ইরানের ওপর নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারই পরমাণু আলোচনার মূল লক্ষ্য
ইরানের ওপর নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারই পরমাণু আলোচনার মূল লক্ষ্য

ইরানের ওপর নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারই পরমাণু আলোচনার মূল লক্ষ্য

অনলাইন ডেস্ক

ইরানের ওপর আরোপিত নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারই পরমাণু আলোচনার প্রধান লক্ষ্য বলে জানিয়েছে তেহরান। পাশাপাশি পরমাণু সমঝোতার বাইরে কোন শর্ত তেহরান মানবে না বলেও সতর্ক করেছে ইরানি পররাষ্ট্রমন্ত্রী। এসব ঘটনায় সোমবার শুরু হওয়া আলোচনায় এখনি কোন সিদ্ধান্তে আসা যাচ্ছে না। ফলে পরমাণু চুক্তি ঠেকাতে পাঁচ মাস পর ভিয়েনায় ফের আলোচনা শুরু করার আশাবাদী ইরান।

২০১৫ সালে ইরানের সঙ্গে করা পারমাণবিক চুক্তি থেকে ২০১৮ সালে যুক্তরাষ্ট্রকে সরিয়ে নিয়ে আসেন তৎকালীন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প।   তারওপর ইরানের বিরুদ্ধে দিতে থাকেন একের পর এক নিষেধাজ্ঞা।
 
তবে জো বাইডেন ক্ষমতায় আসার পর থেকে সেই চুক্তি পুনরুদ্ধারের চেষ্টা চলছে ৷ তবে যুক্তরাষ্ট্র সরাসরি ভিয়েনা আলোচনায় অংশ নিতে পারছে না। তবে যুক্তরাষ্ট্র কিভাবে পরমাণু সমঝোতায় ফিরতে পারে, ভিয়েনা আলোচনায় সেটাই হচ্ছে অন্যতম প্রধান এজেন্ডা।
 
তবে আলোচনায় তেহরানের ওপর নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিচ্ছে। এই যুক্তরাষ্ট্রের ফের অর্ন্তভূক্তির বিষয়ে ওয়াশিংটনের বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ তুলছেন ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী আমির আব্দুল্লাহিয়ান।

পরমাণু সমঝোতার এই চরম অচলাবস্থার জন্য সেই দেশটি দায়ী, তারাই  আন্তর্জাতিক আইন লঙ্ঘন করে একতরফাভাবে সমঝোতা থেকে বেরিয়ে গেছে। এমনকি  ইরানের ওপর কঠোর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে। এবার সবার আগে ইরানের ওপর থেকে নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের উপায় নিয়ে আলোচনা করতে হবে।

তবে পশ্চিমা কূটনীতিকরা বলছেন ইরানের দাবিকে অবাস্তব বলেই মনে করছেন যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপীয় কূটনীতিকরা ৷ তারা বলছেন, ইরানের ওপর মার্কিন নিষেধাজ্ঞা পুনর্বহাল করার পর থেকে ইরান চুক্তির গুরুত্বপূর্ণ প্রতিশ্রুতি লঙ্ঘন করে আসছে।

পরমাণু ইস্যুতে ভিয়েনা সংলাপকে বেশ ইতিবাচক বলছেন ইউরোপীয় ইউনিয়নের প্রতিনিধিরা। জানান, তারা আন্তরিকভাবেই পরমাণু সমঝোতাকে আবারও কার্যকর করতে আগ্রহী।

এ অবস্থায়  তেহরানের প্রস্তাব মেনেই এই সমঝোতাকে আবার কার্যকর করতে আগামী পাঁচ মাস পর অস্ট্রিয়ার  ভিয়েনায় আবার  আলোচনা শুরু করতে আশাবাদী ইরানের প্রতিনিধি দল।

মঙ্গলবার নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের উপায় নিয়ে বিশেষজ্ঞ পর্যায়ের আলোচনা অনুষ্ঠিত হবে।

তেহরানের ওপর আরোপ করা নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার এবারের পরমাণু আলোচনার প্রধান লক্ষ্য ও চুক্তির বাইরে কোনো বিষয়ই মানা হবে না বলে মন্তব্য করেছেন ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী আমির আব্দুল্লাহিয়ান। ভিয়েনা আলোচনায় কোনো পক্ষ যদি এমন কোনো অনুরোধ জানায় যা পরমাণু সমঝোতায় নেই তাহলে ইরান তা মেনে নেবে না বলেও জানান তিনি।

সোমবার  ভিয়েনায় ইরান ও পাঁচ জাতিগোষ্ঠী নতুন করে পরমাণু সমঝোতা পুনর্বহালের লক্ষ্যে আলোচনা শুরু করেছে। পাঁচ জাতিগোষ্ঠীর পক্ষে অংশ নিচ্ছে চীন, রাশিয়া, ব্রিটেন, ফ্রান্স এবং জার্মানি।

২০১৮ সালে যুক্তরাষ্ট্র এই সমঝোতা থেকে বেরিয়ে যাওয়ার কারণে তারা এখন আর কোনো পক্ষ নয়। সে কারণে ওয়াশিংটন সরাসরি ভিয়েনা আলোচনায় অংশ নিতে পারছে না। তবে যুক্তরাষ্ট্র কিভাবে পরমাণু সমঝোতায় ফিরতে পারে, ভিয়েনা আলোচনায় সেটাই হবে অন্যতম প্রধান এজেন্ডা।

ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী আমির আব্দুল্লাহিয়ান তার এক নিবন্ধে বলেন, এ পর্যন্ত ছয় দফা আলোচনা হলেও যুক্তরাষ্ট্রে বাড়তি দাবি ও অবাস্তব অবস্থানের কারণে তা সফল হতে পারেনি।

আরও পড়ুন:

পৃথিবীর নতুন প্রজাতন্ত্র হিসেবে পরিচিতি পেলো বার্বাডোজ

তানজানিয়ায় বিষাক্ত কচ্ছপের মাংস খেয়ে ৭ জনের মৃত্যু

হাফ ভাড়া কার্যকর করতে মালিক সমিতির শর্তসমূহ

পরমাণু সমঝোতা থেকে যুক্তরাষ্ট্রের বেরিয়ে যাওয়ার বিষয়টি উল্লেখ করে তিনি বলেন, আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় যুক্তরাষ্ট্রের এই বেআইনি আচরণের ব্যাপারে একমত যে, সামগ্রিকভাবে এটি আন্তর্জাতিক আইনের অবমাননা।

বর্তমান মার্কিন প্রশাসনের সমালোচনা করে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের প্রচারাভিযানের সময় জো বাইডেন সাবেক প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের ইরানবিরোধী নীতি অনুসরণ করবেন না বলে বারবার প্রতিশ্রুতি দেওয়ার পরও তিনি পরমাণু সমঝোতায় ফিরতে পারেননি।

 news24bd.tv/এমি-জান্নাত