চীনের প্রভাবকে চ্যালেঞ্জ করতে ৩০০ বিলিয়ন ইউরো বিনিয়োগ করবে ইইউ
চীনের প্রভাবকে চ্যালেঞ্জ করতে ৩০০ বিলিয়ন ইউরো বিনিয়োগ করবে ইইউ

চীনের নির্মিত অবকাঠামো

চীনের প্রভাবকে চ্যালেঞ্জ করতে ৩০০ বিলিয়ন ইউরো বিনিয়োগ করবে ইইউ

অনলাইন ডেস্ক

চীনের বেল্ট অ্যান্ড রোড কৌশলকে চ্যালেঞ্জ জানাতে ৩০০ বিলিয়ন ইউরো (৩৪০ বিলিয়ন ইউএস ডলার) বৈশ্বিক বিনিয়োগের পরিকল্পনা করেছে ইউরোপীয় ইউনিয়ন। খবর বিবিসির।

ইউরোপীয় কমিশনের প্রেসিডেন্ট উরসুলা ভন ডার লেইন বলেন, গ্লোবাল গেটওয়ে স্কিম একটি বিশ্বস্ত ব্র্যান্ড হওয়া উচিত।

চীনের বিরুদ্ধে বেশ কিছু দেশে রেল, সড়ক ও বন্দরের অর্থায়নের পর তাদেরকে ঋণের জালে বেঁধে ফেলার অভিযোগ রয়েছে।

 

কমিশন প্রধান বলেন, টেকসই প্রকল্পগুলোর পরিকল্পনার জন্য দেশগুলোর 'বিশ্বস্ত অংশীদার' প্রয়োজন।  

এই লক্ষ্যে ইউরোপীয় ইউনিয়ন তাদের সদস্য রাষ্ট্র, আর্থিক প্রতিষ্ঠান এবং বেসরকারী খাত থেকে প্রাপ্ত বিলিয়ন ইউরো থেকে কীভাবে লাভ করতে পারে তা হিসেব করে দেখছে। এটি অর্থ মূলত অনুদানের পরিবর্তে ঋণে রূপ নেবে।

মিসেস ভন ডার লেইন বলেন, ইউরোপীয় ইউনিয়ন দেখাতে চায় একটি ভিন্ন ও গণতান্ত্রিক পদ্ধতির মাধ্যমেও বিশ্বব্যাপী স্বাস্থ্য সুরক্ষা এবং উন্নয়নশীল দেশগুলোর জন্য টেকসই উন্নয়ন করা সম্ভব।

তিনি আরও ব্যাখ্যা করেন, প্রকল্পগুলো অবশ্যই উচ্চ মানের হতে হবে এবং কাজের স্বচ্ছতা থাকতে হবে। একই সঙ্গে জড়িত দেশগুলোর জন্য যেন তা বাস্তব ফলাফল বয়ে নিয়ে আসে সেদিকেও লক্ষ্য রাখতে হবে।

ইউরোপীয় ইউনিয়নের এক কর্মকর্তার বরাত দিয়ে সংবাদমাধ্যম বিবিসি জানায়, আফ্রিকার দেশগুলো এই প্রকল্পের প্রধান ফোকাস হবে।

অন্যদিকে চীনের এই কৌশল শুধু আফ্রিকা, এশিয়া, ইন্দো-প্যাসিফিক অঞ্চলের পাশাপাশি ইউরোপীয় ইউনিয়ন পর্যন্ত বিস্তৃতি লাভ করেছে। চীনের কসকো কোম্পানি গ্রীসে একটি বড় বিনিয়োগ করেছে। তারা দেশটির পাইরিয়ুস বন্দরের দুই-তৃতীয়াংশের অংশীদার। এছাড়া ক্রোয়েশিয়ায় একটি বড় ব্রীজ নির্মাণ করেছে চায়না রোড অ্যান্ড ব্রিজ কর্পোরেশন।

গত মাসে ইউরোপীয় ইউনিয়নের এক ব্রিফিংয়ে চীনের রাষ্ট্রদূত ঝাং মিং গ্লোবাল বলেন, উন্মুক্ত থাকা সাপেক্ষে চীন ইউরোপীয় ইউনিয়নের গেটওয়ে কৌশলকে স্বাগত জানায়। তবে তিনি অবকাঠামো প্রকল্পগুলোকে ভূ-রাজনৈতিক হাতিয়ারে পরিণত করার বিষয়ে সতর্ক করেন।

উল্লেখ্য, চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং ২০১৩ সালে ‘বেল্ট অ্যান্ড রোড ইনিশিয়েটিভ’ চালু করেন। এর মাধ্যমে বিশ্বের স্বল্প ও মধ্যম আয়ের দেশগুলোতে অর্থনৈতিক ও রাজনৈতিক প্রভাব বিস্তার করতে থাকে চীন। বিশ্বের ১০০টির বেশি দেশ চীনের বেল্ট অ্যান্ড রোড ইনিশিয়েটিভে সহায়তা করতে চুক্তিবদ্ধ হয়।

আরও পড়ুন:

এবার আলেশা মার্টের কার্যক্রম বন্ধ ঘোষণা


news24bd.tv/ নকিব

;