কক্ষ থেকে নারী-পুরুষের লাশ উদ্ধার: রহস্য উদঘাটন
কক্ষ থেকে নারী-পুরুষের লাশ উদ্ধার: রহস্য উদঘাটন

প্রতীকী ছবি

কক্ষ থেকে নারী-পুরুষের লাশ উদ্ধার: রহস্য উদঘাটন

অনলাইন ডেস্ক

গত বুধবার একটি কমিউনিটি সেন্টারের কক্ষ থেকে এক নারী ও পুরুষের লাশ উদ্ধার করা হয়। সিলেটের কানাইঘাট উপজেলার দক্ষিণ বাণীগ্রাম ইউনিয়নের গাছবাড়ী এলাকার আনন্দ কমিউনিটি সেন্টারে ওই নারী-পুরুষ বাবুর্চির কাজ করতো বলে জানা গেছে।

এদিকে কমিউনিটি সেন্টার থেকে এই দুই জনের লাশ উদ্ধারের পর এলাকায় চাঞ্চল্য সৃষ্টি হয়েছে। জন্ম দিয়েছে নানা জল্পনা-কল্পনার।

তবে এ ব্যপারে পুলিশের বক্তব্য স্পষ্ট। তাদের দাবি, কমিউনিটি সেন্টারের রান্না ঘরের কক্ষ ছিল খুবই ছোট। আর যে কারণে ছোট বদ্ধ কক্ষে প্রচুর ধোয়ায় অক্সিজেনের অভাবে দুজনের মর্মান্তিক মৃত্যু ঘটেছে।

নিহতরা হলেন- কানাইঘাট উপজেলার নয়াগ্রামের মৃত রহমত উল্লাহ’র ছেলে সুহেল আহমদ (২৮) ও ওসমানীনগর উপজেলার তাহিরপুর গ্রামের মৃত আক্কাছ আলীর মেয়ে সালমা বেগম (৪০) এবং অসুস্থ বাবুর্চি হলেন কানাইঘাট উপজেলার ব্রাহ্মণগ্রামের নাজিম উদ্দিন।

এ বিষয়ে গণমাধ্যমকে কানাইঘাট সার্কেলের এএসপি আব্দুল করিম বলেন, আমরা বিভিন্নভাবে বিষয়টি খতিয়ে দেখেছি। আলামত এবং অসুস্থ তৃতীয় বাবুর্চির বক্তব্যের ভিত্তিতে প্রাথমিকভাবে এটাই নিশ্চিত হওয়া গেছে- বদ্ধ ঘরে তারা শীত নিবারণের জন্য কয়েল লাকড়িতে আগুন ধরিয়ে ঘুমিয়ে পড়ে। ওই ঘরে কোনো ভ্যান্টিলেটর ছিলো না। দরজা-জানালা দুটিও বন্ধ ছিলো। সেই লাকড়ির আগুনের ধোয়ায় ঘর ভরে গিয়ে অক্সিজেনের অভাবেই তাদের মৃত্যু ঘটে।

বুধবার সকাল ৭টার দিকে আনন্দ কমিউনিটি সেন্টার থেকে ওই নারী ও পুরুষের লাশ উদ্ধার করা হয়। সেই সাথে গুরুতর অসুস্থ অবস্থায় আরও এক বাবুর্চিকে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

আরও পড়ুন


আজকের দিনে লাল-সবুজ পতাকা উড়িয়েছিল ঠাকুরগাঁওবাসী

news24bd.tv এসএম