আফিফকে বল ছুড়ে মারায় শাস্তি পেলেন শাহিন আফ্রিদি

অনলাইন ডেস্ক


আফিফকে বল ছুড়ে মারায় শাস্তি পেলেন শাহিন আফ্রিদি

আফিফের দিকে বল ছুঁড়ে মারেন শাহিন আফ্রিদি

বাংলাদেশ-পাকিস্তান দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টিতে টাইগার ব্যাটসম্যান আফিফ হোসেনের দিকে বল ছুঁড়ে মারায় পাকিস্তানের পেসার শাহীন শাহ আফ্রিদিকে জরিমানা করা হয়েছে। ইন্টারন্যাশনাল ক্রিকেট কাউন্সিল (আইসিসি)-এর লেভেল ১-এর কোড অব কন্ডাক্ট ভাঙেন শাহিন। কোড অব কন্ডাক্টের অনুচ্ছেদ নম্বর ২.৯ ভঙ্গ করেন তিনি।

পাকিস্তানি পেসারকে ম্যাচ ফির ১৫ শতাংশ জরিমানার সঙ্গে আনুষ্ঠানিক ভর্ৎসনার পাশাপাশি ১ ডিমেরিট পয়েন্ট পেয়েছেন আফ্রিদি।

বিশ্ব ক্রিকেটের সর্বোচ্চ এই নিয়ন্ত্রক সংস্থা রোববার (২১ নভেম্বর) এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানিয়েছে।

ফিল্ড আম্পায়ার গাজী সোহেল, সোহেল তানভীর এবং থার্ড আম্পায়ার মাসুদুর রহমান মুকুল আর চতুর্থ আম্পায়ার শরফদ্দৌলা ইবনে সৈকত অভিযোগ গঠন করেন। পরে আফ্রিদি তার অপরাধ স্বীকার করায় শুনানির প্রয়োজন পড়েনি।

সিরিজের দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টি ম্যাচ। নিজের দ্বিতীয় ওভারে আফিফের কাছে ছ্ক্কা খেয়ে মেজাজ হারান শাহিন আফ্রিদি।

আরও পড়ুন:


জাতীয় জাদুঘর প্রাঙ্গণ থেকে বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য সরিয়ে নিতে চিঠি

এবার অন্যরকম পুরস্কার পেলেন জয়া

ইঁদুর মারার ফাঁদে প্রাণ গেল কৃষকের


তৃতীয় ওভারে তার লেগ স্টাম্পে থাকা একটি ডেলিভারিকে ফ্লিক শটে সীমানার বাইরে পাঠান আফিফ। পরের বলটি আফিফ সমীহ করে ছেড়ে দেন। আফিফের ডিফেন্সে বল ব্যাটে লেগে বোলার শাহিনের কাছেই ফিরে যায়। সেই বল কুঁড়িয়েই ক্রিজে থাকা আফিফের  দিকে সজোরে ছুঁড়ে মারেন আফ্রিদি।

শাহিনের সেই থ্রো গিয়ে লাগে আফিফের পায়ের পেছন দিকে। ব্যথায় তখনই ক্রিজে পড়ে যান আফিফ। 

news24bd.tv নাজিম

পরবর্তী খবর

দ্বিতীয় দিনে ব্যাটিংয়েও দাপট দেখাচ্ছে পাকিস্তান

অনলাইন ডেস্ক

দ্বিতীয় দিনে ব্যাটিংয়েও দাপট দেখাচ্ছে পাকিস্তান

পাকিস্তানের নিখুঁত শুরু

চট্টগ্রাম টেস্টে আজ চলছে দ্বিতীয় দিনের খেলা। শুক্রবার (২৬ নভেম্বর) প্রথম সেশনটা বাদ দিলে প্রথম দিনটা স্বপ্নের মতো কাটায় বাংলাদেশ দল। কিন্তু শনিবার টাইগারদের টেনে মাটিতে নামায় 
পাকিস্তানী পেসার হাসান আলী।

তার বোলিং তোপে পড়ে ৩৩০ রানেই গুটিয়ে যায় বাংলাদেশ। পাঁচ উইকেট নেন তিনি। দিনের শুরু থেকে পাকিস্তান খেলে চলেছে বেশ দাপটের সঙ্গেই।

আরও পড়ুন:


দ. আফ্রিকার করোনার নতুন ধরন খুবই ভয়ঙ্কর : স্বাস্থ্যমন্ত্রী

একই ইউপিতে বাবা-ছেলে ও আপন দুই ভাই চেয়ারম্যান প্রার্থী!

বেগম জিয়ার জন্য আলাদা আইন করার সুযোগ নেই: হানিফ


বোলিংয়ের পর এবার ব্যাটিংয়েও দাপট দেখাচ্ছে সফরকারীরা। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত কোনো উইকেট না হারিয়ে ১১২ রান তুলেছে তারা।  আবিদ আলি  ৭৩ ও  আবদুল্লাহ শফিক৩৯ রানে ব্যাট করছেন।

news24bd.tv নাজিম

পরবর্তী খবর

মুশফিকের আউট নিয়ে সমালোচনা (ভিডিও)

অনলাইন ডেস্ক

মুশফিকের আউট নিয়ে সমালোচনা (ভিডিও)

মুশফিকের আউট নিয়ে সমালোচনা

টেস্ট ক্যারিয়ারে এখন পর্যন্ত চারবার নব্বইয়ের ঘরে আউট হয়েছেন মুশফিকুর রহিম। এর মধ্যে তিনবারই চট্টগ্রামের এই স্টেডিয়ামে। ৪র্থবারেরটি হলো আজ। ফাহিম আশরাফের রাইজিং ইনসুইঙ্গার ডিফেন্ড করতে গিয়ে পরাস্ত হন মুশফিক। 

ব্যাট অতিক্রম করে বল রিজওয়ানের গ্লাভসে পৌঁছলে কট বিহাইন্ডের আপিল করেন ফিল্ডাররা। 

মুশফিকের ব্যাটিংয়ে সময়, একটা শব্দও শোনা যায়। আম্পায়ার আউট দিয়ে দেন। কিন্তু আউটের সিদ্ধান্ত প্রথমে মুশফিক মেনে নেননি। রিভিউ নেন। আর রিভিউয়ে হেরে বিদায় নেন ৯১ রানে।

মুশফিকের এই আউট নিয়ে ইতোমধ্যে সমালোচনা শুরু হয়েছে ক্রিকেট মহলে। অনেকে দাবি, আউট হননি মিস্টর ডিপেন্ডেবল।

যদিও রিভিউয়ে আলট্রাএজে টাচের স্পাইক স্পষ্ট। প্রশ্ন উঠেছে, এই স্পাইক কি ব্যাট-বল নাকি ব্যাট-প্যাডের টাচের কারণে হয়েছে?

আলট্রাএজে দেখা গেছে মুশফিকের ব্যাট প্রথমে প্যাডে লাগে। বলটি ব্যাট অতিক্রমের মুহূর্ত আগেই আল্ট্রাএজে দেখা যাচ্ছিল টাচের স্পাইক। এরপর ব্যাটের সঙ্গে বলের দূরত্ব যখন আরও বেড়ে যায় তখন  আল্ট্রাএজে স্পাইক আরো বেশি দেখায়।

আরও পড়ুন:


আবারও আইসিইউতে রওশন এরশাদ

ছেলেকে হত্যা করে সেফটিক ট্যাঙ্কে লুকিয়ে রাখা বাবা-মা আটক


এতে অনেকেই সন্দেহ করছেন, আল্ট্রাএজে এসব স্পাইক ব্যাটে-বলে সংযোগের নয়, ব্যাট-প্যাডের।

অর্থাৎ ব্যাটে বল লাগেনি এমনটাই দাবি তাদের। মাঠে মুশফিকের চেহারার অভিব্যক্তিও তাই বলছিল। তিনিও মনে করেছিলেন প্যাডে ব্যাট লাগার কারণে শব্দটা হয়েছে। যে কারণে রিভিউ নিয়েছিলেন তিনি।

ভিডিওতে দেখা যায়, ওই আউটের বিরুদ্ধে সঙ্গে সঙ্গে রিভিউ নেন মুশফিক। এরপর অপরপ্রান্তে থাকা মিরাজের সঙ্গে হাতও মেলান। কারণ, মুশফিক শতভাগ নিশ্চিত যে, তিনি আউট হননি। কিন্তু অবাক করা বিষয় রিভিউ আবেদনের পর আলট্রাসাইউন্ডে দেখা যায়, মুশফিকের ব্যাটে বল আসার আগেই আলট্রাসাউন্ডে স্পাইক সংকেত দেখায়!
কিন্তু আম্পায়ার এসব বিষয় এড়িয়ে গিয়ে মুশফিকের আউটই বহাল রাখেন আম্পায়ার। দুর্ভাগ্যজনকভাবে সেঞ্চুরির কাছাকাছি গিয়েও সাজঘরে ফেরেন দেশসেরা ব্যাটসম্যান মুশফিকুর রহমান। 

ভিডিওতে আউটটি দেখুন -

news24bd.tv/ কামরুল 

পরবর্তী খবর

স্বপ্ন দেখিয়ে অল্পতেই গুটিয়ে গেল টাইগাররা

অনলাইন ডেস্ক

স্বপ্ন দেখিয়ে অল্পতেই গুটিয়ে গেল টাইগাররা

দিনের শুরুতেই আউট হন লিটন দাস

প্রথম দিন স্বপ্ন দেখিয়ে পরদিন সকালেই স্বপ্নভঙ্গ হলো বাংলাদেশ দলের। চট্টগ্রাম টেস্টের প্রথম দিন সকালে ব্যর্থ শুরুর পর হাল ধরেন মুশফিক-লিটন। তাদের দৃঢ়তায় আর কোন উইকেট না হারিয়েই স্কোরবোর্ডে ২৫৩ রান তুলে দিন শেষ করে বাংলাদেশ।

স্বাভাবিকভাবেই দলের আশা ছিল ৪৫০-৫০০ রান করার। কিন্তু পরদিন সকালেই বাংলাদেশ দলের সকল পরিকল্পনা ভেস্তে দিয়ে মাত্র ৩৩০ রানে গুটিয়ে দিল পাকিস্তান।

চট্টগ্রামে প্রথম দিনে শুরুর ঘণ্টায় ৪ উইকেট হারিয়ে বসে টাইগাররা। দ্বিতীয় দিনে  মেহেদী হাসান মিরাজকে বাদ দিলে সেট দুই ব্যাটসম্যানের সঙ্গে সুবিধা করতে পারেননি বাকিরা। বাকি ৬ উইকেট হারিয়ে আগের রানের সঙ্গে মাত্র ৭৭ রান যোগ করতে পারে টাইগাররা।

আজ ৪ উইকেট নিয়ে বাংলাদেশ দলকে একাই ধসিয়ে দিয়েছেন হাসান আলী। আগেরদিন একটি উইকেট পেয়েছিলেন তিনি। 

অভিষেক সেঞ্চুরি পাওয়া লিটন দাস ১১৩ ও সেঞ্চুরির পথে হাঁটা মুশফিকুর রহিম ৮২ রান নিয়ে দ্বিতীয় দিনের খেলা শুরু করেন। দিনের দ্বিতীয় ওভারেই সাজঘরে লিটন। হাসান আলীর বলে লেগবিফোরের ফাঁদে পড়ে ফেরেন তিনি। এদিন খেলেন আর মাত্র ৮ বল। ১ রান যোগ করে ১১৪ রানে আউট হন।

দীর্ঘ প্রতিপক্ষার পর অভিষেক ক্যাপ পাওয়া ইয়াসির আলী রাব্বিও আউট হলেন মাত্র ৪ রান করেই। অভিষেক হওয়া রাব্বি ৪ রানে আউট হওয়ার পর দৃষ্টি ছিল মুশফিকের দিকে। তবে আগের দিনের দাপট দেখাতে পারেননি মুশফিক। অভিজ্ঞ এই ব্যাটসম্যান থামলেন নড়বড়ে নব্বইয়ে। 

৮২ রান নিয়ে দিন শুরু করা মুশফিক ৯১ রানে আউট হলে দলের হাল ধরেন মেহেদী হাসান মিরাজ ও তাইজুল ইসলাম। ২৭৬ রানে ৭ উইকেট হারানো বাংলাদেশ দলের সংগ্রহ ৩০০ ছোঁয় তাদের ২৮ রানের জুটির কল্যাণে। তাইজুল ১১ রান করে শাহিন শাহ আফ্রিদির বলে থামে এই জুটি।

একটু সাবলীলভাবে খেলতে দেখা যায় মিরাজকেই। ৬৮ বল খেলে ৬টি বাউন্ডারি মারেন তিনি। মিরাজ ৩৮ রান করে আউট হলে বাংলাদেশ দল গুটিয়ে যায় মাত্র ৩৩০ রানেই।

আরও পড়ুন:

খোলামেলা দৃশ্যে জোর করে অভিনয় করানো হয়েছিল উরফিকে


news24bd.tv/ নকিব

পরবর্তী খবর

বাদ পড়া সেই মুশফিক-লিটনের ব্যাটেই স্বপ্ন

অনলাইন ডেস্ক

বাদ পড়া সেই মুশফিক-লিটনের ব্যাটেই স্বপ্ন

চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে পাকিস্তানের বিপক্ষে সিরিজের প্রথম টেস্টের প্রথম দিন শেষে বেশ ভালো অবস্থানে আছে বাংলাদেশ। ৪ উইকেট হারিয়ে স্কোরকার্ডে ২৫৩ রান তুলে প্রথম দিন শেষ করেছে তারা।

মুশফিকুর রহিম ও লিটন দাসের সামর্থ্য এবং যোগ্যতা নিয়ে কোনো প্রশ্ন নেই। টেকনিক্যালি দুজনেই দুর্দান্ত ব্যাটসম্যান। বিপর্যয়ে হাল ধরার অনেক নজির আছে দুজনের। টেস্ট সিরিজে আস্থা রাখেন দুজনের ওপর। তার প্রতিদানও দেন লিটন ও মুশফিক। খাঁদের কিনারায় থাকা দলকে দুজনে রেকর্ড জুটি গড়ে নিয়ে যান শক্ত অবস্থানে। পঞ্চম উইকেট জুটিতে দুজনের অবিচ্ছিন্ন ২০৪ রানের জুটিতে চট্টগ্রাম টেস্টের প্রথম দিন ৪ উইকেটে ২৫৩ রান করেছে বাংলাদেশ। জুটি গড়ার পথে নান্দনিক ব্যাটিংয়ে ১১৩ রানের হার না মানা ইনিংস খেলেন লিটন। যা তার ২৬ টেস্ট ক্যারিয়ারে প্রথম সেঞ্চুরি। দেশের সবচেয়ে সিনিয়র ও অভিজ্ঞ ক্রিকেটার মুশফিক অপরাজিত রয়েছেন ৮২ রানে।

জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামের উইকেট ব্যাটিংয়ের জন্য সহায়ক ছিল। সেটি দেখেই টস জিতে ব্যাটিং নিতে ভুল করেননি বাংলাদেশ অধিনায়ক মুমিনুল হক। কিন্তু অধিনায়কের সিদ্ধান্তকে আরও একবার সঠিক প্রমাণ করতে ব্যর্থ বাংলাদেশের টপ অর্ডার। স্কোরবোর্ডে ৪৯ রান উঠতেই সাজঘরে ফিরে যান সাইফ হাসান, সাদমান ইসলাম, মুমিনুল হক ও নাজমুল হোসেন শান্ত। 

সকালেই দ্রুত উইকেট হারিয়ে বাংলাদেশ দল যখন সর্ষে ফুল দেখছিল, তখনেই দৃশ্যপটে মুশফিক আর লিটন। দুজনে প্রথমে দেখেশুনে খেলতে থাকেন পাকিস্তানের বোলারদের। তবে একই সঙ্গে বাজে বল হলেই চুকিয়ে দিয়েছেন মূল্য। ঠান্ডা মাথায় এর মধ্যে দুজনে শেষ করেছেন প্রথম দিন।

আরও পড়ুন: 


ফখরুল বললেন, আন্দোলন-আন্দোলন-আন্দোলন

ধর্ষণ মামলায় জামিন: ক্ষমা চাইলেন বিচারক


 

২০১৯ সালে হ্যামিল্টনে সৌম্য সরকার-মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ করেছিলেন ২৩৫ রান। লিটন ১১৩ রানের অপরাজিত ইনিংসটি খেলেন ২২৫ বলে ১১ চার ও ১ ছক্কায়। ২৬ টেস্টে এটা তার প্রথম সেঞ্চুরি। দৃষ্টিনন্দন সেঞ্চুরির ইনিংসটি কিন্তু নিশ্চিদ্র ছিল না। ব্যক্তি ৬৭ রানের মাথায় সহজ জীবন পান লিটন। শাহীন আফ্রিদিকে পুল খেলেন লিটন। ডিপ মিড উইকেটে সাজিদ ফেলে দেন সহজ ক্যাচ। দলের স্কোর তখন ৬৫ ওভারে ৪ উইকেটে ১৮৯ রান। ২৬ নম্বর টেস্টে লিটন প্রথম সেঞ্চুরি পান।

এর আগে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ৯৪ ও জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ৯৫ রানে আউটের রেকর্ড রয়েছে তার। মুশফিক অপরাজিত রয়েছেন ৮২ রানে। ১৯০ বলের ইনিংসটিতে রয়েছে ১০টি চার। ৭৬ টেস্ট ক্যারিয়ারে সাবেক অধিনায়কের এটা ২৪ নম্বর হাফসেঞ্চুরি। তার রান ৪৭৭৮। টেস্টে তামিম ইকবালকে টপকে বাংলাদেশের সর্বাধিক রানের মালিক হতে মুশফিকের চাই আর মাত্র ১১ রান। বাঁ-হাতি ওপেনার তামিমের রান ৪৭৮৮। তবে জহুর আহমেদ স্টেডিয়ামে তিনি এখন সর্বধিক রানের মালিক। ৮২ রানের ইনিংস খেলার পথে তিনি পেছনে ফেলেন টাইগার টেস্ট অধিনায়ক মুমিনুলকে। ১৮ টেস্টে মুশফিকের রান ১২৭৬ এবং মুমিনুলের রান ১১ টেস্টে ১২০৩ রান।

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর

লিটন-মুশফিকের ব্যাটে ঘুরে দাঁড়িয়েছে টাইগাররা

অনলাইন ডেস্ক

লিটন-মুশফিকের ব্যাটে ঘুরে দাঁড়িয়েছে টাইগাররা

লিটন দাস

পাকিস্তানের বিপক্ষে শুরুতে চার উইকেট হারিয়ে প্রথমে চাপের পড়ে টাইগাররা। সেখান থেকে ঘুরে দাঁড়ায় লিটন-মুশফিকের ব্যাটে। লিটন তুলেন নেন সেঞ্চুরি। ১৯৯ বলে ১০ চার ও এক ছক্কায় শত রান করেন তিনি।

প্রথম দিন শেষে লিটন-মুশফিকের ব্যাটে ভর করে বড় সংগ্রাহের পথে টাইগাররা। লিটনের ১১৩ সঙ্গে মুশফিক ব্যাট করছেন ৮২রানে। প্রথম দিনে বাংলাদেশের স্কোর ২৫৩।  

চট্টগ্রাম টেস্টে টস জিতে ব্যাটিং করতে নেমে দলীয় ১৯ রানের মাথায় ১৪ রান করে ফিরে যান ওপেনার সাইফ হাসান। শাহীন আফ্রিদির একটি বাউন্স ঠেকাতে গিয়ে পাশেই দাঁড়িয়ে থাকা ফিল্ডার আবিদ আলির হাতে সহজ ক্যাচ তুলে দেন তিনি। 

আরও পড়ুন


ভাইরাল ছবি হাছান মাহমুদের নয়!


অপর ওপেনার সাদমান ইসলামও বেশিক্ষণ টিকতে পারেননি। ৩৩ রানের সময় তিনিও মাত্র ১৪ রান করে আউট হয়ে যান। হাসান আলির দুর্দান্ত এক ডেলিভারিতে এলবিডব্লিউর ফাঁদে পড়েন এই ব্যাটার।

এরপর ক্রিজে আসেন অধিনায়ক মুমিনুল হক। মাত্র ৬ রান করেছেন তিনি। স্পিনার সাজিদ খানের বলে উইকেটকিপার মোহাম্মদ রিজওয়ানের হাতে ক্যাচ তুলে দেন ক্যাপ্টেন। 

এরপর দলের রানের খাতায় ২ রান যোগ করতেই দল হারায় আরো একটি উইকেট। এবার ফাহিম আশরাফের শিকার ওয়ানডাউনে নামা নাজমুল শান্ত। তিনি সাজিদ খানের হাতে ক্যাচ তুলে দেন। এই তরুণও ১৪ রান করেন। 

ফলে ৪৯ রানেই চার উইকেট হারায় টাইগাররা।

বাংলাদেশ দল: 

সাদমান ইসলাম, সাইফ হাসান, নাজমুল হোসেন শান্ত, মুমিনুল হক (অধিনায়ক), মুশফিকুর রহিম, লিটন দাস (উইকেটকিপার), ইয়াসির আলী, মেহেদী হাসান মিরাজ, তাইজুল ইসলাম, আবু জায়েদ রাহী, ইবাদত হোসেন।

পাকিস্তান দল: 

আব্দুল্লাহ শফিক, আবিদ আলী, আজহার আলী, বাবর আজম (অধিনায়ক), ফাওয়াদ আলম, মোহাম্মদ রিজওয়ান (উইকেটকিপার), ফাহিম আশরাফ, নওমান আলী, হাসান আলী, শাহীন শাহ আফ্রিদি, সাজিদ খান।

news24bd.tv/ কামরুল 

পরবর্তী খবর