আমার মনে হয় যথেষ্ট সহ্য করেছি
আমার মনে হয় যথেষ্ট সহ্য করেছি

ইমতিয়াজ মাহমুদ

আমার মনে হয় যথেষ্ট সহ্য করেছি

ইমতিয়াজ মাহমুদ

ফেসবুকের অনেক পেইজ [যাদের কারো কারো ফলোয়ার দুই লাখ থেকে ত্রিশ/চল্লিশ লাখ] আমার লেখা কবিতার লাইন, ম্যাক্সিম, কাপলেট, অনুবাদ দিনের পর দিন আমার নাম বাদ দিয়ে পোস্ট করছে। এক/দুইবার এদের বিরুদ্ধে নিন্দা জানালেও কোনো ফায়দা হয় নাই।  

. ফলে ঠিক করছি, আজকের পর এই পেইজগুলোর কেউ আমার কোনো লেখা বেনামী করলে তাদের বিরুদ্ধে মামলা করবো। মামলার সম্ভাব্য তারিখ মার্চের প্রথম সপ্তাহ।



. কবিতার কথা বাদ দিলাম এক লাইনের একটা ম্যাক্সিম লিখতে আমার যে পরিমাণ সময়/শ্রম যায় সেই সম্পর্কে কোনো ধারণা থাকলে আমার মনে হয় কেউ এই ফাতরামি করতো না।

. ম্যাক্সিমের বইটা (গন্দমফুল) বের করার আগে আমি অসংখ্য লেখক/কবি/অনুবাদক/অধ্যাপককে আমার পাণ্ডুিলিপির পুরোটা অথবা অংশবিশেষ পড়িয়েছি। তাঁদের মধ্যে মোহাম্মদ সাদিক, ফরিদ কবির, ফল্গু বসু, সুব্রত অগাস্টিন গোমেজ, জুয়েল মাজহার, টি এম আহমেদ কায়সার, দেব দুলাল মুন্না, মুহম্মদ মুহসিন, আহমেদ শামীম, আরজুমান আরা, মুসা আল হাফিজ, সাইফ সিরাজ, সাইয়েদ জামিল, শাফিনূর শাফিন কুশল ইশতিয়াক, রাসেল রায়হান, রুহুল মাহফুজ জয়, নাহিদ ধ্রুবসহ প্রায় ত্রিশ/চল্লিশজন লেখক ছিলেন। অর্থাৎ ম্যাক্সিমগুলোর পেছনে অনেক গুরুত্বপূর্ণ মানুষের সময়ও ব্যয় হয়েছে।

. আবার বইটার ইংরেজি অনুবাদ করানোর পর আমি প্রায় প্রত্যেকটা ম্যাক্সিম গুগলে সার্চ করেছি, এর অরিজিনালিটি নিশ্চিত হওয়ার জন্য। গুগলের পৃষ্ঠার পর পৃষ্ঠা....। যদিও এটা জানি যে এই বিষয়ে নিশ্চিত হওয়া আসলে কখনোই সম্ভব না। কেয়ামত পর্যন্ত যাচাই করলেও না। ফলে ঘোষণা দিয়ে রেখেছিলাম, আমার কোনো ম্যাক্সিম পৃথিবীর কোনো লেখকের কোনো লেখার সাথে কাকতলীয়ভাবে মিলে গেলে সেটা বইয়ের পরের এডিশনে বাদ দেবো। এবং বাদ দেয়ার বিষয়টা ফেসবুকে ঘোষণাসহ জানাবো। ফোরচুনেটলি মিলের কারণে এখন পর্যন্ত একটা ম্যাক্সিমও বাদ দিতে হয়নি।

আরও পড়ুন

বিদায় নিলেন অ্যাঙ্গেলা মার্কেল

চীনের কারাগারে বন্দি সিটিজেন সাংবাদিকের স্বাধীনতা পুরস্কার লাভ

প্রধানমন্ত্রীকে বরখাস্ত করলেন বুরকিনা ফাসোর রাষ্ট্রপতি

. এক লাইনের লেখা হলেও একেকটা লেখার পেছনে আমার কী পরিমাণ সময় এবং শ্রম যায় তার কিছু ধারণা দেয়ার জন্য এই পোস্টটা দেয়া।  নিকানোর  পররার লাইন ধার করে বলি, আমার কোনো লেখাই আমি ডিকশনারি খুলে শব্দ মিলিয়ে লিখি না ভাই, আমি আমার রক্ত দিয়ে লিখি...।

. তো সেই লেখাগুলো দিনের পর দিন কোনো কার্টেসি ছাড়া আপনাদের লাখ লাখ ফলোয়ারের পেইজ দিয়ে পোস্ট দিয়ে লেখাগুলোরে সন্দেহের মুখে ফেলে দেবেন তা আর কতদিন সহ্য করা যায়!

আমার মনে হয় যথেষ্ট সহ্য করেছি।

news24bd.tv/এমি-জান্নাত