নোয়াখালীতে জবি ছাত্রীর মৃত্যু: ট্রাক চালক গ্রেপ্তার
নোয়াখালীতে জবি ছাত্রীর মৃত্যু: ট্রাক চালক গ্রেপ্তার

ঘাতক ট্রাক চালক সাহাব উদ্দিন ওরফে শিপন

নোয়াখালীতে জবি ছাত্রীর মৃত্যু: ট্রাক চালক গ্রেপ্তার

আকবর হোসেন সোহাগ, নোয়াখালী

নোয়াখালীর সোনাইমুড়ীতে বেপরোয়া গতির একটি ট্রাক চাপায় জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) সাংবাদিকতা বিভাগের ছাত্রী মিতুর মৃত্যুর ঘটনায় অভিযুক্ত ঘাতক ট্রাক চালককে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

গ্রেপ্তারকৃত ট্রাক চালক মো. সাহাব উদ্দিন ওরফে শিপন (২৪) কুল্লিার চৌদ্দগ্রাম এলাকার ১০নং বাতিসা ইউনিয়নের কালিকাপুর গ্রামের মো. বেলালের ছেলে।

শনিবার (১৮ ডিসেম্বর) রাত ৮টার দিকে সোনাইমুড়ী উপজেলার কৈশল্যারবাগ এলাকা থেকে সোনাইমুড়ী থানার পুলিশ তাকে গ্রেপ্তার করে।

সোনাইমুড়ী থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মো. ইব্রাহীম খলিল বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

এসময় তিনি বলেন, এ ঘটনায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে। ওই মামলায় তাকে গ্রেপ্তার দেখিয়ে রোববার সকালে নোয়াখালী চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে সোপর্দ করা হবে।

এর আগে, বেপরোয়া গতির ট্রাক চাপায় শনিবার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে সাবরিনা আক্তার মিতু (২২) সোনাইমুড়ী পৌরসভার ৯ নম্বর ওয়ার্ডের রামপুর এলাকার নোয়াখালী-ফেনী আঞ্চলিক মহাসড়কে মারা যায়। সে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের ২০১৬-১৭ শিক্ষাবর্ষের ছাত্রী। মিতু সোনাইমুড়ীর ৭নং বজরা ইউপির শিলমুদ জমদ্দার ভূঁইয়া বাড়ীর মর্তুজা ভূঁইয়ার কন্যা। তিন বোনের মধ্যে মিতু সবার বড়।

স্থানীয় সূত্র জানায়, মিতু দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে ঢাকা যাওয়ার উদ্দেশ্যে সোনাইমুড়ী পৌরসভার পশ্চিম রামপুরা এলাকার মোল্লা বাড়ি থেকে যাত্রা করে। এ সময় বাড়ির সামনে হাইওয়ে রাস্তা পার হওয়ার সময় কুমিল্লা থেকে নোয়াখালী গামী ইট বোঝাই ট্রাক তাকে চাপা দিলে সে ঘটনাস্থলেই মারা যায়। ঘটনার পরপরই চালক পালিয়ে যায়। তাৎক্ষণিক স্থানীয় বাসিন্দারা ঘাতক ট্রাকটি আটক করে। খবর পেয়ে পুলিশ এসে মরদেহ উদ্ধার করে এবং ট্রাকটি তাদের হেফাজতে নেয়।

আরও পড়ুন


সামান্থার ‘আপত্তিকর দৃশ্যই’ নাগার সঙ্গে বিচ্ছেদের নেপথ্য!

news24bd.tv এসএম