গৃহহীন ‘মানতা’ সম্প্রদায়ের মানুষের জন্য ঘর দিচ্ছে সরকার 

নদীতে ভেসে বেড়ানো 

গৃহহীন ‘মানতা’ সম্প্রদায়ের মানুষের জন্য ঘর দিচ্ছে সরকার 

সিকদার জোবায়ের হোসেন

বহু বছর ধরে নদীতে ভেসে বেড়ানো গৃহহীন ‘মানতা’ সম্প্রদায়ের মানুষের জন্য নদীর ধারে সেমিপাকা ঘর নির্মাণ করেছে সরকার। এসব ঘরে রয়েছে বিদ্যুৎসহ নিত্য প্রয়োজনীয় সব সুবিধা।  

মানতাদের জন্য নির্মিত এসব ঘর পরিদর্শনে পটুয়াখালীর রাঙ্গাবালীতে যান প্রধানমন্ত্রীর মূখ্য সচিব ড. আহমদ কায়কাউস। এসময় তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রীর ভিশন আনুযায়ী কাজ বাস্তবায়ন হচ্ছে।

 

আরও পড়ুন


বাংলাদেশে দুইজন ওমিক্রনে আক্রান্ত

পেটের ভেতরে কাঁচি রেখেই সেলাই, দেড় বছর পর ধরা!

নৌকায় জন্ম, নৌকায়ই বেড়ে ওঠা। আবার নৌকাতেই সংসার, মৃত্যু। সম্বল বলতে কেবল কাঠের একটি নৌকা। এমনই একটি ছিন্নমূল সম্প্রদায়ের নাম ‘মানতা’। নদীতে মাছ শিকার করে চলে যাদের সংসার। প্রায় অর্ধশতাব্দী ধরে পটুয়াখালীর রাঙ্গাবালী উপজেলার বুড়াগৌরাঙ্গ নদীতেই বাস এই জনগোষ্ঠীর।

আশার কথা, গৃহহীন এই মানুষদের জন্য নির্মাণ করা হয়েছে সেমিপাকা ঘর। মুজিববর্ষে প্রধানমন্ত্রীর উপহার হিসেবে প্রথম পর্যায়ে নির্মিত ২৯টি ঘরে রয়েছে বিদ্যুৎ, টয়েলেট, রান্নার জায়গাসহ সব সুবিধা। নদীর ধারে এই ঘর পেয়ে খুশি সুবিধাভোগীরা।

শুক্রবার বিকেলে মান্তাদের জন্য নির্মিত ঘর পরিদর্শনে যান প্রধানমন্ত্রীর মূখ্য সচিব ড. আহমদ কায়কাউস। তিনি  জানান, বাংলাদেশের কেউই গৃহহীন থাকবে না।

যেসব মানুষের স্বপ্ন এতোদিন কেবল নদীতেই আটকে ছিল, ডাঙায় মাথাগোঁজার ঠাঁই পেয়ে এখন তারা স্বপ্ন বুনছেন নতুন করে।

news24bd.tv/ কামরুল