কাউন্সিলর সোহেল হত্যা নিয়ে রহস্য, ভাড়াটে খুনিদের পেছনে কারা?
কাউন্সিলর সোহেল হত্যা নিয়ে রহস্য, ভাড়াটে খুনিদের পেছনে কারা?

ফাইল ছবি

কাউন্সিলর সোহেল হত্যা নিয়ে রহস্য, ভাড়াটে খুনিদের পেছনে কারা?

হুমায়ুন কবির জীবন, কুমিল্লা

কুমিল্লা সিটি করপোরেশনের ১৭ নম্বর ওয়ার্ডের দুই বারের নির্বাচিত কাউন্সিলর সৈয়দ মো. সোহেল ও তার সহযোগী হরিপদ সাহা হত্যাকাণ্ড নিয়ে অনেক প্রশ্নের উত্তর এখনও মেলেনি। কারা এ হত্যার নেপথ্যে ছিল, হত্যার রহস্যের জট এখনো খুলেনি।

পুলিশের পক্ষ থেকে শুধু এতটুকু দাবি করা হচ্ছে, মাদক ও পূর্বশত্রুতার জের ধরে সোহেলকে হত্যার পরিকল্পনা করে প্রধান আসামি শাহ আলম। তবে প্রশ্ন উঠেছে, হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত এতগুলো অস্ত্র ও অর্থ দিয়ে সহায়তা করেছে, তারা কারা?

গত ২২ নভেম্বর বিকেলে সন্ত্রাসীদের অতর্কিত গুলিতে নিহত হন কাউন্সিলর সৈয়দ সোহেল ও তার সহযোগী হরিপদ সাহা।

এ ছাড়া আরও চারজন গুলিবিদ্ধ হন। পরে সোহেল হত্যা মামলার প্রধান আসামি শাহ আলম এবং অন্য আসামি সাব্বির ও সাজন ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে 'বন্দুকযুদ্ধে' নিহত হয়।

মামলার বাদীসহ অনেকের অভিযোগ, যারা ইন্ধনদাতা, সুবিধাভোগী এবং শাহ আলম ও সোহেলের পেছনে রয়েছে, তাদের আড়ালে রাখা হচ্ছে। কারা এ হত্যার নেপথ্যে ছিল, হত্যার রহস্যের জট খুলে দ্রুত জনগণের সামনে প্রকাশ করতে হবে। যত বড় প্রভাবশালীই হোক তাদেরকে আইনের আওতায় আনতে হবে।

আর মামলার বাদী ও নিহত কাউন্সিলর সোহেলের ছোট ভাই সৈয়দ মো. রুমন বলেন, 'যারা মূল পরিকল্পনাকারী তারাই তো অর্থ ও অস্ত্র দিয়ে সহায়তা করেছে, তারা কারা? এদের নাম জানতে চাই। যারা ধরা পড়েছে তারা তো শুধু ভাড়াটে খুনি। ' এদের পেছনে কোনো প্রভাবশালী হাত থাকতে পারে।

কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশনের মেয়র মনিরুল হক সাক্কু বলেছেন, আমাদের সিটি কর্পোরেশনের প্যানেল মেয়র সৈয়দ মো. সোহেলকে কেন হত্যা করা হয়েছে কুমিল্লাবাসী জানতে চায়। এ মামলা তদন্তে সঠিক ঘটনা উঠে আসুক।

কুমিল্লার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার এম তানভীর আহমেদ বলছেন, দ্রুত সময়ের মধ্যে এজারহারভুক্ত ১১ আসামির ১০ জন গ্রেপ্তার হয়েছে। এজাহারের বাইরে দু'জনকে ধরা হয়। এই হত্যার সঙ্গে আর কারও সংশ্নিষ্টতা আছে কি না সেটা নিয়ে তদন্ত চলছে।  

আওয়ামী লীগ নেতা সৈয়দ মোঃ সোহেল ও তার সহযোগী হরিপদ সাহাকে প্রকাশ্যে নিজ কার্যালয়ে গুলি করে হত্যার ঘটনায় মামলার অন্যতম আসামি জেল সোহেল ও সায়মনকে ডিবি পুলিশ গ্রেপ্তার করার পর ১০ দিনের রিমান্ড আবেদন করা হয়েছে বলেও জানিয়েছে পুলিশ। এর আগে এজাহারনামীয় আরো ৪ আসামির ৫ দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করে আদালত।

আরও পড়ুন


চট্টগ্রামে ঝুটের গুদামে আগুন

news24bd.tv এসএম