষ্কৃত হয়ে যা বললেন জাহাঙ্গীর
দল থেকে বহিষ্কৃত হয়ে যা বললেন জাহাঙ্গীর

দল থেকে বহিষ্কৃত হয়ে যা বললেন জাহাঙ্গীর

অনলাইন ডেস্ক

গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের মেয়র জাহাঙ্গীর আলমের প্রাথমিক সদস্যপদ বাতিলের পাশাপাশি তাকে আওয়ামী লীগ থেকে আজীবনের জন্য বহিষ্কার করা হয়েছে। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে নিয়ে কটূক্তি করার দায়ে সাংগঠনিকভাবে দোষী সাব্যস্ত হয়েছেন গাজীপুর মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম।  

এদিকে দলের এই সিধান্তের পর জাহাঙ্গীর আলম বলেছেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে হয়তো ভুল বোঝানো হয়েছে বা ভুল মেসেজ দেওয়া হয়েছে। উনি সঠিকটা জানলে হয়তো কোনো দিনই ব্যবস্থা নিতেন না।

আজ বিকেলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে গণভবনে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের বৈঠকে ওই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।  

জাহাঙ্গীর আলম বলেন, যেহেতু করোনাকালীন, তাই হয়তো একমুখো শুনেছেন, তাই হয়তো এমনটা হয়েছে। তারপরও তিনি অভিভাবক, রাষ্ট্রের, দেশের, দলের। উনি যা ভালো মনে করে করেন, আমি মাথা পাইতা নিব।

মেয়র জাহাঙ্গীর আলম প্রথম আলোকে বলেন, আমি মেয়র হওয়ার পর গাজীপুরে ব্যাপক উন্নয়ন করেছি, যা অতীতে কখনো হয়নি। মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হওয়ার পর দলের নেতা–কর্মীদের চাঁদাবাজি বন্ধ করেছি। দলকে আরও সুসংগঠিত করেছি।

প্রসঙ্গত, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও মুক্তিযুদ্ধের শহীদদের সংখ্যা নিয়ে কটূক্তি করে দেওয়া জাহাঙ্গীর আলমের বক্তব্যসংবলিত একটি ভিডিও গত অক্টোবরে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে ভাইরাল হয়। এ নিয়ে ব্যাপক তোলপাড় শুরু হয় এবং মেয়রের পদত্যাগ ও মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের পদ থেকে জাহাঙ্গীরকে বহিষ্কারের দাবিতে গাজীপুর মহানগরীর কয়েকটি স্থানে বিক্ষোভ করেন দলীয় নেতা-কর্মীরা।

news24bd.tv/আলী