আয়া দিয়ে প্রসূতির সিজার, কেটে ফেলল নবজাতকের কপাল
আয়া দিয়ে প্রসূতির সিজার, কেটে ফেলল নবজাতকের কপাল

কেটে ফেলল নবজাতকের কপাল

আয়া দিয়ে প্রসূতির সিজার, কেটে ফেলল নবজাতকের কপাল

ফরিদপুর প্রতিনিধি:

ফরিদপুরে একটি প্রাইভেট হাসপাতালে আয়া দিয়ে প্রসূতির সিজারের ঘটনা ঘটেছে। সিজারের সময় নবজাতকের কপাল কেটে ফেলা হয়। আশঙ্কাজনক অবস্থায় নবজাতককে ফরিদপুর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।  

এ বিষয়টি নিয়ে তোলপাড়ের সৃষ্টি হয়েছে।

পরে এ ঘটনায় প্রাইভেট ক্লিনিকে অভিযান চালিয়ে অভিযুক্ত দুইজনকে আটক করা হয়েছে।

শহরের পশ্চিম খাবাসপুর এলাকায় অবস্থিত আল মদিনা প্রাইভেট হাসপাতালে আজ শনিবার সকালে সিজারের জন্য ভর্তি হন রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ এলাকার জনৈক রুপা বেগম। সকাল ৮টার সময় প্রসূতিকে সিজার করাণ হাসপাতালটির আয়া চায়না রহমান ও তার আরও দুইজন সহযোগী। সিজারের সময় নবজাতকের কপাল ও চোখের একটি অংশ কেটে ফেলা হয়। এতে মারাত্বক ভাবে ক্ষতি হয় নবজাতকের। তার কপালে ৯টি সেলাইয় দেওয়া হয়। পরে বিষয়টি নিয়ে তোলপাড় শুরু হলে সেখানে উপস্থিত হয় থানা পুলিশের একটি দল।  

আরও পড়ুন: ফারুকের চিকিৎসা; ফ্ল্যাট বিক্রির ১৫ কোটি টাকাও শেষ

এ সময় আটক করা হয় চায়না রহমান নামের সেই আয়াকে ও ক্লিনিকের মালিক পলাশ মোল্যাকে। পরে ঘটনাস্থলে হাজির হন সিভিল সার্জন ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. মাসুদুল আলমসহ প্রশাসনের কর্মকর্তারা। পরে ক্লিনিক চালানোর প্রয়োজনীয় কাগজপত্র পরীক্ষা নিরিক্ষা করা হয়।

এ সময় সিভিল সার্জন সিদ্দিকুর রহমান বলেন, আমরা ক্লিনিকটির কাগজপত্র পরীক্ষা নিরিক্ষা করে দেখছি। তাছাড়া আজ এই ক্লিনিকে যে ন্যাক্কারজনক ঘটনা ঘটেছে তাতে আমরা ক্লিনিকটি সিলগালা করে দেবার সিদ্ধান্ত নিচ্ছি।  

এ ঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

news24bd.tv/ কামরুল