‌‌‘আরেকটা কম্বল পাইছি বসুন্ধরার পক্ষ থাকি’
‌‌‘আরেকটা কম্বল পাইছি বসুন্ধরার পক্ষ থাকি’

কুলাউড়ায় ৩৫০ শীতার্ত পেল শুভসংঘের কম্বল

‌‌‘আরেকটা কম্বল পাইছি বসুন্ধরার পক্ষ থাকি’

অনলাইন ডেস্ক

ঘরো আমার দুই বাচ্চা বড়, শীতের রাইত একটি কম্বল দিয়ে কাটাইতে অইতো। এখন আরেকটা কম্বল পাইছি বসুন্ধরার পক্ষ থাকি। আমার বাচ্চাইনতে এখন আরামে শীতের মাঝেরাতে ঘুমাইতে পারব। '

বসুন্ধরা গ্রুপের দেওয়া কম্বল উপহার পেয়ে কথাগুলো বলছিলেন মৌলভীবাজারের কুলাউড়ার কৌলারশি গ্রামের বাসিন্দা দিনমজুর সোয়াব আলী (৫০)।

তাঁর মতো ৩৫০ জন শীতার্তের মাঝে বসুন্ধরা গ্রুপের সহায়তায় কম্বল বিতরণ করেছে কালের কণ্ঠ শুভসংঘ।

১১ বছরের জিল্লুর বলেন, হারাদিন কাইজ করে রাইত্রে ইস্টিশনের প্ল্যাটফর্মে ঘুমাই। শীতের জন্য ঘুমাইতে কইষ্টো হইত। এখন কম্বল জুইড়া ঘুমাইতে পারুম।

শনিবার (১৪ জানুয়ারি) পৌর শহরের শহীদ মিনার প্রাঙ্গণে আয়োজিত শীতবস্ত্র বিতরণী অনুষ্ঠানে শুভসংঘ কুলাউড়ার সভাপতি উপাধ্যক্ষ মো. জহিরুল ইসলামের সভাপতিত্বে ও কালের কণ্ঠের প্রতিনিধি মাহফুজ শাকিলের সঞ্চালনায় প্রধান অতিথির বক্তব্য দেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এ টি এম ফরহাদ চৌধুরী।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে দেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি রফিকুল ইসলাম রেনু, শুভসংঘের কেন্দ্রীয় পরিচালক জাকারিয়া জামান, শুভসংঘের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক শামীম আল মামুন, কুলাউড়া ব্যবসায়ী কল্যাণ সমিতির সভাপতি বদরুজ্জামান সজল, কুলাউড়া থানার ওসি (তদন্ত) আমিনুল ইসলাম, জেলা সাংবাদিক ফোরামের সহসভাপতি এম মছব্বির আলী, ব্যবসায়ী কল্যাণ সমিতির সাধারণ সম্পাদক আতিকুল রহমান আখই, মৌলভীবাজার জেলা শুভসংঘের সাধারণ সম্পাদক তাকবীর হোসাইন মান্না, কুলাউড়া শুভসংঘের সাধারণ সম্পাদক মহি উদ্দিন রিপন প্রমুখ।  

এ সময় উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ প্রতিদিনের জেলা প্রতিনিধি বয়তুল আলী, শুভসংঘের কেন্দ্রীয় সদস্য শরীফ মাহদি আশরাফ, সহসাংগঠনিক সম্পাদক সাকিবুল ইসলাম শুভ, দৈনিক আজকের পত্রিকার কুলাউড়া প্রতিনিধি এস আলম সুমন, কুলাউড়া শুভসংঘের সাংগঠনিক সম্পাদক তানজিদা আক্তার সেবিন, ক্রীড়া সম্পাদক রুমেল আহমদ চৌধুরী প্রমুখ।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এ টি এম ফরহাদ চৌধুরী বলেন, মুজিববর্ষে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অসহায় ও ভূমি এবং গৃহহীন মানুষকে ঘর দিয়েছেন। করোনার সংকটের সময় সরকারের পক্ষ থেকে কর্মহীন অসহায় মানুষকে খাদ্য ও অর্থ সহায়তা দেওয়া হয়েছে। দেশের শীর্ষস্থানীয় বসুন্ধরা গ্রুপ যেকোনো দুর্যোগের সময় অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়ায়। সরকারের পাশাপাশি বসুন্ধরা গ্রুপও অসহায় মানুষকে সহযোগিতা করেছে।

ইউএনও ফরহাদ চৌধুরী আরো বলেন, কুলাউড়ায় ৩৫০ শীতার্ত মানুষকে কম্বল দেওয়া হচ্ছে। বসুন্ধরা গ্রুপ আগামীতেও শুভসংঘের মাধ্যমে অসহায় মানুষের জন্য সহায়তার হাত আরো প্রসারিত করবে।

উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি রফিকুল ইসলাম রেনু বলেন, বসুন্ধরা গ্রুপের মতো অন্যরাও এগিয়ে আসলে অসহায় মানুষের দুঃখ লাঘব হবে।

news24bd.tv/এমি-জান্নাত