মুন্সিগঞ্জে মধ্যযুগীয় কায়দায় প্রেমিককে গাছে বেঁধে নির্যাতন!
মুন্সিগঞ্জে মধ্যযুগীয় কায়দায় প্রেমিককে গাছে বেঁধে নির্যাতন!

মুন্সিগঞ্জে মধ্যযুগীয় কায়দায় প্রেমিককে গাছে বেঁধে নির্যাতন!

অনলাইন ডেস্ক

সাবেক মেম্বারের নাতনির সাথে প্রেমের অপরাধে এক যুবককে গাছের সাথে বেঁধে মধ্যযুগীয় কায়দায় নির্যাতন করার অভিযোগ উঠেছে।  অমানুষিক নির্যাতন করায় দুদিন ধরে মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছে সাইফুল ইসলাম রাজন নামের সে যুবক। নির্যাতনে গুরুতর আহত অবস্থায় প্রেমিক ছেলেটি সিরাজদিখান ইছাপুরা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। তার দুই পা ভেঙে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে।

মুন্সিগঞ্জের সিরাজদিখান উপজেলার বালুচর ইউনিয়নের চান্দেরচর গ্রামে এ ঘটনা ঘটেছে।

স্থানীয়রা জানায়, উপজেলার বালুচর ইউনিয়নের দুই নম্বর ওয়ার্ডের সাবেক ইউপি সদস্য জয়নাল মেম্বারের‌ নাতনির সাথে প্রেম করে আসছিল সাইফুল ইসলাম রাজন নামে এক যুবক। ৩ বছরের প্রেমের সম্পর্ক গভীর হলে তারা দুজনে পালিয়ে যায়। তখন বাধা হয়ে দাঁড়ায় প্রেমিকার পরিবার। ‌ সাইফুলের লেখাপড়া ও পারিবারিক অবস্থা ভালো না হওয়ায় আপত্তি ওঠে প্রেমিকার পরিবার থেকে।

পরে গত ৮ জানুয়ারি মোবাইল ফোনে অভিযুক্ত জয়নাল মেম্বারের বাড়িতে সাইফুলকে ডেকে নিয়ে চালানো হয় বর্বরোচিত নির্যাতন।

জানা গেছে, গত শনিবার বিকেল ৪টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত সাইফুলকে ডেকে নিয়ে পূর্বপরিকল্পনা মোতাবেক গাছের সাথে বেঁধে মানুষের সামনে দুই ঘণ্টাব্যাপী অমানুষিক নির্যাতন করা হয়। পরে এলাকাবাসী সিরাজদিখান থানায় খবর দিলে পুলিশ গিয়ে সাইফুল ইসলাম রাজনকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে।

আহত সাইফুল ইসলাম রাজনের নানা জজ মিয়া বলেন, আমার নাতির অবস্থা বর্তমানে অত্যন্ত খারাপ। আমরা তাকে বাঁচানোর জন্য ঢাকায় হাসপাতালে নিয়ে যাব। তারা আমার নাতিকে পরিকল্পিতভাবে ফোন করে তাদের বাড়িতে নিয়ে গিয়ে অমানবিকভাবে অত্যাচার-নির্যাতন করেছে। তার দুটি পা ভেঙে দিয়েছে। মাথায় আঘাত করে দুই স্থানে বড় বড় গর্ত করেছে। এছাড়া লাঠিসোঁটা দিয়ে শরীরে আঘাত করা হয়েছে। দুদিন ধরে মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছে আমার নাতি।  

অভিযুক্ত মো. আলমগীর বলেন, গত দুই মাস আগে আমার ভাতিজিকে অপহরণ করছে। পরে পুলিশ গিয়ে আমার ভাতিজিকে উদ্ধার করে আনছে। আর ছেলেকে আমরা জেলে দিয়ে দিছি। হাইকোর্ট থেকে জামিনে এসেছে এক সপ্তাহ আগে। এসেই আমাদের হুমকি দিয়েছে। পরে শুক্রবার খোঁজখবর নিয়ে দেখেছে আমাদের বাড়িতে লোকজন কম আছে। এই সুযোগে লোকজন নিয়ে ভাতিজিকে তুলে নিতে আসে। তখন আত্মীয়স্বজনরা ধরে তাকে গণধোলাই দিয়েছে।

আরও পড়ুন:

টাকা পরিশোধের জন্য চীনের কাছে সময় চেয়েছে শ্রীলঙ্কা

দীর্ঘ কয়েক মাসের চেষ্টায় সন্তানকে ফিরে পেল বাবা-মা

এ ব্যাপারে মঙ্গলবার সিরাজদিখান থানার ওসি (তদন্ত) আজগর হোসেন জানান, প্রেম-সংক্রান্ত বিষয় নিয়ে এক যুবককে মারধর করা হয়েছে। এ ঘটনায় ওই যুবকের বাবা আবুল হোসেন বাদী হয়ে সাতজনকে আসামি করে সিরাজদিখান থানায় একটি মামলা দায়ের করেছে। আসামিদের ধরতে একাধিকবার অভিযান পরিচালনা করা হয়েছে।  

news24bd.tv/আলী