‘ঠাণ্ডাত কষ্টে আচুনু, কম্বলখানি প্যায়া বাঁচনু বাবারে’
‘ঠাণ্ডাত কষ্টে আচুনু, কম্বলখানি প্যায়া বাঁচনু বাবারে’

নাটোরের গুরুদাসপুরে পত্রিকা হকারসহ শীতার্তদের হাতে তুলে দেওয়া হচ্ছে বসুন্ধরার কম্বল।

‘ঠাণ্ডাত কষ্টে আচুনু, কম্বলখানি প্যায়া বাঁচনু বাবারে’

অনলাইন ডেস্ক

বসুন্ধরা গ্রুপের সহায়তায় ও কালের কণ্ঠ শুভসংঘের আয়োজনে নাটোরের গুরুদাসপুরে পত্রিকা হকারসহ ২৫০ জন শীতার্ত মানুষের মাঝে শীতের কম্বল বিতরণ করা হয়।

বুধবার গুরুদাসপুর দুপুরে মডেল পাইলট সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ে মাঠে কম্বল বিতরণ অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন- উপজেলা চেয়ারম্যান মো. আনোয়ার হোসেন, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. তমাল হোসেন ও পৌর মেয়র শাহনেওয়াজ আলী।

বসুন্ধরা গ্রুপের দেওয়া কম্বল পেয়ে নাটোরের গুরুদাসপুর পৌর সদরের চাঁচকৈড় খোয়ারপাড়া মহল্লার ১১০ বছর বয়সী রূপম বিবি বলেন, ‘ঠাণ্ডাত কষ্টে আচুনু। তারপুর বিষ্টি আর বাতাসে গা থাইকি শীত য্যায় না।

কম্বলখানি প্যায়া বাঁচনু বাবারে। ’

কম্বল বিতরণ অনুষ্ঠানে এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন কালের কণ্ঠের উপজেলা প্রতিনিধি আলী আককাছ, শুভসংঘের জেলা শাখার সভাপতি মোস্তাফিজুর রহমান সৈকত ও সাধারণ সম্পাদক সুস্ময় দাস তনয়, গুরুদাসপুর উপজেলা শাখার সভাপতি এমদাদুল হক ও সাধারণ সম্পাদক বাবুল হাসান প্রমুখ।

এর আগে বড়াইগ্রাম উপজেলার রামেশ্বরপুর উচ্চ বিদ্যালয়ে বেলা ১১টায় কম্বল বিতরণ করেন প্রধান শিক্ষক সরোয়ার হোসেন পিঞ্জু।

এ সময় বড়াইগ্রাম উপজেলা শুভসংঘের সভাপতি এসএম নিয়ামুল হোসেন নির্ঝরসহ অনেকেই উপস্থিত ছিলেন।

বড়াইগ্রামের রোলভা বাজারের রহমত মিয়া (৭০), হালিমা বেগম (৯০), সখিনা বেওয়াসহ (৮১) অনেকেই কম্বল পেয়ে বসুন্ধরা গ্রুপের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়ে সমৃদ্ধি কামনা করেছেন।

আরও পড়ুন:

বসুন্ধরার কম্বল পেল শেরপুরের দরিদ্র মানুষ

news24bd.tv তৌহিদ