দেশে ক্রিকেট জুয়ার বাজার সাত হাজার কোটি টাকার
দেশে ক্রিকেট জুয়ার বাজার সাত হাজার কোটি টাকার

প্রতীকী ছবি

দেশে ক্রিকেট জুয়ার বাজার সাত হাজার কোটি টাকার

ক্রিকেটবিশ্বে সবচেয়ে বেশি জুয়া হচ্ছে এই আইপিএল ঘিরে। প্রভাবশালী ভারতীয় দৈনিক টাইমস অব ইন্ডিয়া গত বছর জানিয়েছিল, ভারতে জুয়ার বাজার ছয় হাজার কোটি ডলার বা পাঁচ লাখ চার হাজার কোটি টাকার। এই অর্থ বাংলাদেশের বার্ষিক বাজেটের সমান। এই জুয়ার ৮০ শতাংশ চলে ক্রিকেট ঘিরে।

বাংলাদেশের ক্রিকেট ভারতের উচ্চতায় পৌঁছেনি। তবু বাংলাদেশের পাড়া-মহল্লা থেকে শুরু করে পাঁচতারা হোটেল পর্যন্ত যেভাবে ক্রিকেট নিয়ে বাজি চলে, তাতে বলা যায় ছোট নয় এখানকার জুয়ার বাজারও। অঙ্কটা আনুমানিক কত? সিআইডির সংশ্লিষ্ট গোয়েন্দারা জানাচ্ছেন, দেশে ক্রিকেট জুয়ার বাজার আনুমানিক সাত হাজার কোটি টাকার।

সিআইডির সাইবার পুলিশ সেন্টারের অতিরিক্ত ডিআইজি কামরুল আহসান বলেছেন, ‘আমরা বিভিন্ন সাইটে প্রতিদিন ১০ থেকে ১৫ কোটি টাকার লেনদেন হতে দেখি।

আইপিএল, বিপিএল ও বিশ্বকাপের মতো আসর থাকলে এই লেনদেন বেড়ে যায়। বেশির ভাগ জুয়া হয় ক্রিকেট নিয়ে। ফুটবলের লা লিগা আর প্রিমিয়ার লীগ নিয়েও জুয়াড়িদের আগ্রহ বাড়ছে। পাশাপাশি আছে বিভিন্ন দোকান, ক্লাব ও হোটেলে বসা বাজির আসর। সেখানে কত টাকা লেনদেন হয় বলা কঠিন। তবে বছরে অনলাইন জুয়ায় পাচার হয়ে যায় এক হাজার থেকে এক হাজার ২০০ কোটি টাকার মতো। এটা ঠেকাতেই নিরলস কাজ করে চলেছি আমরা। ’

বিদেশের বৈধ বেটিং সাইটে বিপিএলের একেকটি ম্যাচে ২০০ কোটি টাকা পর্যন্ত বাজি ধরার রেকর্ড আছে। আইপিএলের ম্যাচে অঙ্কটা আরো বেশি। গোয়েন্দাদের অনুসন্ধানে অবৈধ ওয়েবসাইটে বাংলাদেশে দিনে ১০ থেকে ১৫ কোটি টাকা বাজির কথা উল্লেখ আছে। যদিও আমেরিকান গেমিং অ্যাসোসিয়েশনের জরিপ মতে, বিশ্বে ২০৩ বিলিয়ন ডলারের বৈধ জুয়ার ঘাড়ে নিঃশ্বাস ফেলছে ১৫০ বিলিয়ন ডলারের অবৈধ জুয়ার বাজার।

সিআইডির হিসাব মতেও অবৈধ জুয়ার বাজার পরিধি ভীতিকর। আর পুরো বিশ্বে খেলাধুলা ঘিরে অবৈধ জুয়ার বাজার অবিশ্বাস্য অঙ্কের, ১.৭ ট্রিলিয়ন ডলার! এই হিসাবটি জাতিসংঘের ড্রাগ ও অপরাধ শাখার জরিপ থেকে পাওয়া।

তো, বাংলাদেশে দিনে ১০ থেকে ১৫ কোটি টাকা জুয়ার গড় ১২.৫ কোটি ধরলে অবৈধ জুয়ার সাইটে বছরে লেনদেন হয় চার হাজার ৫০০ কোটি টাকার বেশি। ক্রিকেট জুয়া তদন্তকারী গোয়েন্দাদের অনুমান, দোকান, ক্লাব, হোটেলেও এই অঙ্কের কাছাকাছি লেনদেন হয় বছরজুড়ে। তাহলে অন্তত ৯ হাজার কোটি টাকার জুয়ার বাজার আছে বাংলাদেশে। কিন্তু এর পুরোটা ক্রিকেটকেন্দ্রিক নয়। ফুটবল আর অনলাইন ক্যাসিনোতেও অংশ নেয় জুয়াড়িরা। তবে বেশির ভাগ জুয়া ক্রিকেট নিয়েই। তাই সিআইডির সংশ্লিষ্ট গোয়েন্দারা জানাচ্ছেন, দেশে ক্রিকেট জুয়ার বাজার আনুমানিক সাত হাজার কোটি টাকার।

আরও পড়ুন


শীতে হোয়াইটহেডস থেকে যেভাবে মিলবে মুক্তি 

মালয়েশিয়ায় কর্মী যাবে লাখ টাকারও কম খরচে 


র‍্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক কমান্ডার খন্দকার আল মঈন জানালেন, ‘মানি লন্ডারিং নিয়ে কাজ করে সিআইডি। তারা যদি বলে দিনে জুয়ার সাইটে ১০ থেকে ১৫ কোটি টাকা অনলাইনে অবৈধ লেনদেন হচ্ছে, তাহলে তথ্যটি ঠিকই আছে বলা যায়। ’

news24bd.tv রিমু