পাওনা টাকা চাইতে জীবন হারালো যুবক!
পাওনা টাকা চাইতে জীবন হারালো যুবক!

ফাইল ছবি

পাওনা টাকা চাইতে জীবন হারালো যুবক!

অনলাইন ডেস্ক

পাওনা টাকা চাইতে গিয়ে প্রতিপক্ষের কাঁচির আঘাতে মৃত্যু হয়েছে মেহেদী হাসান নিয়ন (৩৫) নামে এক যুবকের। এ ঘটনায় দুইজনকে গ্রেফতার করেছে থানা পুলিশ।

বুধবার সকাল সাড়ে ৬টার দিকে নওগাঁর বদলগাছী উপজেলার বালুভরা ইউনিয়নের পালশা দক্ষিণপাড়া গ্রামে এ ঘটনাটি ঘটে। নিহত নিয়ন ওই গ্রামের মোকলেছুর রহমানের ছেলে।

গ্রেফতারকৃতরা হলেন- পালশা দক্ষিণপাড়া গ্রামের এছাহাক আলীর স্ত্রী খুরশিদা বেগম ও তার ছেলে স্বাধীন হোসেন।  

বুধবার সকাল ৯টার দিকে নওগাঁ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় নিয়নের মৃত্যু হয়। নিয়নকে কাঁচি দ্বারা আঘাত করে একই গ্রামের এছাহাক আলী ও তার বড় ছেলে আসমাউল হক ওরফে হুমায়ন (২৬) এবং ছোট ছেলে স্বাধীন হোসেন (২৪)।

জানা যায়, মেহেদী হাসান নিয়ন একই গ্রামের এছাহাক আলীর কাছ থেকে ৯০ হাজার টাকায় জমি বন্ধক নিয়ে চাষাবাদ করছিলেন।

জমি বন্ধক নেওয়ার সময় মেহেদী হাসান জমির মালিক এছাহাককে বলেছিলেন কখনো জমি বিক্রি করলে তাকে যেন অবগত করা হয়। সম্প্রতি ওই জমি মেহেদী হাসানকে না জানিয়ে এছাহাক আলী অন্যত্র বিক্রি করার উদ্যোগ নিয়েছেন।  

বিষয়টি জানার পর মেহেদী হাসান ও তার ভগিনীপতিসহ সকাল সাড়ে ৬টার দিকে এছাহাকের বাড়িতে যান। এ সময় মেহেদী হাসান জমি বন্ধকের পাওনা টাকা ফেরত চান। এছাহাক আলী টাকা পরে দেবে বলে তাকে সাফ জানিয়ে দেন। এ নিয়ে উভয়ের মধ্যে তর্কবিতর্কের একপর্যায়ে এছাহাক তার স্ত্রী, ছেলে আসমাউল হুমায়ন ও ছোট ছেলে স্বাধীনকে ডেকে এনে তারা কাঁচি দিয়ে মেহেদী হাসানের পেটের নিচে আঘাত করে।  

আঘাতের ফলে মেহেদী হাসানের রক্তক্ষরণ শুরু হলে তাকে উদ্ধার করে নওগাঁ সদর হাসপাতালে নেওয়া হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মেহেদী হাসান মারা যান।

আরও পড়ুন:

২০২২ সালে ভিয়েতনামের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি হবে সর্বোচ্চ

মিয়ানমারের উত্তরাঞ্চলে জেড পাথরের খনিতে ভূমিধস

নিহতের বোন ইসমত আরা বলেন, ৫ বছর আগে আমার ভাই ৯০ হাজার টাকা দিয়ে এছাহাক আলীর জমি বন্ধক নেন এবং চাষাবাদ করে আসছেন। কিছুদিন হলো সেই জমি বিক্রয় করবে বলে আমার ভাই জানতে পেরে বন্ধকের টাকা ফেরত চান। সেই টাকা ফেরত চাইতে গেলে তারা আমার ভাইকে মারধর করে কাঁচি দিয়ে আঘাত করে হত্যা করেছে।

বদলগাছী থানার ওসি (তদন্ত) রায়হান হোসেন জানান, নিহতের বাবা মোকলেছুর রহমান বাদী হয়ে থানায় একটি মামলা করেছেন। এ ঘটনায় খুরশিদা বেগম ও স্বাধীনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। পলাতক দুজনকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

news24bd.tv/আলী