মুরাদের বিরুদ্ধে করা মামলার আবেদন খারিজ
মুরাদের বিরুদ্ধে করা মামলার আবেদন খারিজ

ফাইল ছবি

মুরাদের বিরুদ্ধে করা মামলার আবেদন খারিজ

মাদারীপুর প্রতিনিধি:

মাদারীপুর সাবেক তথ্য প্রতিমন্ত্রী মুরাদ হাসানের বিরুদ্ধে করা ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলার আবেদন খারিজ করেছেন আদালত। মঙ্গলবার দুপুরে মামলার আবেদনের পর সন্ধ্যায় ওই আবেদন খারিজ করে দেন মাদারীপুর সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক ফয়সাল আল মামুন।

মাদারীপুর জেলা জজ আদালতের সরকারি কৌঁসুলি (পিপি) সিদ্দিকুর রহমান সিং এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

আদালত সূত্র জানায়, বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার নাতনি সম্পর্কে আপত্তিকর মন্তব্যের অভিযোগে মঙ্গলবার দুপুর ৩টার দিকে মামলা নেওয়ার জন্য আবেদন করেছিলেন এই মামলার বাদী জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের সভাপতি এডভোকেট এমারাত হোসেন খান।

দুপুরে মামলার আবেদন দেওয়ার পর একই দিন সন্ধ্যায় শুনানি শেষে, তা খারিজ করে দেন আদালত।

বাদী মামলায় উল্লেখ করেন, খালেদা জিয়ার নাতনি ও তারেক রহমানের মেয়ে জাইমা রহমান লন্ডনে আইন পেশায় নিয়োজিত। গত ১ ডিসেম্বর মুরাদ হাসান ও উপস্থাপক মহিউদ্দিন হেলাল ভার্চ্যুয়াল একটি টক শোতে জাইমা রহমান সম্পর্কে অত্যন্ত কুরুচিপূর্ণ, অশালীন, নারীবিদ্বেষী ও মানহানিকর বক্তব্য দেন।

মামলার বাদী পক্ষের আইনজীবী জামিনুর হোসেন মিঠু বলেন, সাংসদ ও সাবেক প্রতিমন্ত্রী মুরাদ হাসান বিএনপি'র ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের মেয়ে জাইমা রহমান ও জিয়া পরিবারকে নিয়ে তার ফেসবুক পেইজে কুরুচিপূর্ণ, নারীবিদ্বেষী, মানহানিকর ভাষা পোস্ট করেন। এতে বিএনপি ও জিয়া পরিবারের মানহানি হয়েছে।

মাদারীপুর জেলা জজ আদালতের সরকারি কৌঁসুলি (পিপি) সিদ্দিকুর রহমান সিং বলেন, বিএনপির এক আইনজীবী মামলার আবেদন করলে আদালত শুনানি শেষে তা খারিজ করে দিয়েছেন।

আরও পড়ুন


শীতে হোয়াইটহেডস থেকে যেভাবে মিলবে মুক্তি 

নারীর প্রতি বিদ্বেষপূর্ণ, অশালীন ও অবমাননাকর বক্তব্যের জেরে সম্প্রতি তথ্য ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রীর পদ হারান আওয়ামী লীগের সাংসদ মুরাদ হাসান। মন্ত্রিত্ব ও দলীয় পদ হারানোর পর দেশ ছেড়ে কানাডায় যেতে চেয়েছিলেন মুরাদ হাসান। কিন্তু কানাডায় ঢুকতে ব্যর্থ হয়ে তিনি দেশে ফিরে আসেন। বর্তমানে তার অবস্থান সম্পর্কে কোন সুনির্দিষ্ট তথ্য নেই।

news24bd.tv/আলী

;