কোন পাসপোর্টে এত দ্রুত কানাডায় গেলেন ডা. মুরাদ! 
কোন পাসপোর্টে এত দ্রুত কানাডায় গেলেন ডা. মুরাদ! 

সংগৃহীত ছবি

কোন পাসপোর্টে এত দ্রুত কানাডায় গেলেন ডা. মুরাদ! 

অনলাইন ডেস্ক

সদ্য তথ্য ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রীর পদ থেকে পদত্যাগ করা ডা. মুরাদ গত বৃহস্পতিবার রাতে কানাডা গেছেন। পদত্যাগের পরপর এত দ্রুত কীভাবে তিনি কানাডার ভিসা পেলেন? তার কাছে কি আগেই কানাডার ভিসা ছিল? কোন পাসপোর্ট নিয়ে তিনি কানাডায় গেলেন? এমন নানা প্রশ্ন উঠছে বিভিন্ন মহলে।

তবে মুরাদ হাসানকে কানাডায় ঢুকতে দেয়নি দেশটির বর্ডার সার্ভিস এজেন্সী। টরন্টো পিয়ারসন আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে তাকে ফিরিয়ে দেয়া হয় বলে জানা গেছে।

জানা গেছে, দুই বছর আগে স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী হিসেবে পাওয়া ভিসাতেই গত বৃহস্পতিবার রাতে কানাডায় গেছেন ডা. মুরাদ হাসান। নারীর প্রতি অবমাননাকর ও অশালীন বক্তব্য দিয়ে প্রবল সমালোচনার মুখে পড়েন তিনি। পরে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে তাঁকে পদত্যাগ করতে হয়।  

সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো জানিয়েছে, ২০১৯ সালে স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালনের সময় কানাডায় একটি আন্তর্জাতিক অনুষ্ঠানে যোগ দেওয়ার আমন্ত্রণ পেয়েছিলেন মুরাদ হাসান। সে সময় তিনি কানাডার ভিসা নেন। সরকারিভাবেই তাঁর সফর চূড়ান্ত করা হয়েছিল। কিন্তু সেই সফরে যাওয়ার আগেই তাঁর দপ্তর বদল হয়ে যায়। তিনি তথ্য প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব পান। এর পরও তিনি কানাডায় স্বাস্থ্যসংশ্লিষ্ট ওই অনুষ্ঠানে যোগ দেন।

স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, মন্ত্রিসভার সদস্যদের সাধারণত দীর্ঘমেয়াদি ‘মাল্টিপল এন্ট্রি’ ভিসা দেওয়া হয়। এটা সাধারণত পাঁচ বছরের জন্য হয়ে থাকে। প্রতিমন্ত্রী মুরাদও দীর্ঘমেয়াদি ভিসা পেয়েছিলেন। ৭ ডিসেম্বর মন্ত্রিত্ব ছাড়ার পর তিনি কানাডায় নতুন করে কোনো ভিসার আবেদন করেননি। ফলে আগে যে ভিসা তাঁর পাসপোর্টে আছে তা ব্যবহার করেই তিনি কানাডায় গেছেন। তাঁর ‘কূটনৈতিক পাসপোর্টে’ এ ভিসা দেওয়া আছে।

আরও পড়ুন:


বেপরোয়া ডা. মুরাদ: দলের কৃপা না পেলে এমপি পদও হারাতে পারেন

এছাড়া পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, প্রতিমন্ত্রীর পদ থেকে পদত্যাগ করলেও তিনি এখনো সংসদ সদস্য। সংসদ সদস্য হিসেবেও তিনি ‘কূটনৈতিক পাসপোর্ট’ প্রাপ্য।  

মুরাদ হাসানের দেশ ছাড়ার প্রাক্কালে এক প্রশ্নের উত্তরে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান বলেছেন, মুরাদ হাসান বিদেশে যাবেন কি যাবেন না সেটি তাঁর ব্যক্তিগত বিষয়।

এদিকে, স্থানীয় রাজনীতিতে মুরাদ হাসানের মূল প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে পরিচিত আব্দুর রশীদ। তিনি আজ শনিবার ঢাকা থেকে সরিষাবাড়ীতে যাচ্ছেন। এ উপলক্ষে তাঁর অনুসারীরা নিজেদের অবস্থান জানান দিতে বড় ধরনের লোক সমাগমের প্রস্তুতি নিচ্ছে বলে স্থানীয়ভাবে জানা গেছে।  

news24bd.tv রিমু