ম্যাচসেরা এবাদত
ম্যাচসেরা এবাদত

এবাদত হোসেন

ম্যাচসেরা এবাদত

অনলাইন ডেস্ক

নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে টেস্টে ঐতিহাসিক এক জয় তুলে নিল বাংলাদেশ। বাংলাদেশ সময় বুধবার ভোরে প্রথম টেস্টের শেষ দিনে ৮ উইকেটের বড় জয় পেয়েছে মুমিনুলবাহিনী। কিউইদের দেওয়া ৪০ রানের টার্গেটে ২ উইকেট হারিয়েই পৌছে যায় বাংলাদেশ। এই জয়ের নায়ক পেসার এবাদত হোসেন।

মাউন্ট মঙ্গানুইতে টেস্টের পঞ্চম দিন বাংলাদেশের প্রয়োজন ছিল ৫ উইকেটের। আর এবাদত তাসকিনরা সেটা করতে সময় নিললেন স্রেফ ১০ ওভারের একটু বেশি। আগের দিনের ৪ উইকেটে সাথে আজ সকালে এবাদত শুরুতেই ফেরালেন কিউ্ই কিংবদন্তী রস টেলরকে। সঙ্গে টেস্টে ৫ উইকেটের এলিট ক্লাবে ঢুকে গেলেন এই পেসার। জবাব দিলেন সম্প্রতি টেস্টে তার অন্তর্ভুক্তি নিয়ে কড়া সমালোচনার। সাথে প্রায় ৯ বছর ও ৪৭ টেস্ট পর টেস্টে ৫ উইকেটের স্বাদ পেলেন কোনো বাংলাদেশের পেসার।

এরপর কাইল জেমিসনকে শরিফুলের হাত দিয়ে এবাদত গড়েন ক্যারিয়ার সেরা বোলিং ফিগার। দিন শেষে এই ৪৬ রানে ৬ উইকেট ম্যাচ সেরার ট্রফিটাও যোগ হয়েছে এবাদতে সাফল্যের মুকুটে।

পরের আঘাত তাসকিন আহমেদের। রচিনকে লিটনের তালুবন্দি করে স্বপ্নের আরো কাছে নিয়ে গেলেন বাংলাদেশকে। ফিরিয়েছেন টিম সাউদিকেও বোল্ড করে এই পেসার নিউজিল্যান্ডের কন্ডিশনে সর্বোচ্চ ব্যবহার করে।

আর কিউই ইনিংসের শেষটা টানেন মেহেদী মিরাজ। ১৬৯ রানে অলআউট নিউজিল্যান্ড। জয়ের জন্য প্রয়োজন ৪০ রান। ব্যাট করতে নেমে সাদমান ফিরেছেন সাউদির বলে। শান্ত চমতকার শুরু করেও জেমিসনের বলে শেষটা করতে পারেননি।

আরও পড়ুন:

নিউজিল্যান্ডের মাটিতে টাইগারদের ঐতিহাসিক জয়

লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে বেগ পেতে হয়নি টাইগারদের। ১৬ দশমিক ২ ওভারে ২ উইকেট হারিয়েই জয়ের লক্ষ্যে পৌছে যায় বাংলাদেশ। নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে টেস্টে এটি প্রথম জয় টাইগারদের। মুুমিনুল হক ১৩ ও মুশফিকুর রহীম ৫ রানে অপরাজিত থাকেন। শান্ত ১৭ ও শাদমান ৩ রান করে আউট হন।

প্রথম ইনিংসে এক উইকেট ও দ্বিতীয় ইনিংসে ছয় উইকেট নেওয়া এবাদতের হাতেই উঠেছে ম্যাচসেরার পুরস্কার।

উল্লেখ্য, প্রথম ইনিংসে নিউজিল্যান্ড ৩২৮ ও বাংলাদেশ ৪৫৮ রান করেছিল। এই জয়ের ফলে দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজে ১-০ তে এগিয়ে গেল বাংলাদেশ।

news24bd.tv রিমু