দেশে আক্রান্তদের ৮০ শতাংশ ডেল্টা ভ্যারিয়েন্ট: বিএসএমএমইউ
দেশে আক্রান্তদের ৮০ শতাংশ ডেল্টা ভ্যারিয়েন্ট: বিএসএমএমইউ

দেশে আক্রান্তদের ৮০ শতাংশ ডেল্টা ভ্যারিয়েন্ট: বিএসএমএমইউ

অনলাইন ডেস্ক

দেশে বর্তমানে করোনা রোগীদের মধ্যে ২০ শতাংশই নতুন ধরন ওমিক্রনে আক্রান্ত। আর আক্রান্তদের ৮০ শতাংশের শরীরে ডেল্টা ভ্যারিয়েন্ট পাওয়া গেছে। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) এক গবেষণায় এ তথ্য উঠে এসেছে। গত বছরের ৮ ডিসেম্বর থেকে এ বছরের ৮ জানুয়ারি পর্যন্ত কোভিড-১৯ আক্রান্ত সাড়া দেশব্যাপী রোগীদের ওপর গবেষণাটি পরিচালিত হয়েছে।

মঙ্গলবার (১৮ জানুয়ারি) বিএসএমএমইউ উপাচার্য অধ্যাপক ডা. মো শারফুদ্দিন আহমদ এক প্রেস ব্রিফিংয়ে এ তথ্য জানান।

তিনি বলেন, গত ৮ ডিসেম্বর থেকে ৮ জানুয়ারি পর্যন্ত সংগৃহীত নমুনার ২০ শতাংশই ওমিক্রন ভ্যারিয়েন্ট এবং ৮০ শতাংশ ডেল্টা ভ্যারিয়েন্ট পাওয়া গেছে। পরবর্তী মাসে এই ওমিক্রন ভ্যারিয়েন্ট গুণিতক হারে বৃদ্ধির আশঙ্কা করা হচ্ছে।

বিএসএমএমইউ-এর জিনোম সিকোয়েন্সিং রিসার্চ প্রজেক্টের প্রধান পৃষ্ঠপোষক ডা. মো. শারফুদ্দিন আহমেদ বলেন, মোট ৯৬টি নমুনার জিনোম সিকোয়েন্সিং করা হয়, যার মধ্যে ৯টি (২০%)-তে ওমিক্রন ভ্যারিয়েন্ট পাওয়া যায়। বেশিরভাগ লোকের দেহেই ডেল্টা ভ্যারিয়েন্ট শনাক্ত হয়েছে। হাসপাতালে ভর্তি হওয়া রোগীদের কারো মধ্যেই ওমিক্রন ছিল না। তবে আউটডোর ইউনিটের রোগীদের কাছ থেকে সংগৃহীত স্যাম্পলে ওমিক্রন পাওয়া গেছে।


আরও পড়ুন:

বিশ্বে একদিনে করোনায় মৃত্যু ও শনাক্ত কমেছে

মেসি-সালাহদের পেছনে ফেলে ফের ফিফার বর্ষসেরা লেভানদোভস্কি

সাবেক সাংসদ বদির দুর্নীতির মামলা দ্রুত নিষ্পত্তির নির্দেশ


দেশে গত ২৯ জুন থেকে ৮ জানুয়ারি পর্যন্ত কোভিড-১৯ আক্রান্ত রোগীদের ৭৬৯টি জেনোম সিকোয়েন্সিং করে দেখা গেছে, মোট সংক্রমণের প্রায় ৯৮ শতাংশ ইন্ডিয়ান বা ডেল্টা ভ্যারিয়েন্ট। ১ শতাংশ সাউথ আফ্রিকান বা বেটা ভ্যারিয়েন্ট, ১ শতাংশ রোগী মরিশাস ভ্যারিয়েন্ট অথবা নাইজেরিয়ান ভ্যারিয়েন্টে আক্রান্ত। জুলাই ২০২১ থেকে ডিসেম্বর ২০২১-এর প্রথম সপ্তাহ পর্যন্ত জেনোম সিকোয়েন্স এ প্রাপ্ত ডাটা অনুযায়ী ৯৯ দশমিক ৩১ শতাংশ ডেল্টা ভ্যারিয়েন্ট, একটি করে ভ্যারিয়েন্ট অব কনসার্ন -আলফা বা ইউকে ভ্যারিয়েন্ট এবং বেটা বা সাউথ আফ্রিকান ভ্যারিয়েন্ট।    

news24bd.tv/ নাজিম

;