‌‘বসুন্ধরার কম্বলডা পাইয়া চিন্তামুক্ত হলাম’
‌‘বসুন্ধরার কম্বলডা পাইয়া চিন্তামুক্ত হলাম’

মনোহরদীর শীতার্ত মানুষের মাঝে কম্বল বিতরণ করা হচ্ছে।

‌‘বসুন্ধরার কম্বলডা পাইয়া চিন্তামুক্ত হলাম’

অনলাইন ডেস্ক

বসুন্ধরা গ্রুপের সহায়তায় ও কালের কণ্ঠ শুভসংঘের আয়োজনে মনোহরদীর শীতার্ত মানুষের মাঝে ৫০০ কম্বল বিতরণ করা হয়েছে। শুক্রবার বিকেলে মনোহরদী বাসস্ট্যান্ড পশুর হাট মাঠে ৫০০ শীতার্ত মানুষের হাতে বসুন্ধরার উপহার তুলে দেওয়া হয়।

কম্বল পেয়ে মনে চেপে রাখা কথা প্রকাশ করেন বৃদ্ধা হাওয়া বেগম। তিনি বলেন, ‘অভাবের তাড়নায় দুই বেলা খেতে পাইনি।

শীতের কাপড় কিনব কী করে? এই শীতে একটি কম্বল কত প্রয়োজন তা একমাত্র শীতে কষ্ট পাওয়া গরিব মানুষ ভালো জানে। শীতে খুব কষ্ট করে রাত পার করছিলাম। কয়েকজনরে কইছি একটা কম্বল দেওয়ার জন্য, কেউ দেয় না। কম্বলডা পাইয়া এখন চিন্তামুক্ত হলাম। ’

ষাটোর্ধ্ব বকুল মিয়া বলেন, ‘কনকনে শীতে ঝুপড়ি ঘরে থাকা যায় না, চারপাশ দিয়ে শীতের বাতাস ঢোকে। তাই কোন রকম এক কাথার ভিতরে ছেলে পুলেগে নিয়ে থাকি। আমাগের কষ্টের সীমা নেই। আমরা শীতের গরম কাপড় কিনতি পারিনা। এই কম্বল পেয়ে খুব খুশি হলাম। শীত নিবারণে কিছুটা হলেও উপকার হবে। ’

বাকির মিয়া বলেন, ‘এবার অনেক শীত পড়লেও কেউ আমাদের কম্বল দেয়নি। বসুন্ধরা গ্রুপ প্রথম আমাদের জন্য শীতের নতুন কম্বল নিয়ে এসেছেন। কম্বল পেয়ে আমরা অনেক খুশি। ’

এ সময় উপস্থিত ছিলেন শুভসংঘের মনোহরদী শাখার সভাপতি মো. মাসুদ রানা, সহসভাপতি জে. এম শাহজাহান মোল্লা, সাধারণ সম্পাদক মো. কামরুল ইসলামসহ, গণ্যমান্য ব্যক্তি ও কালের কণ্ঠ শুভসংঘের কর্মকর্তারা।

আরও পড়ুন: 

তাড়াশে বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ পেল বসুন্ধরার কম্বল

news24bd.tv/তৌহিদ