ডাবের পানির সঙ্গে বিষ খাইয়ে স্ত্রী হত্যা, স্বামীর ফাঁসির আদেশ
ডাবের পানির সঙ্গে বিষ খাইয়ে স্ত্রী হত্যা, স্বামীর ফাঁসির আদেশ

দণ্ডপ্রাপ্ত সাইদুল ইসলাম মৃধা

বরিশালে যৌতুক না দেয়ায় 

ডাবের পানির সঙ্গে বিষ খাইয়ে স্ত্রী হত্যা, স্বামীর ফাঁসির আদেশ

রাহাত খান, বরিশাল:

বরিশালের আগৈলঝাড়ায় ৩ লাখ টাকা যৌতুক না পেয়ে ডাবের পানির সঙ্গে বিষ খাইয়ে স্ত্রী আয়শা আক্তারকে  হত্যার দায়ে স্বামী সাইদুল ইসলাম মৃধাকে ১ লাখ টাকা জরিমানা সহ মৃত্যুদণ্ডের আদেশ দিয়েছেন নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল।

আজ রোববার বেলা সাড়ে ১২টায় আসামি সাইদুলের উপস্থিতিতে ট্রাইব্যুনালের বিচারক মো. আবু শামীম আজাদ এই রায় ঘোষণা করেন। এই রায়ে খুশি রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবীরা।  

দণ্ডপ্রাপ্ত সাইদুল ইসলাম মৃধা বরিশাল জেলার আগৈলঝাড়া উপজেলার বাকাল গ্রামের আলতাফ মৃধার ছেলে।

নিহত আয়শা আক্তার গোপালগঞ্জের বাগবাড়ি গ্রামের ফজলু কাজীর মেয়ে ছিল।

ট্রাইব্যুনালে রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবীরা জানান, আসামি সাইদুল তার স্ত্রীর কাছে ৩ লাখ টাকা দাবি করে। দাবিকৃত যৌতুক না দেয়ায় বিভিন্ন সময় স্ত্রী আয়শা আক্তারকে নির্যাতন করে সে। এর ধারাবাহিকতায় ২০১৬ সালের ৩ অক্টোবর বেলা ১২টার দিকে আসামি তার নিজ বাড়িতে স্ত্রীকে ডাবের পানি খাওয়ায়। মুহূর্তেই সে মাথা ঘুরে পড়ে যায়। অসুস্থ অবস্থায় তাকে বরিশাল শের-ই বাংলা মেডিকেলে ভর্তি করা হলে ওইদিন দিবাগত রাত ৩ টায় তাকে মৃত ঘোষণা করেন চিকিৎসক।  

এ ঘটনায় মৃতের বাবা ফজলু কাজীর ফজলু কাজী বাদী হয়ে আয়শার স্বামী, শ্বশুড়-শ্বাশুড়ি সহ ৫ জনকে আসামি করে ৫ অক্টোবর আগৈলঝাড়া থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। তদন্তে ৩ আসামিকে অব্যাহতি দিয়ে শুধুমাত্র সাইদুল ও তার মা বিলকিস বেগমকে অভিযুক্ত করে আদালতে এই মামলার অভিযোগপত্র (চার্জশীট) দেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা। পরে অভিযোগ গঠনের সময় বিলকিস বেগমকে অব্যাহতি দেন নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল।  

আরও পড়ুন:

মধ্যরাতে মোদীর টুইটার অ্যাকাউন্ট হ্যাক, অতঃপর...

বিচারকার্য চলাকালে ২০ জন সাক্ষীর সাক্ষ্য গ্রহণে ৩ লাখ টাকা যৌতুক না পেয়ে ডাবের পানির সঙ্গে বিষ খাইয়ে স্ত্রীকে হত্যার অভিযোগ প্রমানিত হলে একমাত্র আসামি ও স্বামী সাইদুল ইসলাম মৃধাকে ১ লাখ টাকা জরিমানা সহ মৃত্যুদন্ডের আদেশ দেন ট্রাইব্যুনাল। রায় ঘোষণার পর কঠোর নিরাপত্তার মধ্য দিয়ে তাকে কারাগারে প্রেরণ করে পুলিশ।  

এই রায়ে খুশি রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবীরা। এতে ন্যায় বিচার প্রতিষ্ঠিত হয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন তারা। ভবিষ্যতে আর যাতে কেউ যৌতুকের জন্য স্ত্রীকে হত্যা না করে এই রায় তাদের জন্য দৃষ্টান্ত হয়ে থাকবে বলে আশা করেন আইনজীবীরা।  

news24bd.tv/ কামরুল