কিমকে গালি দিয়ে গ্রাফিতি, এরপর
কিমকে গালি দিয়ে গ্রাফিতি, এরপর

ফাইল ছবি

কিমকে গালি দিয়ে গ্রাফিতি, এরপর

অনলাইন ডেস্ক

অদ্ভুত সব নিয়মে চলে উত্তর কোরিয়া। দেশটিতে জিন্স প্যান্ট পরা, স্টাইল করে চুল কাটা কিংবা কান ফোটানো আগে থেকেই দেশটিতে নিষিদ্ধ করেন কিম জং উন। কিছুদিন আগেই শুধু গান শোনার দায়েই দেশটিতে প্রাণ  দিতে হয় সাতজনের। প্রতিবেশী দক্ষিণ কোরিয়ার জনপ্রিয় পপ গান শোনার দায়ে সাতজনকে মৃত্যুদণ্ড দেন উত্তর কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট কিম জং উন।

এদিকে কিম জং উন এর ওপর রাগে সে দেশের নাগরিকদের কেও একজন পিয়ংইয়ংয়ের একটি অ্যাপার্টমেন্ট ভবনের দেয়ালে গত ২২ ডিসেম্বর জং উনকে 'বেজন্মা' সম্বোধন করে গ্রাফিতি আঁকেন। ওই লেখাতে লেখা ছিল, ‘কিম জং উন, বেজন্মা। লোকজন তোর জন্য না খেয়ে মারা যাচ্ছে। ’ 

এই ঘটনার পর দেশটির কর্তৃপক্ষ রাজধানীর একটি এলাকার বাসিন্দাদের হাতের লেখা পরীক্ষা করতে শুরু করেছে। দুর্ভিক্ষ, বন্যা ও করোনা মহামারিতে বিপর্যস্ত উত্তর কোরিয়া। এই দুর্দশার জেরেই এমন আক্রমণাত্মক গ্রাফিতি আঁকা হয়েছে।

গ্রাফিতিটি আঁকার অল্প কিছুক্ষণ পরই অবশ্য মুছে ফেলা হয়। এটি কে এঁকেছে, তা জানার জন্য অনুসন্ধান চালিয়ে যাচ্ছে পুলিশ।

আরও পড়ুন : কিমের দেশে ১০ দিন হাসি নিষিদ্ধ

পুলিশ কর্মকর্তারা ওই অ্যাপার্টমেন্ট ভবনের আশপাশের বাড়ি বাড়ি গিয়ে বাসিন্দাদের হাতের লেখার নমুনা চাইছে। জানতে চাইছে গ্রাফিতি আঁকার দিন স্থানীয়রা কে কোথায় ছিল।

প্রসঙ্গত, দেশটিতে কিম জং উনের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানানো অত্যন্ত বিরল ঘটনা। বিশেষ করে রাজধানী পিয়ংইয়ংয়ে তো এরকম ঘটনা আগে কখনও ঘটেছে বলে শোনাই যায়নি। কিম জং উন বা তার কাজকর্মের সামান্যতম সমালোচনাও কঠোরভাবে নিষিদ্ধ।

news24bd.tv/আলী