শিশু ধর্ষণ চেষ্টা; বিচার ৫০ জুতার বাড়ি ও ৫০ হাজার টাকা!
শিশু ধর্ষণ চেষ্টা; বিচার ৫০ জুতার বাড়ি ও ৫০ হাজার টাকা!

প্রতীকী ছবি।

শিশু ধর্ষণ চেষ্টা; বিচার ৫০ জুতার বাড়ি ও ৫০ হাজার টাকা!

Other

ঝালকাঠির নলছিটিতে এক শিশুকে জোরপূর্বক ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগ উঠেছে প্রতিবেশী এক বৃদ্ধের বিরুদ্ধে। এ ঘটনায় মীমাংসার নামে গ্রাম্য সালিসে ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা করেছে গ্রামের মাতাব্বররা। ঘটনাটি নিয়ে ওই এলাকায় ব্যাপক তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে।

অভিযুক্ত বৃদ্ধের নাম মো. আলম খান।

তিনি উপজেলার মগড় ইউনিয়নের মেরহার গ্রামের মৃত হোসেন আলি খানের ছেলে।

শিশুর নানী ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, উপজেলার ভৈরবপাশা ইউনিয়নের পূর্ব ষাইটপাকিয়া গ্রামে তার নানা বাড়িতে থেকে শিশুটি স্থানীয় একটি মাদ্রাসায় তৃতীয় শ্রেণিতে পড়াশোনা করে।  

গত বৃহস্পতিবার দুপুরে মাদ্রাসা থেকে শিশুটি বাসায় ফিরলে তাকে রেখে তার নানী মুদি মালমাল কিনতে স্থানীয় একটি দোকানে যায়। এই সুযোগে আলম খান শিশুটিকে একা পেয়ে ঝাপটে ধরে জোরপূর্বক ধর্ষণের চেষ্টা চালায়। শিশুর নানী বাসায় ফিরে এ ঘটনা দেখলে দৌড়ে পালিয়ে যায় আলম।

আরও পড়ুন:


পর্ন ভিডিওতে নিজেকে দেখে চমকে গেলেন পাকিস্তানী নারী এমপি!

টিকটক ভিডিও বানাতে গিয়ে ছাদ থেকে পড়ে কিশোরের মৃত্যু

এবার ত্রিশালে দুই যুবলীগ নেতা বহিস্কার


বিষয়টি জানাজানি হলে ঘটনা মীমাংসায় ওইদিন রাতে শিশুর নানার বাসায় গ্রাম্য সালিস বসে। সালিসে ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগ প্রমাণিত হলে মাতাব্বররা অভিযুক্ত আলম খানকে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা ও ৫০ জুতার বাড়ি দিয়ে ঘটনাটি ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা করে। সালিস বৈঠকে তাৎক্ষণিক আলম খানকে জুতাপেটা করা হলেও জরিমানার টাকা পরিশোধের জন্য সময় দেয় মাতব্বররা। কিন্তু আলম খান টাকা জোগাড় করতে না পারায় শনিবার (২০ নভেম্বর) সকালে বিষয়টি স্থানীয়ভাবে ছড়িয়ে পড়ে।

এলাকাবাসীরা আরও জানায়, আকবর বখস নামে এলাকার এক প্রভাবশালী ব্যক্তির মধ্যস্থতায় সমঝোতা সালিস বৈঠক বসে। বৈঠকে আজিজ, আনিস, খলিলসহ অন্তত ১০ জন স্থানীয় মাতব্বর উপস্থিত ছিলেন।

তবে আকবর বখসসহ অন্যান্যরা সালিস বৈঠকে উপস্থিত থাকার বিষয়টি সাংবাদিকদের কাছে অস্বীকার করেছেন। তারা বলেন, তারা শিশু ধর্ষণচেষ্টার ঘটনা শুনেছেন। কিন্তু সমঝোতা সালিস সম্পর্কে কিছুই জানেন না।

নলছিটি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আতাউর রহমান বলেন, শিশু ধর্ষণচেষ্টার ঘটনাটি সালিসির মাধ্যমে আর্থিক জরিমানা ও জুতাপেটায় নিষ্পত্তি করার খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। তবে এ ঘটনায় এখন পর্যন্ত শিশুর পরিবারের পক্ষ থেকে থানায় কেউ অভিযোগ করেনি।

 news24bd.tv/ কামরুল