ধলেশ্বরী নদীতে ট্রলার ডুবি : লঞ্চের চালক সহ তিনজন কারগারে
Breaking News
ধলেশ্বরী নদীতে ট্রলার ডুবি : লঞ্চের চালক সহ তিনজন কারগারে

প্রতীকী ছবি

ধলেশ্বরী নদীতে ট্রলার ডুবি : লঞ্চের চালক সহ তিনজন কারগারে

দিলীপ কুমার মণ্ডল, নারায়ণগঞ্জ:

নারায়ণগঞ্জের ধলেশ্বরী নদীতে খেয়াপারাপারে যাত্রীবাহী ট্রলারকে ডুবিয়ে দেয়া এম ভি ফারহান-৬ নামের যাত্রীবাহী লঞ্চের চালক, মাস্টার ও  সুকানীকে কারাগারে পাঠিয়েছে আদালত।

রোববার দুপুরে সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যজিস্ট্রেট নূর নাহার ইয়াসমিন এর আালতে তাদের কারাগারে পাঠানো আদেশ দিয়েছেন।

আদালত পুলিশের পরির্দশক আসাদুজ্জামান জানান, বেপরোয়া গতিতে লঞ্চ চালিয়ে যাত্রীবাহী ট্রলার ডুবিয়ে দেয়ার ঘটনায় নৌ পুলিশ মামলা করেছেন। মামলায় গ্রেপ্তারকৃত তিন আসামি লঞ্চের মাস্টার মো. কামরুল হাসান, চালক মো. জসিমউদ্দিন ভূইয়া ও সুকানী মো. জসিমকে বৃহস্পতিবার আদালতে হাজির করে ৫ দিনের রিমান্ড আবেদন করে পুলিশ।

 

আদালত রোববার শুনানির দিন ধার্য করেছিলেন। আজ দুপুর তারে রিমান্ড আবেদন না মঞ্জু করে তাদের কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছেন।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা নৌ পুলিশের উপ-পরির্দশক আব্দুল মতিন জানান, নিষেধাজ্ঞা সত্বেও ধলেশ্বরী নদীতে ঘন কুয়াশার মধ্যে বেপরোয়া গতিতে লঞ্চ চালিয়ে জান মালের ক্ষতি সহ দুর্ঘটনা ঘটিয়েছে। এ ঘটনায় চালক মাস্টার ও সুকানিকে গ্রেপ্তার করে আালতে পাঠানো হয়েছে। তদন্তে ঘটনার সাথে যদি কেউ জড়িত থাকে এমন সত্যতা পাওয়া যায় তাহলে তাদেরও আইনের আওতায় আনা হবে।  

আরও পড়ুন: নির্বাচনের ৩ দিন পর পরাজিত মেম্বার প্রার্থীর লাশ উদ্ধার

ফতুল্লায় ধলেশ্বরী নদীতে গত ৫ জানুয়ারি সকাল সাড়ে ৮টার দিকে লঞ্চের ধাক্কায় ট্রলার ডুবে ১০ জন নিখোঁজ হন। অন্তত ৩০ যাত্রী বহনকারী ট্রলারটি এমভি ফারহান-৬ নামের লঞ্চের ধাক্কায় ডুবে যায় নদীতে। বেশির ভাগ যাত্রী সাঁতরে তীরে উঠতে পারলেও ওই ১০ জনকে পাওয়া যায়নি।  

রোববার তাদের মধ্যে নারী শিশু সহ ৬ জনের মরদেহ ভেসে উঠে নদীতে। পরে নৌ পুলিশ ও কোস্টগার্ড সেগুলো উদ্ধার করে। উপজেলা প্রশাসের পক্ষ মরদেহগুলো তাদের স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে তবে এখনো নিখোঁজ রয়েছে আরও ৪ জন। উদ্ধার করা হয়নি ডুবে যাওয়া ট্রলারটি।

news24bd.tv/ কামরুল 

;