গুজবে কান না দেওয়ার পরামর্শ শিক্ষামন্ত্রীর
গুজবে কান না দেওয়ার পরামর্শ শিক্ষামন্ত্রীর

ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির সমাবর্তনে শিক্ষামন্ত্রী

গুজবে কান না দেওয়ার পরামর্শ শিক্ষামন্ত্রীর

নাজমুল হুদা, সাভার

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধের বিষয়ে গুজবে কান না দেওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি। আমরা চেষ্টা করছি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান সুরক্ষিত রেখে সংক্রমণ কীভাবে এড়াতে পারি।

রোববার (৯ জানুয়ারি) দুপুরে সাভারের আশুলিয়ায় ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির নবম সমাবর্তন অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে এসব কথা বলেন তিনি।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, মহামারি করোনাভাইরাস পরিস্থিতিতে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলা রাখার চেষ্টা করা হচ্ছে।

যারা বলছেন, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ হয়ে যাবে বা হয়ে যাচ্ছে, তারা গুজব ছড়াচ্ছেন। সব সময়ই এমন গুজব ছড়ানো হয়। আপনারা গুজবে কান দেবেন না।

ডা. দীপু মনি বলেন, আজ কোভিড-১৯ সংক্রান্ত জাতীয় কারিগরি পরামর্শক কমিটির সঙ্গে আমাদের মিটিং রয়েছে। শিক্ষার্থীদের করোনার টিকাদান কার্যক্রম দ্রুত এগিয়ে নেওয়া হচ্ছে। সবাইকে টিকার আওতায় নিয়ে এসে কিভাবে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলা রাখা যায়, সে চেষ্টাই করছি আমরা। তবে, এটাও ঠিক, যদি মনে হয় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলা রাখলে সংক্রমণ বাড়বে, তখন আমরা বন্ধ করে দেবো হয়তো।

শিক্ষার্থীরা স্বাভাবিক শিক্ষা কার্যক্রমে ফিরে যাক এই আশা ব্যক্ত করে শিক্ষামন্ত্রী আরও বলেন, যদি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ করতেই হয়, তখন আমরা ঘোষণা দিয়ে বন্ধ করে দেবো। কিন্তু যতক্ষণ সে প্রয়োজন অনুভব না হবে, আমরা বন্ধ করব না। আমরা চাই শিক্ষার্থীরা স্বাভাবিক শিক্ষা কার্যক্রমে ফিরে যাক।

তিনি আরও বলেন, আমরা ভেবেছিলাম আমাদের দু'বছরের অভিজ্ঞতা বলে যে, মার্চ মাসের দিকে আমাদের এখানে বাড়ে। কিন্তু এবার জানুয়ারিতে একদম গোড়াতেই এই সংক্রমণ বাড়ছে। আমাদের সবাইকে অনেক বেশি সতর্ক হতে হবে। আসলে সবাই আমরা ভেবেছিলাম সংক্রমণ চলেই গেছে। কারণ যখন সারাবিশ্ব যখন পর্যদুস্ত তখন বাংলাদেশ এত ভালো অবস্থায় ছিলো সে কারণেই হয়ত আমাদের মধ্যে এই ধরণের একটা আত্মবিশ্বাস জন্মে গিয়েছিল।

বিশ্ববিদ্যালয়ে দ্বিতীয় বার শিক্ষার্থীদের ভর্তির বিষয়ে মন্ত্রী বলেন, 'আমি ব্যক্তিগত ভাবে মনে করি একজন শিক্ষার্থী একবার পরীক্ষা দিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে ভর্তি হবার জন্যে। সে যদি অকৃতকার্যও একবার হয় কিংবা কোন কারণে ভর্তি হলো না তাহলে অন্ততপক্ষে দ্বিতীয় বার তার পরীক্ষা দিতে পারে। '

এর আগে ৯ম সমাবর্তন অনুষ্ঠানে বিশ্ববিদ্যালয়ের চ্যান্সেলর রাষ্ট্রপতি আব্দুল হামিদের প্রতিনিধি হিসেবে সভাপতিত্ব করেন শিক্ষামন্ত্রী ড. দীপু মনি।

এসময় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী, বিশ্বিবদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশনের চেয়ারম্যান অধ্যাপক কাজী শহীদুল্লাহ। অনুষ্ঠানে সমাবর্তন বক্তা হিসেবে বক্তব্য রাখেন শান্তিতে নোবেল বিজয়ী ভারতীয় সমাজসেবক কৈলাশ শত্যার্থী। এছাড়া স্বাগত বক্তব্য রাখেন ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির ট্রাস্টি বোর্ডের চেয়ারম্যান ড. সবুর খান।

অন্যান্যের মধ্যে আরও বক্তব্য রাখেন বিশ্বিবদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. এম লুৎফর রহমান, উপ-উপাচার্য, কোষাধ্যক্ষ, রেজিস্ট্রারসহ বিভিন্ন অনুষদের ডীন গণ। বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০১৯-২১ শিক্ষাবর্ষে স্প্রিং ও সামার সেশনে স্নাতক ও স্নাতকোত্তরে ১২ হাজার ১৬৮ জন শিক্ষার্থীকে ডিগ্রি প্রদান করা হয়। কৃতিত্বপূর্ণ ফলাফল অর্জনকারী ১২জন গ্র্যাজুয়েটকে স্বর্ণপদক প্রদান করা হয়। এছাড়া বাংলাদেশের স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন উপলক্ষে 'স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী স্বর্ণপদক' ও 'শেখ মুজিবুর রহমান স্বর্ণপদক' বিশেষ চারটি স্বর্ণপদক দেয়া হয় চারজন শিক্ষার্থীকে।

আরও পড়ুন


মিতু হত্যা: স্বামী বাবুলের করা মামলায় তাকেই গ্রেপ্তারের আদেশ

news24bd.tv এসএম

;