ইউপি নির্বাচন: নৌকা প্রতীক নিয়ে পেলেন মাত্র ৫৬ ভোট
ইউপি নির্বাচন: নৌকা প্রতীক নিয়ে পেলেন মাত্র ৫৬ ভোট

নৌকা প্রতীকের প্রার্থী মো. বজলু মাতুব্বর

ইউপি নির্বাচন: নৌকা প্রতীক নিয়ে পেলেন মাত্র ৫৬ ভোট

অনলাইন ডেস্ক

ফরিদপুরের সদরপুর উপজেলার চর মানাইর ইউনিয়ন নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা প্রতীকের প্রার্থী মো. বজলু মাতুব্বর পেয়েছেন মাত্র ৫৬ ভোট। এ ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী ছিলেন ১১ জন। তাদের মধ্যে তিনি হয়েছেন সপ্তম। এ নিয়ে এলাকায় চাঞ্চল্য সৃষ্টি হয়েছে।

জানা গেছে, এ ইউনিয়নে ইসলামী আন্দোলনের প্রার্থীও দুই শতাধিক ভোট পেয়েছেন। ফরিদপুরের ৯ উপজেলায় স্বাধীনতা পরবর্তী কোনো সময়ে আওয়ামী লীগের নৌকা প্রার্থীর লজ্জাজনক এমন হারের ঘটনা ঘটেনি।

প্রতিটি ওয়ার্ড ও ইউনিয়ন কমিটির থাকার পরও কী কারণে নৌকার প্রার্থী এতো কম ভোট পেলেন তা খতিয়ে দেখবে জেলা ও উপজেলার নেতারা। এই ইউনিয়নে চশমা প্রতীক নিয়ে ৩ হাজার ৩০০ ভোট পেয়ে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন মো. রফিকুল ইসলাম।

নৌকার পরাজিত প্রার্থী বজলু মাতুব্বর গণমাধ্যমকে বলেন, ‘নৌকা প্রতীক পেলেও তার পক্ষে আওয়ামী লীগের কোনো নেতা প্রচার-প্রচারণায় অংশ নেওয়া তো দূরে থাক খোঁজও নেননি। আওয়ামী লীগের নেতারা কাজ করেছেন বিদ্রোহী প্রার্থীর পক্ষে। প্রতীকটার কথাও কেউ ভাবেননি’।

সদরপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ছত্তার ফকিরের কাছে এ বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, প্রার্থীকে মনোনয়নের বিষয়ে আমাদের মতামত নেওয়া হয়। এছাড়াও প্রার্থী মনোনয়নের আগে ও পরে আমাদের সঙ্গে যোগাযোগ করেনি। তাই এটি প্রতীকের পরাজয় নয় প্রার্থীর পরাজয়।

ফরিদপুর জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ মাসুদ হোসেন বলেন, জনগণ যদি তাকে ভোট না দেয় তাহলে কী করার। তাছাড়া এটা নৌকা মার্কার কোনো পরাজয় না। এটা প্রার্থীর ব্যক্তিগত পরাজয়। প্রার্থীর ব্যক্তিগত ইমেজ না থাকলে বা প্রার্থীর কোনো সমস্যার কারণে মানুষ ভোট না দিলে কী করার আছে।

প্রসঙ্গত, বুধবার (৫ জানুয়ারি) পঞ্চম ধাপে অনুষ্ঠিত ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচনে ফরিদপুরের সদরপুর ও মধুখালী উপজেলার ১৩ ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচনে আটজন স্বতন্ত্র প্রার্থী এবং নৌকা প্রতীকের পাঁচ প্রার্থী বিজয়ী হন।

আরও পড়ুন


একই ইউনিয়নে সমান ভোট দুই জোড়া মেম্বার প্রার্থীর

news24bd.tv এসএম